X
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩
১৭ মাঘ ১৪২৯

নৌ শ্রমিকদের কর্মবিরতিতে অচল খুলনা ও নওয়াপাড়া নদী বন্দর

খুলনা ও যশোর প্রতিনিধি
২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৫:১৯আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৫:১৯

মজুরি বৃদ্ধিসহ ১০ দফা দাবি আদায়ে নৌ শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিতে খুলনা অঞ্চল অচল হয়ে পড়েছে। খুলনা ও যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া নদী বন্দরে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। খুলনার দাকোপ, পাইকগাছা, কয়রা, সাতক্ষীরায় লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। বন্ধ রয়েছে পণ্যবাহী লঞ্চও। খুলনার ৪, ৫, ৬ ও ৭ নম্বর ঘাট ও নওয়াপাড়া নদী বন্দরের ঘাট সমূহে লোড-আনলোড বন্ধ রয়েছে।

ভরা মৌসুমে নৌ-যান শ্রমিকদের ডাকা এ কর্মবিরতিতে রীতিমত উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা। তারা আশঙ্কা করছেন, চলমান কয়লা ও সারের মৌসুমে নৌযান শ্রমিকদের ডাকা এ অনির্দিষ্ট কর্মবিরতি প্রত্যাহার না হলে অচল হয়ে পড়বে নওয়াপাড়া নদী বন্দর। বন্ধ হয়ে যাবে লোড-আনলোডের কাজ। কর্মহীন হয়ে পড়বে খুলনা অভয়নগর নওয়াপাড়া হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিক। বন্দর ব্যবহারকারি ব্যবসায়ীদের কোটি কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখিন হতে হবে।

খুলনায় লঞ্চ চলাচলও বন্ধ

২৬ নভেম্বর দিবাগত মধ্যরাত থেকে এ কর্মবিরতি শুরু হয়েছে। এর আগে থেকে শনিবার রাত ৭টার দিকে যশোর-খুলনা মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছের শ্রমিক-কর্মচারীরা। তারা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ না ছাড়ার হুশিয়ারি দেন। রবিবার (২৭ নভেম্বর) সকাল খুলনা বিআইডব্লিউটিএ লঞ্চ ঘাটে বিক্ষোভ মিছিল করেন শ্রমিকরা।

খুলনা নৌ-যান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের সদস্য মো. ফারুখ হোসেন বলেন, বর্তমানে একজন শ্রমিক সর্বনিম্ন ৭ হাজার ৭৫০ টাকা মজুরি পাচ্ছে। প্রতিদিন ২৩৩ টাকা তাদের মজুরি। বর্তমান বাজারে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে শ্রমিকরা সংসার চালাতে পারছে না। তারা বার বার মালিকদের কাছে দাবি জানিয়ে আসলেও কর্ণপাত করছে না। বেতন বৃদ্ধি করছে না।

নৌ শ্রমিক মো. আকবর ও হাসমত আলী জানান, দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়েও কোন সুফল আসেনি। দাবি হচ্ছে সর্বনিম্ন মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ, কর্মস্থল ও দুর্ঘটনায় মৃত্যুজনিত কারণে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ, কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড ও নাবিক কল্যাণ তহবিল গঠন, ভারতগামী শ্রমিকদের ল্যান্ডিংপাস প্রদান, বাল্কহেড-এর রাত্রিকালীন চলাচলের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিলকরণ, বাংলাদেশের বন্দরসমূহ থেকে পণ্য পরিবহন নীতিমালা ১০০ ভাগ কার্যকর করা, চট্টগ্রাম বন্দরে প্রোতাশ্রয় নির্মাণ ও চরপাড়া ঘাটের ইজারা বাতিল, চট্টগ্রাম থেকে পাইপলাইনে জ্বালানি তেল সরবরাহের চলমান কার্যক্রম বন্ধসহ ১০ দফা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মবিরতি চলবে।

খুলনায় লঞ্চ চলাচলও বন্ধ

বাংলাদেশ লঞ্চ লেবার অ্যাসোসিয়েশনের খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ৭-৮ বছর আগের বেতন কাঠামো এখনও চলছে। বর্তমান দ্রব্যমূল্যের বাজার সম্পর্কে জানা আছে। শ্রমিকদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। সংগ্রাম-কর্মবিরতি করা ছাড়া তাদের আর কোনও গতি নেই।

নওয়াপাড়ার হ্যান্ডলিং শ্রমিক সাগর আহমেদ, হাসান মোল্যা, রুম্মান মোল্যা, ওসমান বিশ্বাস বলেন, প্রতিদিনের মতো রবিবার কাজে এসে দেখি জাহাজের লোড আনলোড বন্ধ রয়েছে। কাজ না পেয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। কবে যে কাজ হবে তা বলতে পারছি না। কাজ না হলে না খেয়ে মরতে হবে।

নওয়াপাড়া পৌর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ফালগুন মন্ডল বলেন, নৌ-যান শ্রমিকদের কর্মবিরতির কারণে বন্দর এলাকায় লোড-আনলোডের কাজ বন্ধ থাকবে। ফলে ১৭ হাজার হ্যান্ডলিং শ্রমিককে অলস সময় কাটাতে হচ্ছে। সেই সঙ্গে তাদের প্রতিদিনকার উপার্জনও বন্ধ হয়ে গেছে। যার প্রভাব পড়ছে শ্রমিক পরিবারগুলোর ওপর।

