X
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

পাচক থেকে শীর্ষ জঙ্গি নেতা

আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০১৭, ১৪:৫২

জঙ্গি নেতা জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী সিটিটিসির হাতে গ্রেফতার

জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)-র শীর্ষ নেতা শায়খ আবদুর রহমানের জামাতা আবদুল আওয়ালের পাচক ছিল জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী। সেখান থেকে ধীরে ধীরে শীর্ষ জঙ্গি নেতায় পরিণত হয় সে। তাকে গ্রেফতারের পরে এ তথ্য জানিয়েছেন কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

শনিবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

তিনি জানান, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারাদেশে চালানো জেএমবির বোমা হামলার অন্যতম সমন্বয়ক আবদুল আওয়ালের বগুড়ার আস্তানায় রান্না-বান্নার কাজ করতো রাজীব। সেখান থেকেই বড় নেতাদের ইশারায় সেও ধীরে ধীরে জঙ্গি কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়ে। ধারাবাহিক ভাবে বিভিন্ন তৎপরতা চালিয়ে ও অভিযানে অংশ নিয়ে এই রাজীবও এক সময়ে শীর্ষ জঙ্গি নেতাতে পরিণত হয়। গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার পরিকল্পনাতেও সরাসরি অংশ নিয়েছিল জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী।

জঙ্গি জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী

মনিরুল জানান, শুক্রবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা থেকে রাজীব গান্ধীকে গ্রেফতার করে ঢাকায় নিয়ে আসে সিটিটিসি টিম। সে বিভিন্ন সময়ে জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধীর পাশাপাশি সুভাষ, শান্ত, টাইগার, আদিল, জাহিদ নামেও জঙ্গি কর্মকাণ্ডে অংশ নেয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সারাদেশে জেএমবির হামলা মামলাসহ নানা মামলায় ২০০৭ সালের ২৯ মার্চ জেএমবির শীর্ষ ছয় জঙ্গি শায়খ আবদুর রহমান, সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলাভাই, আব্দুর রহমানের ভাই আতাউর রহমান সানি, জামাতা আবদুল আউয়াল, ইফতেখার হোসেন মামুন ও খালেদ সাইফুল্লাহ ওরফে ফারুকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

সিটিটিসির কর্মকর্তারা জানান, আবদুল আওয়ালের বার্তাবাহক হিসেবেও কাজ করতো রাজীব। সারাদেশে জেএমবির হামলা মামলায় আবদুল আওয়াল গ্রেফতারের পর পাচক হওয়ার কারণে তখন রাজীবের নাম আসেনি। ওই সময় সে গোপনে দলের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিল। দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গিদের সঙ্গে কাজ করায় রাজীবের সাংগঠিক শক্তি বৃদ্ধি পায়। জেএমবি নেতা আবদুর রহমান, মানিক (ভারতে অবস্থানরত), মামুনুর রশিদ রিপনের সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল।

২০১১ সালে জেএমবি দুই ভাগে বিভক্ত হয়। ওই সময় রিপন-মানিকের সঙ্গে রাজীব কাজ করতো। ২০১৪ সালের পর নব্য জেএমবির গঠন হলে রাজীবের যোগাযোগ হয় তামিম চৌধুরীর সঙ্গে। নব্য জেএমবিতে তার অবস্থান ছিল তামিমের পরের সারিতে। এছাড়া সে ছিল উত্তরবঙ্গের নব্য জেএমবির সামরিক কমান্ডার এবং উত্তরবঙ্গে জেএমবি যেসব হামলা চালাতো তা তার পরিকল্পনাতেই হতো। হিন্দু পুরোহিত, খ্রিস্টান যাজক, বিদেশি হত্যা ও শিয়া মসজিদে হামলাসহ ২২ মামলার আসামি এই রাজীব।

কর্মকর্তারা আরও জানান, গুলশানের হলি আর্টিজান হামলায় জড়িত শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল ওরফে বিকাশ ও খায়রুল ইসলাম পায়েল ওরফে বাধনকে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে রাজীবই সম্পৃক্ত করে এবং তাদের প্রশিক্ষণ দেয়। এই দুজনই পুলিশি অভিযান নিহত হয়। এছাড়া শোলাকিয়ার হামলায় গ্রেফতার হওয়া শফিউলকেও জঙ্গি কর্মকাণ্ডে সে সম্পৃক্ত করে। পরে বন্দুকযুদ্ধে শফিউলও নিহত হয়।

