ব্যালটে যাদের নামের পাশে সিল দেওয়া ছিল

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১২:৪৭, মার্চ ১১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:০৪, মার্চ ১১, ২০১৯

সিল দেওয়া (ক্রস চিহ্ন) ব্যালট

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসু ‍নির্বাচনে বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলে ভোট শুরুর আগে ওই হলের মিলনায়তন থেকে এক বস্তা সিল মারা ব্যালট উদ্ধার করেন শিক্ষার্থীরা। ব্যালটে ছাত্রলীগ সমর্থিত প্যানেলের প্রার্থীদের নামের পাশে সিল দেওয়া ছিল বলে দাবি করেন তারা।

সোমবার (১১ মার্চ) সকালে ভোট শুরুর আগে বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলের অডিটরিয়াম থেকে উদ্ধার করা হয় সিল মারা ব্যালট। এরপর ওই হলের সাধারণ শিক্ষার্থী ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের প্রতিবাদের মুখে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। ঘটনাস্থলে আসেন প্রো-ভিসি অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ ও প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী। তারা এসে হলের প্রভোস্ট শনবম জাহানকে পদ থেকে অপসারণ করেন। ভারপ্রাপ্ত প্রভোস্ট হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় মাহবুবা নাসরিনকে। এরপর সকাল ১১টা ১০ মিনিট থেকে পুনরায় নির্বাচন শুরু হয়, চলবে বিকাল ৫টা ১০ মিনিট পর্যন্ত।

প্রসঙ্গত, ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা, সিটি ও জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থীদের নামের পাশে নির্ধারিত প্রতীকে সিল মেরে ভোট দেওয়ার নিয়ম। তবে ডাকসু নির্বাচনে প্রার্থীদের নামের পাশে ক্রস চিহ্ন (x) দিয়ে ভোট দেওয়া হচ্ছে।

ব্যালটে যাদের নামে সিল দেওয়া ছিল

বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হল থেকে উদ্ধার হওয়া ব্যালটে দেখা গেছে, ছাত্রলীগ সমর্থিত প্যানেলের প্রার্থীদের নামের পাশে ‘ক্রস’ দেওয়া ছিল। এই প্রার্থীরা হলেন—হল সংসদের সহ-সভাপতি পদের প্রার্থী রাজিয়া সুলতানা কথা, সাধারণ সম্পাদক শাওলিন জাহান সেঁজুতি, সহ-সাধারণ সম্পাদক জান্নাতুল হাওয়া আঁখি, সাহিত্য সম্পাদক সাবিকুন্নাহার মুন, সংস্কৃতি সম্পাদক কবিতা রায়, পাঠকক্ষ সম্পাদক তামান্না তাসনিন তমা, অভ্যন্তরীণ ক্রীড়া সম্পাদক মেহের আফরোজ সুরভী, বহিরাঙ্গন ক্রীড়া সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস, সমাজসেবা সম্পাদক কোহিনুর খাতুন। এছাড়া, ব্যালট পেপারে হল সংসদের চারটি সদস্য পদের প্রার্থীদের নামের পাশেও ‘সিল বা ক্রস চিহ্ন’ দেওয়া রয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ঢাবির উন্নয়ন ও অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষার্থী মালিহা নওশিন খান বলেন, ‘ছাত্রলীগ সমর্থিত প্যানেলের প্রার্থীদের নামের পাশেই ভোট দেওয়া রয়েছে। এরা সবাই ছাত্রলীগ সমর্থিত প্রার্থী।’

ছাত্রদল সমর্থিত প্যানেলের ভিপি প্রার্থী মেস্তাফিজুর রহমান অভিযোগ করেন, ‘উদ্ধার হওয়া ভোট দেওয়া সব ব্যালটে ছাত্রলীগ সমর্থিত প্রার্থীদের নামের পাশে সিল দেওয়া আছে। আমরা বিষয়টি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। আমরা সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কিত। একটি সিল দেওয়া ব্যালটের নমুনা আমি নিয়ে এসেছি।’
তবে ছাত্রলীগ এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। ছাত্রলীগ সমর্থিত সম্মিলিত শিক্ষার্থী সংসদের ডাকসু নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস বলেন, ‘এটা অত্যন্ত দুঃখজনক ও নিন্দনীয় ঘটনা। আমরা প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাই, যে বা যারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে যেন আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হয়। ছাত্রলীগ কখনও এমন কাজ সমর্থন করে না।’

 

আরও পড়ুন:

‘নীল নকশার নির্বাচন করছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন’ (ভিডিও)

প্রবেশ গেটের নিয়ন্ত্রণ ছাত্রলীগের হাতে: ভিপি প্রার্থী মোস্তাফিজ

ডাকসু নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে ছাত্রলীগ ছাড়া শঙ্কিত সবাই

সিল মারা ব্যালট উদ্ধার, কুয়েত মৈত্রী হলে ভোট স্থগিত

এক ঘণ্টা দেরিতে রোকেয়া হলের ভোটগ্রহণ শুরু
প্রথম ভোট দিতে সময় লেগেছে ৪ মিনিট
ডাকসু নির্বাচনে ভোট শুরুর আগেই লাইন

ডাকসুর ভোটগ্রহণ শুরু

 

/এআরআর/এপিএইচ/এমওএফ/

লাইভ

টপ