X
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

করোনাকালে প্রযুক্তির উত্থান

আপডেট : ০২ জুলাই ২০২১, ১৮:৫৫

মহামারি করোনাভাইরাস বিভিন্ন খাতকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করলেও প্রযুক্তি খাতের অগ্রগতিকে ত্বরান্বিত করেছে। মানুষ এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি প্রযুক্তিনির্ভর। বিশ্বজুড়ে সব বয়সী মানুষের কাছেই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে প্রযুক্তিগত সব সুবিধা। ফলে অনেক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান করোনার কারণে সুসংহত হয়েছে, দেখেছে লাভের মুখ। অবশ্য এর ব্যতিক্রমও আছে। কিছু প্রতিষ্ঠান মহামারির কারণে ক্ষতির মুখে পড়েছে।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, বিশ্বজুড়ে আমূল এক পরিবর্তন নিয়ে এসেছে মহামারি করোনাভাইরাস। এ কারণে মানুষ তাদের অভ্যাস পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও নতুন জীবনধারণ পদ্ধতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিচ্ছে তারা। এতে প্রযুক্তি ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে। দেখা যাচ্ছে, আগামী কয়েক বছরে যত সংখ্যক ব্যবহারকারী প্রযুক্তি জগতে আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছিল, তার চেয়ে বেশি ব্যবহারকারী এরই মধ্যে ক্ষেত্রটিতে প্রবেশ করেছে। এই পরিস্থিতিকে ‘প্রযুক্তির বিস্ফোরণ’ বলেও উল্লেখ করছেন কেউ কেউ।

লকডাউনের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বেড়েছে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা। বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে এই সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়েছে। তাঞ্জানিয়ার সরকারি এক হিসাবে বলা হয়, মহামারি করোনাভাইরাসের আগে দেশটিতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ৫০ লাখ। তবে এখন সেখানে ২ কোটি ৯০ লাখ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। অর্থাৎ, করোনার কারণে দেশটিতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে প্রায় ৯৩ শতাংশ। শুধু তাঞ্জানিয়া নয়, পৃথিবীর অনেক দেশেই এভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার বেড়েছে।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গুরুত্ব বেড়েছে ই-লার্নিংয়ের। এই প্লাটফর্মের মাধ্যমে এখন ঘরে বসেই ক্লাস করতে পারছে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শুধু শিক্ষাক্ষেত্রে নয়, কর্মক্ষেত্রেও ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে করোনার কারণে। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানই আগে ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোমে’ বিশ্বাসী ছিল না। তবে পরিস্থিতি পাল্টেছে। অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা এখন বাসায় থেকেই কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন। করোনার প্রকোপ পুরোপুরি কমে গেলেও কোনও কোনও প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের বাসায় থেকে কাজের সুযোগ দেবে বলে জানিয়েছে। এর কারণ, কর্মীরা বাসায় থেকে কাজ করলে প্রতিষ্ঠানের অনেক অর্থ সাশ্রয় হয়। এগুলোর পাশাপাশি করোনার সময়ে ই-কমার্স অনেক সম্প্রসারিত হয়েছে। বিনোদনের অনলাইন প্লাটফর্মগুলোও এখন আগের চেয়ে অনেক চাঙা।

করোনা মহামারির সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ব্যবহারের হার বেড়েছে বলে বিভিন্ন প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। লকডাউনের কারণে মানুষকে ঘরে বসেই করতে হচ্ছে অনেক কাজ। এই পরিস্থিতিতে প্রযুক্তিসেবা ব্যবহারকারীদের আরও বেশি সুবিধা দিতে নতুন কিছু ফিচার নিয়ে এসেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো। করোনার সময়ে ফেসবুক চালু করেছে ‘মেসেঞ্জার রুমস’ ফিচার। এটি জুম, স্কাইপ, গুগল মিট ও মাইক্রোসফট টিমসের মতোই কাজ করে।

