X
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

২ কোটি টাকার মেশিন পড়ে আছে ৯ বছর 

আপডেট : ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৩৮

কাপ্তাই হ্রদের কচুরিপানা পরিষ্কারের জন্য কেনা দুই কোটি টাকার হারভেস্টার মেশিনটি ৯ বছর ধরে প্রায় অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। এদিকে লোকবল সংকটের দোহাই দিয়ে মেশিনটি ফেলে রাখায় ক্ষতির শিকার হচ্ছেন হ্রদের জেলে ও মাঝিরা। বর্ষা মৌসুমে কচুরিপানার জঞ্জালের কারণে নৌ যান চলাচল ব্যাহত হয়। ইঞ্জিনচালিত নৌ যান বিকল হয়ে ঘটছে দুর্ঘটনা। এ অবস্থায় হ্রদে নৌ যান চলাচল স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে হারভেস্টার মেশিনটির ব্যবহার বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন নাগরিক সমাজের সদস্যরা। 

স্থানীয়রা জানান, রাঙামাটির চার উপজেলার তিন লাখ মানুষের যোগাযোগের একমাত্র উপায় নৌপথ। তবে হ্রদের চারদিকে কচুরিপানা ছড়িয়ে পড়ায় স্বাভাবিক নৌ-চলাচলে দেখা দেয় বিপত্তি। ছোট ছোট ইঞ্জিনচালিত নৌকা কচুরিপানা এড়িয়ে চলাচল করতে পারে না। এছাড়া কচুরিপানার কারণে অন্য নৌ যানেরও চলাচলে সময় ও ব্যয় বাড়ছে। 

সম্প্রতি সময়ে কাইন্দারমুখ নামক এলাকায় হ্রদের বুকে প্রায় দুই বর্গকিলোমিটার এলাকা জুড়ে জমে থাকা কচুরিপানা কারণে বিপাকে পড়তে হয় হ্রদে চলাচলকারী নৌ যানগুলোকে। এতে নৌ রুটে চলাচল করা সাধারণ মানুষ, জেল ও মাছ ব্যবসায়ীরা পড়েছে চরম বিপাকে। উজান থেকে নেমে আসা পানির সঙ্গে ভেসে আসা কচুরিপানায় প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে এই চ্যানেলটি। কচুরিপানার কারণে জেলার চার উপজেলায় যোগাযোগে বেড়েছে দুর্ভোগ।

লেকের কচুরিপানার কারণে নৌ চলাচল ব্যাহত হয় সংশ্লিষ্টরা জানান, কচুরিপানার সমস্যা সমাধানে ২০১২ সালে প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে একটি হারভেস্টার মেশিন কেনে কাপ্তাই হ্রদ ব্যবস্থাপনা কমিটি। উদ্দেশ্য ছিল মেশিনের সাহায্যে হ্রদের কচুরিপানা অপসারণ করা হবে। কিন্তু মেশিনটি কেনার পর এর ব্যবহার হয়নি বললেই চলে। দীর্ঘদিন ব্যবহার না করায় অনেক যন্ত্রাংশ নষ্ট হওয়ায় উপক্রম দেখা দিয়েছে। মেশিনের যন্ত্রাংশে মরিচা পড়ে গেছে। মেশিনটি ব্যবহারের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের তাগিদ দিয়েছেন নাগরিক সমাজ।

কাপ্তাই হ্রদ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য ও প্রবীন সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে বলেন, কাপ্তাই হ্রদকে কচুরিপানা মুক্ত করার জন্য দীর্ঘমেয়াদী একটি পরিকল্পনা নেওয়া দরকার। এত টাকা খরচ করে যে মেশিন কেনা হয়েছে সেটি কেন ব্যবহার করা হয়নি, প্রশ্ন তোলেন তিনি।

লেকের কচুরিপানা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন সময় মেশিনটি পরিচালনার জন্য জনবল সংকটের কথা শুনি। সব সমস্যা সমাধান করে হারভেস্টার মেশিনটি  দ্রুত হ্রদে ব্যবহার করার উদ্যোগ গ্রহণের জোর দাবি জানাচ্ছি।

