Vision  ad on bangla Tribune

যে কারণে জ্বললো না সালমানের ‘টিউবলাইট’

জনি হক০০:০৭, জুলাই ১৭, ২০১৭

সালমান খানের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারলো না ‘টিউবলাইট’। এ কারণে বাজেট অনুযায়ী আহামরি ব্যবসা করতে পারেনি ছবিটি। তাই লোকসানের মুখে পড়েন ভারতের একক সিনেমা হলগুলোর পরিবেশক ও প্রদর্শকরা। অবশ্য ব্যর্থতা নিজের কাঁধে নিয়ে তাদের ৫৫ কোটি রুপি ক্ষতিপূরণ দিচ্ছেন সল্লু।

‘টিউবলাইট’-এ সালমান খানবক্স অফিসে সালমানের ছবির এমন ধীরগতির ব্যবসা সচরাচর দেখা যায় না। এতে হতবাক হয়ে গেছেন সংশ্লিষ্টরা। ভারতীয় চলচ্চিত্র সমালোচকরা এ ছবির আলো না ছড়ানোর সাতটি কারণ বের করেছেন। চলুন দেখা যাক যেসব কারণে জ্বললো না কবির খান পরিচালিত ‘টিউবলাইট’।
১. ‘টিউবলাইট’ মিটমিট করে জ্বলার প্রথম কারণ হলো ঈদ। এমন উৎসবে সালমান খানের ভক্তসহ ভারতীয় দর্শকরা সাধারণত হাসিখুশিতে ভরপুর ছবি দেখে অভ্যস্ত। ‘টিউবলাইট’ তাদের প্রত্যাশার ধারেকাছেও যেতে পারেনি। গল্পটা মূলত ক্ষতিগ্রস্তদের নিয়ে। গল্পে সব মুখ্য চরিত্রই কিছু না কিছু কিংবা কাউকে না কাউকে হারিয়েছে।
২.‘টিউবলাইট’-এ ‘বজরঙ্গি ভাইজান’ ছবির অনুভূতি পেয়েছেন অনেকে। সেই ‘হ্যাংওভার’ নাকি কাটেনি কবির খান-সালমান খান জুটির। ‘টিউবলাইট’ ছবিতে এক চীনা বালককে শত্রুদের হাত থেকে বাঁচান সালমান। আর ‘বজরঙ্গি ভাইজান’-এ দর্শক দেখেছে পাকিস্তানি এক বালিকাকে তার দেশে ফিরিয়ে দিতে জীবনবাজি রাখেন তিনি। যদিও প্রতিবেশী পাকিস্তানের চেয়ে চীনকেই ভারতের জন্য বড় হুমকি মনে করে দেশটির জনগণ। ব্যর্থতার এটাও একটা কারণ হতে পারে।
৩. ‘টিউবলাইট’-এর পার্শ্ব চরিত্রের অভিনেতা মোহাম্মদ জিশান আইয়ুব একটি দৃশ্যে সালমানকে একাধিকবার চড়-থাপ্পড় মেরেছেন। এটা মেনে নিতে পারেনি তার অন্ধভক্তরা। তাদের অনেকে এ সময় সিনেমা হল ছেড়ে বেরিয়ে যান। ঈদ উৎসবে প্রিয় তারকার এমন অপমান সহ্য হয় কী করে! হোক তা পর্দায়।
৪. ‘বজরঙ্গি ভাইজান’ সালমানের কোনও প্রেমিকা নেই ‘টিউবলাইট’ ছবিতে। এটাও অন্যতম একটি কারণ। চীনা অভিনেত্রী চু চু’কে তার প্রেমিকা হিসেবে দেখা যাবে এমন প্রচারণা থাকলেও পর্দায় দেখা গেলো ভিন্ন চিত্র। হতবাক করার মতো ব্যাপার হলো, সোহেল খানেরও প্রেমিকা (ইশা তলোয়ার) আছে ছবিটিতে। কিন্তু ‘টিউবলাইট’-এ প্রেম ছাড়াই সল্লু, এটা মানা যায় নাকি! এ কারণে সালম্যানিয়া নিজেদের প্রতারিত ভেবেছে।

৫. কাহিনিতে সালমান খান ও তার বাস্তবের ছোট ভাই সোহেল খানকে খুব কম সময় একসঙ্গে দেখা গেছে। এমনিতেই তারা পর্দা ভাগাভাগি করলেন বহু বছর পর, তাই এমন স্বল্প উপস্থিতি দর্শকদের চোখে অমার্জনীয় লেগেছে। দু’জনে একটি গানে একসঙ্গে অংশ নিয়েছেন, এরপরই সালমানকে রেখে সোহেল চলে গেছেন রণাঙ্গনে।
৬. দুঃখজনক হলেও ‘টিউবলাইট’-এর কোনও গানই শ্রোতাদের তেমন একটা টানেনি। বেশিরভাগ গানই গল্পের সঙ্গে ঘটনাকেন্দ্রিক। তাছাড়া রেডিওর স্বর্ণযুগের ছোঁয়া দিতে পারেনি ‘সাজন রেডিও’ শিরোনামের গানও।
৭. ‘টিউবলাইট’ আলো না ছড়ানোর আরেকটি অন্যতম কারণ হলো, সালমান খানের প্রচুর কান্নার দৃশ্য। তার অভিনীত লক্ষণ সিং চরিত্রকে গোটা ছবিজুড়ে প্রায় সারাক্ষণই কাঁদতে হয়েছে।
/জেএইচ/এমএম/

লাইভ

টপ