তারা আরও জানান, গুলশান হামলার পুরো পরিকল্পনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত ছিল জাহাঙ্গীর ওরফে রাজীব। গুলশানে হামলা চালানোর আগে জঙ্গিরা বসুন্ধরার একটি বাসায় বসে হামলার পরিকল্পনার সময় সেখানে স্ত্রী-সন্তানসহ উপস্থিত ছিল রাজীব। গত বছর আজিমপুর থেকে গ্রেফতারকৃত তানভীর কাদেরির ছেলে তাহরিম কাদেরি তার জবানবন্দিতে রাজীবের নাম উল্লেখ করেছিল।

এ প্রসঙ্গে মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘গুলশান হামলার ঘটনায় তারা এই প্রথম এমন একজনকে আটক করলো যার কাছে এ হামলা সম্পর্কে অনেক তথ্য রয়েছে। যে সরাসরি হামলার পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত ছিল। তার গ্রেফতার হামলার ঘটনা তদন্তে এবং এ হামলার পরিপূর্ণ রহস্য উদঘাটনে তাদের সাহায্য করবে।’ এর আগে গুলশান হামলার ঘটনায় কল্যাণপুর থেকে রাকিবুল হাসান রিগ্যান ও হাসনাত করিমকে আটক করা হয়। রিগ্যান ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, রাজীবের বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের পশ্চিমরাঘরপুর এলাকার ভূতমারী ঘাট এলাকায়। তার বাবার নাম মাওলানা ওসমান গণি মণ্ডল এবং মা রাহেলা বেগম। শুভ নামে তার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। ২০১৫ সালে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ‘হিজরত’ করে রাজীব। স্থানীয় একটি কলেজ থেকে সে এসএসসি পাস করেছে।

/এসটি/টিএন/

 আরও পড়ুন: গুলশান হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী রাজীব গ্রেফতার

 

সম্পর্কিত

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৯

জমি সংক্রান্ত মামলার রায়, ডিক্রি ও আদেশের নিষ্পত্তির জন্য ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। 

জমির মালিকানায় বিরোধ নিয়ে দায়ের করা এক রিটের শুনানিকালে রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ অসন্তোষ প্রকাশ করেন। 

পরে আদালতে রিট আবেদনকারীর পক্ষে রুল জারি করেন এবং স্থিতাবস্থা জারি করেন।

আদালতে আবেদনকারী পক্ষে ছিলেন আইনজীবী নসীব কায়সার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

শুনানিকালে আদালত বলেছেন, ‘২০০৪ সালে আইন হয়েছে। আছে আদালতের রায় ও নির্দেশ। তা সত্ত্বেও ১৭ বছরেও আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন হলো না, যা আদালতের জন্য বিরক্তিকর!

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে উদ্দেশ্যে করে আদালত বলেন, ১৭ বছরেও আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন করতে পারেননি। ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিবের সঙ্গে কথা বলুন। কী পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার, জানান হাইকোর্টকে। ব্যবস্থা না নেওয়া হয়ে থাকলে প্রয়োজনে সচিবকে ডেকে আনা হবে।

পরে আদালত ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে এ বিষয়ে ভূমি সচিবের সঙ্গে যোগাযোগ করতে নির্দেশ দেন।  

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ২৫ জুলাই হাইকোর্ট এক রায়ে ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন করতে ভূমি মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে আদেশ বাস্তবায়ন করে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিবকে হলফনামা দাখিল করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু এখনও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। 

/বিআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

মুনিয়া হত্যা: হাইকোর্টে এক আসামির আগাম জামিন

মুনিয়া হত্যা: হাইকোর্টে এক আসামির আগাম জামিন

টানা চতুর্থ দিনের মতো বরিশালে করোনায় মৃত্যু নেই

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৫

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় (রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন ২১ জন। অঞ্চলভিত্তিক তথ্যে দেখা গেছে, দেশের দুটি বিভাগে এই সময়ে কেউ মারা যাননি। দুই বিভাগের মধ্যে রয়েছে বরিশাল ও রংপুর। আজ নিয়ে টানা চতুর্থ দিনের মতো বরিশাল বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

আজ রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, মারা যাওয়া ২১ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের চার জন, রাজশাহী বিভাগের দু’জন, সিলেট বিভাগের আছেন তিন জন এবং খুলনা ও ময়মনসিংহ বিভাগের একজন করে মারা গেছেন।

