রান্নাঘরে বিষ রয়েছে!

Send
লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:১৭, অক্টোবর ১১, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:২১, অক্টোবর ১১, ২০১৮

আপনার, আমার রান্নাঘরে বিষ রয়েছে। অসাবধানতাবশত এসব বিষয়ের প্রকোপে মৃত্যুও ঘটতে পারে আমাদের। অথচ আমরা জানিই না কী ধরনের বিষাক্ত বস্তু হেলাফেলা করে ব্যবহার করছি আমরা। জেনে নিন কোনকোন খাদ্য দ্রব্যে বিষ রয়েছে-

আলু: আমাদের দৈনন্দিন খাবারের মধ্যে সবচেয়ে নিরাপত খাবার আলু। কিন্তু আলুর পাতা ও কাণ্ডে গ্লাইকোএ্যল্কালয়েড থাকে। বাড়িতে অনেক দিন পর্যন্ত আলু রেখে দিলে এর মধ্যে গ্যাঁজ অঙ্কুর হয়ে যায়। এই গ্যাঁজ বা অঙ্কুরে গ্লাইকোএ্যল্কালয়েড থাকে যা আলোর সংস্পর্শে বৃদ্ধি পায়। এই জন্য আলু সব সময় ঠাণ্ডা ও অন্ধকার জায়গায় রাখতে হয়। সবুজাভ ও গ্যাঁজ হওয়া আলু খেলে ডায়রিয়া, মাথাব্যাথা-সহ নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আপেল: স্বাভাবিকভাবেই ফল হিসেবে আপেল আমাদের ঘরেই থাকে। বিদেশি ফল হলেও সারা বছর পাওয়া যায় বলে সবাই আপেল পছন্দ করেন। কিন্তু আপেলের বীজে হাইড্রোজেন সায়ানাইড নামের বিষ রয়েছে। আমরা সাধারণত আপেলের বীজ খাই না। কিন্তু আপেলের বীজ যদি কোনও কারণে পেটে চলে যায় তাহলে বিপদ হতে পারে। তাই আপেলের জুস তৈরির সময় আপেলের বীজ যেন না যায়। এমনি কামড়ে খাওয়ার সময়ও বীজ এড়িয়ে খেতে হবে।

কাজুবাদাম:  আমাদের সবারই প্রিয় কাজুবাদাম। দু ধরনের কাজু বাদাম পাওয়া যায় মিষ্টি কাজুবাদাম ও তেতো কাজুবাদাম। তুলনামূলক ভাবে তেতো কাজুবাদামে প্রচুর হাইড্রোজেন সায়ানাইড থাকে। সাত থেকে দশটা তেতো কাজু বাদাম কাঁচা খেলে প্রাপ্তবয়ষ্কদেরও সমস্যা হতে পারে এবং ছোটদের ক্ষেত্রে তা প্রাণনাশক হতে পারে! বিশ্বের অনেক দেশে তেতো কাজুবাদাম বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

মধু: কাঁচা বা র মধুতে গ্রায়ানক্সিন থাকে। তাই এক টেবিল চামচ কাঁচা মধু খেলে মাথাঘোরা, দুর্বল লাগা, অত্যধিক ঘাম হওয়া, বমি বমি ভাব হওয়ার মতো নানা উপসর্গ দেখা দেয়। এতে ডায়রিয়াও হতে পারে।

কাঁচা টমেটো: আলুর মতোই টমেটোর পাতা ও কাণ্ডে গ্লাইকোএ্যল্কালয়েড থাকে যা হজমে সমস্যা সৃষ্টি করে। কাঁচা সবুজ টমেটোতেও এই একই উপাদান রয়েছে। তবে অল্প পরিমাণে খেলে কোনও সমস্যা হওয়ার ভয় নেই।

 

/এফএএন/

লাইভ

টপ