নওয়াপাড়া সার-সিমেন্ট, খাদ্য শষ্য ও কয়লা ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশন (বিএফএ)র সিনিয়র সহ সভাপতি শাহ্ জালাল হোসেন উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, দেশের অর্থনৈতিক ক্রান্তিলগ্নে ব্যবসায়ীরা এমনিতেই নাজুক অবস্থায় পড়েছেন। তার ওপর এই ভরা মৌসুমে নৌ-যান শ্রমিক কর্মবিরতির ফলে নওয়াপাড়া ব্যবসা-বাণিজ্য মুখ থুবড়ে পড়বে। মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে ব্যবসায়ীরা। তিনি কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধানের আহ্বান জানান।

নওয়াপাড়া নদী বন্দর

নওয়াপাড়া নদীবন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, ভৈরব নদের যশোর সদর উপজেলার আফরা থেকে অভয়নগর উপজেলার মজুদখালী খাল পর্যন্ত নওয়াপাড়া নদীবন্দর। নদীবন্দর এলাকায় নদের উভয় তীরের মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ৫০ কিলোমিটার। নদের এক পাশের তীরের ১০ কিলোমিটার খুলনার ফুলতলা উপজেলার মধ্যে অবস্থিত। এখানে ৯৪টি ঘাট রয়েছে।

কর্ম বিরতির ফলে নওয়াপাড়ার নৌবন্দরে এলাকায় ভৈরব নদে লাইন দিয়ে জাহাজগুলো নোঙর করা রয়েছে। জাহাজ থেকে সব ধরনের পণ্য ওঠানামার কাজ বন্ধ রয়েছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, চীন, জর্ডান, কানাডা, সৌদি আরব, মরক্কো, অস্ট্রেলিয়া থেকে বড় জাহাজে করে আমদানি করা সার, বিভিন্ন প্রকারের খাদ্যশস্য, কয়লা চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরে আসে। সেখান থেকে ছোট জাহাজে করে তা নওয়াপাড়ায় আনা হয়। প্রতিদিন ৪০০ থেকে ৫০০ পণ্যবোঝাই জাহাজ নওয়াপাড়ায় ভৈরব নদে অবস্থান করে। সেখান থেকে নামানোর পর এসব পণ্য প্রতিদিন স্থলপথে এক হাজারের বেশি ট্রাকে করে এবং নদীপথে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে করে দেশের উত্তর, দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোতে নেওয়া হয়।

নওয়াপাড়া নদীবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক মাসুদ পারভেজ বলেন, শ্রমিক ধর্মঘটের ফলে বন্দরে সব ধরনের পণ্য লোড-আনলোড বন্ধ রয়েছে। সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

নওয়াপাড়া নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের সচিব নিয়ামুল হক বলেন, নৌযান শ্রমিকদের বেতন ভাতা বৃদ্ধিসহ ১০ দফা দাবি আদায়ের লক্ষে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট শুরু হয়েছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট অব্যহত থাকবে।

নওয়াপাড়া সার, সিমেন্ট ও খাদ্যশস্য ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল হোসেন বলেন, ধর্মঘটের কারণে নওয়াপাড়ায় ভৈরব নদের সব ঘাটে জাহাজ থেকে পণ্য লোড-আনলোড বন্ধ রয়েছে। এখন সার ও কয়লার মৌসুম। ধর্মঘটের কারণে নওয়াপাড়া মোকাম স্থবির হয়ে পড়েছে।

 

/এফএস/
সর্বশেষ খবর
এক মাসে মেট্রোরেলে চড়েছে ৩ লাখ ৩৫ হাজার যাত্রী
এক মাসে মেট্রোরেলে চড়েছে ৩ লাখ ৩৫ হাজার যাত্রী
‘বাস্তবতার নিরিখে রাজধানীতে পাতাল রেল হচ্ছে’
‘বাস্তবতার নিরিখে রাজধানীতে পাতাল রেল হচ্ছে’
বিশ্বকাপ জয়ের পর ইন্সটাগ্রাম ব্লকড হয়েছিল মেসির!
বিশ্বকাপ জয়ের পর ইন্সটাগ্রাম ব্লকড হয়েছিল মেসির!
পাকিস্তানের মসজিদে পুলিশের ওপর হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮৭
পাকিস্তানের মসজিদে পুলিশের ওপর হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮৭
সর্বাধিক পঠিত
সংবাদ প্রকাশের পর কুমিল্লার হাইওয়ে হোটেলে অভিযান
সংবাদ প্রকাশের পর কুমিল্লার হাইওয়ে হোটেলে অভিযান
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
এনআইডি’র সঙ্গে সমন্বয় করে পাসপোর্ট সমস্যা দ্রুত সমাধানের সুপারিশ
এনআইডি’র সঙ্গে সমন্বয় করে পাসপোর্ট সমস্যা দ্রুত সমাধানের সুপারিশ
এসআইবিএল থেকে মাহবুব-উল-আলমের পদত্যাগ
এসআইবিএল থেকে মাহবুব-উল-আলমের পদত্যাগ
আলাদা ইউনিট করে রাজউকই পূর্বাচলে নাগরিক সেবা দেবে
আলাদা ইউনিট করে রাজউকই পূর্বাচলে নাগরিক সেবা দেবে