‘ডিজিটাল হওয়ার পাশাপাশি ঝুঁকি মোকাবিলায় ব্যবস্থা নিতে হবে’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:০৫, জানুয়ারি ১৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৫২, জানুয়ারি ১৫, ২০২০

প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই ইলাহী চৌধুরী বলেছেন, ‘যতই আমরা ডিজিটাল হচ্ছি ততই ঝুঁকি বাড়ছে। বিশ্বের বহু দেশ এখন সাইবার অ্যাটাকের শিকার হয়। আমাদের আরও সতর্ক হতে হবে। ডিজিটাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সিকিউরিটির জন্য আলাদা কমিটি করা যেতে পারে।’
বুধবার (১৫ জানুয়ারি) বিদ্যুৎ ভবনের মুক্তি হলে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ কোম্পানি নর্দার্ন ইলেকট্রিসিটি কোম্পানির (নেসকো) স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপন প্রকল্পের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
তৌফিক-ই ইলাহী বলেন, ‘গ্রাহক সন্তুষ্টি না থাকলে সরকারের সব উদ্যোগ ভেস্তে যাবে। এজন্য গ্রাহকসেবার মান বাড়াতে হবে। সেবার মান বাড়াতে পারলেই আমাদের কার্যক্রম সার্থক।’
তৌফিক-ই ইলাহী আরও বলেন, ‘ডিজিটাল বাস্তবতায় স্মার্ট প্রিপেইড মিটার ঠিকমতো কাজ করছে কিনা, তা নিয়মিত তদারকি করতে হবে প্রকৌশলীদের। ভবিষ্যতে যাতে আরও বড় সিস্টেমে বা বড় সংখ্যক জনগোষ্ঠীকে সেবা দিতে গেলেও এই মিটারগুলো সমস্যার সৃষ্টি না করে সেদিকেও নিয়মিত খেয়াল রাখতে হবে উদ্যোক্তাদের।’
তৌফিক-ই ইলাহী বলেন, ‘মুজিব শতবর্ষকে আমরা সেবাবর্ষ হিসেবে ঘোষণা করেছি। তাই মুজিব শতবর্ষে শতভাগ বিদ্যুৎ পাবে বাংলাদেশের মানুষ। এ কারণে এ বছর সেবা খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।’
অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ সচিব ড. সুলতান আহমেদ বলেন, ‘গ্রাহকদের সাশ্রয়ী হতে এই স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সবার ঘরে মানসম্মত বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে এই উদ্যোগ উল্লেখযোগ্য মাইলফলক। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হবে বলে আশা করছি।’ অন্যদের মধ্যে পিডিবির চেয়ারম্যান সাঈদ আহমেদ, নেসকোর চেয়ারম্যান এ কে এম হুমায়ুন কবীর, নেসকোর এমডি জাকিউল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।
এই চুক্তির আওতায় আগামী বছরের মধ্যে নেসকো দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ৫ লাখ গ্রাহককে স্মার্ট মিটার দেবে। এজন্য চীনা কোম্পানি সেনজেন স্টার ইনস্ট্রুমেন্ট এবং অকুলিন টেকের সঙ্গে নেসকো একটি চুক্তি সই করে আজ।
চুক্তিতে নেসকোর পক্ষে কোম্পানি সচিব সৈয়দ আবু তাহের এবং চীনা কোম্পানি সেনজেন স্টারের প্রেসিডেন্ট লাউ চুন ডেন এবং অকুলিন টেকের সাদাব সাজ্জাদ নিজ নিজ কোম্পানির পক্ষে সই করেন। প্রকল্পটির মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৪১৪ কোটি ৮২ লাখ ৬২ হাজার টাকা। এরমধ্যে সরকার দিচ্ছে ৪০০ কোটি ৬৯ লাখ ৮৩ হাজার টাকা, নেসকো দেবে ১৪ কোটি ১২ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। প্রথম ফেজের খরচ ধরা হয়েছে ১০৭ কোটি ৫ লাখ ৩৫ হাজার টাকা।
প্রথম পর্বে স্মার্ট মিটার পাবে মোট ৯ জেলা, এরমধ্যে আছে রাজশাহী-১, রাজশাহী-৪, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২, নাটোর, পাবনা-১, পাবনা-২, বগুড়া-১, বগুড়া-২, দিনাজপুর-১, দিনাজপুর-২, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, সৈয়দপুর ও নীলফামারীর গ্রাহকরা।
স্মার্ট মিটার স্থাপন ছাড়াও এই প্রকল্পের আওতায় অ্যাডভান্স মিটারিং ইনফ্রাস্টাকচার (এএমই) সিস্টেম বাস্তবায়ন করা হবে, যার মাধ্যমে প্রকল্প এলাকায় ১ লাখ ৩১ হাজার ৩৫৩টি সিংগেল ফেজ, ৮ হাজার ৯৫টি থ্রি ফেজ মিটার এবং ৮৩৯টি ডিসিইউ স্থাপন করা হবে।
নেসকোর স্বচ্ছতা বৃদ্ধি, অনলাইন রিয়েল টাইম ডাটা এক্সেস, ভার্সেটাইল পেমেন্ট, যেকোনও স্থান থেকে বিদ্যুৎ বিল সংগ্রহ ও পরিশোধের ব্যবস্থা করা, নন-টেকনিক্যাল লস শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়।

/এসএনএস/এআর/এমএমজে/

লাইভ

টপ