দিনটা ভালোই কাটলো বাংলাদেশের

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:৪৯, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:০৯, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০

বড় সংগ্রহের পথে রয়েছেন মুমিনুল। একমাত্র টেস্টে আগের দিনই কাজটা সেরে রেখেছিল বাংলাদেশ। লক্ষ্য ছিল দ্বিতীয় দিন সকালেই যেন জিম্বাবুয়েকে দ্রুত গুটিয়ে দেওয়া যায়। প্রথম সেশনে বল হাতে সাফল্যের পর বাকি দুই সেশনে ব্যাট হাতেও সফরকারীদের ওপর আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছে বাংলাদেশ।

দ্বিতীয় দিন শেষে প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২৪০ রান।  জিম্বাবুয়ের চেয়ে ২৫ রানে পিছিয়ে থাকায়, বড় সংগ্রহের পথেই ছুটছে মুমিনুল হকের দল।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়েকে প্রথম ইনিংসে ২৬৫ রানে গুটিয়ে দেওয়ার পর ব্যাট হাতে শুরুটা আশা জাগানিয়া ছিল না। সাইফ হাসান গ্লাভসবন্দী হয়ে যান দলীয় ১৮ রানে। এর পর নাজমুল শান্তর সঙ্গে ৭৮ রানের জুটি গড়ে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছেন তামিম ইকবাল। তামিম ইনিংস লম্বা করতে পারেননি যদিও, তিরিপানোর বলে গ্লাভসবন্দী হয়ে বিদায় নিয়েছেন ৪১ রানে।

তবে প্রান্ত আগলে খেলে প্রতিরোধ গড়ার সঙ্গে ৩৭তম ওভারে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন শান্ত। তামিমের অভাব টের পেতে দেননি, অধিনায়ক মুমিনুল হকের সঙ্গে গড়েছেন ৭৬ রানের জুটি।

শান্তকে ফিরিয়ে এই জুটি ভেঙেছেন টিশুমা। তার বলে গ্লাভসবন্দী হয়ে শান্ত ফিরেছেন ৭১ রান করে। যা তার ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ, ইনিংসে ছিল ৭টি চারের মার।

বাংলাদেশের হয়ে তিনটি টেস্ট খেললেও নাজমুল হোসেন শান্ত দেখা পাননি কাঙ্ক্ষিত টেস্ট হাফসেঞ্চুরির। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে সেই অতৃপ্তি মিটিয়েছেন। শান্তর পর হাফসেঞ্চুরির খরা মিটিয়েছেন মুমিনুলও। সেপ্টেম্বরের পর দেখা পেলেন প্রথম হাফসেঞ্চুরির! টেস্ট অধিনায়ক হওয়ার পর এটি তার প্রথম হাফসেঞ্চুরিও!

সেই মুমিনুলই বড় স্কোরের পথে রয়েছেন। দিনের শেষ ভাগ নির্বিঘ্নে কাটিয়ে দিয়েছেন মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ৬৮ রানের জুটি গড়ে। মুমিনুল অপরাজিত আছেন ৭৯ রানে, মুশফিকুর রহিম ৩২ রানে।

এর আগে প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়েকে ২৬৫ রানে গুটিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। পেসার আবু জায়েদ রাহী দিনের শুরুর আঘাতটা হেনেছেন। তার বল তিরিপানোর ব্যাটের কোনায় লেগে জমা পড়ে উইকেটকিপার লিটন দাসের হাতে। ৩১ বলে ৮ রানে ফিরেছেন তিরিপানো।

এর পর নতুন নামা এনডিলোভুকেও থিতু হতে দেননি রাহী। লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে তাকে রানের খাতা খোলবার আগেই বিদায় দিয়েছেন। রাহীর পর টেস্টে প্রথমবারের মতো উইকেট শিকার করেন তাইজুল। বাঁহাতি স্পিনার লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেছেন টিশুমাকে (০)।

চাকাভা অপরপ্রান্তে টিকে দ্রুত কিছু রান তোলার চেষ্টা করেছেন। এই দ্রুত গতিতে রান তোলার চেষ্টায় উড়িয়ে মারতে গিয়েই তালুবন্দী হয়েছেন তাইজুলের বলে। নাঈম হাসান তার ক্যাচটি নিলে ২৬৫ রানেই শেষ হয় জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংস। দ্বিতীয় দিন প্রায় দেড় ঘণ্টার মতো টিকেছিল জিম্বাবুয়ের প্রতিরোধ।

নাঈম নিয়েছেন ৪ উইকেট। দুই দিন মিলে রাহী নিয়েছেন ৪টি। আর দুটি নিয়েছেন তাইজুল।

স্কোর: দ্বিতীয় দিন শেষে

জিম্বাবুয়ে প্রথম ইনিংস: ২৬৫ (আরভিন ১০৭, মাসভাউরে ৬৪; নাঈম ৪/৭০, রাহী ৪/৭১)
বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ২৪০/৩ (মুমিনুল ৭৯*, নাজমুল ৭১; টিশুমা ১/৪৬, তিরিপানো ১/৪০, নিয়ুচি ১/৪০)

/এফআইআর/

লাইভ

টপ