মোরশেদ খানের বিদেশযাত্রা নিয়ে প্রশ্ন

Send
রাফসান জানি
প্রকাশিত : ০৬:০৬, জুন ০৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:২১, জুন ০৪, ২০২০

এম মোরশেদ খান (ছবি- সংগৃহীত)বিএনপি থেকে পদত্যাগ করা সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান ও তার স্ত্রী নাসরিন খান গত ২৮ মে ‘চিকিৎসার জন্য’ দেশত্যাগ করেছেন। তবে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও তিনি কী করে বিদেশে গেলেন তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী দাবি করেছেন, আদালতের অনুমতি না নিয়ে দেশত্যাগ করেছেন তিনি। তবে মোরশেদ খানের আইনজীবী বলছেন, তার বিদেশযাত্রায় কোনও ধরনের বাধা না দেওয়ার ব্যাপারে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা রয়েছে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে দেশে বিমান যোগাযোগ বন্ধ থাকার সময়ে গত ২৮ মে চার্টার্ড ফ্লাইটে লন্ডনের উদ্দেশ্যে সস্ত্রীক ঢাকা ত্যাগ করেন এম মোরশেদ খান। তার ঢাকা ছাড়ার খবর চাউর হলে দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান দাবি করেন, মোরশেদ খান আদালতের যথাযথ অনুমতি না নিয়ে দেশত্যাগ করেছেন। তার দেশত্যাগে ‘ব্লকড অর্ডার’ দেওয়া আছে। তবে দুদক থেকে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি ইমিগ্রেশন বিভাগকে জানানোর পরও কীভাবে তারা দেশত্যাগ করেছেন, এ প্রশ্ন তোলেন দুদকের এই আইনজীবী।
দুদক আইনজীবীর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে মোরশেদ খানের পক্ষে গত ২৯ মে বিবৃতি দেন তার আইনজীবী খাইরুল আলম চৌধুরী। বিবৃতিতে তিনি বলেন, মোরশেদ খান ও তার স্ত্রী নাসরিন খান চিকিৎসার জন্য দেশত্যাগ করেছেন। মোরশেদ খানের বিদেশযাত্রায় কোনও ধরনের বাধা না দেওয়ার ব্যাপারে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। দুদক আইনজীবীর বক্তব্য ‘ইনকারেক্ট’ এবং ‘মিসকনসিভড’। ওই বিবৃতিতে খুরশীদ আলমকে বক্তব্য প্রত্যাহার করে নেওয়ার আহ্বান জানান খাইরুল।
বিবৃতিতে ইমিগ্রেশন পুলিশকে চিঠি দিয়ে কারও বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার আইনি অধিকার দুদকের নেই বলেও দাবি করেছেন মোরশেদ খানের আইনজীবী। খাইরুল আলম চৌধুরী বলেন, আদালতের অর্ডার (আদেশ) ছাড়া ইমিগ্রেশন পুলিশকে চিঠি দিয়ে কারও বিদেশযাত্রার নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার কোনও আইনি অধিকার দুদকের নেই। তারা যা করছে তা বেআইনি।
এদিকে মোরশেদ খান কোন আদেশের বলে বিদেশে গেলেন বা আদৌ তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা আছে কিনা সে বিষয়ে খোঁজ নিতে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয় পুলিশ সদর দফতরে। সেখান থেকে বাংলা ট্রিবিউনকে জানানো হয়, মোরশেদ খানের বিদেশযাত্রা নিয়ে আদালতের কোনও নিষেধাজ্ঞা ছিল না। উল্টো তার বিদেশযাত্রা ও বাংলাদেশে প্রবেশে কোনও বাধা না দেওয়ার ব্যাপারে আদালতের সুস্পষ্ট নির্দেশনা আছে। ইমিগ্রেশন পুলিশের বরাত দিয়ে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) সোহেল রানা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ইমিগ্রেশন পুলিশের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, মোরশেদ খানের বিদেশযাত্রায় কোনও বাধা না দেওয়ার ব্যাপারে আদালতের সুস্পষ্ট নির্দেশনা ছিল।
