X
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

আফগান মেয়েদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া উচিত না: ইউনিসেফ

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:৪৫

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ শনিবার থেকে তালেবান নিয়ন্ত্রিত আফগানিস্তানে স্কুল পুনরায় চালুর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। তবে সংস্থাটি জোর দিয়ে বলেছে, আফগান মেয়েদের শিক্ষা থেকে বঞ্চিত করা উচিত না। এক বিবৃতিতে ইউনিসেফ প্রধান হেনরিয়েটা ফোর বলেন, আমরা গভীর উদ্বিগ্ন। এই সময়ে অনেক মেয়ে স্কুলে ফেরার অনুমতি পাবে না।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, সাম্প্রতিক মানবিক সংকটের আগেও আফগানিস্তানের ৪২ লাখ শিশু স্কুলে ভর্তি হয়নি। এদের প্রায় ৬০ শতাংশ মেয়ে। শিক্ষা বঞ্চিত প্রতিটি দিন তাদের জন্য, তাদের পরিবার ও সমাজের জন্য একেকটি সুযোগের হাতছাড়া হওয়া।

ইউনিসেফ প্রধান বলেন, মেয়েদের অবশ্যই বাদ দেওয়া উচিত না। কোনও বিলম্ব ছাড়া বয়স্কসহ সব মেয়ের শিক্ষাগ্রহণ পুনরায় শুরু করা গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য আফগানিস্তানে নারী শিক্ষকদের শিক্ষাদান আমাদের জারি রাখতে হবে।

আফগানিস্তানের সব শিশুর শিক্ষাকে সহযোগিতার জন্য ইউনিসেফ প্রধান উন্নয়ন অংশীদারদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।  তিনি বলেন, ইউনিসেফ সব ছেলে ও মেয়ে যাতে শিক্ষার সমান সুযোগ পায়, দক্ষতার বিকাশ ঘটাতে পারে এবং শান্তিপূর্ণ ও উৎপাদনশীল আফগানিস্তান গড়ে তুলতে পারে সেজন্য কাজ করে যাবে।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) তালেবান সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘোষণা জানিয়েছে, সপ্তম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষা কার্যক্রম চালু হচ্ছে। পুরুষ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা তাদের নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। তবে নারী শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা ফিরতে পারবেন কিনা, এ বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি। এতে আপাতত মেয়েদের জন্য মাধ্যমিক শিক্ষা নিষিদ্ধ করা হলো। তালেবান সরকারের এই আদেশে বহু শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

গত সপ্তাহে তালেবান ঘোষণা দেয়, নারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করতে পারবেন। কিন্তু পুরুষ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বসতে পারবে না এবং নতুন পোশাকবিধি মেনে চলতে হবে। অনেকেই মনে করছেন, এর মধ্য দিয়ে নারীদের শিক্ষা থেকে বাদ দেওয়া হবে। কারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পৃথক ক্লাস নেওয়ার মতো সক্ষমতা ও সামর্থ্য নেই। মাধ্যমিক পর্যায়ে মেয়েদের শিক্ষা নিষিদ্ধ করার অর্থ হলো তারা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারবে না।

তালেবানের অন্তর্বর্তী সরকারের কর্মকর্তারা বলেছেন, এবারের তালেবান শাসনামল ১৯৯৬-২০০১ সালের সময়ের মতো হবে না। ওই সময় নারী শিক্ষা নিষিদ্ধ ছিল। কিন্তু এবার তালেবান প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে, মেয়েদেরকে পড়াশোনার সুযোগ দেওয়া হবে। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ দিলেও ক্লাসে ছেলে-মেয়েদের আলাদা বসার আদেশ দিয়েছে অন্তর্বর্তী সরকার।

আফগানিস্তান অ্যানালিটিস নেটওয়ার্কের সহ-পরিচালক কেট ক্লার্ক বলেন, তালেবান ক্ষমতা দখলের পর নারীদের শিক্ষা ও কাজের সুযোগ দেওয়ার কথা বললেও তা থেকে সরে আসছে। প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করছে না গোষ্ঠীটি। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া।

/এএ/

সম্পর্কিত

বিদেশি শ্রমিকদের ওপর আংশিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার মালয়েশিয়ার

বিদেশি শ্রমিকদের ওপর আংশিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার মালয়েশিয়ার

