প্রাথমিক বিদ্যালয় হবে বিনোদনকেন্দ্র: প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:০৬, জুন ২৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:১৮, জুন ২৫, ২০১৯

জাতীয় সংসদ (ছবি: সাজ্জাদ হোসেন)

শিশুদের জন্য দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোকে বিনোদনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন। মঙ্গলবার (২৫ জুন) জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তরে সংরক্ষিত আসনের খোজেদা নাসরিন আক্তার হোসেনের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ঝড়ে পড়া শিশুদের বিদ্যালয়মুখী করার লক্ষ্যে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো দৃষ্টিনন্দন ও আকর্ষণীয় করে শিশুদের বিনোদনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।’

নিজাম উদ্দিন জলিলের (জন) প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি বলেন, ‘বর্তমান সরকারের উদ্যোগের অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে দেশের বেশিরভাগ জেলা শহরে পাবলিক বা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে।’

সরকারি দলের সংসদ সদস্য (এমপি) মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা টাস্টের আওতায় ২০১৩ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত স্নাতক ও সমপর্যায়ের ১০ লাখ ২৮ হাজার ৮৮০ জন শিক্ষার্থীকে ৬৫৩ কোটি ৭০ লাখ ২১ হাজার ১২০ টাকা উপবৃত্তি দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীর মধ্যে ৮ লাখ ৪০ হাজার ৬২ জন নারী।

ঢাকা–১১ আসনের এমপি এ কেএম রহমতুল্লাহর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরও জানান, সরকারি সুবিধাভোগী কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি বাবদ ৩০০০ টাকার বেশি আদায় করতে পারবে না। সরকার নির্ধারিত চার্জের বাইরে কোনও অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধ করতে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম–১১ আসনের এমপি এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে দীপু মনি বলেন, ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো স্থায়ী ক্যাম্পাসে গেলে তাদের পরিচালন ব্যয় কমে যাবে। এতে ছাত্রছাত্রীদের বেতন কমানো সহজ হবে এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউশন ফি নির্ধারণের ক্ষেত্রে বৈষম্য অনেকাংশে দূর হবে।’

এম আবদুল লতিফের অন্য এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী জানান, গত ১০ বছরে (২০১০-২০১৯) ২৯৬ কোটি ৭ লাখ ৮৯ হাজার ১৭২টি বিনামূল্যের বই বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন স্তরের শিক্ষার্থীদের মাঝে ২৯৫ কোটি ১ লাখ ২০ হাজার ৭৮৪ কপি পাঠ্যবই ও শিক্ষকদের মাঝে এক কোটি ৬ লাখ ৬৮ হাজার ৩৮৮টি শিক্ষক নির্দেশিকা বিতরণ করা হয়েছে।

সংরক্ষিত আসনের বেগম হাবিবা রহমান খানের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী জানান, কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার ১ শতাংশ থেকে বর্তমানে ১৫ দশমিক ৯ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। ২০২০ সালে ভর্তির লক্ষ্যমাত্রা ২০ শতাংশে উন্নীত করতে কারিগরি শিক্ষায় আসন ২৫ হাজার থেকে ৫৭ হাজার ৭৮০টিতে উন্নীত করা হয়েছে।

মন্ত্রী জানান, সরকারি ও বেসরকারি কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২০১৮ সালে ৭ লাখ ১২ হাজার ২০৮ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়েছে। এ ছাড়া, ২০১৯ সালে ১৭ লাখ ৫৪ হাজার ৫২৬ জন ও ২০২০ সালে ২০ লাখ ১৫৯ জন ভর্তির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এমপিরা আবেদন করলেই উত্তরা রাজউক প্রকল্পে ফ্ল্যাট পাবেন

হাবিবা রহমান খানের অন্য এক প্রশ্নের জবাবে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম জানান, রাজউকের আওতায়ধীন উত্তরা ১৮ নম্বর সেক্টরের ফ্ল্যাট প্রকল্পে ‘এ’ ব্লকে ১৬৫৪ বর্গফুট আয়তনের কিছু ফ্ল্যাট অবরাদ্দ আছে। সংসদ সদস্যরা ফ্ল্যাটের জন্য আবেদন করলে তাদের সবাইকে ওই প্রকল্পের ফ্ল্যাট বরাদ্দ দেওয়া হবে।

সরকারি দলের ইসরাফিল আলমের প্রশ্নের জবাবে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, বনানীর এফ আর টাওয়ার অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী নির্মাণ হয়নি। ওই ভবনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে সুপারিশ প্রণয়নের জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

/ইএইচএস/এমএ/

লাইভ

টপ