ভারতে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে চীন ও নেপালের নাগরিক আটক

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:৪১, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪৪, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০

ভারতের সীমান্ত কৌশল ও সেনা মোতায়েন সংক্রান্ত গোপন তথ্য সংগ্রহের চেষ্টার অভিযোগে চীনের এক নাগরিক ও তার সহযোগী হিসেবে নেপালের অপর এক নাগরিককে আটক করেছে দিল্লি পুলিশ। শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ভারতীয় পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, চীনা গোয়েন্দা সংস্থার হয়ে তথ্য সংগ্রহ করতে এই দুই বিদেশি নাগরিক দিল্লি ভিত্তিক এক ফ্রিল্যান্স সাংবাদিককে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়েছেন। রাজিব শর্মা নামের ওই ফ্রিল্যান্স সাংবাদিককেও আটক করা হয়েছে। সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে ভারতে আটক তিন ব্যক্তি

গত কয়েক মাস ধরে লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। পরস্পরের বিরুদ্ধে সীমান্ত লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে একাধিকবার সংঘর্ষেও জড়িয়েছে দেশ দুইটির সেনাবাহিনী। কূটনৈতিক পর্যায়ের আলোচনায় সীমান্ত সমস্যা নিরসনে বেইজিং ও দিল্লির প্রতিনিধিরা ঐক্যমতে পৌঁছালেও সীমান্তে মুখোমুখি অবস্থান ধরে রেখেছে দুই দেশের সেনাবাহিনী। এমন উত্তেজনার মধ্যে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে এক চীনা নারী ও তার নেপালি সহযোগীকে আটকের কথা জানিয়েছে ভারতের পুলিশ।

দিল্লি পুলিশের তরফে বলা হয়েছে, চীনা গোয়েন্দাদের কাছে স্পর্শকাতর তথ্য হস্তান্তর করায় ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক রাজিব শর্মাকে আটক করেছে স্পেশাল সেল। ছদ্মবেশি কোম্পানির মাধ্যমে তাকে বিপুল অর্থ দেওয়ায় আটক করা হয়েছে এক চীনা নারী ও নেপালি সহযোগীকে। বিপুল অর্থের বিনিময়ে স্পর্শকাতর তথ্য পেতে ওই সাংবাদিককে নিয়োগ দেয় চীনের গোয়েন্দারা।’ পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, তাদের কাছ থেকে বেশ কিছু মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ এবং অন্যান্য উদ্বেগজনক এবং স্পর্শকাতর সামগ্রী উদ্ধার করা হয়েছে।

ভারতের প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোর (পিআইবি) স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সাংবাদিক রাজিব শর্মা দিল্লির পিতমপুরায় বসবাস করেন। গত সোমবার তাকে আটক করে দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল। শুক্রবার সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা সঞ্জিব কুমার যাদব বলেন, ‘তার কাছ থেকে বেশ কিছু প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত গোপন নথি পাওয়া গেছে। তদন্ত এখনও চলছে আর সময়মতো আরও বিস্তারিত তথ্য জানানো হবে।’

ভারতীয় পুলিশের দাবি, প্রতিটি গোপন নথির জন্য রাজিব শর্মা এক হাজার ডলার করে পেতেন। আর গত দেড় বছরে তাকে ৩০ লাখ রুপি পরিশোধ করা হয়েছে। চীনের সরকারি দলের মুখপাত্র বলে পরিচিত সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমসে প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে লিখতেন রাজিব। ২০১৬ সালে তার সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে চীনা গোয়েন্দারা।

/জেজে/

লাইভ

টপ
X