বঙ্গবন্ধু নওগাঁয় এসেছিলেন তিনবার

Send
আব্দুর রউফ পাভেল, নওগাঁ
প্রকাশিত : ১৯:১৬, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:১৬, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানজাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিভিন্ন প্রয়োজনে তিনবার নওগাঁয় এসেছিলেন। ১৯৫৩ সালে তৎকালীন নওগাঁ মহকুমা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনের জন্য প্রথমবারের মতো তিনি নওগাঁয় আসেন। এরপর ১৯৭০ সালে নৌকার পক্ষে নির্বাচনি প্রচারণায় নওগাঁয় আসেন তিনি। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি ও প্রধানমন্ত্রী হিসাবে সর্বশেষ ১৯৭৩ সালে নওগাঁয় আসেন জাতির জনক। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এ ইতিহাস জানা গেছে।

জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর আগমনের ঘটনা এখনও নওগাঁর জনজীবনে প্রতিফলিত হয়। ইতিহাস হয়ে রয়ে গেছে নতুন প্রজন্মের কাছে। ১৯৫৩ সালে নওগাঁয় এসে মফিজ উদ্দিনকে সভাপতি ও ভাষাসৈনিক এমএ রকিবকে সাধারণ সম্পাদক করে আওয়ামী লীগের একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করেন তিনি। ১৯৭০ সালের ২৪ অক্টোবর নওগাঁর মান্দার কালিকাপুর হাইস্কুল মাঠ, মহাদেবপুর হাইস্কুল মাঠ, নজিপুর পাবলিক স্কুল মাঠ, আত্রাই রেলওয়ে স্টেশন ও নওগাঁ শহরের এটিম মাঠে নির্বাচনি জনসভায় বক্তব্য রাখন বঙ্গবন্ধু। ওই সময় তিনি তিন দিন নওগাঁয় ছিলেন। ১৯৭০ সালে তিনি রাতযাপন করেছিলেন নওগাঁ উকিলপাড়ার রহিম মুক্তারের বাসায়। শেষবার ১৯৭৩ সালে এসে নওগাঁ সদরের তালতলার চকপ্রাচী বিলে বিশাল জনসভায় বক্তব্য রাখেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর আসার কথা শুনে তার সভাস্থলে ৩-৪ দিন আগে থেকে বিভিন্ন স্থান থেকে পায়ে হেঁটে, বাইসাইকেলে ও গরুর গাড়িতে মানুষ আসতে থাকে। ওই সময় বিল শুকনো থাকায় বিলের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে রান্না করে নিজেদের খাওয়ার ব্যবস্থা করেন তারা। এটি ছিল একটি অভূতপূর্ব দৃশ্য।
সেদিনের কথা স্মরণ করে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠশিল্পী আফরোজা মামুন চৌধুরী বলেন, ‘১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু আসার কারণে তালতলীতে প্রথম বিদ্যুৎ সংযোগ ঘটে। আমি ও আমার স্বামী মরহুম রাজা চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর জনসভায় গান পরিবেশন করেছিলাম। গান শেষে বঙ্গবন্ধুর কাছে গিয়েছিলাম। আমি কিছু বলতে চাই কিনা বঙ্গবন্ধু জানতে চেয়েছিলেন। আমি শুধু তার একটি অটোগ্রাফ চেয়েছিলাম। বঙ্গবন্ধু সঙ্গে সঙ্গে আমাকে অটোগ্রাফ দিয়েছিলেন। আজও আমি অটোগ্রাফটি দেখি, আর সেদিনের কথা ভাবি।’ বঙ্গবন্ধু সেদিন বলেছিলেন, ‘আমি নওগাঁর মানুষকে স্বচক্ষে দেখতে এসেছি। আমি আপনাদের ভালোবাসি। আমি চাই আপনাদের দোয়া ও ভালোবাসা। আপনারা ভালো থাকবেন। খোদা হাফেজ। জয় বাংলা।’
নওগাঁ আস্তান মোল্লা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মর্তুজা রেজা বলেন, ‘বাবার কাছে শুনেছি, বঙ্গবন্ধু আমাদের বাড়িতে উঠেছিলেন ১৯৫৩ সালে। তিনি তৎকালীন নওগাঁ মহকুমা কমিটি গঠনের জন্য এসেছিলেন।’
নওগাঁ পৌরসভার সবেক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘১৯৭০ সালে আমি ছোট ছিলাম। আমার মামার কাঁধে উঠে বঙ্গবন্ধুকে দেখেছিলাম শহরের একটি মাঠের জনসভায়। হাজার হাজার মানুষ ছিল মাঠে। আজও মনে পড়ে সেদিনের কথা।’

/আইএ/

লাইভ

টপ