আফগান জনগণের কঠিন মুহূর্তে পাশে আছে পাকিস্তান

আফগান জনগণের কঠিন মুহূর্তে পাশে আছে পাকিস্তান

অনির্দিষ্টকাল রাস্তা আটকে বিক্ষোভ চলতে পারে না: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

অনির্দিষ্টকাল রাস্তা আটকে বিক্ষোভ চলতে পারে না: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

নেতাদের সামনেই বিজেপি কর্মীদের মারপিট

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ২০:৫৪

ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) পশ্চিমবঙ্গ শাখার অভ্যন্তরীণ বিরোধ সামনে এসেছে। শুক্রবার রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার এবং তার পূর্বসূরি দিলিপ ঘোষের সামনেই মারপিটে জড়িয়েছে কর্মীরা। শুক্রবার পশ্চিম বর্ধমানের কাটোয়ায় এক অনুষ্ঠানে এই ঘটনা ঘটেছে।

তবে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপের সময় সুকান্ত মজুমদার এবং দিলিপ ঘোষ উভয়েই ঘটনাটিকে খাটো করে দেখাতে চেয়েছেন। আর এই ঘটনার জন্য তৃণমূল কংগ্রেসের এজেন্টদের দায়ী করেছেন। তারা উভয়েই দাবি করেন রাজ্যের নতুন নেতৃত্বের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে বিজেপি কর্মীরা।

দলীয় এক বৈঠকে যোগ দিতে দুই নেতা কাটোয়ার দইহাটে পৌঁছালে একদল বিজেপি কর্মী দিলিপ ঘোষের বিরুদ্ধে স্লোগান শুরু করে। তার বিরুদ্ধে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আক্রান্ত দলীয় কর্মীদের সহায়তায় ব্যর্থতার অভিযোগ তোলে বিজেপি কর্মীরা।

সাংবাদিকদের সামনে ওই স্লোগান চলতে থাকলে আরেক দল কর্মী উঠে তাদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। তখনই দুই পক্ষের মধ্যে মারপিট শুরু হয়। চেয়ার ছোড়াছুড়ির পাশাপাশি হাতাহাতিও চলে। কিছুক্ষণ পর জেলা পর্যায়ের নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বর্তমানে বিজেপির সর্ব ভারতীয় সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন দিলিপ ঘোষ। আর সুকান্ত মজুমদার সম্প্রতি রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব নিয়েছেন।

এই বছরের শুরুতে রাজ্য নির্বাচনে পরাজয়ের পর বেশ কয়েক জন নেতা বিজেপি ছেড়ে গেছেন। বেশিরভাগই ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ও যোগ দিয়েছেন তৃণমূলে।

অভ্যন্তরীণ বিবাদের জন্য তৃণমূল কংগ্রেসকে দায়ী করে সুকান্ত মজুমদার বলেন, ‘আমাদের বৈঠকে বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে এজেন্ট পাঠিয়েছে তৃণমূল। বিশৃঙ্খলাকারীদের আমরা অবশ্যই শনাক্ত করবো।’

বিশৃঙ্খলায় কোনও কর্মী জড়িত থাকলেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান সুকান্ত মজুমদার।

/জেজে/

সম্পর্কিত

আসামে রকেট সিস্টেম বসাচ্ছে ভারত

আসামে রকেট সিস্টেম বসাচ্ছে ভারত

ত্রিপুরায় তৃণমূল এমপির ওপর হামলা

ত্রিপুরায় তৃণমূল এমপির ওপর হামলা

মুম্বাইয়ের ৬০ তলা আবাসিক ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, নিহত ১

মুম্বাইয়ের ৬০ তলা আবাসিক ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, নিহত ১

৫-১১ বছরের শিশুদের ওপর ৯০ শতাংশ কার্যকর ফাইজারের টিকা

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৬

৫-১১ বছর বয়সী শিশুদের ওপর পরিচালিত ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ফাইজার-বায়োএনটেকের কোভিড-১৯ টিকা ৯০ শতাংশের বেশি কার্যকর। শুক্রবার মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানিটি এই তথ্য জানিয়েছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।  

যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ নিয়ন্ত্রক এফডিএ-এর কাছে দাখিল করা নথিতে ফাইজার জানিয়েছে, ট্রায়ালে অংশ নেওয়া শিশুদের মধ্যে প্লেসবো দেওয়া ১৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। আর টিকা দেওয়াদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছে মাত্র ৩ জন। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে অংশ নেওয়া ২ হাজার ২৬৮ শিশুর মধ্যে টিকাগ্রহণকারীদের সংখ্যা প্লেসবো গ্রহণকারীদের চেয়ে দ্বিগুণ ছিল। ফলে কার্যকারিতা ৯০ শতাংশের বেশি।

