X
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বাংলাদেশের চিকিৎসাসেবায় উদাহরণ যারা

আপডেট : ১৬ আগস্ট ২০১৭, ১২:০৭

 

মুক্তামনির অপারেশন হয় এই চিকিৎসকদের হাতেই বিরল রোগে আক্রান্ত মুক্তামনির চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিট থেকে যোগাযোগ করা হয়েছিল সিঙ্গাপুরের জেনারেল হাসপাতালে। মুক্তামনিকে সঙ্গে নিয়ে চিকিৎসকরা ওই হাসপাতালের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন, পাঠানো হয় সমস্ত পরীক্ষার কাগজপত্র। কিন্তু সেখান থেকে জবাব আসে, ‘দিস কেস ইজ নট অপারেবল অ্যান্ড কিউরেবল’। সিঙ্গাপুরের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সে ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। বাংলাদেশের চিকিৎসকরাই মুক্তামনির ডান হাত অক্ষত রেখে সফল অপারেশন করেছেন, অপসারণ করেছেন তিন কেজি ওজনের অতিরিক্ত মাংসপিণ্ড।

কেবল বিরল রোগে আক্রান্ত মুক্তামনিই নয়, বৃক্ষমানব হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি পাওয়া আবুল বাজানদার, মায়ের পেটে গুলিবিদ্ধ শিশু সুরাইয়া, ডাস্টবিনে কুড়িয়ে পাওয়া শিশু, জোড়া শিশু তোফা ও তহুরার সফল অস্ত্রোপচারের সাফল্য দেশ ছাড়িয়ে স্থান পেয়েছে বিদেশি গণমাধ্যমেও।

অধ্যাপক আব্দুল হানিফ টাবলু, অধ্যাপক আবিদ হোসেন মোল্লা, অধ্যাপক আশরাফুল হক কাজল সরকারি হাসপাতালগুলোতে বেডের চেয়ে রোগী বেশি, রোগী ভাগিয়ে বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া, যন্ত্রপাতির স্বল্পতা ও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ সত্ত্বেও বাংলাদেশের চিকিৎসায় রয়েছে বেশ কিছু সাফল্য, বিশ্বে বাংলাদেশের চিকিৎসকরা সৃষ্টি করেছেন উদাহরণ। কেবল তা-ই নয়, বাংলাদেশের একজন চিকিৎসকের উদ্ভাবনী পদ্ধতি ব্যবহৃত হচ্ছে অনেক দেশে মাতৃ মৃত্যুরোধে,একজন চিকিৎসকের ছয়টি বই ৪০টি দেশেরও বেশি দেশে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের পড়ানো হচ্ছে। বাংলাদেশি দুই চিকিৎসকের আবিষ্কার করা হেপাটাইটিস-বি এর ওষুধ ব্যবহার হচ্ছে বিভিন্ন দেশে। এসবই বাংলাদেশের চিকিৎসকদের সফলতার একেকটি পালক। যা নিয়ে গর্ব করতে পারে বাংলাদেশ।

মুক্তামনির অপারেশনে চিকিৎসকরা চিকিৎসকরা বারবারই বলেছিলেন, জীবন বাঁচাতে বাধ্য হলে মুক্তামনির আক্রান্ত ডান হাতটি কেটে ফেলতে হতে পারে। তবে গত ১২ আগস্ট হাতটি অক্ষত রেখেই তিন কেজি ওজনের অতিরিক্ত মাংসপিণ্ড কেটে ফেলতে সক্ষম হন বাংলাদেশের চিকিৎসকরা। যদিও তারা বলছেন, এখনও ঝুঁকিমুক্ত নয় মুক্তামনি, তার আরও অন্তত পাঁচ থেকে ছয়টি অপারেশন দরকার হবে।

হাত না কেটে অস্ত্রোপচার করাকে চিকিৎসকরা দেখছেন সফলতা হিসেবেই। অস্ত্রোপচার শেষে বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘অপারেশন সফল, মুক্তামনি ভালো আছে। প্রাথমিক সাফল্য বললেও এটা এখানেই শেষ নয়, তবে আমরা সফল হবো।’

