করোনায় আক্রান্ত কনিকা ও দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল ছিল একই হোটেলে!

Send
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত : ১০:২৯, মার্চ ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫৫, মার্চ ২৩, ২০২০

কনিকা কাপুরকরোনাভাইরাস পরীক্ষায় পজিটিভ হওয়ার পর ‘বেবি ডল’ গায়িকা কনিকা কাপুরের চলাফেরা ও অবস্থান পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে দেখ হচ্ছে। ভারতের যেসব রাজনীতিবিদ তার সংস্পর্শে এসেছিলেন তারা সেলফ-আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিন বেছে নিয়েছেন।

এমনকি ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। কারণ কনিকার সঙ্গে একই পার্টিতে অংশ নেওয়া রাজস্থানের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের ছেলে দুশ্যান্ত সিংকে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা গেছে। বসুন্ধরার পুরো পরিবার এখন কোয়ারেন্টিনে আছেন।
উত্তর প্রদেশের লক্ষ্ণৌতে ব্যাংক অব বারোদার একজন ব্রাঞ্চ ম্যানেজার কনিকার সঙ্গে আধঘণ্টা আলোচনা করেছিলেন। এ তথ্য জানাজানির পর ব্যাংকটিতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।
এবার জানা গেলো, লক্ষ্ণৌতে কনিকা যে পাঁচতারকা হোটেলে উঠেছিলেন, একই সময়ে সেখানে ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা। ভারতের সঙ্গে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলার কথা ছিল তাদের, যদিও করোনা আতঙ্কে তা স্থগিত হয়েছে।
জানা গেছে, গত ১৪ থেকে ১৬ মার্চ হোটেলটিতে অবস্থানের সময় বুফেতে খাবার খেতে এসেছিলেন কনিকা এবং লবিতে বেশকিছু অতিথির সঙ্গে দেখা গেছে তাকে। এমনও তথ্য আছে, হোটেলটিতে অনুষ্ঠিত একটি নিউজ চ্যানেলের বার্ষিক সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন তিনি। সেজন্য সিসিটিভি ফুটেজ দেখে তার সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের তালিকা করা জরুরি ভাবা হচ্ছে।
কনিকার সংস্পর্শে আসা লোকজনকে যতটা সম্ভব খুঁজে বের করতে হাজার সদস্যের বিশেষ টাস্কফোর্স গঠন করেছে উত্তর প্রদেশের স্বাস্থ্য বিভাগ। তারা ইতোমধ্যে এই গায়িকার বাসার আশেপাশে ২২ হাজার মানুষকে স্ক্যান করেছে।
এদিকে লক্ষ্ণৌর সঞ্জয় গান্ধী পোস্টগ্র্যাজুয়েট ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেসে চিকিৎসাধীন আছেন কনিকা। তবে ৪১ বছর বয়সী এই গায়িকার অভিযোগ, হাসপাতালে তার সঙ্গে অপরাধীর মতো আচরণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘সকালে ছোট আকারের এক বোতল পানি পাই। কিছু খাবার চাওয়ার পর শুধু দুটো কলা ও একটি কমলা দেওয়া হয়। কিন্তু এসব খেতে পারি না। কিছু খাবারে আমার অ্যালার্জি আছে। ক্ষুধার্ত থাকায় প্রয়োজনীয় ওষুধ খাওয়া হচ্ছে না। ক্ষুধা ও তৃষ্ণা নিয়ে দুঃসহ সময় কাটাচ্ছি। নিজেকে কয়েদির মতো লাগছে।’