৫-১১ বছর বয়সী শিশুদের ওপর ফাইজারের এই ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের মূল লক্ষ্য কার্যকারিতা যাচাই ছিল না। এটি ছিল মূলত প্রাপ্ত বয়স্কদের তুলনায় শিশুদের দেহে সুরক্ষা তৈরিকারী অ্যান্টিবডির পরিমাণ তুলনার জন্য করা হয়েছিল।

এই পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে গত মাসে ফাইজার-বায়োএনটেক জানায়, শিশুদের দেহে শক্তিশালী ইমিউন প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে।

শিশুদের ১০ মাইক্রোগ্রাম করে দুই ডোজ দেওয়া হয়েছে। যা ১২ বছর থেকে বেশি বয়সীদের দেওয়া পরিমাণের এক-তৃতীয়াংশ।  

এফডিএ বহির্ভূত উপদেষ্টারা মঙ্গলবার মার্কিন শিশুদের টিকা দেওয়ার বিষয়টি সুপারিশ করা হবে কিনা তা নিয়ে বৈঠকে বসবেন। ফাইজারের দেওয়া

ন্যূনতম ১২ বছর বয়সীদের যুক্তরাষ্ট্রে অনুমোদন পেয়েছে ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা। দেশটিতে টিকা নেওয়া ১৯০ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে ১২-১৭ বয়সী ১১ লাখ শিশু ফাইজারের টিকা নিয়েছেন।

/এএ/

সম্পর্কিত

মার্কিন সেনাবাহিনীর হাইপারসোনিক পরীক্ষা ব্যর্থ

মার্কিন সেনাবাহিনীর হাইপারসোনিক পরীক্ষা ব্যর্থ

যুক্তরাষ্ট্রে পেঁয়াজ থেকে ছড়ানো সংক্রমণে আক্রান্ত ৬ শতাধিক

যুক্তরাষ্ট্রে পেঁয়াজ থেকে ছড়ানো সংক্রমণে আক্রান্ত ৬ শতাধিক

মুক্তিপণ না পেলে মিশনারিদের হত্যার হুমকি

মুক্তিপণ না পেলে মিশনারিদের হত্যার হুমকি

চীনের আক্রমণ থেকে তাইওয়ানকে রক্ষা করবে যুক্তরাষ্ট্র

চীনের আক্রমণ থেকে তাইওয়ানকে রক্ষা করবে যুক্তরাষ্ট্র

প্রায় চার কোটি নাগরিককে নগদ অর্থ দেবে ফ্রান্স

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৩

নিম্ন আয়ের মানুষের জ্বালানির দাম বৃদ্ধির কষ্ট কমানোর উদ্যোগ নিয়েছে ফ্রান্স। দেশটির সরকার জানিয়েছে যেসব নাগরিকের মাসিক আয় দুই হাজার ইউরোর কম তাদের এককালীন একশ’ ইউরো সহায়তা দেওয়া হবে। বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় দশ হাজার টাকা।

সরকারের ঘোষিত এই মুদ্রাস্ফীতি ভাতা প্রায় তিন কোটি ৮০ লাখ ফরাসি নাগরিক স্বয়ংক্রিয়ভাবে পেয়ে যাবেন। এমনকি যারা গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালান না তারাও এই ভাতা পাবেন।

এই ভাতা প্রথমে পাবেন ব্যবসায়ে নিযুক্ত কর্মীরা। ডিসেম্বরের শেষ নাগাদ এই ভাতা পাবেন তারা। সরকারি চাকরিজীবী, শিক্ষার্থী, অবসর কাটানো মানুষেরা পাবেন আগামী বছরের শুরুতে।

এই একশ’ ইউরো ভাতা হবে করমুক্ত। প্রধানমন্ত্রী জেন ক্যাসটেক্স বলেছেন এতে সরকারের ৩৮০ কোটি ইউরো খরচ হবে। তবে জ্বালানির কর কমানো হলে এর চেয়ে অনেক বেশি খরচ হতো বলে জানান তিনি।