অন্তত ত্রিশজন চিকিৎসকের সমন্বয়ে গঠিত একটি দল এই অস্ত্রোপচারে অংশ নেন। অস্ত্রোপচারে নেতৃত্ব দেন ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের পরিচালক ও বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম। তার সঙ্গে ছিলেন একই ইউনিটের সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন, অধ্যাপক সাজ্জাদ খোন্দকার, অধ্যাপক রায়হানা আউয়াল, সহযোগী অধ্যাপক ডা. লুৎফর কাদের লেনিন, সহযোগী অধ্যাপক ডা. সালমা আনাম, সহকারী অধ্যাপক ডা. তাহমিনা সাত্তার,সহকারী অধ্যাপক রবিউল করিম খান, সহকারী অধ্যাপক ডা. শরীফ আশফিয়া রহমান, সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, সহকারী অধ্যাপক ডা. তানভীর আহমেদ, সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হেদায়েত আলী খান, সহকারী অধ্যাপক প্রদীপ চন্দ্র দাস, সহকারী অধ্যাপক ডা. সালেক বিন ইসলাম, বার্ন ইউনিটের আবাসিক সার্জন হোসাইন ইমাম, জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আবু ফয়সাল মো. আরিফুল ইসলাম নবীন ও ডা. শারমিন আক্তার সুমি, সহকারী রেজিস্ট্রার ডা.মাহবুব হাসান ও ডা. নুরুন নাহার লতা।

মুক্তামনির অপারেশনে চিকিৎসকরা

ছিলেন বার্ন ইউনিটের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. জাহাঙ্গীর কবীর, সহকারী অধ্যাপক ডা. মলয় কুমার দাস, জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মৌমিতা তালুকদার, ডা. রেবেকা সুলতানা ও ডা. মো. আনিসুর রহমান। ঢামেক হাসপাতালের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মোজাফফর হোসেনসহ সহযোগী অধ্যাপক ডা. রাবেয়া বেগম, সহকারী অধ্যাপক ডা. সুব্রত কুমার মণ্ডল ও ডা. তানভীর আলম এবং সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. শফিকুল আলমও  ছিলেন।

এছাড়াও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের ভাসকুলার সার্জারি বিভাগের অ্যানেসথেসিয়া অধ্যাপক ডা. নরেশ চন্দ্র মণ্ডল ও সহযোগী অধ্যাপক ডা. মকবুল হোসেনও উপস্থিত ছিলেন।

আবুল বাজানদার ২০১৬ সালের ৩০ জানুয়ারি খুলনা থেকে এসে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হন আবুল বাজানদার। বিরল রোগ ইপিডার্মোডিসপ্লাসিয়া ভ্যারুসিফরমিসে আক্রান্ত আবুল বাজানদার বাংলাদেশে প্রথম আর বিশ্বে তৃতীয়। গত ১২ জুলাই তার শেষ অপারেশন করা হয়েছে। তিনি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।

মায়ের পেটে গুলিবিদ্ধ শিশু সুরাইয়া চিকিৎসকের কোলে সাফল্য রয়েছে ঢামেক হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগেরও। মায়ের পেটে গুলিবিদ্ধ শিশু সুরাইয়া, বড় জিহ্বার আট বছরের জাহিদ, ডাস্টবিনে পাওয়া পলিথিনে মোড়ানো শিশু আয়ান, জোড়া শিশু তোফা ও তহুরার সফল চিকিৎসা হয়েছে এই বিভাগে। প্রতিটি চিকিৎসায় সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছেন এই বিভাগের চিকিৎসকরা।

২০১৫ সালের ২৩ জুলাই মাগুরায় যুবলীগের সংঘর্ষে মায়ের পেটে থাকা অবস্থায় গুলিবিদ্ধ হয় সুরাইয়া। ওইদিন রাতেই মাগুরা সদর হাসপাতালে অপারেশন হয় সুরাইয়ার মা নাজমা বেগমের। সন্তান প্রসবের পর দেখা যায় পেটে থাকা শিশুটিও গুলিবিদ্ধ। দু’দিন পর মা ও নবজাতককে ভর্তি করা হয় ঢামেক হাসপাতালে। গঠিত হয় ১০ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড।

নবজাতক বিভাগের আইসিইউতে রাখার পর একটু আশঙ্কামুক্ত হলে মায়ের কোলে শিশুটিকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়, নাম রাখা হয় সুরাইয়া। ঢামেক হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক আব্দুল হানিফ টাবলু বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সুরাইয়ার চিকিৎসা আমাদের জন্য খুবই চ্যালেঞ্জিং ছিল। এই প্রথমবারের মতো এ ধরনের ঘটনার মুখোমুখি হয়েছিলাম আমরা।’ মায়ের পেটে গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনা পৃথিবীতে হাতেগোনা আরও কয়েকটি ঘটেছে জানিয়ে আব্দুল হানিফ টাবলু বলেন, ‘ইন্টারনেটের মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি, মায়ের পেটে গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনা দুই/একটি হলেও তারা বাঁচেনি। মায়ের পেটে গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একমাত্র শিশু সুরাইয়াই। বিশ্বে এই ঘটনা এটিই প্রথম।’

