X
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

আগের যে কোনও বিপর্যয়কে ছাড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা

আপডেট : ২২ জুন ২০২১, ১১:৩১

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন চার হাজার ৬৩৬ জন। ২১ জুন এই তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। তার আগের দিন শনাক্ত হন তিন হাজার ৬৪১ জন। এর আগে সর্বশেষ গত ২০ এপ্রিল ২৪ ঘণ্টায় চার হাজার ৫৬৯ জন শনাক্ত হওয়ার তথ্য জানিয়েছিল অধিদফতর।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭৮ জন, তার আগের দিন ৮২ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছিল।

দেশে শনাক্ত রোগী বাড়ার পাশাপাশি বেড়েছে শনাক্তের হারও। গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ২৭ শতাংশ। এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৭৩ শতাংশ আর মৃত্যু হার এক দশমিক ৫৯ শতাংশ।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণ দেখা দেয়। ধীরে ধীরে সেটি ছড়িয়ে পরে পুরো বিশ্বে। পরের বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে বলে জানায় স্বাস্থ্য অধিদফতর। ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। গত বছরের শেষ দিকে এসে সংক্রমণ কমতে থাকে।

তবে চলতি বছরের মার্চ থেকে সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকে। সেময় দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজারের ওপরে চলে যায়। বাড়তে থাকে মৃত্যুর সংখ্যাও। একইসঙ্গে বাড়তে থাকে মৃত্যুও। গত ১৯ এপ্রিল স্বাস্থ্য অধিদফতর মহামারিকালে একদিনে সর্বোচ্চ ১১২ জনের মৃত্যুর কথা জানায়। সেসময় শনাক্ত ও মৃত্যু বাড়তে থাকায় পাঁচ এপ্রিল থেকে মানুষের চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়, যা এখনও বহাল রয়েছে।

এ বিধিনিষেধের ফলাফলে সংক্রমণ পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলেও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সে বিধিনিষেধ শিথিল হয়ে পড়ে। শহর ছেড়ে যাওয়া মানুষ গ্রামমুখী হয়, যেখানে স্বাস্থ্যবিধির কোনও বালাই ছিল না। তাতে করে জনস্বাস্থ্যবিদরা আশঙ্কা করেন ঈদের পর সংক্রমণ আবার বেড়ে যাবে।

সেইসঙ্গে দেশে ভারতীয় তথা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে রোগী বাড়তে শুরু করেছে, হাসপাতালে জায়গা দিতে করোনা বেড বাড়াতে বাধ্য হয়েছে সীমান্তবর্তী জেলা হাসপাতালগুলো।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, দেশে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সামাজিক সংক্রমণ হয়েছে। যার ফলে প্রথমে সীমান্তবর্তী জেলা এবং পরে সেসব জেলা থেকে সংক্রমণ ছড়িয়েছে পাশের জেলাগুলাতেও। যার কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সংক্রমণ ও মৃত্যু গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই বাড়ছে।

একইসঙ্গে ঢাকায় করোনা আক্রান্ত ৬০ ব্যক্তির নমুনা জিনোম সিকোয়েন্স করে ৬৮ শতাংশই ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে আইসিডিডিআরবি। মে মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু করে জুন মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত ৬০টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করা হয়েছে জানিয়ে আইসিডিডিআরবি সূত্র জানায়, সংগৃহীত নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করে দেখা গেছে এর ৬৮ শতাংশ ভারতীয় তথা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট, ২২ শতাংশ দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট এবং বাকি নমুনাগুলো ১২ শতাংশ নাইজেরিয়ার ইটা ভ্যারিয়েন্ট।

দেশে এ তিন ভ্যারিয়েন্টের উপস্থিতি এবং মানুষের স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতায় করোনা সংক্রমণ বাড়ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

রাজধানী ঢাকার সরকারি চারটি বড় হাসপাতালেই আইসিইউ (নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র) ফাঁকা নেই বলে জানা গেছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা বিষয়ক নিয়মিত বিজ্ঞপ্তিতে। আর ঢাকার বাইরের কোনও কোনও হাসপাতালে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত রোগী ভর্তি রয়েছে।