এর আগে গতকাল করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মারা যান ২৫ জন। তাদের মধ্যে বরিশাল, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগে কোনও করোনা রোগী মারা যাননি। তার আগের দিন ২৪ সেপ্টেম্বর ও ২৫ সেপ্টেম্বরেও বরিশাল বিভাগে করোনাতে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত ২৩ সেপ্টেম্বরও দেশে করোনায় সংক্রমিত হয়ে দেশের তিনটি বিভাগে কেউ মারা যাননি বলে জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। অতি সংক্রমণশীল ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের তান্ডবের পর দেশে দৈনিক নতুন শনাক্ত রোগী আর মৃত্যুর সংখ্যা কমে আসে গত মধ্য আগস্ট মাস থেকে। আর সেদিনই (২৩ সেপ্টেম্বর) প্রথম এই তাণ্ডবের যেখানে তিন বিভাগে করোনায় সংক্রমিত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। যদিও দেশে মহামারিকালের ১৮ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখেছে বাংলাদেশ আগস্ট মাসেই। গত পাঁচ এবং ১০ আগস্ট একদিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

তবে তারপর থেকে ডেল্টার তান্ডব কমে আসে, কমে আসতে থাকে শনাক্ত এবং মৃত্যু। চলতি মাসে সেটা আরও কমে যায়। আর গত ছয়দিন ধরে দৈনিক শনাক্তের হার রয়েছে পাঁচ শতাংশের নিচে।

/জেএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

করোনায় মৃত ২৪ জনের ১৪ জন নারী

করোনায় মৃত ২৪ জনের ১৪ জন নারী

দ্বিতীয় দিনের মতো শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে

করোনায় মৃত্যু ২৭ হাজার ছাড়ালো

করোনায় মৃত্যু ২৭ হাজার ছাড়ালো

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে, বেড়েছে শনাক্ত

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে, বেড়েছে শনাক্ত

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪৬

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান খান ও তার স্ত্রী হাসিনা সুলতানার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। এরই মধ্যে দিয়ে মামলাটির আনুষ্ঠানিকভাবে বিচারকাজ শুরু হলো।

সংশ্লিষ্ট আদালতের সূত্র থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকার বিশেষ জজ-৩ আদালতের বিচারক আলী হোসেন আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। একই সঙ্গে আদালত মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ১৮ অক্টোবর দিন ধার্য করেন। এ দিন অভিযোগ গঠনের সময় আদালতে আসামিরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করেন।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২১ আগস্ট আব্দুল মান্নান খানের বিরুদ্ধে ৭৫ লাখ ৪ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। এছাড়া তার স্ত্রী হাসিনা সুলতানার বিরুদ্ধে ১ কোটি ৮৬ লাখ ৫৩ হাজার টাকা সম্পদের তথ্য গোপন ও ৩ কোটি ৪৫ লাখ ৫৩ হাজার টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে একই বছরের ২১ অক্টোবর মামলা করে সংস্থাটি। তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১১ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক।

/এমএইচজে/ইউএস/

সম্পর্কিত

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

মুনিয়া হত্যা: হাইকোর্টে এক আসামির আগাম জামিন

মুনিয়া হত্যা: হাইকোর্টে এক আসামির আগাম জামিন

সাংবাদিকদের স্বাধীনতা রক্ষায় ঐক্য দরকার: সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৩৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, আমরা জানি সাংবাদিকরা এখন কী বিপদের মধ্যে রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে যখন সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ করেছে; মালিক হরণ করছে, আবার অন্যদিকে রাষ্ট্রও হরণ করছে। তখন সাংবাদিকদের স্বাধীনতা রক্ষায় ঐক্য দরকার। আমরা দেখছি শীর্ষ সাংবাদিক সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে অপমানজনক তৎপরতা চলছে। তার বিরুদ্ধে আপনারা যে রকম ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন, আমরা মনে করি আপনাদের এই ঐক্য স্থায়ী হওয়া দরকার।

রবিবার (২৬ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে ‘আতাউস সামাদ স্মৃতি পরিষদ’ আয়োজিত বরেণ্য সাংবাদিক, শিক্ষাগুরু আতাউস সামাদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণসভায় এসব কথা বলেন তিনি। স্মরণসভায় প্রথমবারের মতো চালু করা ‘আতাউস সামাদ স্মৃতি পুরস্কার-২০২১’ পান বার্তা সংস্থা রয়টার্সের ফটোসাংবাদিক এবিএম রফিকুর রহমান।