ফেসবুকের মেসেঞ্জার রুমস ফিচারের মাধ্যমে একসঙ্গে ৫০ জন ভিডিও কলে যুক্ত হওয়া যায়। এ ক্ষেত্রে প্রথমে একজনকে ফেসবুক বা মেসেঞ্জারের মাধ্যমে চ্যাটরুম খুলতে হবে। পরে সেখানে ৪৯ জনকে আমন্ত্রণ জানানো যায়। কারও ফেসবুক অ্যাকাউন্ট না থাকলেও চ্যাটরুমে যুক্ত হতে পারবেন। এই ভিডিও কল যতক্ষণ ইচ্ছা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব।

করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করার পরই ভিডিও কলের জন্য জুম অ্যাপ জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। গত বছর জুলাইয়ের শেষ দিকে ভারতের প্রযুক্তিবিষয়ক সংবাদমাধ্যম গেজেটস নাউ জানায়, যুক্তরাষ্ট্রে অ্যাপ স্টোরের আগের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে জুম। ২০২০ সালের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে জুম অ্যাপ ডাউনলোড হয় ৯৪ মিলিয়ন বার। এর আগে এই রেকর্ড ছিল টিকটকের। বছরের প্রথম তিন মাসে ৬৭ মিলিয়নবার ডাউনলোডের রেকর্ড গড়েছে অ্যাপটি।

করোনার কারণে জুম অ্যাপ তুমুল জনপ্রিয়তা পেলেও নিরাপত্তা ও ব্যক্তিগত গোপনীয়তা ইস্যুতে এটি বেশ সমালোচনার মুখে পড়ে। এ কারণে ব্যবহাকারীরা বিকল্প কোনও প্ল্যাটফর্ম চাইছিলেন, যা দিয়ে ভিডিও কল করা যায়। ব্যবহারকারীদের চাহিদা পূরণে অবশেষে মেসেঞ্জার রুমস চালু করে ফেসবুক।

করোনার মধ্যেই মেসেঞ্জারে ‘স্ক্রিন শেয়ারিং’ ফিচারও নিয়ে এসেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। এই ফিচারের সাহায্যে বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলা, গ্রুপ চ্যাটে থাকা কিংবা মেসেঞ্জার রুমে থাকা অবস্থায় নিজের ডিভাইসের স্ক্রিন অন্যদের সঙ্গে শেয়ার করা যাবে। অর্থাৎ, আপনার ডিভাইসের স্ক্রিনে কী আছে তা চাইলেই অন্যদের দেখাতে পারবেন। এখন গ্রুপ চ্যাটে সর্বোচ্চ ৮ জনের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করা যায় এবং মেসেঞ্জার রুমসে এটি করা যায় ১৬ জনের সঙ্গে।

করোনার সময়ে ইনস্টাগ্রামও বেশকিছু আপডেট নিয়ে এসেছে। এরমধ্যে অন্যতম একটি—থার্ড পার্টি ফ্যাক্ট চেকের ব্যবহার। করোনা সম্পর্কিত গুজব ছড়ানো প্রতিরোধে এই ফিচার চালু করে ইনস্টাগ্রাম। শুধু তাই নয়, যেসব অ্যাকাউন্টে করোনা সম্পর্কিত কনটেন্ট আছে সেসব অ্যাকাউন্টকে রিকমেন্ডেশন থেকে সরিয়ে দিয়েছে তারা। তবে বিশ্বাসযোগ্য অ্যাকাউন্টের (যেমন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা) ক্ষেত্রে সেটি করা হচ্ছে না। টুইটারও গুজব প্রতিরোধের বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে। এজন্য নতুন আপডেটের মাধ্যমে মানুষকে বিশ্বাসযোগ্য তথ্য পাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে তারা।

করোনাভাইরাসের কারণে ভিডিও কলের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সংশ্লিষ্ট ফিচারের আপডেট করেছে হোয়াটসঅ্যাপও। আপডেটের কারণে এখন একসঙ্গে ৮ জন হোয়াটসঅ্যাপে ভিডিও কল করতে পারেন। আগে ৪ জন হোয়াটসঅ্যাপ ভিডিও কলে যুক্ত হতে পারতেন। এভাবে প্রায় প্রতিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম করোনার সময়ে ব্যবহারকারীদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে পাশে দাঁড়িয়েছে। কারও কারও দাবি, মানুষের উপকারে অন্য যেকোনও সময়ের চেয়ে এখন বেশি কার্যকর ভূমিকা পালন করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো।

