ময়মনসিংহে গ্লোবাল ইয়ুথ উৎসবে সেরা ছবি আমেরিকার ‘এটিউড’

Send
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:০৮, সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:১৫, সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৯

‘এটিউড’ ছবির দৃশ্যময়মনসিংহে তিন দিনের আয়োজন ‘গ্লোবাল ইয়ুথ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল বাংলাদেশ’-এর পর্দা নামলো। শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সাতটি বিভাগে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এ সময় মঞ্চে ছিলেন উৎসবের বিচারক, প্রশিক্ষক ও অতিথিরা।

উৎসবের গ্র্যান্ড প্রাইজ (বেস্ট অব দ্য ফেস্ট) পেয়েছে আমেরিকার ‘এটিউড’। এটি পরিচালনা করেছেন সারাহ আম্বারজি। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর নাম ঘোষণা করেন আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা বিভাগের বিচারক নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। এ বিভাগের অন্য দুই বিচারক ছিলেন ৭২তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে ফিপরেস্কির বিচারকের দায়িত্ব পালন করা সাদিয়া খালিদ রীতি ও ইরানি নির্মাতা মোর্তেজা ফার্শবাফ।

সেরা আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র হয়েছে মালয়েশিয়ার ‘দ্য লাস্ট স্ট্র’। সেরা অ্যানিমেটেড ছবি চীনের “রয়’স গ্রেট এসকেপ”। সেরা প্রামাণ্যচিত্র জাপানের ‘ওয়েলকাম টু সুনামি ভিলেজ’।

প্রতিযোগিতা বিভাগে জমা পড়া বিশ্বের ১০১টি দেশের তরুণদের নির্মিত প্রায় ১৭০০ চলচ্চিত্র থেকে নির্বাচিত ৩৫টি দেশের ৭৪টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয় উৎসবে। এর পাশাপাশি ছিল দুটি আমন্ত্রিত চলচ্চিত্র। এগুলো হলো নূর ইমরান মিঠুর ‘কমলা রকেট’ ও নাসির উদ্দীন ইউসুফের ‘আলফা’।

জাতীয় বিভাগে হীরালাল সেন সেরা বাংলাদেশি চলচ্চিত্র হয়েছে হাসনাত সোহানের ‘কয়েকটি প্রাচীন গাছ’। তারেক মাসুদ সেরা বাংলাদেশি পরিচালকের পুরস্কার পেয়েছেন বিজয় মাহমুদ (প্রজন্ম)। ‘টিয়ের গপ্পো’ ছবিতে দারুণ অভিনয়ের জন্য খলিলুল্লাহ খান সেরা বাংলাদেশি অভিনেতার স্বীকৃতি উঠেছে আশীষ খন্দকারের হাতে। জাতীয় বিভাগের বিচারক ছিলেন তিন নির্মাতা নূরুল আলম আতিক, জাহিদুর রহমান অঞ্জন ও এনামুল করিম নির্ঝর।

উৎসবে পুরস্কারপ্রাপ্ত ছবির পোস্টারসমাপনীতে প্রধান অতিথি ছিলেন ময়মনসিংহ সিটি মেয়র ইকরামুল হক টিটু। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উৎসব সমন্বয়ক আসমা আক্তার লিজা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উৎসব ও সিনেমা বাংলাদেশের সভাপতি প্রযোজক হেমন্ত সাদীক।

সিনেমা বাংলাদেশের উদ্যোগে ‘লেট্স সিনেমা!’ স্লোগান নিয়ে গত ৫ সেপ্টেম্বর শুরু হয় উৎসব। এটি উদ্বোধন করেন আয়োজক কমিটির প্রধান উপদেষ্টা সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার। পৃথিবীব্যাপী জলবায়ু বিপর্যয়ের কারণে শরনার্থী হওয়া মানুষদের এই উৎসব উৎসর্গ করা হয়েছে। দ্বিতীয় দিন জলবায়ু বিষয়ক বিশেষ অধিবেশনে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন লেখক-সাংবাদিক বাঁধন অধিকারী। পরে এ বিষয়ে আলোচনা করেন আইডব্লিউবির নির্বাহী পরিচালক দেবরা ইফরমসন। জলবায়ু বিপর্যয়ের বিপক্ষে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে পরিবেশ বিষয়ক পাঁচটি বিশেষ চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে এই অধিবেশন শেষ হয়।

এছাড়া দেশ-বিদেশের ৫০ জন নির্মাতার অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় চলচ্চিত্র নির্মাণ কর্মশালা। প্রথম দিন কথাশিল্পী সাদাত হোসাইন সাহিত্যে ও চলচ্চিত্রে গল্প বলার পদ্ধতি নিয়ে উন্মুক্ত আলোচনা করেন। দ্বিতীয় দিন ব্রহ্মপুত্র নদে নৌকার ওপর মঞ্চে চিত্রনাট্য রচনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেন ফিপরেস্কির (ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফিল্ম ক্রিটিকস) সদস্য সাদিয়া খালিদ। সমাপনী দিনে জয়নুল গ্যালারির বৈশাখী মঞ্চের গাছতলায় স্বাধীন চলচ্চিত্র নির্মাতাদের চলচ্চিত্র বিতরণ প্রক্রিয়া বিষয়ক কর্মশালা করান নির্মাতা জসিম আহমেদ।

পুরস্কারপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রগুলো প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে পর্দা নামে এবারের উৎসব। ২০২০ সালের নভেম্বরে ঢাকায় পরের আসর বসবে বলে জানান সিনেমা বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক জিসান মাহাদী।

/এমএম/জেএইচ/

লাইভ

টপ