আকরামের দৃষ্টিতে শেবাগ নন, আফ্রিদি!

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:২১, মার্চ ৩০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:১৮, মার্চ ৩০, ২০২০

ওয়াসিম আকরামতার সময়ে কত ফাস্ট বোলারকে যে বিনিদ্র রাত উপহার দিয়েছেন বীরেন্দর শেবাগ! নতুন লাল বলে খেলার কথা যদি বলেন, ভারতীয় এই ওপেনারের চেয়ে কাজটা খুব ভালোভাবে পেরেছেন খুব কম ব্যাটসম্যানই। এই সময়ে ফাস্ট বোলারদের কাছে আরেক আতঙ্ক অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার শেবাগের কাছে ঋণ স্বীকার করে বলেছেন, শেবাগই তার মধ্যে আত্মবিশ্বাসের বীজ বুনে দিয়েছেন। তবে পাকিস্তানের ক্রিকেট কিংবদন্তি ওয়াসিম আকরাম মনে করেন, শেবাগ নন, শহীদ আফ্রিদিই টেস্ট ক্রিকেটের ওপেনিং ব্যাটিংয়ের নতুন সংজ্ঞা দিয়েছেন।

সম্প্রতি একটি  ইউটিউব টক-শোতে আফ্রিদির সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আকরাম বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেটে শেবাগ আসে একটু পরে। কিন্তু ১৯৯৯-২০০০ মৌসুমে শহীদ আফ্রিদি টেস্ট ক্রিকেটে ওপেন করার মানসিকতাই বদলে দেয়। এমনকি আমি যদি বোলার হতাম, জানতাম তার উইকেটটি হয়তো পাবো, এটাও জানতাম আমার বলে সে প্রচুর বাউন্ডারিও মারবে।’

১৯৯৮ সালে টেস্ট ক্রিকেটে আফ্রিদির অভিষেক হয় ওপেনার হিসেবে, প্রতিপক্ষ ছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু মারকুটে এই ব্যাটসম্যান পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন ১৯৯৯-২০০০ মৌসুমে ভারত সফরে গিয়ে। সেই  পাকিস্তান দলের অধিনায়ক  আকরাম জানান, নির্বাচকেরা আফ্রিদিকে ওই সফরে চাননি। কিন্তু তার নিজের বিশ্বাস এবং ইমরান খানের পরামর্শ অনুযায়ী আফ্রিদি দলে জায়গা পান।

‘সফরের দল নির্বাচনের আগে আমি ইমরান খানকে বললাম, ক্যাপ্টেন, আমি শহীদ আফ্রিদিকে দলে চাই, কিন্তু কয়েকজন নির্বাচক এটির বিরুদ্ধে। তিনি বললেন, অবশ্যই তাকে দলে নেওয়া উচিত। সে ১-২টি ম্যাচ জেতাতে পারবে এবং তাকে দিয়ে ওপেন করাবে।’ অতীতের এই অজানা বিষয়টি সামনে এনে আকরাম বলেন, ‘ সাধারণত আমি ইমরানের সঙ্গে অনেক বিষয়ে আলোচনা করতাম, কখনও তা কোনও সফরের আগে, কখনও সফরের মাঝে এবং তার পরামর্শ অনেক কাজে লাগতো।’

ওই সফরে আকরামের আস্থার প্রতিদানে আফ্রিদি চেন্নাই টেস্টে খেলেন ১৪১ রানের ইনিংস, তার প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি।  সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে যায় পাকিস্তান। আফ্রিদির সেই ইনিংসটি এখনও ভুলতে পারেন না আকরাম, ‘চেন্নাইয়ের উইকেটে কী অসাধারণ ইনিংস! সে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে আসছিল আর কুম্বলে ও যোশিকে একেক করে মারছিল চার কিংবা ছক্কা।’

পাকিস্তান টেস্ট সিরিজটা জিতে নেয় ২-১ ব্যবধানে। তবে আফ্রিদির টেস্ট ক্যারিয়ার চেন্নাইয়ের ইনিংসটির মতো  আলো ছড়াতে পারেনি। ২৭ ম্যাচেই তা শেষ হয়ে গেছে। তবে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নিজের অপরিহার্যতা প্রমাণ করেছেন পাকিস্তানের হয়ে ৩৯৮ ওয়ানডে ও ৯৯টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে।

 

 

 

 

 

 

/পিকে/

লাইভ

টপ