জামিন পেয়েছেন বুকার মনোনীত লেখক সিসি ডাঙ্গারেম্পা

Send
অমৃতা ডি কস্তা
প্রকাশিত : ০০:৫৩, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:৫৬, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০

সিসি ডাঙ্গারেম্পা, ছবি- এএফপিগত ৩১ জুলাই এ বছরের বুকার পুরুস্কারের জন্য মনোনীত লেখক সিসি ডাঙ্গারেম্পাকে সরকার-বিরোধী আন্দোলনে জড়িত থাকার অভিযোগে জিম্বাবুয়ের রাজধানী হারারে থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন ডাঙ্গারেম্পা।

৬১ বছর বয়সি ডাঙ্গারেম্পাসহ আরও একজন প্রতিবাদকারীকে প্লেকার্ড নিয়ে রাস্তায় প্রতিবাদ করার সময় পুলিশ আটক করে।

৩১ জুলাই ওই বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করার ব্যাপারে জিম্বাবুয়ের সরকার আগে থেকেই সতর্ক করেছিল, বলা হয়েছিল, এই বিক্ষোভে যোগদান করাকে বিদ্রোহ বলে গণ্য করা হবে।

জিম্বাবুয়ের সরকার-বিরোধী দল এবং বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন তাদের দেশের তথাকথিত সরকারী দুর্নীতি এবং শতকরা ৭০০ ভাগেরও বেশি মুদ্রাস্ফীতিসহ ক্রমাগত অর্থনৈতিক সংকটের বিরোধীতা করে এই আন্দোলনের ডাক দেয়।

কিন্তু জিম্বাবুয়ের সরকার এমারসন নাঙ্গাঙ্গুয়া পুরো ঘটনাটিকে ষড়যন্ত্র দাবি করে দেশটির অর্থনৈতিক সংকটকে উসকে দেওয়ার মাধ্যমে সরকারকে টপকে যাওয়ার পরিকল্পনায় তার বিরোধী দলকে অভিযুক্ত করেন।

এএফপি সংবাদ সংস্থার একজন চিত্রগ্রাহক তার প্রতিবেদনে জানান, পুলিশ ডাঙ্গারেম্পাসহ আরও একজন বিক্ষোভকারীকে এ.কে-৪৭ রাইফেল এবং রাইয়ট গিয়ার সজ্জিত লরিতে ঠেলে ওঠায়।

এরপর ডাঙ্গারেম্পা বিবিসিকে জানান, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ঘোষণা করা প্রয়োজনীয় ছিল।

তিনি জানান, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, অর্থনীতিসহ দেশের প্রায় সবগুলো ক্ষেত্রই ভেঙ্গে পড়েছে। বর্তমানে তিনি তার নিজের নিরাপত্তা নিয়েই চিন্তিত। তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে এই সময়ে আমাদের শান্ত থাকলে চলবে না কারণ বর্তমানে আমরা এক দমনমূলক শাসন ব্যবস্থায় বাস করছি এবং আমরা জানি এই সকল ব্যবস্থা স্বভাবতই জনগণের বিরুদ্ধে যাচ্ছে।’

সিসি ডাঙ্গারেম্পা লেখক ও চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবেই বিশ্বব্যাপী পরিচিত। তিনি জিম্বাবুয়ের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের মুটোকো শহরে জন্মগ্রহণ করেন—সে সময় অঞ্চলটি সংখ্যালঘু শ্বেতাঙ্গদের দখলে ছিল।

তার দুই বছর বয়সে তিনি তার পরিবারের সাথে ইউরোপে স্থানান্তরিত হন। পরবর্তীতে ১৯৮০ সালে জিম্বাবুয়ে স্বাধীনতা লাভ করার ঠিক আগে আগে আবার তার জন্মভূমিতে ফিরে আসেন।

তার প্রথম উপন্যাস ‘নার্ভাস কন্ডিশন’ ১৯৮৯ সালে আফ্রিকান বিভাগে কমনওয়েলথ রাইটার্স প্রাইজ অর্জন করে।

সিনেমাতেও তিনি নিজেকে প্রমাণ করেছেন। ডাঙ্গারেম্পা পরিচালিত সিনেমা ‘নেরিয়া’ ১৯৯৩ সালে জিম্বাবুয়ের সবচেয়ে সফল চলচ্চিত্রের আসন দখল করে।

তার সর্বশেষ প্রকাশিত উপন্যাস ‘দিস মউর্নঅ্যাবল বডি’ এ বছরের বুকার পুরস্কারের লং লিস্টে জায়গা করে নিয়েছে।

দ্য বুকার প্রাইজ ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যমতে এটি তার উপন্যাস ‘নার্ভাস কন্ডিশন’ এর সিক্যুয়েল।

উপন্যাসটি একজন তরুণ মেয়ে এবং একটি নবজাতক জাতির আশা এবং সম্ভাবনা নিয়ে লেখা—যে কাহিনিটি, আশার আলো আমাদের ছেড়ে চলে যাওয়ার পর আমাদের জীবন আদতে আমাদের কোথায় নিয়ে যায় সেসব আবিষ্কার করার যাত্রায় আমাদের সহযোগী হয়। 

সূত্র : বিবিসি, দ্য গার্ডিয়ান

//জেডএস//

লাইভ

টপ