করোনার কারণে দীর্ঘদিন অচল হয়ে থাকা ব্যবসা বাণিজ্য সচল হতে শুরু করায় বেড়েছে তেলের চাহিদা। আর এর জেরেই দাম বাড়ায় ইউরোপ জুড়ে ক্ষোভ বাড়ছে। ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের বাকি আর ছয় মাস। আর এই সময়ে তেলের দাম বাড়লে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরুর আশঙ্কা রয়েছে।

/জেজে/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রদূতদের ওপর ক্ষেপেছেন এরদোয়ান

রাষ্ট্রদূতদের ওপর ক্ষেপেছেন এরদোয়ান

‘গণতান্ত্রিক পরিস্থিতি তার নাগরিকের চাহিদা পূরণে সক্ষম’

‘গণতান্ত্রিক পরিস্থিতি তার নাগরিকের চাহিদা পূরণে সক্ষম’

জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দেবেন না পুতিন

জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দেবেন না পুতিন

যুক্তরাজ্যে আবারও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

যুক্তরাজ্যে আবারও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

মার্কিন সেনাবাহিনীর হাইপারসোনিক পরীক্ষা ব্যর্থ

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৩

চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে হাইপারসোনিক (শব্দের চেয়ে কয়েকগুণ দ্রুতগতিসম্পন্ন) অস্ত্র নির্মাণের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর জানিয়েছে, হাইপার অস্ত্র নির্মাণে তাদের সর্বশেষ পরীক্ষা সফল হয়নি। সিএনএন এখবর জানিয়েছে।

পেন্টাগনের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, হাইপারসোনিক গতি পাওয়ার জন্য রকেটে ব্যবহৃত একটি যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে।

রকেটটি ব্যর্থ হওয়াতে পেন্টাগন হাইপারসোনিক গ্লাইড বডির পরীক্ষা করতে পারেনি। যা এমন অস্ত্র তৈরির জন্য মূল্য উপাদান।

কর্মকর্তারা পরীক্ষাটির পর্যালোচনা শুরু করেছেন। বৃহস্পতিবার আলাস্কা অঙ্গরাজ্যের কোডিয়াকে অবস্থিত প্যাসিফিক স্পেসপোর্ট কমপ্লেক্সে এই পরীক্ষা করা হয়।

চীন ও রাশিয়া নিজেদের হাইপারসোনিক অস্ত্র নির্মাণের কাজ এগিয়ে নেওয়ায় পেন্টাগন এই প্রকল্পকে অগ্রাধিকার দিয়ে বাস্তবায়ন করছে। এর আগে এপ্রিলেও পেন্টাগনের উদ্যোগ ব্যর্থ হয়েছিল।

উল্লেখ্য, শব্দের গতি হচ্ছে প্রতি সেকেণ্ডে ১ হাজার ১২৫ ফুটের মতো। অনেক সামরিক বিমান এর চেয়ে বেশি দ্রুত ‘সুপারসনিক’ গতিতে উড়তে পারে। কিন্তু একটা হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুটতে পারে শব্দের চেয়ে পাঁচ থেকে ৯ গুণ বেশি গতিতে। ফলে এটি যে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে এড়িয়ে যেতে পারে।

/এএ/

সম্পর্কিত

৫-১১ বছরের শিশুদের ওপর ৯০ শতাংশ কার্যকর ফাইজারের টিকা

৫-১১ বছরের শিশুদের ওপর ৯০ শতাংশ কার্যকর ফাইজারের টিকা

যুক্তরাষ্ট্রে পেঁয়াজ থেকে ছড়ানো সংক্রমণে আক্রান্ত ৬ শতাধিক

যুক্তরাষ্ট্রে পেঁয়াজ থেকে ছড়ানো সংক্রমণে আক্রান্ত ৬ শতাধিক

মুক্তিপণ না পেলে মিশনারিদের হত্যার হুমকি

মুক্তিপণ না পেলে মিশনারিদের হত্যার হুমকি

প্রায় দুই বছর পর তেহরানে জুমার নামাজ

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১৪

করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে প্রায় ২০ মাসের বিরতির পর ইরানের রাজধানী তেহরানে ফের জুমার নামাজ শুরু হয়েছে। কর্তৃপক্ষ ষষ্ঠ দফা সংক্রমণের হুঁশিয়ারি দিলেও শুক্রবার তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের জামাতে যোগ দেন ধর্মীয় ও রাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা।