রাঙামাটি দুর্নীতি দমন প্রতিরোধ কমিটি সভাপতি মো. ফারুক হোসেন বলেন, কাপ্তাই হ্রদে কচুরিপানার কারণে নৌ চলাচলা ও লেকের সৌন্দর্য্য নষ্ট হচ্ছে। সরকারের এত অর্থ ব্যয়ে মেশিনটি কেন এতদিন ব্যবহার করা হলো না, দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের জবাব দিতে হবে। সমন্বয়ের মাধ্যমে মেশিনটি ব্যবহার উপযোগী ও পরিচালনার জন্য লোকবল নিয়োগের দাবি জানান তিনি।

রাঙামাটি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষ্ণ প্রসাদ মল্লিক বলেন, কচুরিপানা কৃষি কাজের জন্য এক ধরনের সম্পদ। কচুরিপানা থেকে প্রচুর জৈব সার তৈরি করা যায়। আমরা কৃষকদের এই কচুরিপানা দিয়ে কীভাবে জৈব সার তৈরি করা যায় সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতে পারি। তাহলে কচুরিপানার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা যায়। এছাড়া এই আবর্জনাকে সম্পদে রূপান্তর করার জন্য সরকারি উদ্যোগ ও পরিকল্পনা গ্রহণের আহ্বান জানান তিনি। 

কচুরিপানা নিয়ন্ত্রণে ব্যবহৃত টাগবোট রাঙামাটি কাপ্তাই জল বিদ্যুৎ প্রকল্পের ব্যবস্থাপক এটিএম আবদুজ্জাহের বলেন, হারভেস্টার মেশিনটি আমাদের কাছে থাকলেও এটি পরিচালনার জন্য আমাদের কোনও লোকবল নেই। এমনিতেই আমাদের লোকবলের সংকট। বর্ষা মৌসুমে পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উজান থেকে কচুরিপানাও নেমে আসে। এ কারণে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হয়। ১৯৬২ সালের ক্রয়কৃত টাগবোট দিয়ে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আশপাশের কচুরিপানা টেনে সরিয়ে ফেলা হয়।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, আমি যতটুকু খবর নিয়েছি এই হারভেস্টার মেশিনটি কে বা কারা পরিচালনা করবে, এই সমস্যা নিয়ে এতদিন পড়ে ছিল। আমরা এখন বলেছি তেল লাগলে তেল দেওয়া হবে, তবু যেন মেশিনটি ব্যবহার করা হয়। মেশিনটি যাতে ব্যবহার করা হয় সে বিষয়ে চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি। 

/টিটি/

সম্পর্কিত

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

শেকলে বাঁধা অবস্থায় পুড়ে মৃত্যু 

শেকলে বাঁধা অবস্থায় পুড়ে মৃত্যু 

‘একাদশ নির্বাচনের মতো খেলা শুরু করলে কঠিন খেসারত দিতে হবে’

‘একাদশ নির্বাচনের মতো খেলা শুরু করলে কঠিন খেসারত দিতে হবে’

মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের দায়ে গ্রেফতার ৪

মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের দায়ে গ্রেফতার ৪

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৪৩

সৌদি আরবে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে তামজিরুল ইসলাম (৩০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে দেশটির জিদান বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে। 

তামজিরুল ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার যশরা ইউনিয়নের কুর্শাপুর গ্রামের দুলাল উদ্দিনের ছেলে। ২০১৭ সালে সৌদি আরবে পাড়ি জমান তিনি। তার পাঁচ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

তামজিরুলের চাচাতো ভাই জহিরুল ইসলাম জানান, গত সোমবার সকালে বিমানবন্দরে কাজে যান তিনি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে বিমানবন্দরের পতাকা স্ট্যান্ডে পতাকা বাঁধতে ও লাইট সেট করতে বলে। তামজিরুল সেফটি বেল্ট বেঁধে স্ট্যান্ডে উঠে কাজ শুরু করেন। হঠাৎ বেল্ট ছিঁড়ে নিচে পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। 

তিনি আরও জানান, তামজিরুল ইসলামের লাশ দেশে ফিরিয়ে আনতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