এদিকে, করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ায় চলতি জুন মাস গত মাসের মতো স্বস্তিকর যাবে না বলে মনে করছে খোদ স্বাস্থ্য অধিদফতর। গত ৬ জুন করোনা পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ভার্চুয়াল বুলেটিনে এ শঙ্কার কথা বলেন অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. রোবেদ আমিন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা করছেন তারা। তারা বলছেন, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণক্ষমতা আগের সব ভ্যারিয়েন্টের চেয়ে দ্রুত। ফলে এটা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। সেই সঙ্গে রয়েছে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতা। সীমান্তবর্তী জেলাসহ তার আশেপাশের জেলাগুলোতে হাসপাতালে উপচে পড়ছে রোগী। এখনই যদি সংক্রমণের লাগাম না টেনে রাখা যায় তাহলে করোনার এবারের ঊর্ধ্বগতি আগের সব বিপর্যয়কে ছাড়িয়ে যাবে।

কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম মনে করেন, সামনের দিনগুলোতে আরও বিপর্যয় আসছে। তার মতে, সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে না। সরকার এসব মানাতে পারবে বলেও মনে হচ্ছে না।

সামনের দিনগুলোতে ঝুঁকি বাড়বে। জুন মাসতো শেষ হয়ে গেছে প্রায়। জুলাই-আগস্ট নাগাদ এরকম বাড়তে থাকবে। তারপর হয়তো কমতে থাকবে, বলেন তিনি।

সীমান্ত দিয়ে করোনার ঊর্ধ্বগতি শুরু হয়েছিল, কিন্তু এখন সেটা পুরো দেশের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছেন রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এর উপদেষ্টা ও মহামারি বিশেষজ্ঞ ডা. মুশতাক হোসেন।

এখন সেটা জেনারালাইজড হয়ে গেছে মন্তব্য করে ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, যেসব শহরে শনাক্তের হার ১০ শতাংশের ওপরে রয়েছে এখন সেসব প্রতিটি জেলাতে চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা দরকার। এ ছাড়া তুলনামূলক কম জরুরি অফিস আদালত বন্ধ করে দেওয়াও দরকার।

আগে শনাক্তে হার ছিল ধীরগতির কিন্তু এবারে বাড়ছে দ্রুত গতিতে। আগে এটা হয়নি জানিয়ে ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, লাফিয়ে লাফিয়ে সংক্রমণ বাড়ছে। ঢাকাতে এখনও শনাক্তের হার ১০ এর নিচে রয়েছে, কিন্তু যদি সেটা ২০ শতাংশের ওপরে উঠে যায় তাহলে সব বন্ধ করেও তখন লাভ হবে না।

একইসঙ্গে সামনে রয়েছে কোরবানির ঈদ। সেসময় সারাদেশ থেকে ঢাকাতে পশু নিয়ে আসা হবে। তার আগে যদি সংক্রমণ কমানো যায় তাহলে তখন একটা ব্যালেন্স হতে পারে। কিন্তু এখন যদি সংক্রমণ বাড়তেই থাকে, আর তার সঙ্গে যদি কোরবারি ঈদের চলাচল যোগ হয়ে যায়; তাহলে সেটা জ্যামিতিক হারে বেড়ে যাবে।

তাই এখন সংক্রমণ কমানো দরকার। আগাম অ্যাকশন নিতে হবে, নয়তো এটা রোধ করা যাবে না- বলেন ডা. মুশতাক হোসেন।

সংক্রমণ আরও বাড়বে এবং এটা করোনার প্রথম এবং দ্বিতীয় ঢেউকে ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করছেন জনস্বাস্থ্যবিদ চিন্ময় দাস বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, যদি কোরবানি ঈদ পর্যন্ত সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা যায় তাহলে হয়তো একটা পর্যায়ে যাবে, নয়তো ঈদের পর এটা আরও সাংঘাতিক হবে। আরও বিপর্যয় হবে।