/এইচএএইচ/আইএ/

সম্পর্কিত

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

কাওরান বাজারে হচ্ছে ‘ভিশন ২০২১’ টাওয়ার

কাওরান বাজারে হচ্ছে ‘ভিশন ২০২১’ টাওয়ার

প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে চালু হলো ‘অরিজিনাল স্টোর’

প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে চালু হলো ‘অরিজিনাল স্টোর’

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে

‘বাংলায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং শিশুদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:০৩

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল প্রযুক্তি শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে মাতৃভাষার চেয়ে ভাল কিছু হতে পারে না।  বাংলায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং টুলস উদ্ভাবন শিশুদের প্রোগ্রামিং শেখার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ।  

তিনি মনে করেন, ছোটদের জন্য প্রোগ্রামিং শিক্ষার সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হতে পারে স্ক্র্যাচ। তিনি এ ব্যাপারে প্রযুক্তিবিদ, শিক্ষাবিদ, সরকার ও ট্রেডবডিসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

মন্ত্রী শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় বিডিওএসএন আয়োজিত স্ক্র্যাচ প্রোগ্রাম’র বাংলা সংস্করণ’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অ্যাসোসিও-এর সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ এইচ কাফী, কম্পিউটার সার্ভিসেস লিমিটেড’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মামলুক ছাবির আহমেদ, বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক’র সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

সভাপতির বক্তৃতায় ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় শিশুদেরকে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে ডিজিটাল প্রযুক্তি শিক্ষায় গুরুত্ব দিতে হবে। বাংলা ভাষায় প্রযুক্তি শিক্ষার বিকল্প নেই বলে তিনি মন্তব্য করেন।

/এইচএএইচ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

ই-কমার্সের অর্থ ফিরিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রকেই নিতে হবে: টিক্যাব

ই-কমার্সের অর্থ ফিরিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রকেই নিতে হবে: টিক্যাব

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

ব্যক্তিগত ছবি-ভিডিও’র নিরাপত্তায় গুগল ফটোজে নতুন ফিচার

ব্যক্তিগত ছবি-ভিডিও’র নিরাপত্তায় গুগল ফটোজে নতুন ফিচার

দেশের স্টার্টআপগুলোতে আসছে বিদেশি বিনিয়োগ

দেশের স্টার্টআপগুলোতে আসছে বিদেশি বিনিয়োগ

ই-কমার্সের অর্থ ফিরিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রকেই নিতে হবে: টিক্যাব

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৮

ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, সিরাজগঞ্জ শপ, ধামাকাসহ বিভিন্ন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানে যেসব গ্রাহক অর্থ পরিশোধের পরও পণ্য পাননি তাদের সে টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রকে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে টেলি কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিক্যাব)। 

টিক্যাব থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। 

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর তোপখানা রোডের রেলপোষ্য সোসাইটি মিলনায়তনে টিক্যাবের উদ্যোগে আয়োজিত ‘ই-কমার্সের নামে গ্রাহকের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার মহোৎসব: দায়টা আসলে কার?’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ আহ্বান জানায় সংগঠনটি।

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে টিক্যাবের আহ্বায়ক মুর্শিদুল হক বলেন, ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের কর্ণধাররা এখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে বন্দি। এ অবস্থায় নিজেদের অর্থ ফিরে পাওয়া নিয়ে আতঙ্কিত তাদের লাখ লাখ গ্রাহক। শুধু এ দুটি প্রতিষ্ঠানই নয়, প্রতিদিনই নতুন নতুন প্রতিষ্ঠানের নামে সারা দেশে একই কায়দায় লোভনীয় অফারের ফাঁদে ফেলে গ্রাহকদের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠছে।

তিনি বলেন, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর এমন প্রতারণা প্রকাশের পর এখন প্রশ্ন হচ্ছে এর দায় কার? অবশ্যই এর প্রধান দায় প্রতারক চক্রের। এরপর দায় সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরের, যারা সময়মতো তদারকি করে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি। আর কিছুটা দায় গ্রাহকদের ওপরেও বর্তায়, যারা বাস্তবতা বিবেচনা না করে লোভনীয় অফারে আকৃষ্ট হয়েছেন। দায় যারই হোক, গ্রাহকরা রাষ্ট্রের নাগরিক। 

