X
বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২
২২ আষাঢ় ১৪২৯

অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নের পর নজরদারিতে জোনের কর্মচারীরা

আপডেট : ১০ মার্চ ২০২২, ২৩:৩১

এবার গ্যাস অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জোনের কর্মকর্তা কর্মচারীদের নজরদারিতে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জ্বালানি বিভাগ। জ্বালানি বিভাগের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জ্বালানি বিভাগ সূত্র বলছে, গ্যাস বিতরণ কোম্পানির কর্মকর্তাদের জবাবদিহি ছাড়া অবৈধ সংযোগ বন্ধ করা সম্ভব হবে না।

অভিযোগ রয়েছে, অভিযান চালিয়ে গ্যাসের অবৈধ লাইন কেটে দেওয়ার পর রাতারাতি আবার সেই লাইন জুড়ে দেয় গ্যাস বিতরণ কোম্পানির কর্মচারীরাই। সংশ্লিষ্ট এলাকার ঠিকাদারদের সঙ্গে যোগসাজশে দিনের পর দিন এই কাজ চলে আসছে। একদিকে লাইন কেটে এলে আরেকদিন থেকে জুড়ে দেওয়ায় অবৈধ ব্যবহারকারীরা আরও উৎসাহিত হতো। কিন্তু এবার কঠোর হচ্ছে জ্বালানি বিভাগ। বলা হচ্ছে, অবৈধ লাইন কাটার সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জোনের কর্মচারী-কর্মকর্তারাও থাকবেন নজরদারিতে।

জ্বালানি বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, জ্বালানি বিভাগের এক বৈঠকে বিষয়টি আলোচনায় আসে। ওই সময় জ্বালানি বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পর সংশ্লিষ্ট জোনের কর্মকর্তাদের নজরে রাখতে হবে। তিনি বলেন, যদি কেউ অবৈধ সংযোগগুলো আবার জুড়ে দেয় তা ওইদিনই অবহিত করতে হবে।

জ্বালানি বিভাগ বলছে, অবৈধ লাইন কেটে আসার পর আবার যদি জুড়ে দেওয়া হয় তাহলে ওই এলাকার ঠিকাদারের লাইসেন্স বাতিল করে তাকে কালো তালিকাভুক্ত করতে হবে।

পেট্রোবাংলা বলছে, বিদেশ থেকে এলএনজি আমদানির পর বিপুল পরিমাণ ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। এর মধ্যে যদি আবার চুরি হয় তাহলে সেই বিল আর রাজস্ব খাতে জমা হয় না। এক্ষেত্রে পেট্রোবাংলাকে আরও লোকসান গুনতে হয়। এ প্রেক্ষিতে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার ওপর জোর দেওয়া হয়। কিন্তু অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার ক্ষেত্রে জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। এগুলো একটা একটা করে কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করা হচ্ছে।

তিতাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুনুর রশীদ মোল্লা জানান, গত জানুয়ারি মাসে মোট অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে ৩১টি, মোট স্পট ছিল ১০৪টি। ১৮ কিলোমিটার অবৈধ বিতরণ লাইন উচ্ছেদ করা হয়েছে। বিচ্ছিন্নকৃত বার্নারের সংখ্যা ১৮ হাজার ২১১টি। বিচ্ছিন্ন করা বাণিজ্যিক সংযোগ ২০টি, শিল্প সংযোগ ২১টি এবং ক্যাপটিভ সংযোগ ৫টি। জানুয়ারি মাসে গ্যাস বিক্রি ১ হাজার ৫২৫ কোটি টাকার বিপরীতে ১ হাজার ৫০৫ কোটি টাকা আদায় করা হয়েছে।

পেট্রোবাংলা বলছে, এখন প্রতিদিন গড়ে তিন হাজার মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হয়। এরমধ্যে দেশের গ্যাস ক্ষেত্রগুলো থেকে এখন ২ হাজার ২৮৯ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস তোলা হচ্ছে। এর বাইরে থেকে আমদানি করে আনা হয় ৭৭০ মিলিয়ন ঘনফুট। কিন্তু ১০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস স্পট মার্কেট থেকে আমদানি করা হচ্ছে।

/এমআর/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
নৌপথেও মোটরসাইকেল পরিবহন বন্ধ
নৌপথেও মোটরসাইকেল পরিবহন বন্ধ
অ্যান্ড্রয়েডের জন্য দ্রুত গতির আউটলুক অ্যাপ আনছে মাইক্রোসফট
অ্যান্ড্রয়েডের জন্য দ্রুত গতির আউটলুক অ্যাপ আনছে মাইক্রোসফট
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ১০ কিলোমিটার যানজট
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ১০ কিলোমিটার যানজট
দেশের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বিনিয়োগে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড
দেশের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বিনিয়োগে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড
এ বিভাগের সর্বশেষ
কঠোরতার ফল পাচ্ছে তিতাস, কমছে অবৈধ লাইন
কঠোরতার ফল পাচ্ছে তিতাস, কমছে অবৈধ লাইন
যেসব এলাকায় আজ গ্যাস থাকবে না
যেসব এলাকায় আজ গ্যাস থাকবে না
মাটি খুঁড়লেই অবৈধ লাইন
মাটি খুঁড়লেই অবৈধ লাইন
কামরাঙ্গীরচরে গ্যাস সংকটের সমাধান হয়নি
কামরাঙ্গীরচরে গ্যাস সংকটের সমাধান হয়নি
দেশেই প্রিপেইড মিটার বানাতে চায় তিতাস
দেশেই প্রিপেইড মিটার বানাতে চায় তিতাস