চিন্ময় দাস বলেন, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ ক্ষমতা অনেক বেশি। আর যখন রোগী বেশি হবে, তখন মৃত্যুও বাড়বে- এটা খুব সহজ হিসাব। ডেল্টার সামাজিক সংক্রমণ অনেক বেশি হয়েছে। গ্রাম থেকেও এখন হাসপাতালে বেডের জন্য ফোন পাচ্ছি আমরা। কাজেই ‘গ্রামে করোনা নেই’- এই ধারণা যে ঠিক নয়, এই প্রবণতার মাধ্যমে সেটাও এখন প্রমাণ হচ্ছে।

 

 

/এনএইচ/

সম্পর্কিত

ঢাকায় একদিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী

ঢাকায় একদিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী

অনুমোদন পেলো বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেট

অনুমোদন পেলো বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেট

‘সবাইকে নিয়ে সেই বিপদেই পড়তে হলো’

‘সবাইকে নিয়ে সেই বিপদেই পড়তে হলো’

ওমর ফারুকের ‘মানসিক সুস্থতা’ পরীক্ষা করবে বিএসএমএমইউ

ওমর ফারুকের ‘মানসিক সুস্থতা’ পরীক্ষা করবে বিএসএমএমইউ

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ০১:৩২

আওয়ামী লীগের উপ-কমিটি থেকে অব্যাহতি পাওয়া মহিলা বিষয়ক সম্পাদক হেলেনা জাহাঙ্গীর গ্রেফতার। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাতে গুলশান ২ নাম্বারের ৩৭ নম্বর রোডস্থ হেলেনা জাহাঙ্গীরে বাসায় অভিযান পরিচালনা শেষে তাকে আটক করা হয়।

র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উদ্বারকৃত মদ তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‍্যাব সদর দফতরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু এক ব্রিফিংয়ে বলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় অনেক কিছু পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, তার বাসায় বিদেশী মদ, হরিণের চামড়া, ক্যাসিনো খেলার সরঞ্জাম, বিদেশি মুদ্রা, ওয়াকিটকি সেট, ড্রোন ক্যামেরা, ক্যাঙ্গারু চামড়া, অনেকগুলো চাকু জব্দ করা হয়েছে বাসা থেকে।

তার বিরুদ্ধে বন্য প্রাণী আইন, মাদকদ্রব্য,বিদেশি মুদ্রা রাখার অপরাধসহ একাধিক মামলা হবে বলেও জানিয়েছে র‍্যাব।

কিছুপর মিরপুরে হেলেনার মালিকানাধীন মিরপুরস্থ জয়যাত্রা টেলিভিশন কার্যালয়ে অভিযান চালানো হবে বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের একজন কর্মকর্তা। তিনি জানান, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়াই তিনি ওই টেলিভিশন পরিচালনা করে আসছিলেন।

উদ্ধারকৃত চাকু উল্লেখ্য, সম্প্রতি আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ নামে একটি সংগঠন খুলে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন হেলেনা জাহাঙ্গীর। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে তিনি দাবি করেন, সংগঠনটির নাম এখনও সেভাবে পরিচিত না হলেও ইতোমধ্যে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ লাখ লাখ মানুষ এর সদস্য হয়েছেন। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নিয়োগের বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি দেখা গেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এ নিয়ে তীব্র সমালোচনার পর রবিবার মেহের আফরোজ চুমকি স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে তাকে বহিষ্কার করা হয়। এর আগে গত মাসে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন উত্তর জেলা সভাপতি রুহুল আমিন। ক্যাসিনো সরঞ্জাম

আরও পড়ুন-

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

/এনএল/এফএএন/

সম্পর্কিত

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

৯৯ জনকে জরিমানা র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের

৯৯ জনকে জরিমানা র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের

লকডাউন অমান্য করায় রাজধানীতে গ্রেফতার ৫৬৮

লকডাউন অমান্য করায় রাজধানীতে গ্রেফতার ৫৬৮

ডাকটিকিট প্রকাশের সুবর্ণজয়ন্তীর স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২৩:৪৬

