উৎসব নয়, আজ বিপন্ন মানুষকে উদ্ধার করার দিন: সনজীদা খাতুন

Send
বিনোদন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১১:০৫, এপ্রিল ১৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:১৪, এপ্রিল ১৪, ২০২০

সনজীদা খাতুননববর্ষ বরণ মানেই রমনার বটমূল। নববর্ষ মানেই ছায়ানট। এবারও সেই পরিকল্পনা নিয়ে চলছিল সব প্রস্তুতি। তবে এর সবটুকুই ভেস্তে গেল বাংলাদেশসহ বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস মহামারির কারণে।

তাই স্বাধীনতার পর এবারই প্রথম, ঐতিহাসিক এই আয়োজন হলো না। বটমূলকে ঘিরে নামলো না মানুষের ঢল। বিপরীতে ছায়ানট প্রধান সনজীদা খাতুন ভিডিও বার্তায় এভাবে বললেন, ‘উৎসব নয়, আজ বিপন্ন মানুষকে উদ্ধার করার দিন।’

১৪ এপ্রিল সকালে বঙ্গাব্দ ১৪২৭ বরণের অংশ হিসেবে সনজীদা খাতুন আরও বলেন, ‘বাংলা নববর্ষ উদযাপন নিয়তই মানুষে-মানুষে, মানুষে-প্রকৃতিতে অভিনব এক সংযোগ সৃষ্টি করে। নতুন দিনের আশা নিয়ে নববর্ষ ফিরে ফিরে আসে বাঙালির জীবনে। কিন্তু আজ নতুন বছরের বার্তা যেন নতুন আশাকে ধূলিসাৎ করে দিতে চায়। জাতির জীবনে আজ ঘোর দুর্দিন, সমগ্র বিশ্বসমাজ আজ বিধ্বংসী মহামারিতে আক্রান্ত।’
আরও বলেন, ‘দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে সভ্যতার যে সংকট দেখে রবীন্দ্রনাথ শিহরিত হয়েছিলেন, আজকের সংকট তার চেয়েও বহু বিস্তৃত। মানব কল্যাণের জন্য আমরা ঐকান্তিক চেষ্টা এবং ঐকান্তিক মিলনের শপথে ঐক্যবদ্ধ হবো আজ। কেননা, মানুষই পারে ধ্বংসস্তূপ থেকে উঠে আলোর পথের অভিযাত্রী হতে।’
পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের প্রতি শুভকামনা জানিয়েছেন সনজীদা খাতুন।
এবারের বর্ষবরণকে ঘিরে বিটিভির সহায়তায় পহেলা বৈশাখের (১৪ এপ্রিল) প্রথম প্রহর সকাল ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত একটি বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়। মূলত সেই অনুষ্ঠানেই এই বক্তব্য দেন সনজীদা খাতুন। বক্তব্য নতুন হলেও এই অনুষ্ঠানে ছায়ানটের পূর্বের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের বেশ কিছু অংশ ও গান যুক্ত করা হয়।

সনজীদা খাতুনের পুরো বক্তব্য:

প্রসঙ্গত, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার উন্মেষ ঘটাবার জন্য ১৯৬৭ সালে রমনার বটমূলে শুরু হয় বাংলা বছরকে আবাহনের এই আয়োজন।
এরপর ১৯৭১ সালে এই আয়োজন বন্ধ থাকলেও এরপর প্রতিবছরই অনুষ্ঠিত হয়েছে রাজধানীবাসীর পহেলা বৈশাখ উদযাপনের প্রধান এ উৎসবটি।
উল্লেখযোগ্য বিষয়, ২০০১ সালে ভয়ঙ্কর সিরিজ বোমা হামলার পরের বছরেও এ আয়োজন বন্ধ হয়নি। মৃত্যুকে হাতের মুঠোয় নিয়ে সেই উৎসবে নেমেছিল মানুষের ঢল। কিন্তু চলমান করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলা করার লক্ষ্যে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক এই উৎসবে এবার ছেদ পড়লো।

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ
X