তৃতীয় দফায় আড়াই লাখ টাকা যৌতুক না পেয়ে গৃহবধূকে হত্যা, শাশুড়ি আটক

Send
বরিশাল প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৪:১৫, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৪:২০, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ময়নাতদন্তের জন্য।

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার নওপাড়া গ্রামে আড়াই লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী রেশমা আক্তারকে (২২) শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে মাদকাসক্ত স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় রবিবার সকাল ৯টায় নিহতের শাশুড়ি প্রিয়া ঝর্ণা খানমকে আটক এবং ওই বাড়ি থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত রেশমা উপজেলার কটকস্থল গ্রামের আবু ফকিরের মেয়ে এবং তার ঘরে ১৮ মাসের শিশু সন্তান রয়েছে।

দুপুরে মরদেহের ময়নাতদন্তের জন্য শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় থানা পুলিশ। মাদকাসক্ত স্বামী নয়ন শিকদার কিল-ঘুষি মারার পর গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে। ঘটনার পর পালিয়েছে নিহতের স্বামী নয়ন শিকদার, শ্বশুর আব্দুর রাজ্জাক শিকদার এবং দুই দেবর।

নিহতের ভাই রাসেল ফকির জানান, তিন বছর আগে নয়নের সাথে রেশমার সামাজিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের সময় নয়নকে ৩ ভরি স্বর্ণালংকারসহ ৩ লক্ষাধিক টাকার মালামাল যৌতুক দেওয়া হয়। বিয়ের এক বছর পর নয়ন পান বরজ দেওয়ার জন্য এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করলে তাও দেওয়া হয়। সর্বশেষ ১৫ সেপ্টেম্বর ধার দেনা পরিশোধ করার জন্য নয়ন রেশমার কাছে আড়াই লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। দাবিকৃত যৌতুকের টাকা এনে দিতে অস্বীকার করলে নয়ন ও তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন গত ৫দিন আগে রেশমাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আমাদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়।

শনিবার বিকালে নয়ন ও তার এক বন্ধু বাড়িতে এসে রেশমা ও ১৮ মাসের শিশু হাফিজ শিকদারকে নিয়ে যায়। স্থানীয় প্রতিবেশীদের মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি ওই আড়াই লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে শনিবার রাতে নয়ন ও তার বাবা-মা ও ভাইয়েরা রেশমাকে শারীরিক নির্যাতনের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে। রাত দেড়টার দিকে এক প্রতিবেশী মোবাইল ফোনে রেশমার মারা যাওয়ার খবর দেয়। রবিবার ভোরে ওই বাড়িতে গিয়ে রেশমার মরদেহ ঘরের খাটের ওপর দেখতে পাই। এ সময় ওই বাড়িতে কোনও লোকজন ছিল না।

গৌরনদী মডেল থানার ওসি গোলাম ছরোয়ার জানান, খবর পেয়ে ওই বাড়ি থেকে রেশমার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়। ধারণা করা হয়, মারধরের পর শ্বাসরোধ করে রেশমাকে হত্যা করা হয়েছে। নিহত রেশমার শাশুড়িকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। নিহতের বাবা আবু ফকির বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

ওসি আরও জানান, কয়েকমাস আগে মাদক সেবনের সময় নয়ন শিকদার থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিল।

গৌরনদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুর রব হাওলাদার জানান, প্রাথমিক অবস্থায় ধারণা করা হচ্ছে গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে বিদ্যুতের তার ও অন্যান্য আলামত জব্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