স্বামীকে করোনা-জয়ী করতে শ্রিয়ার সামাজিক দূরত্ব

Send
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত : ০০:০০, এপ্রিল ১৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩২, এপ্রিল ১৬, ২০২০

শ্রিয়া স্মরণ ও আন্দ্রেই কোসেভকরোনাভাইরাস মহামারিতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের পরেই দ্বিতীয় স্থানে আছে স্পেন। দেশটির বার্সেলোনা শহরে আছেন ভারতীয় অভিনেত্রী শ্রিয়া স্মরণ। তার স্বামী রুশ টেনিস খেলোয়াড় আন্দ্রেই কোসেভের মধ্যে কোভিড-১৯ রোগের উপসর্গ দেখা দিয়েছিল। সেই অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন তিনি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার সঙ্গে কথোপকথনে শ্রিয়া জানান, এক মাস ধরে বার্সেলোনায় লকডাউনে আছেন তারা। কয়েক সপ্তাহের জন্য জীবন বদলে ফেলতে হয়েছিল তাদের। কারণ, আন্দ্রেই কোসেভ জ্বর ও কাশিতে ভুগছিলেন। করোনার লক্ষণ মনে করে হাসপাতালে ছুটে যান তিনি।

কিন্তু চিকিৎসকরা মন্তব্য করেন, হাসপাতালে ভর্তি হলে করোনা আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি! তাই ঘরেই আইসোলেশনের পরামর্শ দেন তারা।

এরপর বাসায় সেলফ আইসোলেশনে থাকার সিদ্ধান্ত নেন শ্রিয়া-আন্দ্রেই দম্পতি। একইসঙ্গে চলতে থাকে প্রয়োজনীয় ওষুধ। দু’জনে ঘুমাতেন আলাদা কক্ষে। পাশাপাশি একে অপরের কাছ থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতেন। আন্দ্রেই এখন সেরে উঠেছেন। তাই তাদের খারাপ সময় কেটে গেছে।

২০১৮ সালের ১২ মার্চ ভারতের মুম্বাইয়ে শ্রিয়া ও আন্দ্রেই হিন্দু রীতিতে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন। উদয়পুরে ঢাকঢোল পিটিয়ে হয়েছে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা। এতে অংশ নেন দক্ষিণী অভিনেত্রী তামান্না ভাটিয়া ও কাজল আগারওয়াল।

বিয়ের দুটি ছবি গত ফেব্রুয়ারিতে ইনস্টাগ্রামে শেয়ার দিয়ে শ্রিয়া লিখেছিলেন, ‘তোমাকে চিরকাল ও চিরদিন ভালোবেসে যাবো।’ বুধবার আন্দ্রেইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি। এবার স্বামীকে ‘হৃৎস্পন্দন’ উল্লেখ করেছেন ৩৭ বছর বয়সী এই তারকা।

দ্বিতীয় বিয়েবার্ষিকী উদযাপনের জন্য আগেভাগে একটি রেস্তোরাঁয় বুকিং দিয়ে রেখেছিলেন শ্রিয়া-আন্দ্রেই। কিন্তু ১২ মার্চ গিয়ে তারা দেখেন দোকান বন্ধ। তখনই করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতা টের পেতে থাকেন দু’জনে। এরপর থেকে জীবনযাপন বদলে গেছে তাদের।

লকডাউনে মনকে চাপমুক্ত রাখতে যোগব্যায়াম, মেডিটেশন, রান্না, বই পড়া ও ছবি দেখে নিজেকে ব্যস্ত রাখেন শ্রিয়া। তিনি জানান, বার্সেলোনায় স্বাস্থ্যকর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে প্রতিদিন রাত ৮টায় মানুষ ঘরের বারান্দায় এসে ১০ মিনিট ধরে তালি দেয় ও গান গাইতে থাকে।

শ্রিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় হিন্দি ছবি অজয় দেবগণের বিপরীতে ‘দৃশ্যাম’ (২০১৫)। ২০০৩ সালে ‘তুঝে মেরি কসম’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন তিনি। এতে আরও ছিলেন রিতেশ দেশমুখ-জেনেলিয়া ডি’সুজা। তার অন্য কাজের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘এক: দ্য পাওয়ার অব ওয়ান’ (ববি দেওল, ২০০৯), ‘শুকরিয়া: টিল ডেথ ডু আস অ্যাপার্ট’ (আফতাব, ২০০৪), ‘আওয়ারাপান’ (ইমরান হাশমি, ২০০৭) ও ‘মিশন ইস্তানবুল’ (বিবেক ওবেরয়, ২০০৮)। সবশেষ ২০১৮ সালে জিমি শেরগিলের সঙ্গে ‘ফেমাস’ ছবিতে দেখা গেছে তাকে।

তামিল ও তেলুগু ভাষার ছবিতে কাজ করেছেন শ্রিয়া। এরমধ্যে সবচেয়ে হিট সুপারস্টার রজনীকান্তর বিপরীতে ‘শিবাজি’ (২০০৭), নাগার্জুনার সঙ্গে ‘মানাম’ (২০১৪)।

 
 
 
View this post on Instagram

Happy birthday to my heartbeat....

A post shared by Shriya Saran (@shriya_saran1109) on Apr 14, 2020 at 2:25pm PDT

/জেএইচ/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