একই কথা বলেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। তিনি বলেন, কারও বিদেশযাত্রায় আদালতের কোনও নিষেধাজ্ঞা না থাকলে তিনি যেতে পারেন। তবে দুদক বা যে কোনও তদন্তকারী সংস্থা আদালতে কারও বিদেশযাত্রায় কোনও এমবার্গো (নিষেধাজ্ঞা) যদি চেয়ে থাকে এবং সেটা যদি কোর্টের প্রপার ওয়ে হয়ে ইমিগ্রেশনে যায় এবং এরপর কেউ বিদেশযাত্রা করেন তাহলে নিঃসন্দেহে এটি একটি বেআইনি কাজ। কিন্তু আদালতের যদি নিষেধাজ্ঞা না থাকে তাহলে দেশত্যাগে কোনও বাধা থাকার কথা না।
এদিকে মোরশেদ খানের আইনজীবী খাইরুল ইসলাম চৌধুরী ওই বিবৃতিতে বলেন, দেশত্যাগের নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে ২০১৭ সালে উচ্চ আদালতের একটি রিট করা হয়েছিল মোরশেদ খান ও নাসরিন খানের পক্ষে। তখন মোরশেদ খান ও নাসরিন খানকে দেশত্যাগ বা দেশে প্রবেশে কোনও বাধা না দেওয়ার জন্য স্বরাষ্ট্র সচিব, ইমিগ্রেশনের মহাপরিচালক ও স্পেশাল ব্রাঞ্চের অফিসার ইনচার্জ (ইমিগ্রেশন) কে নির্দেশনা দিয়েছেন উচ্চ আদালত। এরপর দুজন বহুবার দেশের বাইরে গিয়েছেন ও ফিরে এসেছেন। তখন কোনও কর্তৃপক্ষ তাদের ভ্রমণে বাধা দেয়নি। কিন্তু এবার ২৮ মে চিকিৎসার জন্য দুজনের দেশত্যাগ করার পর দুদকের একজন আইনজীবী মিডিয়াতে বলেছেন, মোরশেদ খান ও তার স্ত্রী আদালতের যথাযথ অনুমতি ছাড়া দেশত্যাগ করেছেন। এই বক্তব্য ইনকারেক্ট এবং মিসকনসিভড।
তবে উচ্চ আদালতের আদেশ থাকলেও সেটি যে ভিন্ন মামলায় দেওয়া সে বিষয়টি বাংলা ট্রিবিউনকে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। মঙ্গলবার (২ জুন) সন্ধ্যায় বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ২০১৭ সালে উচ্চ আদালতে যে অর্ডার (আদেশ) হয়েছিল তাতে দুদককে পক্ষ করা হয়নি। দুদক এ বিষয়ে অবগত না। বরং এবি ব্যাংকের মহাখালী শাখা থেকে ৩৮৩ কোটি ২২ লাখ ১০ হাজার ৩৬৩ টাকা আত্মসাতের মামলায় মোরশেদ খান যেন দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন সেজন্য ২০১৯ সালের ১০ জুন ও ২০২০ সালের ২৬ মে দুদক দুটি ব্লকেড অর্ডার দিয়েছে ইমিগ্রেশন পুলিশকে। সর্বশেষ ব্লকেড অর্ডারটি ২৮ মে তিনি দেশত্যাগের আগেই ইমিগ্রেশনে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।
দুদক আইনজীবীর প্রশ্ন, ব্লকড অর্ডারের বিষয়টি ইমিগ্রেশন জানা সত্ত্বেও তিনি কীভাবে দেশ ছাড়লেন? এছাড়া তিনি মানি লন্ডারিং এর মামলায় জামিন নিয়েছিলেন। যে আদালত থেকে জামিন নিয়েছিলেন সেখানে একটা ইন্টিমিশন দেওয়া উচিত ছিল। তা মোরশেদ খানের পক্ষ থেকে করা হয়নি বলে জানান তিনি।

/আরজে/টিএন/এমএমজে/

লাইভ

টপ