থুতু নিষিদ্ধ: সুইংয়ের জন্য পেসারদের স্বস্তি ডিউক বলে!

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:১০, মে ২৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:১৯, মে ২৮, ২০২০

ডিউক বল ও দিলীপ জাজোদিয়াকরোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকায় ক্রিকেট বলে থুতু বা লালা ব্যবহারের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপের সুপারিশ করেছে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি। ক্রিকেট আবার মাঠে ফিরলেই এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। বল সামান্য পুরোনো হলে সুইং পাওয়ার জন্য ফাস্ট বোলার বা সিম বোলাররা থুতু ব্যবহারের সুবিধা আর নিতে পারবেন না। এ নিয়ে পেস বোলারদের মন খারাপ। তবে ডিউক বল প্রস্তুতকারক কোম্পানির মালিক বলেছেন, বলে থুতু না লাগিয়েও ডিউক বল সুইং করানো যাবে এবং ইংলিশ কন্ডিশনে তো অবশ্যই।

থুতু ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞার সুপারিশ আসায় সবচেয়ে ক্ষুব্ধ এই সময়ের সেরা ফাস্ট বোলার মিচেল স্টার্ক। এমন হুঁশিয়ারিও এই অস্টেলিয়ান উচ্চারণ করেছেন যে ভবিষ্যতে কোনও ছেলে-মেয়ে আর বোলার হতে চাইবে না। কারণ থুতুর ব্যবহার ছাড়া বল বাতাসে ঘোরানোটা কঠিন, আর এতে ব্যাটসম্যানদের জীবন হবে মধুর। তবে ইংলিশ ফাস্ট বোলার ক্রিস ওকস স্টার্কের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে বলেছেন, কুকাবুরা বলে সুইং পেতে সমস্যা হলেও সুইং-বান্ধব ডিউক বলে এটি হবে না। এবং তার ধারণা, এ অবস্থায় ইংল্যান্ডে ডিউক বলই পেসারদের পরম সহায় হয়ে উঠতে পারে।

ডিউকসের মালিক দিলীপ জাজোদিয়া দ্য গার্ডিয়ানের কাছে ওকসের সুরে সুর মিলিয়ে বলেছেন, ‘ওকস সঠিক কথাই বলেছেন। ইংল্যান্ডে সুইং পেতে কোনও সমস্যা হবে বলে আমি মনে করি না।’ ক্রিকেট যেহেতু ব্যাট ও বলের খেলা, সেজন্য ব্যাটিং ও বোলিংয়ে একটা ভারসাম্য থাকাটা জরুরি মনে করেন জাজোদিয়া, তা না হলে খেলাটি একঘেয়ে হয়ে উঠতে পারে। তার কথা, ‘সুইংয়ের জন্য বলের চকচকে পাশ বা ক্ষয়ে যাওয়া পাশটাই মূল বিষয় নয়, খাঁটি বলটাই আসল।’

ডিউক বলকে খাঁটি দাবি করে জাজোদিয়া পেসার সুইং নিয়ে খুব বেশি বারণ করেছেন জাজোদিয়া, ‘আপনার উদ্বিগ্ন থাকার খুব বেশি কারণ নেই, কারণ আমাদের বলের আকার খুব ভালো এবং এতে আছে শক্ত সিম যা বাতাসে রাডার হিসেবে কাজ করে। এই সিম হাতে সেলাই করা বলে এটি টেকসইও হয়।’

আর আইসিসি যেহেতু ঘাম ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি, তাই ঘাম বলে লাগিয়েও সুইং পেতে সমস্যা হবে না বলে মনে করেন জাজোদিয়া, ‘তারা ঘাম ব্যবহার নিষিদ্ধ করেনি। সুতরাং আপনি কপালের ঘাম মাখিয়ে বলের পালিশ ভালোই রাখতে পারবেন।’

অস্ট্রেলিয়ার বল প্রস্তুতকারক কোম্পানি কুকাবুরা মোমের একধরনের হালকা প্রলেপ আবিষ্কার করেছে, যা ব্যবহার করে বল চকচকে রাখা যাবে বলে নিশ্চিত তারা। তবে সিমারদের বাড়তি সুবিধার জন্য জাজোদিয়ার সরল পরামর্শ, ‘ম্যালকম মার্শাল অথবা অ্যাঙ্গাস ফ্রেজারের কথা ভাবুন। তারা ট্রাউজারের পকেটে সবসময় কাপড়ের ছোট তোয়ালে রাখতেন আর তা দিয়ে ঘষেই বল চকচকে করতেন। অন্যকিছুর চেয়ে এই গ্রীষ্মে এটাই বোলারদের ব্যবহার করাটা ঠিক হবে।’ 

/পিকে/

লাইভ

টপ