ভারতে কোনও বাংলাদেশির কোম্পানি হোক, প্রত্যাশা মাইক্রোসফট সিইও’র

Send
ব্রজেশ উপাধ্যায়, যুক্তরাষ্ট্র
প্রকাশিত : ০৭:৫৯, জানুয়ারি ১৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২৬, জানুয়ারি ১৪, ২০২০

ভারতের মুসলিমবিদ্বেষী নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) সমালোচনা করেছেন মাইক্রোসফটের সিইও সত্য নাদেলা। বিতর্কিত ওই আইন নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিকে ‘দুঃখজনক’ বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই প্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব। সোমবার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাজফিড-এর প্রধান সম্পাদক বেন স্মিথকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ নিয়ে কথা বলেন নাদেলা। জানান, ভারতে কোনও বাংলাদেশি নাগরিকের মালিকানাধীন কোম্পানি দেখতে চান তিনি।
ভারতের বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার মনে করি, যা হচ্ছে সেটা দুঃখজনক। খুবই খারাপ। আমি চাইবো ভবিষ্যতে কোনও বাংলাদেশি শরণার্থী ভারতে গিয়ে কোনও বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলবেন অথবা ইনফোসিস-এর পরবর্তী সিইও হবেন। এটাই আকাঙ্ক্ষা হওয়া উচিত। আয়নার দিকে তাকালে যদি দেখতে পাই যুক্তরাষ্ট্রে আমার সঙ্গে এটাই হয়েছিল, তাহলে আমার প্রত্যাশা এটা ভারতেও ঘটবে।’

বাজফিড-এর প্রধান সম্পাদক বেন স্মিথ নিজেই টুইটারে দেওয়া পোস্টে সত্য নাদেলা-র এমন মন্তব্য তুলে ধরেছেন।

পরে মাইক্রোসফট ইন্ডিয়ার অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে দেওয়া পোস্টেও এ নিয়ে কথা বলেন সত্য নাদেলা। তিনি বলেন, প্রতিটি দেশ তার সীমানা সংজ্ঞায়িত করবে। জাতীয় নিরাপত্তা সুরক্ষিত করবে এবং সেই অনুযায়ী অভিবাসন নীতি নির্ধারণ করবে। গণতান্ত্রিক কাঠামোতে এটি এমন একটি বিষয় যেখানে জনগণ ও তাদের সরকারগুলো এই সীমানার মধ্যে থেকে তর্ক-বিতর্ক করবে এবং এর সংজ্ঞা খুঁজে বের করবে।

তিনি বলেন, আমি আমার ভারতীয় ঐতিহ্যে বেড়ে উঠেছি, বহুত্ববাদী সংস্কৃতির ভারতে বেড়ে উঠছি এবং যুক্তরাষ্ট্রে আমার অভিজ্ঞতা একজন অভিবাসী হিসেবে।

আমার প্রত্যাশা এমন এক ভারতবর্ষের যেখানে একজন অভিবাসী একটি সমৃদ্ধ সূচনার সন্ধান করতে পারে কিংবা একটি বহুজাতিক কর্পোরেশনকে নেতৃত্ব দিতে পারে; যা ভারতীয় সমাজ ও অর্থনীতিকে ব্যাপকভাবে উপকৃত করবে।

সত্য নাদেলার এমন অবস্থানকে স্বাগত জানিয়েছেন মোদি সরকারের নাগরিকত্ব আইনের তীব্র বিরোধী ভারতীয় ইতিহাস বিশারদ রামচন্দ্র গুহ। টুইটারে তিনি লিখেছেন, আমি আনন্দিত যে সত্য নাদেলা তার সম্পর্কে বলেছে। আমার মনে করি, আমাদের কোনও আইটি জারেরও প্রথম এটি বলার মতো সাহস ও বুদ্ধি ছিল। এখনও এটি বলা যেতে পারে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তান থেকে নিপীড়নের মুখে ভারতে পালিয়ে যাওয়া অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দিতে সম্প্রতি আইন সংশোধন করে ভারত। গত ১২ ডিসেম্বর রাতে প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরের পরেই আইনে পরিণত হওয়া বিলটি শুরু থেকেই মুসলিমবিরোধী আখ্যা পেয়েছে। বিতর্কিত এই আইন প্রত্যাহারের দাবিতে দেশজুড়ে সরব বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। দফায় দফায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন লাখ লাখ মানুষ। বিক্ষোভকেন্দ্রিক সহিংসতায় নিহত হয়েছে অন্তত  ২৫ জন। বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলিবর্ষণের কথা স্বীকার করেছে পুলিশ।

/এমপি/

লাইভ

টপ