জালিয়াতি করে ৭ লাখ টাকা উত্তোলনের ঘটনায় ব্যাংক ব্যবস্থাপক প্রত্যাহার

জালিয়াতি করে ৭ লাখ টাকা উত্তোলনের ঘটনায় ব্যাংক ব্যবস্থাপক প্রত্যাহার

কণ্ঠশিল্পী সালমার পার্কের উদ্বোধন

কণ্ঠশিল্পী সালমার পার্কের উদ্বোধন

গরিবের ৮৪ বস্তা চাল সরানোর চেষ্টা

গরিবের ৮৪ বস্তা চাল সরানোর চেষ্টা

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২১


আমদানি কমার অজুহাতে ফের পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা। দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে পাইকারিতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি চার থেকে পাঁচ টাকা। তবে পাঁচদিন আগেও বন্দরে প্রতি কেজি পেঁয়াজ প্রকারভেদে ২৫ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। বর্তমানে তা বেড়ে ২৯ থেকে ৩২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে দাম বাড়ার কারণে বিপাকে পড়েছেন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা।

স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক মোজাম হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, গত কয়েকদিন ধরে গরমের কারণে আমদানি করা পেঁয়াজ পচে মান খারাপ হওয়ায় বাধ্য হয়ে খানিকটা কম দামে বিক্রি করতে হচ্ছিল। এছাড়াও দেশীয় পেঁয়াজের দামও কেজি প্রতি পাঁচ টাকার মতো কমে যাওয়ায় ভারতীয় পেঁয়াজের চাহিদা কমে প্রভাব পড়ে দামের ওপর। এতে করে আমদানি কমিয়ে দেওয়া হয়। দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে একইহারে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। এছাড়াও পেঁয়াজের সরবরাহ কমায় ভারতের মোকামে পূর্বে যে দামে পেঁয়াজ ক্রয় করা হতো এখন সেখানে দাম কিছুটা বাড়ায় বাড়তি দামে আমদানি করতে হচ্ছে। মূলত ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় এবং আমদানি কমায় দেশের বাজারে দাম বেড়েছে। 

তবে বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা বলছেন আমদানি কমার অজুহাতে পেঁয়াজের দাম বাড়ানো হয়েছে। এতে বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা বিপাকে পড়েছেন। বেশি দামে পেঁয়াজ কেনায় বাড়তি দামে বিক্রি করতে হবে বলে জানিয়েছেন তারা।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বন্দর দিয়ে পেঁয়াজের আসা অব্যাহত থাকলেও আমদানির পরিমান কমেছে। বন্দর দিয়ে মঙ্গলবার মাত্র ৯টি ট্রাকে ২৫৪টন পেঁয়াজ এসেছে। সোমবার ১৭ ট্রাকে ৪৬৪টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছিল, রবিবার ২১ ট্রাকে এসেছে ৫৮৬টন পেঁয়াজ।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ববি ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

ববি ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

বেশি লাভের আশায় আগাম আলু চাষে ব্যস্ত কৃষক

বেশি লাভের আশায় আগাম আলু চাষে ব্যস্ত কৃষক

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

এক উপ‌জেলায় ৫২৩ স্কুলছাত্রীর বি‌য়ে

ভ্রমণ বিলে অসঙ্গতি, কমিশনারকে সতর্ক পুলিশ সদর দফতরের

ভ্রমণ বিলে অসঙ্গতি, কমিশনারকে সতর্ক পুলিশ সদর দফতরের

সিনহা হত্যা মামলা: তৃতীয় দফায় শেষ দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২১

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার ১২ নম্বর সাক্ষী সেনা কর্মকর্তা সার্জেন্ট আয়ুব আলীর সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। সোমবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম জানান, সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে তৃতীয় দফার শেষ দিনে ১২ নম্বর সাক্ষী সেনা কর্মকর্তা সার্জেন্ট আয়ুব আলীর মধ্য দিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া মামলার আরেক সাক্ষী কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. শাহীন আবদুর রহমান আদালতে উপস্থিত রয়েছেন।

