X
শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২
১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

কম খরচে দেশের প্রকৌশলীদের চেষ্টায় ডেমু ট্রেন সচল

বিপুল সরকার সানি, দিনাজপুর
০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৪৪আপডেট : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩:১১

ব্যয়বহুল চীনা প্রযুক্তির বদলে দেশি প্রযুক্তিতেই ডেমু ট্রেন পরিচালনায় সফল হয়েছেন প্রকৌশলীরা। এর ফলে অকেজো হয়ে পড়ে থাকা দেশের ২০টি ডেমু ট্রেন সচল হয়ে যুক্ত হবে রেলওয়েতে। রবিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় তৃতীয় বারের মতো লোডসহ পার্বতীপুর থেকে পঞ্চগড় পথে চালানো হয়েছে দেশীয় প্রযুক্তিতে মেরামত হওয়া একটি ডেমু ট্রেন। সফল এই ট্রায়ালে ট্রেনের গতি ছিল ঘণ্টায় ৭২ কিলোমিটার। রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা পেলে যেকোনও দিন আনুষ্ঠানিকভাবে রেলবহরে যুক্ত হবে এই ডেমু ট্রেনটি।

সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, দেশে অকেজো হয়ে থাকা ২০টি ডেমু ট্রেন চীনের প্রযুক্তিতে মেরামত করা হলে খরচ পড়বে প্রায় ৬০০ কোটি টাকা। আর নতুন উদ্ভাবিত প্রযুক্তিতে মেরামত করা হলে খরচ পড়বে মাত্র ১০০ কোটি টাকা। একই সঙ্গে ছোটখাটো কিংবা বড় ধরনের মেরামতের প্রয়োজন হলেও এখন থেকে আর চীনের দ্বারস্থ হতে হবে না।

রেলওয়ে বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালে ৬৪৫ কোটি টাকা ব্যয়ে চীন থেকে ২০টি ডেমু ট্রেন নিয়ে আসা হয়েছিল। এসব ডেমু ট্রেন পরিচালিত হতো এক ধরনের বিশেষ সফটওয়্যারের মাধ্যমে। আমদানির সময় বলা হয়েছিল, এসব ট্রেন ২০ বছর মেয়াদের আগে নষ্ট হবে না। কিন্তু আমদানির মাত্র চার-পাঁচ বছরের মধ্যেই সেগুলো একের পর এক বিকল হতে থাকে। নয় বছরের মধ্যেই ২০টি সবগুলো ট্রেনই বিকল হয়ে পড়ে। প্রথম অবস্থায় বিকল হয়ে পড়লে মডিউল পরিবর্তন করা হতো। একটি মডিউলের দাম প্রায় ৭ লাখ টাকা। সেইসঙ্গে এই মডিউলকে পরিচালনার সফটওয়্যার সেটআপ দিতে হতো। ফলে দারস্থ হতে হতো চীনের প্রকৌশলীদের। ফলে এসব মডিউল কেনার পাশাপাশি সেটআপ দিতেও ব্যয় হতো। প্রতিটি ট্রেনে ৪০টি করে মডিউল রয়েছে। অনবরতভাবে একটির পর একটি মডিউল নষ্ট হয়ে যেতে শুরু করায় একপর্যায়ে এসব ট্রেন মেরামতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন সংশ্লিষ্টরা। ফলে ২০টি ডেমু ট্রেনই ঢাকা, চট্টগ্রাম, পার্বতীপুরসহ বিভিন্ন স্থানে পড়ে রয়েছে।