বাংলাদেশের ডাকটিকিট প্রকাশের সুবর্ণজয়ন্তী ২০২১ সালের ২৯ জুলাই। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের এই দিনে প্রথম ৮টি ডাকটিকিট মুজিবনগর সরকার প্রকাশ করে।  মুজিবনগর সরকার প্রকাশিত এই ডাকটিকিট মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের গৌরবোজ্জ্বল অংশ। দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ডাক অধিদফতর স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করেছে। এ উপলক্ষে ভার্চুয়াল মাধ্যমে আলোচনা সভারও আয়োজন করা হয়।

এতে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বাংলাদেশের প্রথম ডাক টিকেট প্রকাশের ঐতিহাসিক গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধে মুক্তিবাহিনী ও দেশের জনগণের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ডাকবিভাগের কর্মীদের লড়াই এর কথা স্মরণ করেন ও দেশের সকল শহীদদের পাশাপাশি ডাক বিভাগের শহীদ কর্মকর্তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ডাকটিকিট একটি জাতির ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও বিশিষ্ট ব্যক্তি সম্পর্কে কথা বলে। যাদের নিয়ে ডাকটিকিট প্রকাশ করা হয়, তারা ইতিহাসের খ্যাতনামা মানুষ। মুক্তিযুদ্ধসহ শিল্প-সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে অবদান রাখা মানুষগুলোকে নিয়ে স্মারক ডাক টিকিট প্রকাশের উদ্যোগ একটি বড় মহৎ কাজ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জানান, ১৯৭১ সালের ২৯ জুলাই ভারতীয় নাগরিক বিমান মল্লিক (বিমান চাঁদ মল্লিক)- এর ডিজাইন করা আটটি ডাকটিকিট মুজিবনগর সরকার, কলকাতায় বাংলাদেশ মিশন ও লন্ডন থেকে প্রকাশিত হয়। তিনি বলেন, মুজিবনগর সরকার কূটনৈতিক প্রক্রিয়া হিসেবে স্বাধীনতার স্বপক্ষে বিশ্ব জনমত গড়ে তোলার জন্য এ উদ্যোগ গ্রহণ করে।

ডাক অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. সিরাজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন ও বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বক্তৃতা করেন। 

দিনটি উপলক্ষে ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট, ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম  ও পাঁচ টাকা মূল্যমানের একটি ডাটা কার্ড ও একটি বিশেষ সিলমোহর প্রকাশ করা হয়।  স্মারক ডাকটিকিট, উদ্বোধনী খাম ও ডাটাকার্ড বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) থেকে ঢাকা জিপিও’র ফিলাটেলিক ব্যুরো ও পরে দেশের অন্যান্য জিপিও এবং প্রধান ডাকঘর থেকে সংগ্রহ করা যাবে।

পরে মন্ত্রী বাংলাদেশের ডাকটিকিট প্রকাশের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশ ফিলাটেলিক অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত ডাকটিকিট প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন এবং এই উপলক্ষে একটি স্মারক উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন।  অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ফিলাটেলিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কাজী শরিফুল ইসলামের সভাপতিত্ব করেন।

/এইচএএইচ/এমআর/

সম্পর্কিত

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশে শিক্ষক-গবেষকদের অনুদান দেবে ঢাবি

গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশে শিক্ষক-গবেষকদের অনুদান দেবে ঢাবি

ফের বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি

ফের বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি

‘মানবপাচার মামলার প্রসিকিউশনে ত্রুটিগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে’

‘মানবপাচার মামলার প্রসিকিউশনে ত্রুটিগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে’

গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশে শিক্ষক-গবেষকদের অনুদান দেবে ঢাবি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২৩:৩১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) মৌলিক ও প্রায়োগিক গবেষণার মান ও পরিধি বাড়াতে ইমপ্যাক্ট ফ্যাক্টর সংবলিত আন্তর্জাতিক জার্নালে শিক্ষক ও গবেষকদের গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশনার জন্য অনুদান দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সিন্ডিকেট সভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

 

 

/এসএমএ/আইএ/

সম্পর্কিত

ফের বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি

ফের বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

এসএসসি-এইচএসসির অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে জরুরি নির্দেশ