করোনা মহামারিতে মধ্যপ্রাচ্যে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ইরান। এখন পর্যন্ত দেশটির সরকারি হিসেবে পাঁচ কোটি ৮০ লাখ মানুষ আক্রান্ত এবং এক লাখ ২৪ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়েছে।

শনিবার থেকে তিনশ’রও কম শিক্ষার্থী থাকা স্কুলগুলো খুলে দেবে ইরান। এছাড়া শনিবার থেকেই টিকা না নিয়ে সরকারি কর্মচারিরা কাজে যোগ দিতে পারবেন না। তবে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা এর বাইরে থাকবেন।

তেহরানে জুমার নামাজে ইমামতি করা মোহাম্মদ জাভেদ হাজি আলি আকবরি বলেন, ‘আজ আমাদের আনন্দের দিন। বিধিনিষেধ আর হতাশার কাল পেরিয়ে ফের জুমার নামাজ আদায় করতে পারায় সর্বশক্তিমানের প্রতি কৃতজ্ঞ।’

নামাজে মুসল্লিদের সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার পাশাপাশি মাস্ক ব্যবহার করতে হয়েছে। বেশিরভাগ মুসল্লিই নিজেদের জায়নামাজ সঙ্গে করে নিয়ে যান।

তেহরান ছাড়াও আরও কয়েকটি শহরে জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইরানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাহরাম আইনুল্লাহ সম্প্রতি সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ইরানে সংক্রমণের ষষ্ঠ দফা শুরু হতে পারে।

/জেজে/

সম্পর্কিত

মালয়েশিয়াকে ধন্যবাদ জানালো হামাস

মালয়েশিয়াকে ধন্যবাদ জানালো হামাস

সিরিয়ায় মার্কিন ঘাঁটিতে ড্রোন হামলা

সিরিয়ায় মার্কিন ঘাঁটিতে ড্রোন হামলা

লাইভের সময় রিপোর্টারের ফোন ছিনতাই, চেহারা দেখালো চোর

লাইভের সময় রিপোর্টারের ফোন ছিনতাই, চেহারা দেখালো চোর

বড় ধরনের বিমান মহড়া চালাবে ইরান

বড় ধরনের বিমান মহড়া চালাবে ইরান

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বিদেশি শ্রমিকদের ওপর আংশিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার মালয়েশিয়ার

বিদেশি শ্রমিকদের ওপর আংশিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার মালয়েশিয়ার

আফগান জনগণের কঠিন মুহূর্তে পাশে আছে পাকিস্তান

আফগান জনগণের কঠিন মুহূর্তে পাশে আছে পাকিস্তান

অনির্দিষ্টকাল রাস্তা আটকে বিক্ষোভ চলতে পারে না: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

অনির্দিষ্টকাল রাস্তা আটকে বিক্ষোভ চলতে পারে না: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

তালেবানের সঙ্গে বৈঠক ভারতের

তালেবানের সঙ্গে বৈঠক ভারতের

প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সেলফি তোলায় পুলিশ সদস্যদের নোটিস

প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সেলফি তোলায় পুলিশ সদস্যদের নোটিস

মালয়েশিয়াকে ধন্যবাদ জানালো হামাস

মালয়েশিয়াকে ধন্যবাদ জানালো হামাস

সুপারম্যান-এর বিরুদ্ধে ভারতে ক্ষোভ

সুপারম্যান-এর বিরুদ্ধে ভারতে ক্ষোভ

সর্বশেষ

ভারতে পাচার হওয়ার আড়াই বছর পর দেশে ফিরলো মেয়েটি

ভারতে পাচার হওয়ার আড়াই বছর পর দেশে ফিরলো মেয়েটি

বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সর্বনিম্ন স্কোরে অলআউট ডাচরা

বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সর্বনিম্ন স্কোরে অলআউট ডাচরা

‘সাম্প্রদায়িকতা উসকে দিতে’ কুমিল্লার ঘটনা লাইভে প্রচারের স্বীকারোক্তি

‘সাম্প্রদায়িকতা উসকে দিতে’ কুমিল্লার ঘটনা লাইভে প্রচারের স্বীকারোক্তি

ইকবাল এতদিন কোথায় ছিল, প্রশ্ন মির্জা ফখরুলের

ইকবাল এতদিন কোথায় ছিল, প্রশ্ন মির্জা ফখরুলের

৫ দিন পর জ্বলেছে চুলা, ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের

৫ দিন পর জ্বলেছে চুলা, ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের

© 2021 Bangla Tribune