খাশোগির মৃত্যুবার্ষিকীর আগেই সৌদি তদন্তের ‘অগ্রগতি’ চায় যুক্তরাষ্ট্র

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:২৩, জুন ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:২৮, জুন ১২, ২০১৯

অনুসন্ধানী সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকারীদের বিচারের মুখোমুখি করতে ‘বাস্তবসম্মত অগ্রগতি’ প্রদর্শনের জন্য সৌদি আরবকে চাপ দিচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্র চায় খাশোগি হত্যাকাণ্ডের এক বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই সৌদি আরব তাদের তদন্তের অগ্রগতি প্রদর্শন করুক। ট্রাম্প প্রশাসনের জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স খবরটি জানিয়েছে।

খাশোগির জন্য ন্যায়বিচারের দাবি
দ্বিতীয় বিয়ের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করতে গত ২ অক্টোবর ইস্তানবুলের সৌদি কনস্যুলেটে গিয়ে হত্যার শিকার হন ওয়াশিংটন পোস্টের কলাম লেখক খাশোগি। তিনি সৌদি সরকারের কঠোর সমালোচক ছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছায় নির্বাসিত এই সাংবাদিক সৌদি আরবে ফেরার বিষয়ে রিয়াদের চাপ অগ্রাহ্য করে আসছিলেন। প্রথমে রিয়াদের পক্ষ থেকে খাশোগিকে হত্যার কথা অস্বীকার করা হলেও তুরস্কের সংবাদমাধ্যমগুলো সৌদি আরবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রমাণ হাজির করতে থাকে। এ ঘটনায় সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগও ওঠে। একপর্যায়ে খাশোগি কনস্যুলেট ভবনে হত্যার শিকার হয়েছেন বলে স্বীকার করে সৌদি কর্তৃপক্ষ। তবে এ হত্যার সঙ্গে যুবরাজের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করা হয়। খাশোগি হত্যার ঘটনায় ১১ জন সন্দেহভাজনকে বিচারের মুখোমুখি করার কথা জানিয়ে আসছে সৌদি সরকার। তবে তাদের বিচার প্রক্রিয়া চলছে অত্যন্ত গোপনে। জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত হাতে গোনা কয়েকটি শুনানি হয়েছে।

আগামী ২ অক্টোবর খাশোগি হত্যাকাণ্ডের এক বছর পূর্ণ হবে। এর আগেই তদন্ত শেষ করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সৌদি আরবকে চাপ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মার্কিন কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেন, খাশোগির মৃত্যুবার্ষিকীর আগেই সৌদি আরবকে তদন্ত শেষ করে ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে রিয়াদ যদি তা করতে ব্যর্থ হয় তবে তাদেরকে কী পরিণতি ভোগ করতে হবে তা সুনির্দিষ্ট করে উল্লেখ করেননি ওই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘মৃত্যুবার্ষিকীকে ঘিরে সংবেদনশীলতা জোরালো হবে। সে পর্যন্ত বাস্তবসম্মত কিছু অগ্রগতি দেখতে পাওয়াটাই প্রত্যেকের আগ্রহের জায়গা হবে।’

শুরু থেকেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প খাশোগি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সৌদি যুবরাজের সংশ্লিষ্টতা থাকার কথা নাকচ করে আসছেন। সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার জেরে সৌদি আরবের কাছে মার্কিন অস্ত্র বিক্রি বন্ধের দাবি জোরালো হয়ে উঠলেও তাতে সায় দেননি তিনি। ট্রাম্প দাবি করে আসছেন,দেশটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আরও অনেক উপায় রয়েছে। অস্ত্র বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের জন্য আত্মঘাতী হবে বলেও মনে করেন তিনি। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ খাশোগির হত্যার পেছনে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সংশ্লিষ্টতার সুস্পষ্ট প্রমাণ পেয়েছে। তবে একে ‘খুবই অপরিপক্ক’ তদন্ত বলে মন্তব্য করেছেন ট্রাম্প। 

খাশোগি হত্যার ঘটনায় ট্রাম্প সৌদি কর্তৃপক্ষকে দায়মুক্তি দিচ্ছে বলে অনেকে সমালোচনা করছেন। সে অভিযোগ খারিজ করে দিয়ে ওই মার্কিন কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেন, সৌদি আরবকে এ বার্তা দেওয়া হচ্ছে যে, এটি ‘খুব উত্তপ্ত ইস্যু’ এবং ‘তাদের উচিত এটিকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা’। 

/এফইউ/

লাইভ

টপ