বিচারপতি নিয়োগে অনড় ট্রাম্প, এ সপ্তাহেই মনোনয়ন

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:২০, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩৭, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন,  সুপ্রিম কোর্টের প্রয়াত বিচারপতি রুথ বেডার গিন্সবার্গের স্থলে নতুন এক জনকে এই সপ্তাহেই মনোনয়ন দেবেন তিনি। আগামী নির্বাচনের আগেই তার নিয়োগ চূড়ান্ত করতে রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত সিনেটের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পের এই পরিকল্পনা ৩ নভেম্বরের নির্বাচন ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনার জন্ম দিয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের আইনের আওতায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো নিয়ে রুল জারির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ আদালতের মতাদর্শিক ভারসাম্য খুব জরুরি। সর্বোচ্চ মার্কিন আদালত সুপ্রিম কোর্ট একজন প্রধান বিচারপতি ও আটজন বিচারপতি নিয়ে গঠিত হয়। প্রেসিডেন্ট মনোনীত বিচারপতিদের নিয়োগ দেয় সিনেট। একবার নিয়োগ দেওয়ার পর পদত্যাগ,অবসর বা অভিশংসন ছাড়া ওই বিচারপতিরা আমৃত্যু দায়িত্ব পালন করতে পারেন। ট্রাম্প তার শাসন মেয়াদে দুইজন বিচারপতিকে নিয়োগ দিতে পেরেছেন। গিন্সবার্গের মৃত্যুর পর তৃতীয় বিচারপতিকে নিয়োগ দেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে তার। ৩ নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ট্রাম্প কাজটি শেষ করতে চান। আর তার ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন চাইছেন নির্বাচনের আগে যেন বিচারপতি নিয়োগ না পান।

সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেন সুপ্রিম কোর্টে নতুন একজন বিচারপতি মনোনয়ন দিতে তিনি সাংবিধানিকভাবে বাধ্য। ওহিওতে এক র‍্যালিতে তিনি বলেন, ‘আমরা পাঁচজন বিশ্বস্ত বিচারককে খতিয়ে দেখছি...নারী যারা সকলেই সব দিক থেকেই অসাধারণ। আমি সত্যিই বলতে চাই এটি তাদের মধ্যে যে কেউ হতে পারেন। আর শুক্র বা শনিবার আমরা তা ঘোষণা করবো।’

প্রেসিডেন্ট মনোনীতের নাম ঘোষণা করলেই নিয়োগ চূড়ান্ত করতে সিনেটে ভোটাভুটি হবে। প্রথমে সিনেটের বিচারিক কমিটি ওই মনোনীতকে খতিয়ে দেখবে। পরে ভোটাভুটির জন্য ফ্লোরে তোলা হবে। নভেম্বরের নির্বাচনের আগেই ওই ভোটাভুটি আয়োজনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা মিচ ম্যাককনেল। ডেমোক্র্যাটরা তাকে ভণ্ড আখ্যা দিয়েছে।

২০১৬ সালে রক্ষণশীল বিচারপতি অ্যান্তনিন স্ক্যালিয়ার মৃত্যুর পর তৎকালীন ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা নতুন একজনকে মনোনীত করতে চাইলে তাতে বাধা দেন মিচ ম্যাককনেল। ওই সময়ে তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া যাবে না। তবে এবার নিজ দলের প্রেসিডেন্ট বিচারপতি মনোনীত করতে চাইলে তার নিয়োগ চূড়ান্ত করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তিনি।

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