behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

স্বল্পমূল্যের লিডল জিন্সের নেপথ্যচিত্র

শাহেরীন আরাফাত ও আরশাদ আলী২২:১২, মার্চ ১৪, ২০১৬

বাংলাদেশের গার্মেন্ট শিল্পের বেশিরভাগ শ্রমিকের আইনত ন্যূনতম মজুরি ৫ হাজার ৩০০ টাকা (প্রায় ৪৮ পাউন্ড)। আর এ ক্ষেত্রে সপ্তাহে ছয় দিন ৮ ঘণ্টা করে হিসেব করলে তাদের মজুরি দাঁড়ায় ঘণ্টায় ২৩ পেন্সের মতো। অথচ ২০১৩ সালে এশিয়ান ফ্লোর ওয়েজ অ্যালায়েন্স-এর প্রকাশিত তথ্যমতে, বাংলাদেশের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি হওয়া উচিত ২৩০ পাউন্ড।

বাংলাদেশের একটি গার্মেন্ট কারখানায় কাজ করছেন নারী শ্রমিকরা

উৎপাদন খরচ বের করার জন্য প্রথমেই জানা দরকার, প্রতিদিন কতো জোড়া জিন্স প্যান্ট সেখানে প্রস্তুত হচ্ছে। প্রাপ্ত তথ্যমতে, ফ্যাক্টরিতে একজন শ্রমিক প্রতিদিন ২০ থেকে ৩৩ জোড়া পর্যন্ত জিন্স প্যান্ট প্রস্তুত করেন। আবার ২০১০ সালে গ্লোবাল লেবার অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস-এর দেওয়া তথ্যমতে, ২৫ জন শ্রমিকের একটি দল প্রতি ঘণ্টায় ২৫০টি জিন্স প্রস্তুত করতে পারেন। সেই হিসেবে একজন শ্রমিক প্রতি ঘণ্টায় ১০টি এবং প্রতিদিন ৮০টি জিন্স প্রস্তুত করে থাকেন। এ হিসেবে একজন শ্রমিক একটি জিন্স প্যান্ট তৈরিতে ২ থেকে ৯ পেন্স পর্যন্ত মজুরি পেয়ে থাকেন। ব্লুমবার্গের হিসেব মতে, বাংলাদেশে একটি ফ্যাক্টরিতে জিন্স তৈরি করতে খরচ পড়ে ৫৬ পেন্স। আর এ থেকে ওই ফ্যাক্টরি মুনাফা করে ১৬ পেন্স।

এই পর্যন্ত আনুষাঙ্গিক খরচসহ একটি জিন্সের পেছনে ব্যয় হয়েছে সাড়ে চার পাউন্ড। কিন্তু এখনও জিন্স প্যান্টের শিপমেন্ট বাকি আছে। এছাড়া রয়েছে ওয়্যারহাউজ চার্জ ও বন্দর ফি। তাই এখানে আরও ৩০ পেন্স যোগ হবে। তাহলে ব্যয় দাঁড়াবে ৪ পাউন্ড ৮০ পেন্স। এরপর বন্দর থেকে প্যান্টগুলোকে দোকানে নিয়ে যেতে হয়। এতে ব্যয় পড়ে আরও ৫০ পেন্স। ফলে মোট ব্যয় দাঁড়ায় ৫ পাউন্ড ৩০ পেন্স। তবে এখানে ভ্যাট অন্তর্ভুক্ত হয়নি।

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