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

এর আগে গত ২৩ থেকে ২৫ আগস্ট টানা তিন দিন মামলার প্রথম দফায় ১নং সাক্ষী ও বাদী শারমিন সাহরিয়া ফেরদৌস এবং ২নং সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। একইভাবে গত ৫ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর টানা চার দিনে দ্বিতীয় দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করেন আদালত। এ নিয়ে প্রথম ও দ্বিতীয় দফায় ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। গত সোমবার সাত সাক্ষী নিয়ে তৃতীয় দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। এ ঘটনায় সে সময় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ নয় পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেন। 

মামলায় প্রধান আসামি করা হয় লিয়াকত আলীকে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে র‌্যাবকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় একটি এবং রামু থানায় আরেকটি মামলা করে। এরপর মেজর সিনহা নিহতের ছয় দিন পর লিয়াকত আলী ও ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে ঘটনায় সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগে টেকনাফ থানায় পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টে ঘটনার সময় দায়িত্ব পালনকারী আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর টেকনাফ থানার সাবেক কনস্টেবল রুবেল শর্মাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। গত ২৪ জুন মামলার অন্য পলাতক আসামি টেকনাফ থানার সাবেক এএসআই সাগর দেব আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

আসামিদের মধ্যে ওসি প্রদীপ ও কনস্টেবল রুবেল শর্মা ছাড়া অন্য ১২ জন আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তদন্ত শেষে গত বছর ১৩ ডিসেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তৎকালীন র‌্যাব ১৫-এর সহকারী পুলিশ সুপার মো. খাইরুল ইসলাম ১৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। গত ২৭ জুন ১৫ জন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এতে ৮৩ জনকে সাক্ষী করা হয়।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

স্ত্রীকে হত্যার ৩ দিন পর ‌‌‘অনুতপ্ত’ স্বামীর আহাজারি

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

রামেকের করোনা ইউনিটে ২২ দিনে ১৩৮ জনের মৃত্যু

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০৪

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় আটজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে করোনায় এক ও উপসর্গে সাতজন মারা গেছেন। এ নিয়ে চলতি মাসের ২২ দিনে মোট ১৩৮ জনের ‍মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকালে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান,  গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৮ জনের। মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে ২৮১টি নমুনা পরীক্ষা করে ২০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ২৪০ শয্যার করোনা ইউনিটে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত রোগী ভর্তি ছিলেন ১২৩ জন।বর্তমানে রাজশাহীর ৫৫, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২৫, নাটোরের ১৫, নওগাঁর ১০, পাবনার ১৩, কুষ্টিয়ার এক, চুয়াডাঙ্গার এক, সিরাজগঞ্জের এক ও মেহেরপুরের দুই জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। করোনা নিয়ে ভর্তি ২৩ জন। উপসর্গ নিয়ে ভর্তি ৬৫ জন। করোনা ধরা পড়েনি ভর্তি ৩৫ জনের। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৫ জন। এই এক দিনে হাসপাতাল ছেড়েছেন ১৫ জন।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

প্যান্ট-শার্ট-হেলমেট পরে নারীর গরু চুরি

প্যান্ট-শার্ট-হেলমেট পরে নারীর গরু চুরি

সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ

সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার অভিযোগ

করোনাকালে একজনও না খেয়ে মারা যায়নি: খাদ্যমন্ত্রী

করোনাকালে একজনও না খেয়ে মারা যায়নি: খাদ্যমন্ত্রী

ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের ৬ মাস পরেও থাকছে অ্যান্টিবডি

ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের ৬ মাস পরেও থাকছে অ্যান্টিবডি

