ক্যাচ মিসে আক্ষেপ নেই বিপ্লবের!

Send
রবিউল ইসলাম
প্রকাশিত : ১৬:১১, নভেম্বর ১৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৪৪, নভেম্বর ১৩, ২০১৯

আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। ঘরের মাঠে হুট করেই ত্রিদেশীয় সিরিজে অভিষেক হয় আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের। সেই অভিষেক ম্যাচেই আলো ছড়িয়েছেন এই লেগ স্পিনিং অলরাউন্ডার। ‍জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ভালো করায় ডাক মেলে ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দলে। তিন ম্যাচের সিরিজে বল হাতে নিজের কারিশমা দেখিয়েছেন, তবে শেষ ম্যাচটিতে তার বাজে ফিল্ডিংয়ে খেসারত দিতে হয় পুরো দলকে। মিস করেন দুটি গুরুত্বপূর্ণ ক্যাচ!

বিপ্লবের কল্যাণে শূন্য রানে জীবন পাওয়া শ্রেয়াস আইয়াই শেষ পর্যন্ত ভারতকে এনে দেন ভালো সংগ্রহের ভিত। উপহার দেন ৬২ রানের ঝড়ো ইনিংস। শেষ দিকে শিবম দুবেরও ক্যাচ মিস করেন বিপ্লব। যদিও ক্যাচ মিসকে ম্যাচের অংশ হিসেবে দেখে সেগুলো ভুলে যেতে চাইছেন এই লেগস্পিনার কাম ব্যাটসম্যান। বুধবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমিতে বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে ভারত সফরের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করলেন তিনি।

বাংলা ট্রিবিউন: ভারত সফরের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

বিপ্লব: অভিজ্ঞতা তো ভালোই হল। বিশ্বমানের দল ভারত। ওদের সঙ্গে খেললে বোঝা যায় কোনো জায়গায় দুর্বলতা আছে কিনা কিংবা কোথায় উন্নতি করতে হবে। আমি তিন ম্যাচে এই জিনিসগুলো বুঝতে পেরেছি, কীভাবে নিজেদের আরও ভালোভাবে তুলে ধরা যায়। এগুলো নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করব এখন।

বাংলা ট্রিবিউন: তৃতীয় ম্যাচে দুটো ক্যাচ মিস করেছেন। এর ফলে ভারতকে আর আটকানো সম্ভব হয়নি। ক্যাচ মিসের ঘটনায় কতটা হতাশ?

বিপ্লব: ক্যাচ মিস তো হয়ই। এগুলো খেলার অংশ। কিন্তু যখন হয় তখন এগুলো মাথায় রাখি না। সামনের দিকে তাকানোর চেষ্টা করি। পরবর্তীতে যেগুলো আসবে সেটা যেন ভালোভাবে ধরতে পারি বা এক্সট্রা অর্ডিনারি কিছু করে দেখাতে পারি এই ভাবনা থাকে সব সময়।

বাংলা ট্রিবিউনকে সাক্ষাৎকার দিচ্ছেন বিপ্লব। বাংলা ট্রিবিউন: তবুও ব্যাক টু ব্যাক ক্যাচ মিস নিশ্চয়ই বেশি হতাশ করেছে?

বিপ্লব: এটা আসলে হয়ে গেছে। সবারই তো সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা থাকে। আমি যেখানে খেলি চেষ্টা করি নিজের শতভাগ দিতে। এগুলো বাদ দিয়ে এখন সামনের দিকে আগানোর চেষ্টা করছি। কীভাবে আরও উন্নতি করা যায়, কীভাবে টপ লেভেলে ভালো খেলা যায়, সেই চিন্তা করছি।

বাংলা ট্রিবিউন: শ্রেয়াস আইয়ারের ওই ক্যাচ মিসের পর কী উপলব্ধি ছিল?

বিপ্লব: এর আগে কখনোই আমাকে এরকম শিক্ষার মুখোমুখি হতে হয়নি। জীবনে প্রথমবার এমনটি হল। এটা খুব ভালো অভিজ্ঞতা। এখন বুঝি যে ফোকাস আরও বাড়াতে হবে।

বাংলা ট্রিবিউন: আপনার ক্যাচ মিসে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ মাঠে কোন রিঅ্যাকশন দেখিয়েছিলেন?

