ঠাকুরগাঁওয়ে ৮৮৯ বস্তা চাল জব্দ, ইউপি সদস্যসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

Send
ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:০১, এপ্রিল ১০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:১৩, এপ্রিল ১০, ২০২০

 ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় হতদরিদ্রের জন্য ওএমএস ও ভিজিডির বরাদ্দকৃত মোট ৮৮৯ বস্তা চাল জব্দ করেছে প্রশাসন। বালিয়াডাঙ্গীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খায়রুল কবীর লিটন জানান, দুটি গুদাম ও নসিমন থেকে ৬৩০ বস্তা চাল উদ্ধারের পর সিলগালাকৃত অপর দুটি গুদাম থেকে আরও ২৫৯ বস্তা চাল উদ্ধার করে জব্দ করা হয়। এসময় দুটি হাস্কিং মিলের চারটি গুদাম সিলগালা করে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে বালিয়াডাঙ্গীর কুশলডাঙ্গী বাজারে ভাই ভাই হাস্কিং মিলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খায়রুল আলম সুমন এসব চাল জব্দ করেন। অবশিষ্ট ২৫৯ বস্তা চাল উদ্ধার হয় শুক্রবার ভোরে। পরে গুদাম চারটি সিলগালা করে দেন। অভিযানের সংবাদ পেয়ে আগেই সটকে পরেন মিলের এক মালিক আমিরুল ইসলাম তবে তার ভাই জমিরুল ইসলামকে (৪০) গ্রেফতার করে পুলিশ।

 বৃহস্পতিবার সকালে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার আমজানখোর ইউনিয়ন পরিষদের নারী সদস্য কুলসুম বেগমের কুসলডাঙ্গী বাজারস্থ গুদামে চাল মজুদ করার সময় স্থানীয় লোকজন দেখে ফেলে। তারা ইউএনওকে খবর দেন। তিনি পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে একটি নসিমন থেকে ৬৮ বস্তা ওএসএসের চাল নামিয়ে গুদামজাত করার সময় হাতেনাতে ধরে ফেলেন। একই ধরনের ৫৬২ বস্তা চাল ওই গুদামে পাওয়া যায়। ইউএনও গুদাম সিলগালা করেন। এই গুদামে কুলসুমের স্বামী আমিরুল চালের ব্যবসা করেন। পরে সিলগালাকৃত গুদামগুলোতে অভিযান চালিয়ে আরও ২৫৯ বস্তা একই ধরনের চালের বস্তা আটক করা হয়।

এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে ৬ জন অভিযুক্তের নাম উল্লেখ করে বালিয়াডাঙ্গী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ফুড অফিসার) নিখিল চন্দ্র বর্মণ। অভিযুক্তরা হলেন- পান্না কউসার, আমিরুল ইসলাম, ইউপি সদস্য কুলসুম বেগম, সামিরুল ইসলাম, আব্দুর রশিদ, জামিরুল ইসলাম।

 এ বিষয়ে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খায়রুল আলম সুমন জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে সরকারি চাল জব্দ করতে সক্ষম হয়েছি। দুই জনকে আটক করা হলেও বাকিরা পলাতক রয়েছে। দোষীদের আইনের আওতায় আনতে পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি হবিবুর রহমান প্রধান মামলার কথা নিশ্চিত করে জানান, অবশিষ্ট আসামিদের খোঁজা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক ড. কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, দেশের দুর্যোগ মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী অসহায় মানুষের জন্য এসব চাল বরাদ্দ দিয়েছেন। গরীবের হক নিয়ে যারা অপকর্ম করছে তাদের কোনও অবস্থাতেই ছাড় দেওয়া হবে না।

/টিটি/

লাইভ

টপ