কনিকার অভিযোগ, তার কক্ষটি ধুলাবালিতে ভর্তি। চিকিৎসকদের কাছে পরিষ্কার করে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন তিনি। তারা নাকি শুনিয়ে দিয়েছে, ‘এটা পাঁচতারকা হোটেল না।’ এছাড়া খুবই পাতলা একটি কম্বল দেওয়ায় রাতে শীতে জবুথবু হয়ে যান বলে জানিয়েছেন তিনি।
এসব অভিযোগের জবাবে কনিকাকে তারকাসুলভ আচরণ না করে সাধারণ রোগীর মতো থাকার আহ্বান জানান হাসপাতালটির পরিচালক ডা. আরকে ধীমান। তিনি বলেন, ‘কনিকাকে হাসপাতালের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সেবা দেওয়া হয়েছে। হাসপাতাল কিচেন থেকে গ্লুটেন-ফ্রি ডায়েট পেয়েছেন তিনি। অন্যান্য সুবিধার মধ্যে একটি আলাদা কক্ষ ও টয়লেট, রোগীর বিছানা এবং একটি টেলিভিশন দিয়েছি তাকে। তার শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষের বায়ুচলাচল ব্যবস্থা কোভিড-১৯ ইউনিটের চেয়ে আলাদা। আমরা সর্বোত্তম যত্ন নিচ্ছি। তাকে অবশ্যই রোগী হিসেবে আমাদের সহায়তা করতে হবে এবং এখানে তারকাসুলভ চাহিদা থাকলে হবে না।’
গত শুক্রবার কনিকার মধ্যে কোভিড-১৯ নভেল ভাইরাস ধরা পড়ে। ইংল্যান্ডের রাজধানী লন্ডন থেকে গত ৯ মার্চ মুম্বাই ফেরেন তিনি। এরপর লক্ষ্ণৌতে যান ১১ মার্চ। তার বিরুদ্ধে বিমানবন্দরে বাধ্যতামূলক স্ক্রিনিং ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। যদিও এসব অস্বীকার করে তিনি দাবি করেছেন, তার স্ক্রিনিং পরীক্ষা নেগেটিভ দেখা গেছে। তাছাড়া তখন সেলফ-কোয়ারেন্টিন নিয়ে কোনও পরামর্শ দেয়নি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে আসা কোনও যাত্রীর পক্ষে কীভাবে ইমিগ্রেশন স্ক্রিনিং ফাঁকি দিয়ে ওয়াশরুমে লুকিয়ে থাকা সম্ভব? আমি দায়িত্বজ্ঞানহীন মানুষ নই যেভাবে আমাকে দাঁড় করানো হচ্ছে। এগুলো ডাহা মিথ্যা।’
তবে কোয়ারেন্টিন বিধি লঙ্ঘন করে নাগরিকদের জীবন ঝুঁকিতে ফেলার অভিযোগে কনিকার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি ২৬৯ ধারায় এফআইআর করেছে উত্তর প্রদেশ পুলিশ। তাদের দাবি, নিয়ম অনুযায়ী বিদেশ থেকে ফেরায় কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছিল তাকে। কিন্তু তিনি তা উপেক্ষা করে মুম্বাই ও লক্ষ্ণৌতে পার্টি করেছেন।
লক্ষ্ণৌর প্রধান মেডিক্যাল কর্মকর্তা ড. নরেন্দ্র আগারওয়ালের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ভারতীয় দণ্ডবিধি ১৮৮, ২৬৯ ও ২৭০ ধারায় দিল্লির সরোজিনি নগর থানায় কনিকার বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। আগামী ৩১ মার্চ এর শুনানি হবে। বিহারের মুজাফফরপুরে দায়ের হয়েছে আরেকটি এফআইআর।
যদিও কনিকার পক্ষে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়েছেন অভিনেতা ঋষি কাপুর, সোনম কাপুর ও অভিনেত্রী মিনি মাথুর। তাদের মন্তব্য, একজন শিল্পীকে এভাবে দোষ দেওয়া ঠিক নয়। তাছাড়া তিনি এখন অসুস্থ। তারা মনে করেন, পার্টির আয়োজকরা সমান দোষী।
তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া, বলিউড হাঙ্গামা ও হিন্দুস্তান টাইমস

 

/জেএইচ/এমএম/

লাইভ

টপ