এ সময় টিক্যাবের পক্ষ থেকে ৪টি প্রস্তাবনা পেশ করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জে অবিলম্বে প্রশাসক নিয়োগ, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মাধ্যমে একটি বিশেষ সেল গঠন, ডিজিটাল কমার্স নির্দেশিকা-২০২১ এর পাশাপাশি এখাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা, প্রতারণা ঠেকানো ও গ্রাহকদের স্বার্থ সুরক্ষায় ‘আইন’ প্রণয়ন এবং ই-কমার্স খাতের প্রতি গ্রাহকদের আস্থা টিকিয়ে রাখতে একটি আলাদা কমিশন গঠন করা।

/এইচএএইচ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

‘বাংলায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং শিশুদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’

‘বাংলায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং শিশুদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

ব্যক্তিগত ছবি-ভিডিও’র নিরাপত্তায় গুগল ফটোজে নতুন ফিচার

ব্যক্তিগত ছবি-ভিডিও’র নিরাপত্তায় গুগল ফটোজে নতুন ফিচার

দেশের স্টার্টআপগুলোতে আসছে বিদেশি বিনিয়োগ

দেশের স্টার্টআপগুলোতে আসছে বিদেশি বিনিয়োগ

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:০৬

দেশ পেতে যাচ্ছে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল। ক্যাবলের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সি-মি-উই-৬ কনসোর্টিয়ামের সঙ্গে  কনস্ট্রাকশন অ্যান্ড মেইটেনেন্স এগ্রিমেন্ট ও কনসোর্টিয়ামের সরবরাহকারীদের সঙ্গে চুক্তি সই হয়েছে। আর এর মাধ্যমে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশের যুক্ত হওয়ার আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হলো।

এদিকে বেসরকারিভাবেও সাবমেরিন ক্যাবলে সংযুক্ত হওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এ লক্ষ্যে দু’টি কোম্পানিকে লাইসেন্স দেওয়া হবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে এ বিষয়ে চুক্তি সই উপলক্ষে ঢাকায় হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিসিএল) আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই কার্যক্রমের শুভ যাত্রা ঘোষণা করেন। ২০২৪ সালের মধ্যে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলটি চালু হবে বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, ‘আগামী দিনে ডিজিটাল সংযুক্তির বর্ধিত চাহিদা পূরণের মাধ্যমে ডিজিটাল দুনিয়ার সঙ্গে সি-মি-ইউ-৬ নিরবচ্ছিন্ন সংযোগ স্থাপনে অভাবনীয় অবদান রাখবে।’ 

বিএসসিসিএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন, বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার এবং সি-মি-ইউ-৬ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক কামাল আহমেদ বক্তব্য রাখেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সাবমেরিন ক্যাবলকে দেশের অত্যন্ত অপরিহার্য টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘বিনা মাশুলে ১৯৯২ সালে বাংলাদেশে সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে তৎকালীন সরকার বাংলাদেশকে ১৪ বছর তথ্যপ্রযুক্তি দুনিয়া থেকে পিছিয়ে রাখে।’

তিনি জানান, সাব সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনের তিনটি প্রস্তাবকে প্রাথমিকভাবে বাছাই করা হয়। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে একনেক সভায় তা অনুমোদিত হয়। পরবর্তীতে বিশ্বব্যাপী চলমান করোনা মহামারির কারণে কনসোর্টিয়াম  সরবরাহকারী নির্বাচনে বেশ বিলম্ব হয়। ফলে  ২০২০ সালের ডিসেম্বরের  মধ্যে কনসোর্টিয়ামের প্রস্তাবিত  কার্যাবলি চালু করার পরিকল্পনা থাকলেও তা পিছিয়ে ২০২৪ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে নির্ধারণ করা হয়।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব ও বাংলাদেশ সাবমেরিন কোম্পানি লিমিটেডের পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আফজাল হোসেন সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানির পক্ষে চুক্তিতে সই করেন। কনসোর্টিয়ামের সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলো নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে নিজ নিজ দেশ থেকে অনুরূপ চুক্তিতে সই করে কনসোর্টিয়ামের অস্থায়ী সদর দফতর সিঙ্গাপুরে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পাঠাবে বলে জানানো হয়। 