বিপ্লব: না, এরকম কিছুই না। কেউ কিছুই বলেনি। দলের সবার আমার ওপর বিশ্বাস আছে। আমার ফিল্ডিং সব সময় ভালোই হয়। এটা একটা ভুল ছিল। সামনে আরো ফোকাস বাড়াতে হবে।

বাংলা ট্রিবিউন: ওই দুটো ক্যাচ মিসের প্রভাব কি বোলিংয়ে পড়েছিল?  

বিপ্লব: না, এরকম কিছু ছিল না। কারণ আমার কাজ হচ্ছে বোলিং করা। যখন বোলিং করি তখন সেটা নিয়ে সিরিয়াস থাকি। যে কাজটাই করি তখন সেটার প্রতি ফোকাস দেই। একটার জন্য আরেকটা ক্ষতি হোক; এমনটা ভাবি না।

বাংলা ট্রিবিউন: আপনাকে দলের মধ্যে কে বেশি অনুপ্রেরণা যোগায়?

বিপ্লব: রিয়াদ ভাই, মুশফিক ভাই, সৈকত ভাই।

বাংলা ট্রিবিউন: তারা কী বলে…

বিপ্লব: রিয়াদ ভাই সব সময় সমর্থন করে। সৈকত ভাই ব্যক্তিগতভাবে ডাকে। যে আজকে এই এই কাজ করতে হবে, সেগুলো করলে ভালো হবে। বা ম্যাচ শেষে বলে- তুই যদি এই এই জিনিসগুলো এভাবে করতি ভালো হতো। সৈকত ভাই বললে বিষয়গুলো অনেক ভালো লাগে। সিনিয়র ক্রিকেটাররাও ভুল হলে ধরিয়ে দেয়।

বাংলা ট্রিবিউন: বৃহস্পতিবার থেকে শুরু ইমার্জিং এশিয়া কাপ, এটা নিশ্চয়ই নিজেকে প্রমাণের আরেকটা বড় মঞ্চ?

বিপ্লব: এটা নিজেকে প্রস্তুত করার আরও ভালো একটা মঞ্চ আমি মনে করি। যেহেতু সামনে বিপিএল আছে, আবার সামনে নতুন সিরিজ আছে। এখান থেকে ভুল শুধরে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

বাংলা ট্রিবিউন: পাদপ্রদীপের আলোয় আসা কি চাপ নাকি অনুপ্রেরণা?

বিপ্লব: এগুলো অনুপ্রেরণা হিসেবেই কাজ করে। আরও ভালো করার একটা আগ্রহ জাগে। ভালো করলে আরও ভালো কিছু হবে।

বাংলা ট্রিবিউন: স্পিন বোলিং কোচ ভেট্টরির সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা বলুন…

বিপ্লব: ওর (ভেট্টরি) কাছ থেকে ম্যাচ সেন্স পেয়েছি। পেয়েছি গেম রিডিংয়ের ক্ষমতা। ম্যাচে কীভাবে কাজ করতে হবে, এই জিনিসটা একজন বোলারের জানা খুব জরুরি। যে কোন অবস্থায় কীভাবে বোলিং করতে হবে, কী করলে ভালো হয় দলের জন্য- এই বিষয়গুলো সে খুব ভালোভাবে বুঝিয়েছে।

বাংলা ট্রিবিউন: সিরিজ শেষে নিজেকে মূল্যায়ন করবেন কীভাবে?

বিপ্লব: চাওয়ার তো কোনও শেষ নেই। যখন যেখানে খেলি সেই ম্যাচের অবস্থা অনুযায়ী খেলার চেষ্টা করি। নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করি। সেরার চেয়েও বেশি দেওয়ার চেষ্টা করি, কেননা যা করবো তা যেন দলের জন্য ভালো হয়। এটাই চেষ্টা করি। 

/এফআইআর/

লাইভ

টপ