বরেণ্য সাংবাদিক আতাউস সামাদের স্মৃতিচারণ করে অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আমাদের সম্পর্কটা বন্ধুত্বপূর্ণ ছিল। আমি তার বিবর্তনটা দেখেছি। তার সাংগঠনিক ক্ষমতার বিবর্তনটা দেখেছি। আমাদের সবার স্মরণ আছে, তিনি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার সময় পাকিস্তান অবজারভারের সংবাদদাতা ছিলেন। কিন্তু তিনি আরেকটা বড় কাজ করেছিলেন; সেটা হচ্ছে শেখ মুজিবুর রহমানের চিঠি মওলানা ভাসানীর কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। ‌এটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটা কাজ ছিল। এই যে কাজ, এটা তো অন্য কোনও সাংবাদিক করতে পারলেন না। দুজনের আস্থাভাজন ছিলেন এই তরুণ; এটা অসাধারণ ঘটনা। এরকম ঘটনা একজন সাংবাদিকের জীবনে সবসময় আসে না। আমরা তাকে দেখেছি ঊনসত্তরের অভ্যুত্থানের সময়, একাত্তরের যুদ্ধের সময় এবং এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময়। এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময় তিনি কারাভোগ করেছেন, এটিও একটি ঐতিহাসিক ঘটনা।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সাংবাদিকদের কেবল ঘটনার পিছুপিছু ঘুরবেন না। ঘটনার গভীরে যাবেন। কী ঘটতে যাচ্ছে সেটার আভাস দেবেন। 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণকে ‘পুঁজিবাদী সংক্রমণ’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, আজকে আফগানিস্তানের নেতৃত্বে আসছে তালেবান। তালেবানকে তো আমরা প্রতিষ্ঠান বলতে পারি না, এটা একটা রোগ এবং সেই রোগটা হচ্ছে ফ্যাসিবাদ। আজকের সারা পৃথিবীতে চরম আকারে ফ্যাসিবাদ বিরাজ করছে; এটা সবচাইতে মর্মান্তিক। 

সাংবাদিক আতাউস সামাদের কথা স্মরণ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষক বলেন, আতাউস সামাদের মতো সাংবাদিকরা আমাদের দৃষ্টান্ত। আতাউস সামাদ যেভাবে ভেতরের খবর তুলে আনতেন, সেভাবে খবর তুলে আনা দরকার। তার প্রতি আমি গভীর শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। আমি অত্যন্ত গর্বিত যে আতাউস সামাদের সঙ্গে আমার বন্ধুত্ব ছিল।

স্মরণসভায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আতাউস সামাদ যখন একটি রিপোর্ট কনসেপ্ট করতেন, সেটি ডেলিভারি হওয়া পর্যন্ত তিনি শান্তি পেতেন না, কিছুতেই শান্ত হতেন না। মাঝেমধ্যে ফোন করলে তিনি এক ঘণ্টার মতো কথা বলতেন, তার কারণ হচ্ছে তিনি সেখানে খবরটা বের করতে চান এবং বের করতেনও। 

অনুষ্ঠানে আজকের পত্রিকার সম্পাদক অধ্যাপক ড. গোলাম রহমান বলেন, আতাউস সামাদ সত্যের উপর ভিত্তি করে সাংবাদিকতা করেছেন। তিনি সব দিক থেকে তথ্যকেই মর্যাদা দিয়েছেন। তিনি যে সত্যান্বেষী; এটা তার সবচেয়ে বড় চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য। তিনি যেকোনও সংবাদ কয়েকবার না পড়ে ছাড়তেন না। বিবিসি বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যতটুকু ভূমিকা পালন করেছে, সেখানে আতাউস সামাদ একজন অন্যতম ব্যক্তি হিসেবে সংবাদ পরিবেশন করেছেন।

স্মরণ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন কবি হেলাল হাফিজ, দি ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের যুগ্ম সম্পাদক শামসুল হক জাহিদ, সাংবাদিক নাঈমুল ইসলাম খান, মুন্নী সাহা প্রমুখ।

/জেডএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

নভেম্বরে ‘বিশেষ পরীক্ষা’ নেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

নভেম্বরে ‘বিশেষ পরীক্ষা’ নেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

চার লাখ শিক্ষার্থীকে ওরিয়েন্টেশন দেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

চার লাখ শিক্ষার্থীকে ওরিয়েন্টেশন দেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

