প্রতিপক্ষ ভারত-পাকিস্তান-কোরিয়া, কী ভাবছে বাংলাদেশ?

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:১৯, অক্টোবর ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:২৩, অক্টোবর ২৬, ২০২০

চলছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২১ হকি দলের প্রস্তুতিদেশের মাঠে হবে বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-২১ এশিয়া কাপ হকি। তাই বাংলাদেশ দলকে ঘিরে প্রত্যাশা একটু বেশি। তবে আশরাফুল-রাব্বীদের জন্য এই প্রতিযোগিতা সহজ হবে না। কারণ আগামী ২১ থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে হতে যাওয়া প্রতিযোগিতায় কঠিন গ্রুপে পড়েছে বাংলাদেশ। লাল-সবুজ দলকে সেমিফাইনালে যেতে হলে একের পর এক হার্ডল পেরোতে হবে। সেজন্যই শুরুটা শক্তিধর পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় দিয়ে করতে চায় স্বাগতিকরা।

বাংলাদেশের ‘এ’ গ্রুপে ভারত ও পাকিস্তান ছাড়াও রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া ও চাইনিজ তাইপে। ‘বি’ গ্রুপে খেলবে জাপান, মালয়েশিয়া, চীন, উজবেকিস্তান ও সিঙ্গাপুর। দুই গ্রুপ থেকে শীর্ষ দুটি করে দল সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে। এরপর বিজয়ী দুই দল খেলবে ফাইনালে। এছাড়া থাকবে স্থান নির্ধারণী ম্যাচ।

উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশেল লড়বে পাকিস্তানের বিপক্ষে। পরের দিন দক্ষিণ কোরিয়া। ২৪ জানুয়ারি চাইনিজ তাইপে ও ২৭ জানুয়ারি আরেক শক্তিধর ভারতের মুখোমুখি হবে।

এই প্রতিযোগিতার প্রস্তুতি হিসেবে বাংলাদেশ দল এ মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু করেছে অনুশীলন। আপাতত ৩৭ জন খেলোয়াড় নিয়ে কোচ মামুনুর রশীদ পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

সাবেক তারকা মামুনুর নিজেও জানেন শুরুটা ভালো না করতে পারলে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানো কঠিন হবে। বাংলা ট্রিবিউনকে শোনালেন তার লক্ষ্যের কথা, ‘আমরা কঠিন গ্রুপে পড়েছি। তারপর আবার শুরুর ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে লড়তে হবে। এখন কঠিন প্রতিপক্ষ হলেও তাদের হারানো সম্ভব। আমরা চাই শুরুতে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়তে। সেজন্যই বলতে পারেন খেলোয়াড়রা পরিশ্রম করে যাচ্ছে।’

পাকিস্তানের পরই দক্ষিণ কোরিয়া প্রতিপক্ষ। মামুনুর অবশ্য প্রতিপক্ষ নিয়ে ভাবছেন না, ‘আমরা টানা দুই দিন দুই শক্তিধর প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলবো। এবার আমাদের গ্রুপে ভারতসহ তিনটি দলের শিরোপা জেতার রেকর্ড আছে। পাকিস্তান ও দক্ষিণ কোরিয়া হলো অন্যতম। এখন আমাদের সেমিতে যেতে হলে এদের যে কোনও দুটি দলকে হারাতে হবে। পথ কঠিন হলেও আমাদের কোনও বিকল্প নেই।’

অনূর্ধ্ব-২১ দল এখন মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামের হোস্টেলে থেকে অনুশীলন করছে। আগের থেকে দলের ফিটনেস ভালো পর্যায়ে বলে জানালেন মামুনুর, ‘এ কদিনে ফিটনেসের উন্নতি হয়েছে। আগামী দুই-একদিনের মধ্যে ফিটনেসের ওপর আবারও পরীক্ষা হবে। আমি চাইছি আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দল ছোট করে আনতে।’

ঢাকার প্রতিযোগিতার আগে প্রস্তুতি ম্যাচও খেলতে চাইছেন কোচ, যেন দলকে আরও শাণিত করা যায়, ‘প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারলে কার কী অবস্থান তা দেখা যাবে। এখন দেখি সামনের দিকে কী হয়।’

/টিএ/কেআর/

লাইভ

টপ