ভারত লকডাউন: বন্ধ হতে পারে ব্যাংকগুলোর বেশিরভাগ শাখা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:০৭, মার্চ ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:০৯, মার্চ ২৬, ২০২০

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ভারতজুড়ে লকডাউন পরিস্থিতিতে দেশটির বিভিন্ন ব্যাংকগুলো বেশিরভাগ শাখা বন্ধ করার পরিকল্পনা করছে। এই পরিকল্পনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট চারটি সূত্র ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এই তথ্য জানিয়েছেন। ব্যাংককর্মীদের ভাইরাসে সংক্রমণ থেকে রক্ষায় প্রস্তাবিত পরিকল্পনা অনুসারে, প্রতি পাঁচ কিলোমিটার দূরত্বে একটি ব্যাংকের মাত্র একটি শাখা খোলা থাকবে। পরিকল্পনাটি কবে থেকে বাস্তবায়ন শুরু হবে তা নির্দিষ্ট করে জানা যায়নি। এই বিষয়ে ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক কোনও মন্তব্য জানায়নি।


১৩০ কোটি মানুষের দেশ ভারত ২১ দিনের লকডাউন। তবে জরুরি সেবা হিসেবে লকডাউনের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে ব্যাংকগুলোকে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সূত্র জানায়, ভারতের ৭০ শতাংশ মানুষ গ্রামীণ এলাকায় বাস করে এবং নগদ লেনদেনে নির্ভরশীল। ব্যাংকগুলো বিকল্প উপায়ে শুধু দরিদ্রদের জন্য আর্থিক লেনদেন চালু রাখবে।
রাষ্ট্র পরিচালিত একটি ব্যাংকের এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, পরিকল্পনার মূল বিষয় হলো গ্রামীণ এলাকায় যারা ডিজিটাল লেনদেনের সঙ্গে পরিচিত না তাদের জন্য ব্যাংকগুলোর শাখা পরিচালিত হবে। অনানুষ্ঠাকিভাবে ব্যাংকগুলো একে অপরের সঙ্গে আলোচনা করছে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য। কারণ নগদ উত্তোলনের হিড়িক পড়তে পারে। বিশেষ করে সরকার দরিদ্রদের অ্যাকাউন্টে সরাসরি টাকা পাঠাতে পারে।
ভারতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকার বৃহস্পতিবার ১.৭ ট্রিলিয়ন ভারতীয় রুপির পরিকল্পনা উন্মোচন করেছে। এর আওতায় দরিদ্রদের সরাসরি অর্থ প্রদান করা হবে।
দুটি সূত্র জানায়, কয়েকটি ব্যাংক ইতোমধ্যে প্রস্তাবিত পরিকল্পনাটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে বাস্তবায়ন শুরু করেছে। তবে পুরোপুরি কবে থেকে বাস্তবায়ন হবে তা এখন পর্যন্ত নিশ্চিত না।
এই বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশনের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৬৪৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের।
ব্যাংকগুলোতে গ্রাহকদের জমায়েত না হতে ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশন পরবর্তী নোটিশ না দেওয়া পর্যন্ত জরুরি নয় এমন সব সেবা বন্ধ রাখার পরামর্শ দিয়েছে। বেশিরভাগ ব্যাংক সীমিত সময়ের জন্য খোলা রাখা হচ্ছে এবং গ্রাহকদের ডিজিটাল সেবা নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেছেন, এক সপ্তাহ ধরেই পরিকল্পনাটি নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। বুধবার সবগুলো ব্যাংকের ডিজিটাল প্রস্তুতি যাচাই করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আরেকটি সূত্র।
এছাড়া ব্যাংক আন্তঃব্যাংক সেবা চালু করার বিষয়টি বিবেচনা করছে। যাতে করে এক ব্যাংকের গ্রাহকরা অন্য ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে পারেন।

/এএ/

লাইভ

টপ