মাদক সংক্রান্ত সব হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার দুয়ার্তের

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:৪৩, অক্টোবর ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৭, অক্টোবর ২১, ২০২০

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তে বলেছেন, তার সরকারের মাদকবিরোধী যুদ্ধে হাজারও হত্যাকাণ্ডের দায় নিতে তার কোনও সমস্যা নেই। এজন্য মামলার মুখোমুখি হতেও প্রস্তুত থাকার কথা জানান তিনি। সোমবার রাতে টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে এসব কথা বলেন ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।ফিলিপাইনের মাদকবিরোধী যুদ্ধে নিহত হয়েছে হাজার হাজার মানুষ

বন্দুকভক্ত হিসেবে পরিচিতি রয়েছে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তের। প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরপরই ২০১৬ সালের মাঝামাঝি থেকে শুরু করেন তার ‘মাদকবিরোধী যুদ্ধ’। ফিলিপাইন থেকে মাদক পাচারকারীদের নির্মূলের পণ করেন তিনি। পুলিশের হিসেবে ইতোমধ্যে ওই যুদ্ধে হত্যার শিকার হয়েছে প্রায় ছয় হাজার সন্দেহভাজন মাদক কারবারি। তবে মানবাধিকার গ্রুপগুলোর আশঙ্কা, এই সংখ্যা আরও অনেক বেশি। এসব হত্যাকাণ্ডের জন্য দুয়ার্তে কোনও একসময় বিচারের মুখোমুখি হবে বলে মনে করেন অনেকেই।

সোমবারের টেলিভিশন ভাষণে সেই আশঙ্কার স্পষ্ট স্বীকারোক্তি দিয়ে রদ্রিগো দুয়ার্তে বলেন, ‘হত্যাকাণ্ড যদি হয়ে থাকে তাহলে আমি বলছি আমি একাই... যেকোনও কিছুর জন্য, মাদকবিরোধী যুদ্ধ বাস্তবায়নের সময় কোনও প্রাণহানি হলে আমাকে দায়ী করতে পারেন।’

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আপনি যদি হত্যার শিকার হন তাহলে তার কারণ আমি মাদকের জন্য ক্ষুব্ধ ছিলাম। আমি যেটা বলতে চাই কারাগারে ঢোকাতে আমাকে আদালতে তুলুন। ঠিক আছে, আমার কোনও সমস্যা নেই। দেশের সেবা করতে গিয়ে যদি জেলে যেতে হয়, আনন্দের সঙ্গে যাবো।’

দুয়ার্তের মাদকবিরোধী যুদ্ধ সংশ্লিষ্ট অন্তত দুটি অভিযোগ এখনই খতিয়ে দেখছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) প্রসিকিউটররা। মানবতাবিরোধী অপরাধ ও গণহত্যাকাণ্ড সংক্রান্ত অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শুরুর মতো পর্যাপ্ত প্রমাণ আছে  কিনা তা নির্ধারণ করবেন প্রসিকিউটররা।

দুই বছর আগে ওই অভিযোগ খতিয়ে দেখা শুরু হলে দুয়ার্তে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি) থেকে ফিলিপাইনকে প্রত্যাহার করে নেন। তবে তা সত্ত্বেও অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখা অব্যাহত থাকবে বলে জানান আইসিসি’র প্রসিকিউটররা।ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তে

দুয়ার্তে তার বক্তব্যে মাদককে জাতীয় নিরাপত্তা ও জনগণের জন্য হুমকি হিসেবে তুলে ধরেন। এই সমস্যাকে তিনি দেশটির দীর্ঘদিনের কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের মতো সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেন। দুয়ার্তে বলেন, ‘এটা যদি চলতে দেওয়া হয় আর তাদের বিরুদ্ধে কোনও সিদ্ধান্তমূলক ব্যবস্থা নেওয়া না হয়, তাহলে রাষ্ট্রের নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে পড়বে।’ কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘আপনি যখন এনপিএ ও মাদক কারবারিদের মতো মানুষের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করছেন, তখন আপনি পবিত্র দায়িত্ব পালন করছেন।’

ফিলিপাইনে মাদকবিরোধী অভিযানের সময় পাঁচ হাজার ৮৫৬ জন নিহত ও আরও দুই লাখ ৫৬ হাজারের বেশি গ্রেফতারের কথা স্বীকার করে দেশটির পুলিশ। তবে মানবাধিকার গ্রুপগুলোর অভিযোগ, হত্যাকাণ্ডের সংখ্যা অনেক কম করে দেখাচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

দুয়ার্তে বলেন, মাদক সংক্রান্ত হত্যাকাণ্ড পুলিশের অভিযানের সময়ে ঘটে না, সে কারণে তাদের দায়ী করা উচিত না। এসব হত্যাকাণ্ড প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপের বিরোধে কিংবা অভ্যন্তরীণ বিরোধে হয়ে থাকতে পারে বলেও দাবি করেন তিনি।

/জেজে/এমওএফ/বিএ/

লাইভ

টপ