মেয়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত লতিফুর রহমান

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০০:৩৪, জুলাই ০২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:০৪, জুলাই ০২, ২০২০

লতিফুর রহমানের কবরের সামনে পরিবারের সদস্যরা (ছবি: চৌধুরী আকবর হোসেন)চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমান। বুধবার রাত ১০টার দিকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। স্ত্রী, কন্যা, নাতিসহ পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে বনানী কবরস্থানে ছোট মেয়ে শাজনীন তাসনিম রহমানের পাশে লতিফুর রহমানের মরদেহ দাফন করা হয়।
বুধবার (১ জুলাই) সকাল সাড়ে ১১টায় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের চিওড়ায় নিজের বাড়িতে লতিফুর রহমান মারা যান। কুমিল্লা থেকে লতিফুর রহমানের মরদেহ রাতে গুলশানের বাসায় আনা হয়। সেখান থেকে মরদেহ গুলশান আজাদ মসজিদে আনা হয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে জানাজা শেষে মরদেহ বনানী কবরস্থানে দাফন করতে নিয়ে যাওয়া যায়। লতিফুর রহমানের জানাজায় এসেছিলেন বিএনপির নেতা তাবিথ আউয়াল ও ইশরাক হোসেন।

লতিফুর রহমানের মরদেহ কবরে নামানো হচ্ছে (ছবি: নাসিরুল ইসলাম)
জানাজার আগে লতিফুর রহমানের জন্য দোয়া চান তার নাতি যারেফ আয়াত হোসেন। লতিফুর রহমানকে নিজের অনুপ্রেরণা উল্লেখ করে যারেফ আয়াত বলেন, চার বছর আগে এই দিনেই আমার ছোট ভাই ফারাজ আইয়াজ হোসেন তার জীবন উৎসর্গ করেছিল। একই দিনে চলে গেলেন আমাদের নানাভাই। আমি তার জন্য দোয়া চাই। নানা লতিফুর রহমানকে নিজেই কবরে শায়িত করেন যারেফ আয়াত হোসেন। দাফন শেষে মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। তার কবর ছুঁয়ে শেষ বিদায় জানান পরিবারের সদস্যরা।
লতিফুর রহমান (৭৪) বেশ কিছু দিন থেকেই বার্ধক্যজনিত কারণে শারীরিক নানা জটিলতায় ভুগছিলেন। আমৃত্যু ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন তিনি। ব্যবসা ক্ষেত্রে নৈতিকতা ও সামাজিক দায়বদ্ধতার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১২ সালে বিজনেস ফর পিস অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার পান তিনি। প্রথম আলো ও ডেইলি স্টার পত্রিকা দুটি প্রতিষ্ঠায় তিনি অনবদ্য ভূমিকা রেখেছেন ।


১৯৪৫ সালে ভারতের জলপাইগুড়িতে জন্মগ্রহণ করেন লতিফুর রহমান। পরবর্তীতে তার পরিবার ঢাকায় এসে বাস করতেন পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ায়। তার স্ত্রীর নাম শাহনাজ রহমান। এই দম্পতির এক ছেলে আর দুই মেয়ে। সদ্য প্রয়াত এই বিজনেস টাইকুনের ট্রান্সকম গ্রুপের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যবসাগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো ফাস্টফুড, কোমল পানীয়, ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক পণ্য, ওষুধ, সংবাদপত্র, চা শিল্প, বিমা ইত্যাদি। ট্রান্সকম গ্রুপের যাত্রা শুরু চা চাষের মাধ্যমে, যেটি এখন বাংলাদেশের অন্যতম একটি বড় করপোরেট প্রতিষ্ঠান। এছাড়া লতিফুর রহমান নেসলে বাংলাদেশ, হোলসিম বাংলাদেশ এবং ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স ও ইনভেস্টমেন্টের চেয়ারম্যান। তিনি লিন্ডে বাংলাদেশ এবং এনজিও ব্র্যাকের গভর্নিং বোর্ডের পরিচালক। তিনি আইসিসি বাংলাদেশের সহ-সভাপতি। বাংলাদেশের বাজারে আন্তর্জাতিক ফাস্টফুড চেইন পিৎজা হাট ও কেন্টাকি ফ্রায়েড চিকেন (কেএফসি) প্রচলনের জন্য বিশেষভাবে পরিচিতি লাভ করেন লতিফুর রহমান।

/সিএ/এমআর/এমওএফ/

লাইভ

টপ