এসএসসি-এইচএসসির অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে জরুরি নির্দেশ

ভিকারুননিসা অধ্যক্ষের আরেকটি ফোনালাপ ফাঁস

ভিকারুননিসা অধ্যক্ষের আরেকটি ফোনালাপ ফাঁস

ফের বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২৩:১৭

দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং এবতেদায়ি ও কওমি মাদ্রাসাগুলোর চলমান ছুটি আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সারাদেশে করোনা পরিস্থিতির আরও অবনতি হওয়ায় এবং কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকর থাকায়,  শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও সার্বিক নিরাপত্তার বিবেচনায় করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে পরামর্শক্রমে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং এবতেদায়ি ও কওমি মাদ্রাসাগুলোর  চলমান ছুটি আগামী ৩১ শে আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

উল্লেখ, দেশে করোনা রোগী শনাক্তের পর গত বছর ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণা করে সরকার। করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তায় দফায় দফায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানো হয়। সর্বশেষ ৬ আগস্ট পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়। করোনা পরিস্থিতির অবনতির কারণে আবারও ছুটি বাড়ানো হলো ৩১ আগস্ট পর্যন্ত।

/এসএমএ/এমআর/

সম্পর্কিত

গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশে শিক্ষক-গবেষকদের অনুদান দেবে ঢাবি

গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশে শিক্ষক-গবেষকদের অনুদান দেবে ঢাবি

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

এসএসসি-এইচএসসির অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে জরুরি নির্দেশ

এসএসসি-এইচএসসির অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে জরুরি নির্দেশ

ভিকারুননিসা অধ্যক্ষের আরেকটি ফোনালাপ ফাঁস

ভিকারুননিসা অধ্যক্ষের আরেকটি ফোনালাপ ফাঁস

‘মানবপাচার মামলার প্রসিকিউশনে ত্রুটিগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে’

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২২:২৪

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম বলেছেন, মানবপাচার মামলার বিচার এতো কম হয়, নয় বছরের ৩৬টি মামলায় সাজা হয়েছে। আমি মনে করি এতে পাচারকারীরা কেন উৎসাহিত হবে না? তাহলে কিভাবে বন্ধ হবে। আবার সাজাও যেটা হয় সেটাও ভালো করে প্রচার হয় না। সাজাপ্রাপ্তদের বিষয়ে প্রচারণা দরকার।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে আন্তর্জাতিক মানব পাচার বিরোধী দিবস উপলক্ষে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম আয়োজিত ‘মানবপাচার ও অনিয়মিত অভিবাসন: পরিস্থিতি বিশ্লেষণ, চ্যালেঞ্জ ও ও করনীয় শীর্ষক আলোচনায় এসব কথা বলেন তিনি।’

নাছিমা বেগম বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বলবো প্রসিকিউশনে বেশ কিছু ত্রুটি থাকে। আমরা যেন প্রসিকিউশনের ত্রুটিগুলোর দিকে খেয়াল রাখি। এখানে সিআইডি’র অনেক বড় একটা ভূমিকা আছে বলে আমি মনে করি। আবার অনেকেই মানবাপাচারের শিকার হয়ে ফেরত এসে বিচার চায় না। এ জায়গাগুলোতেও আমাদের কাজ করতে হবে, তাদেরকে মোটিভেশন করা দরকার।