প্রসঙ্গত, ২০০৬ সালের প্রথম দিকে দেশে প্রথম সাবমেরিন  ক্যাবল কমিশনিং করা হয়। ২০২৪ সাল নাগাদ দেশে ৬ হাজার জিবিপিএস’র (গিগাবিটস পার সেকেন্ড) বেশি আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইথের প্রয়োজন হবে। সি-মি-ইউ-৬ সাবমেরিন ক্যাবল দিয়ে দেশে ১২ টেরাবাইট ব্যান্ডউইথ আসবে বলে জানা গেছে।

সি-মি-ইউ-৬ কনসোর্টিয়ামে যোগদানকারী ১৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে—সিংটেল সিঙ্গাপুর, বিএসসিসিএল বাংলাদেশ, টেলিকম মালয়েশিয়া, এসএলটি শ্রীলঙ্কা, ধিরাগু মালদ্বীপ, এনআইটুআই ভারত, টিডব্লিউএ পাকিস্তান, জিবুতি টেলিকম, জিবুতি, মোবিলিংক সৌদি আরব, চায়না মোবাইল ইন্টারন্যাশনাল চায়না, টেলিকম গ্লোবাল লিমিটেড চায়না, ইউনিকম চায়না, মাইক্রোসফট যুক্তরাষ্ট্র, টেলিকম ইজিপ্ট মিসর ও অরেঞ্জ ফ্রান্স।

বেসরকারিভাবে আসছে ২টি সাবমেরিন ক্যাবল

সরকার বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে সাবমেরিন ক্যাবলে সংযুক্ত হওয়ার লাইসেন্স দেবে। জানা গেছে, টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি লাইসেন্সিং গাইডলাইন হাল নাগাদের কাজ করছে। বেসরকারি খাতের দুটি প্রতিষ্ঠানকে এ লাইসেন্স দেওয়া হতে পারে। লাইসেন্স প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ক্যাবল লাইন তৈরি, পরিচালনা, সাবমেরিন ক্যাবল সিস্টেম মেরামত ও সেবার কাজ করবে।

এ বিষয় ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেছেন, প্রাথমিকভাবে আমরা বেসরকারি খাতে দুটি সাবমেরিন ক্যাবলের লাইসেন্স দেবো।

/এইচএএইচ/এপিটএইচ/

সম্পর্কিত

কাওরান বাজারে হচ্ছে ‘ভিশন ২০২১’ টাওয়ার

কাওরান বাজারে হচ্ছে ‘ভিশন ২০২১’ টাওয়ার

প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে চালু হলো ‘অরিজিনাল স্টোর’

প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে চালু হলো ‘অরিজিনাল স্টোর’

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে

নতুন ফিচার আনলো ফেসবুক

নতুন ফিচার আনলো ফেসবুক

ব্যক্তিগত ছবি-ভিডিও’র নিরাপত্তায় গুগল ফটোজে নতুন ফিচার

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:১৩

ফটোজে নতুন প্রাইভেসি ফিচার যুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছে গুগল। এই ফিচারের নাম ‘লকড ফোল্ডার’। অ্যান্ড্রয়েড ৬ এবং তার ওপরের সব ভার্সন ব্যবহারকারীরা ফিচারটি ব্যবহার করতে পারবেন।

ভারতের প্রযুক্তি বিষয়ক সংবাদমাধ্যম গেজেটস নাউ এক প্রতিবেদনে জানায়, গুগল ফটোজে থাকা সব ছবি ও ভিডিও থেকে ব্যবহারকারী তার ইচ্ছেমতো কিছু ছবি ও ভিডিওকে লকড ফোল্ডারে আলাদা করে রাখতে পারবেন। এতে ফটোজে প্রবেশ করেও কেউ কারও ব্যক্তিগত ছবি বা ভিডিও দেখতে পারবে না। এমনকি লকড ফোল্ডারে রাখা ছবি বা ভিডিওতে প্রবেশ করতে পারবে না অন্য কোনও অ্যাপও।

