আফিফের ব্যাটিংয়ে স্বস্তিতে বাংলাদেশ

Send
গাজী আশরাফ হোসেন লিপু
প্রকাশিত : ১০:৫৬, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:০২, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯

গাজী আশরাফ হোসেন লিপুএই ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টিতে সহজ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে শুক্রবার অনায়াসে আমরা জয় তুলে নেবো, এই ধারণাটাই মনে ‍পোষণ করেছিলাম। কিন্তু ম্যাচের মাঝ পথে হারের শঙ্কা ছিল পুরো বাংলাদেশের। ৬০ রানে ৬ উইকেট পতনের পর টি-টোয়েন্টির দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামা আফিফ হোসেন যে এমন দুঃসাহসিক ইনিংস খেলবেন, তা ক’জন ভেবেছিল। আফিফ এমন আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে ভালোবাসেন, তবে জাতীয় দলের হয়ে এমন বিপর্যয়ের মুহূর্তে এসে ওভার প্রতি রানের চাহিদা ঠিক রাখার জন্য যে শুরুটা করেছিলেন, তা ছিল চোখ জুড়ানো। এবং শেষ দিকে গিয়ে যেভাবে ফিনিশ হলো, তা আফিফের মারা বাউন্ডারির কারণেই অর্জিত হয়েছে। দলের চাহিদা অনুযায়ী তিনি এই ম্যাচে ৮ বাউন্ডারি মেরেছেন, নইলে ১ বা ২ রানের ওপর নির্ভর করে ম্যাচ জেতা সম্ভব হতো না। কাইল জার্ভিসের শেষ ওভারে শর্ট থার্ডম্যানের ওপর দিয়ে মারা বাউন্ডারিটি ছিল অসাধারণ ও তার ইনিংসের সেরা শট।

আফিফকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন। এই জুটিই দলকে এই সিরিজে মাথা উঁচু করে লড়াই করার রসদ জুগিয়েছে। আমাদের দলের কান্ডারীরা সবাই দারুণভাবে এই ম্যাচে আবারও ব্যর্থ হলেন। দলের অভিজ্ঞ ও সিনিয়র ক্রিকেটারদের এমন ব্যাটিং দেখাটা সত্যি পীড়াদায়ক। সৌম্য, সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির কেউই নামের প্রতি ন্যূনতম সুবিচার করতে পারেননি।

আউট অফ ফর্ম ব্যাটসম্যান দিয়ে ব্যাটিং অর্ডার লম্বা না করে জিম্বাবুয়ের মতো তিন সিমার নিয়ে খেলা যেতে পারে। মিরপুরের পিচে সিমারদের জন্য কিছুটা প্রাণ থাকে। এই ম্যাচে বেশ মুভমেন্ট দুই অর্ধেই দেখা গেছে। সাকিবের উচিত তার ব্যাটিংয়ের দিকে মনোযোগী হওয়া এবং পিচের সহায়তা না থাকলে তার কোটা ওভার পূরণ করাটা বোলিংয়েও বাঞ্ছনীয় নয়। তিনি একমাত্র ইনফর্ম ব্যাটসম্যান ছিলেন বিশ্বকাপে আমাদের দলে, তাই তার অফফর্ম দলকে খুব ভোগাচ্ছে এবং দুই প্রান্ত থেকেই উইকেটের পতন হচ্ছে। এর পাশাপাশি মুশফিকের রান না পাওয়াটা দ্রুত মিডল অর্ডারে ধস নামিয়ে দিচ্ছে।

১৪৫ রান করতে গিয়ে ম্যাচ জিতে হয়তো আনন্দ পাওয়া যায়, তবে আমাদের ৮ নম্বর ব্যাটসম্যানকে ৬০ রানের মাথায় পিচে আসতে হবে জিম্বাবুয়ের মতো একটা দলের বিপক্ষে, এটা গ্রহণযোগ্য নয়। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে সবসময় আপনি কখনোই সফল হবেন না। এই জয় স্বস্তি এনে দিলেও দলের মাঝে একটা বড় অস্বস্তির জায়গাও তৈরি হয়েছে।

বাংলাদেশের ফিল্ডিং প্রতিপক্ষের তুলনায় অনেক ভালো হয়েছে। তবে শেষ ৫ ওভারে বোলিংয়ে আমাদের আরও দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। পেস বোলিংয়ে জিম্বাবুয়ের পেসাররা ভালো বল করেছে। রায়ান বার্লের ব্যাটিং ছিল সত্যিই প্রশংসনীয় ‍এবং সাব্বিরের যে ক্যাচটি তিনি নিয়েছেন, তা ছিল চোখ ধাঁধানো। বার্লের ব্যাটিং, লেগ স্পিন ও চমৎকার ফিল্ডিংয়ের কারণে ঘরোয়া ক্রিকেটের শর্টার ফরম্যাটে তাকে কোনও দলে নিশ্চয়ই দেখা যাবে।

দলকে অনেকদিন পর আবার বিজয়ের পথে ফিরিয়ে আনার জন্য আফিফ ও মোসাদ্দেককে ধন্যবাদ।

/কেআর/

লাইভ

টপ