তিনি আরও বলেন, আইনের অনেক কঠোর প্রয়োগ করতে হবে। অনেক ভালো আইন আছে আমাদের। কিন্তু প্রয়োগ হয় না। আগামী রবিবার – সোমবারের মধ্যে আমার এখান থেকে একটা চিঠি যাবে। চিঠিতে আমরা বলবো পুলশ প্রশিক্ষণ একাডেমিসহ সব বিভাগে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান আইন এবং মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন ভালো করে শেখানোর জন্য। পাশাপাশি প্রশিক্ষণের সময় মানবাধিকারে যে মৌলিক বিষয়গুলো আছে, এগুলোকে মানবিক মূল্যবোধের দৃষ্টিকোণ থেকে মানবাধিকার নিয়ে যারা কাজ করে সবার ভেতরে একটা বোধ যেন গড়ে তোলা যায়। 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (রাজনৈতিক ও আইসিটি) জি এস এম জাফরুল্লাহ বলেন, যে কয়টি মামলা এখন পর্যন্ত নিষ্পত্তি হয়েছে এটি মোটেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যাক না। এই নিষ্পত্তির পরিমাণ বাড়াতে হবে। এসব মামলা নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে যেসব অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে পুলিশ প্রশাসনসহ সবাইকে সেটা নিয়ে আমাদের সবাইকে কাজ করতে হবে। পাচার রোধে ইতোমধ্যে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের সঙ্গে একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। ভারত থেকে একটি কমন স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসেডিউর (এসওপি) তৈরির কাজ চলছে। 

জনশক্তি , কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) মহাপরিচালক শহীদুল আলম, এনডিসি বলেন, যারা বিদেশে যাচ্ছে কাজের উদ্দেশ্যে তারা কোথায় যাচ্ছে,  কীভাবে যাচ্ছে, কত টাকা বেতনে যাচ্ছে এসব দেখার প্রয়োজনই মনে করে না। আমরা স্লোগান দিয়েছিলাম- ‘মুজিব বর্ষের আহ্বান, দক্ষ হয়ে বিদেশ যান’ সেটি কেউ কর্ণপাতই করছে না। আমাদের প্রবণতা এমন যে –এখনই বিদেশ পাঠাতে হবে। ২ লাখ টাকার বেশি কোন দেশে যেতে খরচ হওয়ার কথা না। কিন্তু বাস্তবতা একদমই ভিন্ন।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) মানবপাচার বিষয়ক সেলের বিশেষ পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান বলেন, পাচারের শিকার ব্যক্তির তথ্য না পাওয়া যাওয়ায় কিছু মামলার কার্যক্রম বিলম্ব হয়। সেই তথ্য না পেলে মামলা নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় না। বিদেশে যারা নির্যাতিত হচ্ছে এবং হয়ে ফেরত আসছে সংশ্লিষ্ট দেশে আমাদের দূতাবাস কাজ করছে। নির্যাতন কিন্তু ওইদেশের আইনেও অপরাধ। ভিক্টিমদের সেখানে স্থানীয় যে আইনগত সহায়তা বিষয় আছে সেগুলো কিন্তু আমরা দেখছি। মাঝে মাঝে কিছু দেশ থেকে নারীকর্মীর অনেকেই শিশুসহ দেশে ফেরত আসেন, তিনি কীভাবে সেই শিশুটিকে নিয়ে ফেরত আসলো। তাদের তো সেখানে স্থানীয় একটা আইন আছে। সেই আইনে যদি বিচার হতো তাহলে কিন্তু এই ধরনের অপরাধগুলো কমে যেতো। আবার ফেরত আসার সময় সংশ্লিষ্ট দেশের পুলিশের পাছে লিখিত দিয়ে আসে যে তাকে কোনও প্রকার নির্যাতন করা হয়নি, সে স্বেচ্ছায় দেশে ফেরত যাচ্ছে। আমরা যখন দূতাবাসের কাছে চাই তখন সেদেশের সরকার এই ধরনের ফিডব্যাক দেয়। ফলে দেশে এসে করা এই মামলাগুলোর তদন্ত করতেও আমাদের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাছাড়া মামলার ক্ষেত্রে একটা বড় অংশ কিন্তু আপস করে ফেলে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্র্যাকের সিনিয়র পরিচালক এম মোর্শেদ। এছাড়া মানবপাচার পরিস্থিতি নিয়ে প্রতিবেদন তুলে ধরেন ব্র্যাকের মাইগ্রেশন বিভাগের প্রধান শরিফুল হাসান।

 