চলতি বছরের জুনে আইও কনফারেন্সে গুগল ফটোজে লকড ফোল্ডার ফিচার আনার ঘোষণা দেয় গুগল। এরপর শুধু পিক্সেল ফোনের জন্য সুবিধাটি চালু হয়। এবার সবার জন্য লকড ফোল্ডার চালু হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছে গুগল কর্তৃপক্ষ। তবে এই ফিচার ব্যবহার করতে হলে আপনাকে অবশ্যই অ্যান্ড্রয়েড ৬ বা তার ওপরের কোনও ভার্সন ব্যবহার করতে হবে।

গুগল ফটোজের বহুল প্রত্যাশিত এ ফিচার ঠিক কবে সবার জন্য চালু হচ্ছে তা জানায়নি কর্তৃপক্ষ। অবশ্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে ফিচারটি পাওয়া যাবে বলে নিশ্চিত করেছেন প্রতিষ্ঠানটির একজন মুখপাত্র। কেউ কেউ বলছেন, এক মাসের মধ্যে লকড ফোল্ডার ফিচার পেতে যাচ্ছেন ব্যবহারকারীরা।

লকড ফোল্ডার ফিচার আসলে কী

অনেক ব্যবহারকারী তাদের কোনও কোনও ছবি কারও সঙ্গে শেয়ার করতে চান না। ফলে সেগুলোকে আরও বেশি সুরক্ষিত রাখতে চান তারা। ব্যবহারকারীদের এ চাওয়াটিই পূরণ করবে লকড ফোল্ডার ফিচার। এই ফিচারের মাধ্যমে গুগল ফটোজে ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও পাসওয়ার্ড দ্বারা সুরক্ষিত থাকবে।

ফটোজের লকড ফোল্ডারে নিয়ে যাওয়া ছবি বা ভিডিও কারও সঙ্গে শেয়ার করা যাবে না। এমনকি সেখান থেকে স্ক্রিনশটও নিতে পারবেন না কেউ। লকড ফোল্ডারে শুধু দুটি কাজ করা যাবে। হয়তো সেই ফোল্ডারে থাকা ছবি বা ভিডিও স্থায়ীভাবে ডিলিট করে দিতে হবে নয়তো সংশ্লিষ্ট ছবি বা ভিডিওকে লকড ফোল্ডারের বাইরে নিয়ে আসতে হবে।

 

/এইচএএইচ/আইএ/

সম্পর্কিত

গুগলও আনছে ফোল্ডেবল স্মার্টফোন

গুগলও আনছে ফোল্ডেবল স্মার্টফোন

গুগল সার্চের ডার্ক মোড সুবিধা ডেস্কটপে চালু করবেন যেভাবে

গুগল সার্চের ডার্ক মোড সুবিধা ডেস্কটপে চালু করবেন যেভাবে

যে কারণে ৮০ কর্মীকে বরখাস্ত করেছে গুগল

যে কারণে ৮০ কর্মীকে বরখাস্ত করেছে গুগল

মহামারিকালে গুগলের আয় বাড়লো ৬২ শতাংশ

মহামারিকালে গুগলের আয় বাড়লো ৬২ শতাংশ

একমাসে এসেছে ১০০ মিলিয়ন ডলার

দেশের স্টার্টআপগুলোতে আসছে বিদেশি বিনিয়োগ

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:২৮

দেশের স্টার্টআপ খাতে এখন সুবাতাস বইছে। দেশি উদ্যোগগুলো পাচ্ছে বিদেশি বিনিয়োগ। এই বিনিয়োগ স্টার্টআপগুলো প্রযুক্তির উন্নয়ন, ব্যবসা সম্প্রসারণ, দক্ষ জনবল নিয়োগ, প্রশিক্ষণ, কাস্টমার কেয়ার সেন্টার স্থাপন, অ্যাপের উন্নয়নের কাজে ব্যয় করবে বলে জানা গেছে। গত এক মাসে দেশের স্টার্টআপগুলো ১০০ মিলয়ন ডলারের বিনিয়োগ পেয়েছে।

অতিসম্প্রতি ‘শপআপ ’ নামের একটি স্টার্টআপ ৬৪০ কোটি, ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম ‘চালডাল’ ৮৫ কোটি, অ্যাপের মাধ্যমে ট্রাক খোঁজার প্রতিষ্ঠান ‘ট্রাক লাগবে’ ৩৪ কোটি (৪০ লাখ ডলার) এবং যাত্রী সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ‘যাত্রী’ ১০ কোটি (১২ লাখ ডলার) টাকার বেশি বিনিয়োগ পেয়েছে বলে জানা গেছে।  

