ভারত-উইন্ডিজ সিরিজে ‘ফ্রন্ট ফুট নো বল’ প্রযুক্তি

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১২:৪৮, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৫০, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯

পাকিস্তানের বিপক্ষে বেনিফিট অব ডাউটে সুবিধা পান বোলার প্যাট কামিন্সভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সীমিত ওভারের সিরিজে ‘ফ্রন্ট ফুট নো বল’ প্রযুক্তির পরীক্ষামূলক ব্যবহার শুরু হচ্ছে। শুক্রবার দুই দলের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে সামনের পায়ের নো বল পর্যবেক্ষণ করবেন কেবল থার্ড আম্পায়ার। এই নতুন নিয়ম থাকবে দুই দলের ওয়ানডে সিরিজেও।

বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে আইসিসি স্পষ্ট জানিয়েছে, ‘আগের মতোই’ অন্য সব সিদ্ধান্ত মাঠের আম্পায়াররা নেবেন। তবে ওভারস্টেপিং দেখতে প্রত্যেক বল পর্যবেক্ষণ করবেন কেবল টিভি বা থার্ড আম্পায়ার।

আইসিসি জানিয়েছে, ‘যদি (বোলারের) সামনের পা সীমালঙ্ঘন করে, থার্ড আম্পায়ার সেটা জানাবেন মাঠের আম্পায়ারকে। তখনই নো বল ডাকতে পারবেন মাঠের আম্পায়ার। মানে থার্ড আম্পায়ারের পরামর্শ ছাড়া সামনের পায়ের নো বল ডাকতে পারবেন না মাঠের আম্পায়ার।’

কোনও কোনও সময় ছবির ওপর ভিত্তি করে নো বল ডাকা কষ্টকর হয়ে যেতে পারে থার্ড আম্পায়ারের জন্য। আইসিসি জানায়, এমন পরিস্থিতিতে ‘বেনিফিট অব ডাউট’ যাবে বোলারের পক্ষে। আর ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর যদি থার্ড আম্পায়ার দেখেন নো বল হয়েছে। তখন তাকে আবার ইনিংস শুরুর জন্য ডাকতে পারবেন।

আইসিসি বিবৃতিতে বলেছে, ‘একটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার, কোনও ধরনের বেনিফিট অব ডাউট যাবে বোলারের পক্ষে। আর যদি নো বল পরে ডাকা হয়, তাহলে মাঠের আম্পায়ার আউটের সিদ্ধান্ত বাতিল করে ব্যাটসম্যানকে ডাকতে পারবেন মাঠে।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এনিয়ে দ্বিতীয়বার ওভারস্টেপিং পর্যবেক্ষণে প্রযুক্তির পরীক্ষামূলক ব্যবহার করছে আইসিসি। ২০১৬ সালের ওয়ানডে সিরিজে প্রথমবার এর ব্যবহার হয়েছিল। নো বল পর্যবেক্ষণে আইপিএলও পরের আসর থেকে বাড়তি টিভি আম্পায়ারকে রাখতে যাচ্ছে।

/এফএইচএম/

লাইভ

টপ