রেলওয়ে দফতরের কর্মকর্তারা জানান, ওই সময়ে ডেমু ট্রেনগুলো নির্মাণ করেছিল চীনের তানশাং ইন্টারন্যাশনাল ও ডানিয়াল টেকনিক্যাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট। ডেমু ট্রেনের পুরো নাম ডিজেল ইলেকট্রিক মাল্টিপল ইউনিট। মূলত স্বল্প দূরত্বে যাতায়াতের জন্য ট্রেনগুলো আমদানি করা হয়েছিল। ট্রেনগুলোর দু’দিকে দুটি ইঞ্জিন ও মাঝখানে ৩শ’ যাত্রীর বসার আসন রয়েছে। এ ছাড়াও দাঁড়িয়েও যাতে যাওয়া যায় সেই ব্যবস্থাও ছিল। এসব ডেমু ট্রেন পরিচালিত হয় এক ধরনের বিশেষ কম্পিউটার সফটওয়্যারের মাধ্যমে। ওই সময়ে ট্রেন হস্তান্তর করা হলেও এই সফটওয়্যার হস্তান্তর করা হয়নি বা এ বিষয়ে দেশি প্রকৌশলীদের অবহিতও করা হয়নি। এসব সফটওয়ারের বিষয়ে চীনা কোম্পানি বিশেষ গোপনীয়তা অবলম্বন করে। প্রতিটি ট্রেনে ৪০টি মডিউল রয়েছে, এসব মডিউলের সঙ্গে সফটওয়্যার সেটআপ দেওয়া রয়েছে। কোনও মডিউল বিকল হলে সেই মডিউল পরিবর্তনের সময় সফটওয়্যারও সেটআপ দেওয়া হয়। প্রতিটি মডিউলের দাম প্রায় ৭ লাখ টাকা। এসব মডিউল সেটআপ দিতেন চীনা প্রকৌশলীরা। ফলে তাদের পারিশ্রমিক ব্যয়ও ছিল। ট্রেনগুলো বিকল হওয়ার পর নতুন নতুন মডিউল স্থাপন ও সফটওয়্যার সেটআপ দিতে হিমশিম খেয়ে পড়ে রেলওয়ে বিভাগ। এ জন্য বিকল হওয়া ডেমু ট্রেনগুলো মেরামত করা হয়নি দীর্ঘদিনেও।

এরই মধ্যে বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মঞ্জুর-উর-আলম ট্রেনগুলোকে সচল করতে দেশি প্রকৌশলীদের দারস্থ হন। এসব ডেমু ট্রেন সচল করতে এগিয়ে আসেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাবেক শিক্ষার্থী ও আণবিক শক্তি কমিশনের সাবেক কর্মকর্তা প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান। তিনি দীর্ঘ দেড় বছর গবেষণা করে সফল হন। দেড় বছরের চেষ্টায় মাত্র ৭২ দিন কাজ করে চীনা প্রযুক্তিকে সরিয়ে দেশি প্রযুক্তি ব্যবহার করে একটি ডেমু ট্রেনকে সচল করেছেন তিনি। ইতোমধ্যেই লোডসহ তিন বারের সফল ট্রায়াল হয়েছে। তার এই মেরামত কার্যক্রমে সহযোগিতা করেন প্রকৌশলী আজিম বিশ্বাসসহ পার্বতীপুর ডিজেল লোকো ওয়ার্কসপের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান বলেন, ‘২০২১ সালের মার্চ-এপ্রিল থেকে এই মেরামত কার্যক্রম শুরু হয়। সেটি ছিল করোনাকাল। ফলে মেরামত করতে যেসব যন্ত্রাংশ প্রয়োজন সেসব আমদানি করতে কিছুটা দেরি হয়। প্রায় দেড় বছর ধরে আমরা কাজ করেছি, এর মধ্যে লোকো কারখানায় কাজ করতে হয়েছে ৭২ দিন। আমরা ইতোমধ্যেই ট্রায়াল দিয়েছি এবং সচল করতে পেরেছি। এখন যে পর্যায়ে আছি তাতে আমরা সফল। ট্রায়ালগুলোতে লোড, গতি, পরিচালনা সবকিছুই ঠিকঠাক রয়েছে। আমাদের হিসেব মতে চীনা প্রযুক্তি ব্যবহার করে ২০টি ডেমু সচল করতে প্রায় ৬০০ কোটি টাকা প্রয়োজন। আর দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে খরচ পড়বে প্রায় ১০০ কোটি টাকা। এই টাকা বরাদ্দ পেলে আগামী তিন মাসের মধ্যেই ২০টি ডেমু ট্রেন সচল করা সম্ভব।’

ডেমু ট্রেনের লোকো মাস্টার মশিউর রহমান ও সহকারী লোকো মাস্টার নুরুজ্জামান বলেন, ‘চায়না প্রযুক্তিতে নির্মিত এসব ডেমু ট্রেন দেশি প্রযুক্তিতে চালাতে সমস্যা হচ্ছে না। প্রয়োজনীয় গতিও ঠিক রয়েছে, ঘণ্টায় ৭২ কিলোমিটার পর্যন্ত গতি উঠছে।’