আরব আমিরাতের ফ্লাইট: অপেক্ষা আরও ৪৮ ঘণ্টা

আরব আমিরাতের ফ্লাইট: অপেক্ষা আরও ৪৮ ঘণ্টা

নভেম্বরে ‘বিশেষ পরীক্ষা’ নেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:২২

২০১৯ সালের অনার্স ৪র্থ বর্ষ পরীক্ষায় যেসব শিক্ষার্থীরা অকৃতকার্য হয়েছে কোভিড-১৯ বিবেচনায় আগামী নভেম্বর মাসে তাদের ‘বিশেষ পরীক্ষা’ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের ৯৩তম সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান।

সভায় বিভিন্ন পরীক্ষার প্রকাশিত ফলাফলের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অনার্স ১ম বর্ষে দেশব্যাপী ভর্তি হওয়া ৪ লাখ নবীন শিক্ষার্থীকে ওরিয়েন্টেশন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে অনার্স ১ম বর্ষে সদ্য ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের অ্যাকাডেমিক ক্যালেন্ডার দেওয়া, কোভিডকালীন স্বাস্থ্যঝুঁকি সম্পর্কে ধারণা দেওয়া এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনাসহ বিভিন্ন বিষয় দিকনির্দেশনা দেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয় নির্ধারিত সময় স্ব স্ব কলেজে এই ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হবে।

অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্তসহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের দ্রুত টিকার আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ ছাড়া কোভিডের কারণে যেসব শিক্ষার্থীর মনোবল ভেঙে পড়েছে, তাদের মনোবল ধরে রেখে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি কাটিয়ে উঠার জন্য নিয়মিত কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থার পাশাপাশি সহশিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ৩ জনকে এমফিল এবং ২ জনকে পিএইচডি ডিগ্রি দিয়েছে। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউটের অ্যাকাডেমিক কমিটিতে ২ জন অধ্যাপককে সদস্য হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয়।  

/এসএমএ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

চার লাখ শিক্ষার্থীকে ওরিয়েন্টেশন দেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

চার লাখ শিক্ষার্থীকে ওরিয়েন্টেশন দেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

প্রাথমিকে শিক্ষক বদলির পাইলটিং শুরু আগামী মাসে

প্রাথমিকে শিক্ষক বদলির পাইলটিং শুরু আগামী মাসে

বিডিএসে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কোটায় ‘অ-আদিবাসী’ শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের দাবি

বিডিএসে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কোটায় ‘অ-আদিবাসী’ শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের দাবি

ক্লাস আপাতত বাড়ছে না: মাউশি মহাপরিচালক

ক্লাস আপাতত বাড়ছে না: মাউশি মহাপরিচালক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

ডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

সাংবাদিক নির্যাতনডিসি সুলতানাসহ ৪ জনের পোস্টিংয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের রুল

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

মেইল ট্রেনের নিরাপত্তায় পুলিশই থাকে না

মেইল ট্রেনের নিরাপত্তায় পুলিশই থাকে না

ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জীবন

ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জীবন

রাখাইনে রেডক্রসকে আরও বেশি কাজ করার পরামর্শ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

রাখাইনে রেডক্রসকে আরও বেশি কাজ করার পরামর্শ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

মুনিয়া হত্যা: হাইকোর্টে এক আসামির আগাম জামিন

মুনিয়া হত্যা: হাইকোর্টে এক আসামির আগাম জামিন

ফিরোজ রশীদের দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত

ফিরোজ রশীদের দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত

ঢাকার তিন নদীতে প্রাণ ফেরানো সম্ভব

ঢাকার তিন নদীতে প্রাণ ফেরানো সম্ভব

সর্বশেষ

আইসোলেশন কাটিয়ে শিকারে পুতিন

আইসোলেশন কাটিয়ে শিকারে পুতিন

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

ল্যান্ড সার্ভে আপিল ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় হাইকোর্টের অসন্তোষ

টানা চতুর্থ দিনের মতো বরিশালে করোনায় মৃত্যু নেই

টানা চতুর্থ দিনের মতো বরিশালে করোনায় মৃত্যু নেই

বৃষ্টির বাধায় ব্যাটিং করা হলো না তামিমের

বৃষ্টির বাধায় ব্যাটিং করা হলো না তামিমের

মানসম্মত গুঁড়া দুধ আমদানির সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

মানসম্মত গুঁড়া দুধ আমদানির সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

© 2021 Bangla Tribune