যে কারণে স্বামীকে বিচ্ছেদের নোটিশ পাঠালেন শাবনূর

Send
বিনোদন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:০৭, মার্চ ০৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৫১, মার্চ ০৪, ২০২০

শাবনূর-অনিকস্বামী অনিক মাহমুদকে বিয়ে-বিচ্ছেদের নোটিশ পাঠিয়েছেন একসময়ের তুমুল জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর।
গত ২৬ জানুয়ারি নিজের সই করা নোটিশটি আইনজীবী কাওসার আহমেদের মাধ্যমে অনিক মাহমুদের কাছে পাঠান তিনি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শাবনূর ও তার আইনজীবী।

নোটিশে শাবনূরের নাম উল্লেখ করা হয়েছে শারমীন নাহিদ নূপুর ওরফে শাবনূর। তালাকের কারণ হিসেবে ‘বনিবনা হয় না’ বলে জানানো হয়।
অনিক ছাড়াও এলাকার আইন ও সালিশ কেন্দ্রের চেয়ারম্যান এবং কাজী অফিস বরাবরও পাঠানো হয়েছে চিঠিটি।
এই তালাক নোটিশে সাক্ষী রয়েছেন মো. নুরুল ইসলাম ও শামীম আহম্মদ নামে দুজন।
শাবনূর এখন অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করছেন। সিডনি থেকে তিনি বলেন, ‌‘বনিবনা হচ্ছিল না, তাই সংসারে বিচ্ছেদ চেয়েছি।’
তালাকের চিঠিতে শাবনূর বলেছেন, ‘আমার স্বামী অনিক মাহমুদ হৃদয় সন্তান এবং আমার যথাযথ যত্ন ও রক্ষণাবেক্ষণ করেন না। সে মাদকাসক্ত। অনেকবার মধ্যরাতে মদ্যপ অবস্থায় বাসায় এসে আমার ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়েছে। ছেলের জন্মের পর সে আমার কাছ থেকে দূরে সরে থাকছে এবং অন্য একটি মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে আলাদা বসবাস করছে।
একজন মুসলিম স্ত্রীর সঙ্গে তার স্বামী যে ব্যবহার করেন, অনিক সেটা করছেন না, উল্টো নানাভাবে আমাকে নির্যাতন করেন। এসব কারণে আমার জীবনে অশান্তি নেমে এসেছে। চেষ্টা করেও এসব থেকে তাকে ফেরাতে পারিনি। বরং সন্তান এবং আমার ওপর নির্যাতন আরও বাড়তে থাকে। এসব কারণে মনে হয় তার সঙ্গে আমার আর বসবাস করা সম্ভব নয় এবং আমি কখনও সুখী হতে পারবো না।’
এদিকে আইনজীবী কাওসার আহমেদ জানিয়েছেন, তালাকপত্রটি প্রেরণের ৯০ দিন পর কার্যকর হবে।
২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর ভালোবেসে দুই পরিবারের সম্মতিতে বিয়ে করেন শাবনূর ও অনিক মাহমুদ। বিয়ের পরের বছরই ২৯ ডিসেম্বর এই দম্পতির ঘর আলোকিত করে আসে ছেলেসন্তান।

/এম/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