পার্বতীপুর লোকো ইয়ার্ডের ইনচার্জ কাফী-উল-ইসলাম বলেন, ‘পার্বতীপুরের লোকোশেডে অকেজো অবস্থায় থাকা দুটি ডেমু ট্রেন গত বছরের ২৪ মার্চ মেরামতের জন্য ডিজেল লোকো ওয়ার্কশপে হস্তান্তর করা হয়। প্রকৌশলীরা গত বছরের ২ এপ্রিল থেকে কাজ শুরু করেন। ইতোমধ্যেই এই ডেমু ট্রেনটি মেরামত চলাকালেই ২৯ বার ট্রায়াল দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে যাত্রী লোড ছাড়া ২৭ বার এবং যাত্রী লোড নিয়ে তিন বার পঞ্চগড় ও লালমনিহাট পথে চালানো হয়েছে। সফলভাবেই এসব ট্রায়াল সম্পন্ন হয়েছে।’

প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘চীন থেকে আনা ডেমু ট্রেন চালানো হতো মডিউলের মাধ্যমে। আমরা সহজ প্রক্রিয়ায় এসব ট্রেন চালুর চেষ্টা করেছি। প্রায় এক বছর ধরে আমরা এই চেষ্টা করে মোটামুটি সফল। আগামী চার-পাঁচ মাস পর্যবেক্ষণ করার পর আমাদের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে এবং এটি সফল বলে মনে করা হবে। পরে যতগুলো ডেমু আছে সবগুলোই এই প্রক্রিয়ায় আনা হবে। এখানে একটি ডেমু ট্রেনের চূড়ান্ত ট্রায়াল সম্পন্ন হচ্ছে, এখনও ১৯টি রয়েছে। চীনের টেকনোলজি জটিল ছিল, সেটি সহজ করতে এই প্রক্রিয়া। এতে দেশীয় প্রযুক্তিতে এসব ডেমু ট্রেন পরিচালিত হবে, ফলে অর্থ সাশ্রয় হবে।’

/এমএএ/
দুই ভাগ্নেকে ট্রাক্টরে চড়াচ্ছিলেন মামা, উল্টে প্রাণ গেলো সবার
দুই ভাগ্নেকে ট্রাক্টরে চড়াচ্ছিলেন মামা, উল্টে প্রাণ গেলো সবার
‘শেখ হাসিনা জনগণের হক নষ্ট করে রাজনীতি করেন না’
‘শেখ হাসিনা জনগণের হক নষ্ট করে রাজনীতি করেন না’
পূর্ব ইউক্রেনে সফরে যাবেন পুতিন: ক্রেমলিন
পূর্ব ইউক্রেনে সফরে যাবেন পুতিন: ক্রেমলিন
ছেলেকে ঘরে থাকতে বলে ফিরতে পারলেন না রুবিনা
ছেলেকে ঘরে থাকতে বলে ফিরতে পারলেন না রুবিনা
সর্বাধিক পঠিত
রিমান্ডে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে আবিরের মা-বাবা
আয়াত হত্যারিমান্ডে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে আবিরের মা-বাবা
আকাশছুঁই পারিশ্রমিক হাঁকছেন রাজ, দিলেন ব্যাখ্যা
আকাশছুঁই পারিশ্রমিক হাঁকছেন রাজ, দিলেন ব্যাখ্যা
খালেদা-তারেকের ছবি থাকায় মিডিয়া কার্ড বর্জন সাংবাদিকদের
বিএনপির গণসমাবেশখালেদা-তারেকের ছবি থাকায় মিডিয়া কার্ড বর্জন সাংবাদিকদের
ব্রাজিলকে হারিয়ে দিলো ক্যামেরুন
ব্রাজিলকে হারিয়ে দিলো ক্যামেরুন
নেইমার-রিচার্লিসন ছাড়া রিজার্ভ বেঞ্চের সামর্থ্য বুঝলো ব্রাজিল
নেইমার-রিচার্লিসন ছাড়া রিজার্ভ বেঞ্চের সামর্থ্য বুঝলো ব্রাজিল