এ প্রসঙ্গে আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘গত ৬ বছরে স্টার্টআপে অনেক বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে। গত একমাসে ১০০ মিলিয়ন ডলার বৈদেশিক বিনিয়োগ এসেছে।’

জানা যায়, সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ এনেছে শপআপ স্টার্টআপে।  সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি ৬৪০ কোটি টাকা বিনিয়োগ পাওয়ার আগে ১৯০ কোটি টাকার বিনিয়োগ পায়। সবমিলিয়ে প্রতিষ্ঠানটিতে বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯৩৫ কোটি টাকা।

নতুন বিনিয়োগের বিষয়ে জানতে চাইলে শপআপের চিফ অব স্টাফ জিয়াউল হক বলেন, ‘এই বিনিয়োগ বাংলাদেশ এবং দেশের স্টার্টআপ কমিউনিটি উভয়ের জন্য ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে। একইসঙ্গে এ ধরনের বড় বিনিয়োগ প্রমাণ করে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এখন বাংলাদেশের ওপর আস্থা রাখছে। আমার দৃঢ় বিশ্বাস, এটা কেবল শুরু, সামনের দিনগুলোতে দেশে আরও বিনিয়োগ আসবে। দেশি স্টার্টআপের হাত ধরে এগিয়ে যাবে গোটা দেশ।’

বিনিয়োগের এই টাকা কোন খাতে ব্যয় করবে শপআপ, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিনিয়োগের এই টাকা বিবিধ খাতে ব্যয় হবে। শপআপের সামগ্রিক ব্যবসায়িক সম্প্রসারণ আমাদের একটা বড় টার্গেট। এই সম্প্রসারণের উদ্দেশ্যে আমরা আরও  ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ডিজিটালাইজেশনের পথে নিয়ে আসবো। তাছাড়া অবকাঠামোগত উন্নয়নে আমাদের নজর থাকবে। শপআপের ভিশন দেশের ৪৫ লাখ স্মল রিটেইলারকে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির চালকের আসনে বসানো।’

এদিকে ‘চালডাল’ পেয়েছে ৮৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ। চালডালের নতুন বিনিয়োগকারীদের প্রধান হলেন লন্ডনভিত্তিক আর্থিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ‘ওয়াইজ’র সহপ্রতিষ্ঠাতা টাভেট হিনরিকাস। এছাড়া টপিকার প্রধান পণ্য কর্মকর্তা স্টেন টামকিভি, বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান এক্সপ্লোরেশন ক্যাপিটাল এবং   বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান মীর গ্রুপ চালডালের বিনিয়োগকারী।

জানতে চাইলে চালডালের প্রধান নির্বাহী ওয়াসীম আলীম বলেন, ‘বিনিয়োগ তো খুবই প্রয়োজন। প্রতিষ্ঠানের বিকাশে, উন্নয়নে বিনিয়োগের কোনও বিকল্প নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের স্থাবর কোনও সম্পদ নেই। এটা একটা সমস্যা ব্যাংক ঋণ পেতে। ফলে এ ধরনের বিনিয়াগ সেই সমস্যা দূর করে।’

এই নতুন বিনিয়োগ দিয়ে চালডালের অবকাঠামো গড়ে তোলা হবে বলে তিনি জানান। এর মধ্যে আছে ওয়্যার হাউজ, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, কোল্ড স্টোরেজ নির্মাণ কাজ ইত্যাদি।

‘ট্রাক লাগবে’ নতুন বিনিয়োগ পেয়েছে ৩৪ কোটি টাকা। এটা দিয়ে ‘ট্রাক লাগবে’ সারা দেশের ২২টি জেলায় কাস্টমার সেন্টার তৈরি করতে চায়। এছাড়া ট্রাক চালকদের এই প্ল্যাটফর্মে যুক্ত করা, প্রশিক্ষণের মতো উদ্যোগ গ্রহণ করবে প্রতিষ্ঠানটি।

