অ্যাপে ছবি দিন ব্যবস্থা নেবো: আতিকুল ইসলাম

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:২৫, আগস্ট ০১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:০৯, আগস্ট ০১, ২০২০

আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে জানিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, আমরা একটি অ্যাপস তৈরি করে ডিএনসিসির ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজে দিয়েছি। এটি ডাউনলোডের পর ওপেন করে বর্জ্যের ছবি দেওয়া হলে আমরা তাৎক্ষণিকভাবে জানতে পারবো কোথায় বর্জ্য রয়ে গেছে এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো।

শনিবার (১ আগস্ট) দুপুর সোয়া ২টায় ভাটারার সাইদনগরে কোরবানির পশুর হাটে বর্জ্য অপসারণের কাজ উদ্বোধনকালে মেয়র এ কথা বলেন।

আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘নির্দিষ্ট জায়গায় অনেকে বর্জ্য রাখেন না। এই কোরবানি তিন দিনের জন্য। আজকে যেসব পশু কোরবানি দেওয়া হবে, আমরা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অবশ্যই তার বর্জ্য অপসারণ করবো। আবার কাল ও পরশুও অনেকে কোরবানি দেবেন। সেটি কিন্তু আর ২৪ ঘণ্টা লাগবে না, তার আগেই অপসারণ করা হবে।’

সাংবাদিকদের উদ্দেশে মেয়র আতিক বলেন, ‘আপনারা বিভিন্ন এলাকার বর্জ্য ব্যবস্থাপনা পরিস্থিতি তুলে ধরুন। তাহলে আমাদের জন্য সুবিধা হবে। আমি নগরবাসীকে বিনয়ের সঙ্গে অনুরোধ করবো— আপনারা যারা কোরবানি দিচ্ছেন, কোরবানির পশুর বর্জ্য নির্দিষ্ট ব্যাগে ঢুকিয়ে রেখে দিন। ডিএনসিসির পরিছন্নতাকর্মীরা তা সংগ্রহ করবেন। আমরা যদি সুনাগরিক হই, তাহলে শহরটা কিন্তু পরিষ্কার থাকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘একদিকে করোনা, আরেকদিকে ডেঙ্গুর চ্যালেঞ্জ। আমরা ১১টি ওয়াটার বাউজারের মাধ্যমে ব্লিচিং পাউডার ও তরল জীবাণুনাশক ছিটানো শুরু করবো। আমরা একটি অ্যাপস তৈরি করে ডিএনসিসির ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজে দিয়েছি। এটি ডাউনলোডের পর ওপেন করে বর্জ্যের ছবি জমা দেওয়া হলে আমরা তাৎক্ষণিকভাবে জানতে পারবো কোথায় বর্জ্য রয়ে গেছে এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো। এছাড়া আমাদের কন্ট্রোল রুম ২৪ ঘণ্টা খোলা আছে। সিটি করপোরেশনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। কাউন্সিলররাও মাঠে আছেন। এই শহরে আমরা থাকি, আমাদের সন্তানরা থাকে, আমাদের আত্মীয়-স্বজনরা থাকে। আমরা যেন এ শহরকে সুন্দর রাখি। নগরবাসীকে অনুরোধ করবো—আপনারা আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করুন।’

বর্জ্য অপসারণের কাজ উদ্বোধনকালে অন্যদের মধ্যে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল হাই, সচিব রবীন্দ্র শ্রী বড়ুয়া, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর এম সাইদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

/এসএস/এপিএইচ/এমওএফ/

লাইভ

টপ