শেকলে বাঁধা অবস্থায় পুড়ে মৃত্যু 

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪১

বুড়িচংয়ে শেকল বাঁধা অবস্থায় এক মানসিক ভারসাম্যহীন তরুণের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে উপজেলার বাকশীমুল ইউনিয়নের খাড়েরা পশ্চিমপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ওই তরুণের নাম আলাউদ্দিন (১৯)। সে ওই এলাকার চটপটি বিক্রেতা আবদুল মমিনের ছেলে এবং কালিকাপুর আবদুল মতিন খসরু কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিল।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বুড়িচং থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন। পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে তিনি জানান, আলাউদ্দিন গত প্রায় তিনমাস আগে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। এ জন্য তাকে ঘরের ভেতর শেকল দিয়ে বেঁধে রাখা হতো। মঙ্গলবার রাতে ওই ঘরের বৈদ্যুতিক মিটার থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়ে পুরো ঘর পুড়ে যায়। এ সময় আগুনে পুড়ে প্রাণ হারায় আলাউদ্দিন। ‘পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়দের অনুরোধে এবং মানবিক কারণে’ তার লাশ স্বজনদের কাছে দিয়ে আসা হয় বলেও জানান ওসি আলমগীর।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ফয়েজ আহমেদ বলেন, খাড়েরা গ্রামের আবদুল মতিন তার অন্যান্য সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চটপটি বিক্রি করতেন। করোনাকালে কলেজ বন্ধ থাকায় তাকে সহায়তা করতো আলাউদ্দিন। কিন্তু গত প্রায় তিন মাস আগে তার মানসিক সমস্যা দেখা দেয়। এরপর থেকে তাকে ঘরের ভেতর শেকলে বেঁধে রাখা হতো। মঙ্গলবার রাতে তাদের ঘরে আগুন লাগে। এ সময় বাড়িতে কেবল তার মা, বড় ভাই এবং ভাইয়ের বউ ছিল। তাদের শোর-চিকৎকারে আশপাশের লোকজন এসে আলাউদ্দিনকে বাঁচানোর চেষ্টা করে, খবর দেওয়া হয় ফায়ার সার্ভিসে। প্রায় ঘণ্টাখানেকের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। কিন্তু ততক্ষণে সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুনে পুড়ে মারা যায় আলাউদ্দিন।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

‘একাদশ নির্বাচনের মতো খেলা শুরু করলে কঠিন খেসারত দিতে হবে’

‘একাদশ নির্বাচনের মতো খেলা শুরু করলে কঠিন খেসারত দিতে হবে’

মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের দায়ে গ্রেফতার ৪

মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের দায়ে গ্রেফতার ৪

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আমদানি কমার অজুহাতে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

শেকলে বাঁধা অবস্থায় পুড়ে মৃত্যু 

শেকলে বাঁধা অবস্থায় পুড়ে মৃত্যু 

‘একাদশ নির্বাচনের মতো খেলা শুরু করলে কঠিন খেসারত দিতে হবে’

‘একাদশ নির্বাচনের মতো খেলা শুরু করলে কঠিন খেসারত দিতে হবে’

মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের দায়ে গ্রেফতার ৪

মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের দায়ে গ্রেফতার ৪

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

‘মেজর সিনহাকে মুইন্যা পাহাড়ে নিয়ে হত্যার পরিকল্পনা ছিল’

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

কক্সবাজারের রিসোর্টে নারী পর্যটকের মরদেহ

ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের ৬ মাস পরেও থাকছে অ্যান্টিবডি

ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের ৬ মাস পরেও থাকছে অ্যান্টিবডি

একই লাইনে ২ ট্রেন, অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন হাজারও যাত্রী

একই লাইনে ২ ট্রেন, অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন হাজারও যাত্রী

এক মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালের বর্জ্য নিচ্ছে না পৌরসভা

এক মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালের বর্জ্য নিচ্ছে না পৌরসভা

বাসে সন্তান জন্ম দিলেন নারী

বাসে সন্তান জন্ম দিলেন নারী

সর্বশেষ

ভালো স্কোর করতে পারেননি রোমান সানা

ভালো স্কোর করতে পারেননি রোমান সানা

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

সৌদিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে পড়ে বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু

মোস্তাফিজদের অধিনায়কের জরিমানা  

মোস্তাফিজদের অধিনায়কের জরিমানা  

তালেবানের অংশগ্রহণ চায় পাকিস্তান, বাতিল হলো সার্ক বৈঠক: এএনআই

তালেবানের অংশগ্রহণ চায় পাকিস্তান, বাতিল হলো সার্ক বৈঠক: এএনআই

রাজধানীতে মাদকসহ গ্রেফতার ৫০ 

রাজধানীতে মাদকসহ গ্রেফতার ৫০ 

© 2021 Bangla Tribune