ট্রাক লাগবে’র প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা এনায়েত রশিদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘উদ্যোগ বড় করতে এসব বিনিয়োগ খুব প্রয়োজন। আমাদের প্রতিষ্ঠান গ্রোথ স্টেজে এই ফান্ড পেয়েছে। গ্রোথ এবং ইনোভেশন পর্যায়ে এটা কাজে লাগবে।’

তিনি বলেন, ‘এই বিনিয়োগ আমাদের অ্যাপের (ট্রাক লাগবে) উন্নয়ন, অ্যাপের বাইরে যারা আছে, তাদের এই সেবার আওতার আনার পেছনে ব্যয় করা হবে।’ বিশেষভাবে তিনি উল্লেখ করেন, এটা টেকবেজড কাজ। আমরা টেকের পেছনেই বিনিয়োগ করবো।

এদিকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় গণপরিবহনে অ্যাপের মাধ্যমে টিকিটিং সেবাদানকারী স্টার্টআপ ‘যাত্রী’ পেয়েছে ১০ কোটি টাকার কিছু বেশি বিনিয়োগ। পরবর্তী সময় এই স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান ঢাকার বাইরেও তাদের সেবা সম্প্রসারিত করেছে। যাত্রীতে প্রি সিরিজ-এ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান হলো চীনের প্রতিষ্ঠান রিফ্লেক্ট, সিঙ্গাপুরভিত্তিক প্রতিষ্ঠান বিটিএফভি ভিশন ফান্ড ও এসবিকে টেক ভেঞ্চার।

এর আগে দেশের অনেক স্টার্টআপ বিভিন্ন সময়ে বিনিয়োগ পেয়েছে। তবে সম্প্রতি বড় কয়েকটি বিনিয়োগ দেশে আসায় স্মার্টআপ খাত নিয়ে ইতিবাচক অলোচনা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

/এপিএইচ/ইউএস/
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের চুক্তি সই, বেসরকারিভাবেও আসছে ২টি

কাওরান বাজারে হচ্ছে ‘ভিশন ২০২১’ টাওয়ার

কাওরান বাজারে হচ্ছে ‘ভিশন ২০২১’ টাওয়ার

প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে চালু হলো ‘অরিজিনাল স্টোর’

প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে চালু হলো ‘অরিজিনাল স্টোর’

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে

নতুন ফিচার আনলো ফেসবুক

নতুন ফিচার আনলো ফেসবুক

ওয়ালটন নিয়ে এলো নতুন ট্যাব

ওয়ালটন নিয়ে এলো নতুন ট্যাব

স্মার্ট ফোন অতিরিক্ত গরম হওয়া ঠেকাবেন যেভাবে

স্মার্ট ফোন অতিরিক্ত গরম হওয়া ঠেকাবেন যেভাবে

জাভা পেশাজীবীদের নিয়ে আন্তর্জাতিক প্রযুক্তি সম্মেলন অনুষ্ঠিত

জাভা পেশাজীবীদের নিয়ে আন্তর্জাতিক প্রযুক্তি সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ফেসবুকে ভুয়া তথ্যে মানুষের অংশগ্রহণ বেশি

ফেসবুকে ভুয়া তথ্যে মানুষের অংশগ্রহণ বেশি

ইউটিউবকে পেছনে ফেলেছে টিকটক

ইউটিউবকে পেছনে ফেলেছে টিকটক

সর্বশেষ

‘বাংলায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং শিশুদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’

‘বাংলায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং শিশুদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’

ছাত্রীদের অনলাইন ক্লাসে ঢুকে ‘নাগিন ড্যান্স’

ছাত্রীদের অনলাইন ক্লাসে ঢুকে ‘নাগিন ড্যান্স’

বৈঠকেই ‘কাউন্সিল’ সেরে নিয়েছে বিএনপি!

বৈঠকেই ‘কাউন্সিল’ সেরে নিয়েছে বিএনপি!

শর্ত মানলে শান্তি আলোচনায় রাজি উত্তর কোরিয়া: কিমের বোন

শর্ত মানলে শান্তি আলোচনায় রাজি উত্তর কোরিয়া: কিমের বোন

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বিএনপিকে নেতৃত্ব দিতে হবে: সেলিম

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বিএনপিকে নেতৃত্ব দিতে হবে: সেলিম

© 2021 Bangla Tribune