X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

গাইবান্ধায় ৩ ইউপিতে ইভিএমে চলছে ভোটগ্রহণ

আপডেট : ০৫ জানুয়ারি ২০২২, ১০:১২

কঠোর নিরাপত্তায় গাইবান্ধার ফুলছড়ি, সাঘাটা ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ১৬ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ১৫৭টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। এরমধ্যে ফুলছড়ির ছয় ইউপির একটিতে (কঞ্চিপাড়া) ও সাঘাটার ৯ ইউপির মধ্যে দুটি ইউপির (পদুমশহর ও বোনারপাড়া) ২৮টি কেন্দ্রে ইভিএমে এবং বাকি ১৩ ইউপির ১২৯টি কেন্দ্রে ভোট নেওয়া হচ্ছে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। একটানা চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ভোটে ১৬টি ইউপির তিন লাখ ২৬ হাজার ৬৩৬ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এসব ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৯৩, সাধারণ সদস্য পদে ৬২৩ ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২৫৫ জন প্রার্থী। 

সবগুলো ইউপিতেই চেয়ারম্যান পদে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রার্থী থাকলেও বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) হিসেবে অধিকাংশ ইউপিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দলের নেতারা। এছাড়া অনেক ইউপিতে প্রার্থী দিয়েছে জাতীয় পার্টি। স্বতন্ত্র মোড়কে প্রার্থী হয়ে লড়ছেন বিএনপির নেতারাও। 

তীব্র শীত ও কুয়াশা উপক্ষো করে লাইনে দাঁড়িয়ে কেন্দ্রগুলোতে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিচ্ছেন ভোটাররা। উৎসব মুখর পরিবেশে সকাল থেকেই কেন্দ্রেগুলোতে ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতি দেখা গেছে। সকাল বেলায় বেশ হাসি-খুশি মেজাজেই ভোট দিতে কেন্দ্রে এসেছেন ভোটাররা। এছাড়া কেন্দ্রগুলোর বাইরেও প্রার্থী ও কর্মী-সমর্থকদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে।

তবে ফুলছড়ির ছয় ইউপির মধ্যে বাজে ফুলছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ফুলছড়ি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জিয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দেুলয়া বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রসহ অন্তত ২৪টি কেন্দ্র দুর্গম চরাঞ্চলে হওয়ায় তা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। এ কারণে এসব কেন্দ্রে ভোট দেওয়া নিয়ে নানা আতংক আর শঙ্কার কথা জানিয়েছেন ভোটারসহ স্থানীয়রা। 

 অপরদিকে, সাঘাটার উপজেলার কচুয়া, বোনারপাড়া, ভরতখালি, ঘুড়িদহ, কামালেরপাড়া ও সাঘাটাসহ কয়েকটি ইউনিয়নের অন্তত ১৫টির বেশি ভোট কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।  

এদিকে, নির্বাচন ঘিরে আগে থেকেই হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগসহ নানা সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে বিভিন্ন ইউনিয়নে। এমন অবস্থায় সুষ্ঠু পরিবেশে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হওয়া নিয়ে উদ্বেগ-আতংকের পাশাপাশি প্রতিপক্ষ আ.লীগ (নৌকা) প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখল, ব্যালটে সিল মারার চেষ্টাসহ হুমকি-ধামকির অভিযোগ করছেন অধিকাংশ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। 

তবে সব শঙ্কা-উদ্বেগ উড়িয়ে দিয়ে শান্তিপূর্ণ ও উৎসব মুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ সম্পন্নের আশা করছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আবদুল মোত্তালিব। তিনি জানান, প্রতিটি কেন্দ্রে অস্ত্রসহ চার থেকে পাঁচ জন পুলিশ ও ১৭ জন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া চরাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) কেন্দ্রগুলোতে ২৮ জন পর্যন্ত পুলিশ ও আনছার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন। প্রতিটি ইউনিয়নে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সাত জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়াও র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবির স্ট্রাইকিং ফোর্স এবং পুলিশের কুইক রেসপন্স টিম নিয়োজিত রয়েছে। 

ভোটগ্রহণ শুরুর পর কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা কিংবা প্রার্থীদের কোন অভিযোগ পাননি বলেও জানান তিনি। 

/টিটি/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
বাংলাদেশি উদ্ভাবন চালু হলো ইয়েমেনে
বাংলাদেশি উদ্ভাবন চালু হলো ইয়েমেনে
নজরুলজয়ন্তীতে ‘উন্নত মম শির’
নজরুলজয়ন্তীতে ‘উন্নত মম শির’
‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে শস্য সরবরাহে ভয়ঙ্কর ঘাটতি দেখা দেবে’
‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে শস্য সরবরাহে ভয়ঙ্কর ঘাটতি দেখা দেবে’
র‌্যাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন বাংলা ট্রিবিউনের সাংবাদিক রনি
র‌্যাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন বাংলা ট্রিবিউনের সাংবাদিক রনি
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বাজারে কাঁচা লিচু, খেলে মৃত্যুও হতে পারে
বাজারে কাঁচা লিচু, খেলে মৃত্যুও হতে পারে
বিলীনের পথে ইউনিয়নের একমাত্র স্কুল অ্যান্ড কলেজটি
বিলীনের পথে ইউনিয়নের একমাত্র স্কুল অ্যান্ড কলেজটি
হত্যার ১৩ বছর পর ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড
হত্যার ১৩ বছর পর ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড
ইউএনওকে হত্যাচেষ্টা: সাক্ষী দিতে ২ তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব 
ইউএনওকে হত্যাচেষ্টা: সাক্ষী দিতে ২ তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব 
চলাচলের রাস্তায় দেয়াল, ২০ দিন ধরে অবরুদ্ধ এক পরিবার
চলাচলের রাস্তায় দেয়াল, ২০ দিন ধরে অবরুদ্ধ এক পরিবার