/এসও/এফএএন/ 

সম্পর্কিত

সৌদি আরব থেকে ফেরত পাঠালে হজ-ওমরাহ ছাড়া প্রবেশ করা যাবে না

সৌদি আরব থেকে ফেরত পাঠালে হজ-ওমরাহ ছাড়া প্রবেশ করা যাবে না

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

সুন্দরবন যেমন আছে তেমনই থাকতে দিন: সুলতানা কামাল

সুন্দরবন যেমন আছে তেমনই থাকতে দিন: সুলতানা কামাল

সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে: খেলাফত মজলিস

সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে: খেলাফত মজলিস

সর্বশেষ

কিউবায় আটক বিক্ষোভকারীদের মুক্তি দাবি ইউরোপীয় ইউনিয়নের

কিউবায় আটক বিক্ষোভকারীদের মুক্তি দাবি ইউরোপীয় ইউনিয়নের

তিউনিসিয়াকে গণতান্ত্রিক পথে ফেরার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

তিউনিসিয়াকে গণতান্ত্রিক পথে ফেরার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

অগ্নিকাণ্ডের ১৫ দিনেও চালু হয়নি আইসিইউ

অগ্নিকাণ্ডের ১৫ দিনেও চালু হয়নি আইসিইউ

মেঘনায় ট্রলারডুবিতে একজনের মৃত্যু, জীবিত উদ্ধার ১১

মেঘনায় ট্রলারডুবিতে একজনের মৃত্যু, জীবিত উদ্ধার ১১

সংঘর্ষে নিহত নন, তালেবানের হাতে ‘খুন’ হয়েছেন দানিশ সিদ্দিকি

সংঘর্ষে নিহত নন, তালেবানের হাতে ‘খুন’ হয়েছেন দানিশ সিদ্দিকি

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

রামেবির প্রতিষ্ঠাকালীন উপাচার্য মাসুম হাবিব আর নেই

রামেবির প্রতিষ্ঠাকালীন উপাচার্য মাসুম হাবিব আর নেই

গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৫০০ ঘরের বস্তিটি

গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৫০০ ঘরের বস্তিটি

অবিবাহিত বড় ভাই, আত্মহত্যা ছোট ভাইয়ের

অবিবাহিত বড় ভাই, আত্মহত্যা ছোট ভাইয়ের

ভারতকে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজের বদলা নিলো শ্রীলঙ্কা

ভারতকে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজের বদলা নিলো শ্রীলঙ্কা

লেনোভো বাজারে নিয়ে এলো দুটি নতুন ট্যাব

লেনোভো বাজারে নিয়ে এলো দুটি নতুন ট্যাব

জ্বর-শ্বাসকষ্টে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু

জ্বর-শ্বাসকষ্টে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঢাকায় একদিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী

ঢাকায় একদিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী

অনুমোদন পেলো বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেট

অনুমোদন পেলো বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেট

‘সবাইকে নিয়ে সেই বিপদেই পড়তে হলো’

‘সবাইকে নিয়ে সেই বিপদেই পড়তে হলো’

ওমর ফারুকের ‘মানসিক সুস্থতা’ পরীক্ষা করবে বিএসএমএমইউ

ওমর ফারুকের ‘মানসিক সুস্থতা’ পরীক্ষা করবে বিএসএমএমইউ

মাস্ক সঙ্গে থাকলেই হবে?

মাস্ক সঙ্গে থাকলেই হবে?

ঢাকায় আরও ১৫০ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

ঢাকায় আরও ১৫০ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

মডার্না ও সিনোফার্মের প্রায় আড়াই লাখ ডোজ দেওয়া হয়েছে আজ  

মডার্না ও সিনোফার্মের প্রায় আড়াই লাখ ডোজ দেওয়া হয়েছে আজ  

কোথায় গেলে একটা সিট পাবো?

কোথায় গেলে একটা সিট পাবো?

ঢাকায় সরকারি আইসিইউ ফাঁকা মাত্র ২২টি

ঢাকায় সরকারি আইসিইউ ফাঁকা মাত্র ২২টি

দেড় হাজার ছাড়িয়েছে ডেঙ্গু রোগী

দেড় হাজার ছাড়িয়েছে ডেঙ্গু রোগী

© 2021 Bangla Tribune