বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার বিশেষ সুবিধা দিচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:১২, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:১৭, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯

 

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি (ফাইল ছবি: ফোকাস বাংলা)কানাডার বিভিন্ন কাঁচামাল বাংলাদেশে প্রক্রিয়াজাত ও পণ্যের মূল্য সংযোগ ঘটিয়ে স্থানীয় ও বিশ্ব বাজারে বিক্রির মাধ্যমে উভয় দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধি করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। কানাডায় সফররত বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, ‘এতে ব্যবসায়ীরা যেমন লাভবান হবেন, তেমনি বাংলাদেশে বৈদেশিক বিনিয়োগসহ কর্ম সংস্থানেরও সৃষ্টি হবে। বাংলাদেশে এখন চমৎকার বিনিয়োগ পরিবেশ বিরাজ করছে। বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে। বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে পণ্য উৎপাদন করে বিশেষ সুবিধায় সারা বিশ্বে উৎপাদিত পণ্য রফতানি করতে পারবে। কানাডীয় উদ্যোক্তারা বাংলাদেশ ভ্রমণ করে বাস্তব পরিবেশ পর্যবেক্ষণ করলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) কানাডার অটোয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন, অটোয়া কর্তৃক আয়োজিত বাংলাদেশ ও কানাডার সাসকাচুয়ান প্রদেশের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি বিষয়ক সেমিনারে এসব কথা বলেন। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের বিনিয়োগবান্ধব নীতি ও পরিবেশ বিনিয়োগকারীদের জন্য খুবই সহায়ক হবে। কানাডার সাসকাচুয়ান প্রদেশের ব্যবসায়ীরা এ সুযোগ নিতে পারেন। বাংলাদেশ সরকার এ ক্ষেত্রে সব ধরনের সহযোগিতা দেবে। সাসকাচুয়ান প্রদেশ দুই দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধিতে অসামান্য অবদান রেখে চলেছে, যা আরও বৃদ্ধি করা সম্ভব।’

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও সাসকাচুয়ান প্রদেশের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কিত তথ্যাদি উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সেলর (বাণিজ্যিক) শাকিল মাহমুদ। কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার  মো. মিজানুর রহমান সেমিনারে বাংলাদেশের অর্থনীতি, সার্বিক পরিবেশ ও বাণিজ্য সম্ভাবনা তুলে ধরেন। বর্তমান সরকারের যুগোপযোগী ট্যাক্স, উদার বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্ভাবনার বিভিন্ন দিক ও অগ্রগতির বিষয়ে সভায় উপস্থিত আলোচকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন যথাক্রমে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব তপন কান্তি ঘোষ, বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ খুরশীদ ওয়াহাব, বাংলাদেশ ফার্মাসিউটিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এস এম সফিউজ্জামান, বাংলাদেশ সফটওয়্যার এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের (বেসিস) সভাপতি সৈয়দ সাদাত আলমাস কবির ও কেনচেম বাংলাদেশের সভাপতি মাসুদুর রহমান প্রমুখ।

বৈঠকে প্রাদেশিক সহকারী উপ-মন্ত্রী মিজজডি ব্যাঙ্কস, সাসকাচুয়ান চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও অন্যান্য প্রতিনিধি সাসকাচুয়ান ও বাংলাদেশের মধ্যকার বর্তমান বাণিজ্যিক সম্পর্ককে আরও  সম্প্রসারণ ও নিবিড় করার লক্ষ্যে নতুন নতুন পন্থা উদ্ভাবনের তাগিদ দেন। এক্ষেত্রে ক্যানোলাবীজ, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, ওষুধ, সার, ক্ষুদ্র ও মাঝারি ধরনের ইঞ্জিনিয়ারিং যন্ত্রাংশ, তথ্য-প্রযুক্তি,  সফটওয়্যার ইত্যাদি বিষয়ে এ প্রদেশের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসা সম্প্রসারণের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এ প্রদেশে নিযুক্ত বাংলাদেশের অনারারি কনসাল রবনরিস দু’দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধি ও টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে এ আয়োজনকে অগ্রগতির মাইল ফলক হিসেবে তুলে ধরে উভয় অঞ্চলের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয়নের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

সভায় উপস্থিত ঢাকাস্থ কানাডিয়ান হাইকমিশনে নিযুক্ত কমার্শিয়াল কাউন্সেলর করিন প্যাট্রিসর আলোচকদের উত্থাপিত প্রশ্নের উত্তর দেন। এসব বিষয়ে কানাডীয় হাইকমিশনের বর্তমান সহযোগিতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। উত্থাপিত নতুন প্রস্তাবগুলোর ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ ও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণের আশ্বাস দেন। এছাড়াও দু’দেশের মধ্যকার শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা হয়।

 

/এসআই//এনআই/

লাইভ

টপ