X
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪
৮ বৈশাখ ১৪৩১

তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানাবে প্রামাণ্যচিত্রটি

বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২২:১২আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২২:১২

একুশে পদকপ্রাপ্ত, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. নূরুন নবীকে নিয়ে নির্মিত হয়েছে প্রামাণ্যচিত্র ‘ড. নূরুন নবী: আজীবন মুক্তিযোদ্ধা’।

শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের প্রজেকশন হলে প্রামাণ্যচিত্রটির প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্কলার্স বাংলাদেশ সোসাইটি এবং সেন্টার ফর এনআরবি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি এম ই চৌধুরী শামীম।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘এই প্রামাণ্যচিত্রে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অনেক বিষয় উঠে এসেছে। বর্তমান সময়ের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন হয়েছে এই মাধ্যমে। ঠিক একইভাবে ২০৫০ সালেও যে প্রজন্ম আসবে তাদেরকেও মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে সম্পৃক্ত রাখবে এই প্রামাণ্যচিত্র। তরুণ প্রজন্মকে আরও গভীরভাবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানাতে সাহায্য করবে।’

ড. নূরুন নবী বলেন, ‘প্রামাণ্যচিত্রটির উদ্দেশ্য তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানানো। মিলনায়তনে নতুন প্রজন্মের এতো উপস্থিতি দেখে আমি অভিভূত। আশা করি এটি তৈরির উদ্দেশ্য সফল হয়েছে।’

প্রামণ্যচিত্রের পরিচালক নাদিম ইকবাল বলেন, ‘কাজটি বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল আমাদের জন্য। অনেক জায়গা থেকে সহযোগিতা ছিল, আবার অসহযোগিতাও ছিল। এক বছর লেগে থাকতে হয়েছে।’

প্রামাণ্যচিত্র ‘ড. নূরুন নবী: আজীবন মুক্তিযোদ্ধা’র একটি দৃশ্য

কানাডাপ্রবাসী কবি রুমানা চৌধুরী বলেন, ‘শুধু দেশের মানুষ নয়, বিদেশিদের কাছেও প্রামাণ্যচিত্রটি প্রশংসিত হবে বলে আশা করি।’

সেন্টার ফর এনআরবি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানটি পরিচালনা ও সঞ্চালনা করেন স্কলার্স বাংলাদেশ সোসাইটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী দিলারা আফরোজ খান রূপা।

উল্লেখ্য, একুশে পদকপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিজ্ঞানী, রাজনীতিক, অ্যাকটিভিস্ট ও লেখক ড. নূরুন নবীর বর্ণাঢ্য ও সংগ্রামমুখর অনুকরণীয় জীবনের ওপর ভিত্তি করে প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করা হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য ফার ইস্টার্ন ইকোনমিক রিভিউয়ে ড. নবীকে টাঙ্গাইল মুক্তিবাহিনীর ব্রেন হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। মুক্তিযুদ্ধে তার বিশেষ দায়িত্ব ছিল ভারতীয় সেনাবাহিনীর জেনারেলদের সঙ্গে আস্থার সম্পর্ক স্থাপন করে অস্ত্র সংগ্রহ ও বহন করে নিয়ে আসা। তিনি যমুনা নদী দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনবার নৌকা করে অস্ত্র নিয়ে এসেছিলেন। ড. নবী দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন এবং বাংলাদেশের প্রতিটি রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংকট সমাধানের আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।

/আরআইজে/
সম্পর্কিত
বাড়ছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি, নতুন যোগ হচ্ছে স্বাধীনতা দিবসের ভাতা
‘ভুয়া ৮ হাজার জনকে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে’
বাংলাদেশের জনগণ কারও প্রভুত্ব স্বীকার করে না: মির্জা ফখরুল
সর্বশেষ খবর
সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার তৃতীয় গ্রুপের ফল প্রকাশ
সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার তৃতীয় গ্রুপের ফল প্রকাশ
জবিতে পরীক্ষা বন্ধ, ক্লাস অনলাইনে
জবিতে পরীক্ষা বন্ধ, ক্লাস অনলাইনে
ট্রেনিং নেই তবু মাস্টার ট্রেইনার
ট্রেনিং নেই তবু মাস্টার ট্রেইনার
ট্রেন থেকে নামতে গিয়ে গুরুতর আহত আনু মুহাম্মদ
ট্রেন থেকে নামতে গিয়ে গুরুতর আহত আনু মুহাম্মদ
সর্বাধিক পঠিত
সারা দেশে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসায় ছুটি ঘোষণা
সারা দেশে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসায় ছুটি ঘোষণা
সোনার দাম কমেছে, আজ থেকেই কার্যকর
সোনার দাম কমেছে, আজ থেকেই কার্যকর
মুখোমুখি ইরান-ইসরায়েল, পরীক্ষার মুখে মার্কিন সামরিক কৌশল
মুখোমুখি ইরান-ইসরায়েল, পরীক্ষার মুখে মার্কিন সামরিক কৌশল
ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট, হিন্দু মহাজোট ‘নেতা’ পুলিশ হেফাজতে
ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট, হিন্দু মহাজোট ‘নেতা’ পুলিশ হেফাজতে
জানা গেলো বেইলি রোডে আগুনের ‘আসল কারণ’
জানা গেলো বেইলি রোডে আগুনের ‘আসল কারণ’