আম্পান: ভোলার চরবাসীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নেওয়া হচ্ছে আশ্রয় কেন্দ্রে

Send
ভোলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২২:২৮, মে ১৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৩৪, মে ১৮, ২০২০

ভোলায় সতর্কতা মাইকিংবঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় আম্পান ক্রমশই উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে। ইতোমধ্যে উপকূলীয় এলাকায় ৭ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উপকূলীয় দ্বীপ জেলা ভোলায় ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলার অংশ হিসেবে চর এলাকা থেকে ২৪ ঘণ্টার ভেতরে সবাইকে সরিয়ে আনার জন্য কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন। দুপুরে জেলা প্রশাসক মো. মাসুদ আলম ছিদ্দিকের সভাপতিত্বে এ বিষয়ে প্রস্তুতি সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোকে সতর্কতামূলক নির্দেশনা দেওয়ার পাশাপাশি এক হাজার ১০৪টি সাইক্লোন শেল্টার প্রস্তুুত রাখার কথা বলা হয়। এছাড়া সব স্কুল-কলেজগুলোকে আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুতির নির্দেশনা দেওয়া হয়।

অপর দিকে সিপিপি ও রেডক্রিসেন্টের ১০ হাজার ২০০ স্বেচ্ছাসেবী প্রস্তুুত রাখা হয়েছে। এছাড়া প্রস্তুত রয়েছে ১০০টি মেডিক্যাল টিম। ঝুঁকিপূর্ণ বিচ্ছিন্ন চরগুলো থেকে নিরাপদ আশ্র‌য়ে মানুষকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সরিয়ে নিয়ে আসার জন্য সভায় সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় করোনার সতর্কতা ও স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য সাইক্লোন শেল্টারগুলোকেও নির্দেশনা দেওয়া হয়।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে রেডক্রিসেন্ট, সিপিপি, কোস্টগার্ড, ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, উন্নয়ন সংস্থাসহ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি দফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক জানান, ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় সব প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এদিকে রেডক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবীরা শহরে সতর্কতা মাইকিং করেছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিছিন্ন চরের মানুষদের নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

/টিটি/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