সুরাইয়ার চিকিৎসা করা মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্য নবজাতক বিভাগের তৎকালীন প্রধান অধ্যাপক ডা. আবিদ হোসেন মোল্লা, বর্তমান প্রধান অধ্যাপক ডা.আশরাফুল হক কাজল ও অধ্যাপক ডা.কানিজ হাসিনা শিউলি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সুরাইয়া এখন ভালো আছে। তবে তার বিষয়টি এখনও আমাদের কাছে বিস্ময়, কী করে সে এতোটা সারভাইভ করতে পারে! এই বিষয়গুলো আমাদের অনুপ্রেরণা দেয়, পুরো দেশ আমাদের সঙ্গে থাকে, যেটা আত্মবিশ্বাসকে আরও বাড়িয়ে দেয়।

অধ্যাপক ডা. আবিদ হোসেন মোল্লা বলেন,‘সুরাইয়া যখন অধ্যাপক শিউলির অধীনে ভর্তি হয়,তখন কিছু জটিলতা ছিল। তখন আমরা সবাই একসঙ্গে কাজ করেছি, একমাস একদিন সে আমাদের কেয়ারে ছিল, প্লাস্টিক সার্জারি, পেডিয়াট্রিক সার্জারি­– সবাই মিলে প্রতিদিন তার জন্য কাজ করতাম, আমাদের এই একাগ্রতা ছিল সুরাইয়াকে সুস্থ করে তোলার জন্য। সবাই যে যার অবস্থান থেকে তার সর্বোচ্চটুকু দিয়েছিলেন।’

কুকুরের কামড়ে আহত সুস্থ  ফাইজা চিকিৎসকদের আদরে তিনি বলেন, ‘একই ঘটনা ছিল কুকুরে কামড়ানো শিশু ফাইজার বেলাতেও। সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালের পরিচালকও সেখানে সাহায্য করেছেন, ছিলেন প্লাস্টিক সার্জনরাও। সুরাইয়ার ক্ষেত্রে যে পদ্ধতিতে আমরা চিকিৎসা দিয়েছি সেই একই প্রসিডিউর মানা হয়েছে ফাইজার ক্ষেত্রেও।’ ডা. আবিদ হোসেন মোল্লা বলেন, ‘আমাদের সবাইকে সম্মিলিতভাবে এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে একা কিছু করা যায় না। এখানে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টাই আমাদের সাফল্যের কারণ।’

তৌফা ও তহুরার অস্ত্রোপচার তৌফা ও তহুরার জোড়া লেগে জন্ম নেওয়ার বিষয়টি চিকিৎসা বিজ্ঞানে বলা হয় ‘পাইগোপেগাস’, যেটা বাংলাদেশে এই প্রথম। পিঠের একটু নিচ থেকে কোমরের নিচ পর্যন্ত সংযুক্ত হয়ে জন্ম নিয়েছিল তোফা ও তহুরা। গত ১ আগস্ট তাদের আলাদা করেন চিকিৎসকরা।

সফল এ অপারেশনে যুক্ত ছিলেন প্লাস্টিক সার্জন অধ্যাপক আবুল কালাম, ডা. তানভীর আহমেদ, ডা. লতা, ডা. গোবিন্দ, ডা. ফয়সাল ও ডা. হেদায়েত, নিউরোসার্জন অধ্যাপক অসিত চন্দ্র সরকার, ডা. রাজিউল হক, অর্থোপেডিক সার্জন অধ্যাপক শামসুজ্জামান, পেডিয়াট্রিক সার্জন ডা. শাহনুর ইসলাম, ডা. মোহাম্মদ মইনুল হক, অধ্যাপক আশরাফ উল হক কাজল, অধ্যাপক সামিদুর রহমান, অধ্যাপক কানিজ হাসিনা শিউলি, অধ্যাপক আবদুল হানিফ টাবলু। অ্যানেসথেশিয়ায় ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর হোসেন, ডা. রাবেয়া, ডা. শফিকুল আলম ও ডা. আতিক। এছাড়াও ছিলেন পেডিয়াট্রিক সার্জন তাহমিনা হোসেন, ডা. আল  মাসুদ, ডা.পার্থ সারথি মজুমদার,ডা. গাফফার খান জিয়া, ডা. সনেট, ডা. কৌশিক ভৌমিক ও ডা. তাসনিম আরা।

তৌফা ও তহুরার অপারেশন করেন এই চিকিৎসকরা শুধু চিকিৎসাই নয়, উদ্ভাবনেও পিছিয়ে নেই বাংলাদেশের চিকিৎসকরা। স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. সায়েবা আখতারের প্রসবকালীন রক্তপাত বন্ধে ‘কনডম ক্যাথেটার টেম্পোনেড’ ব্যবহারের মাধ্যমে এক পদ্ধতি উদ্ভাবন করেন, যা বিশ্বব্যাপী সায়েবা’স মেথড হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। ২০০৩ সালে ‘ইউজ অব কনডম টু কন্ট্রোল ম্যাসিভ পোস্টপার্টাম হেমোরেজ’ শিরোনামে মেডস্কেপ মেডিক্যাল জার্নালে প্রকাশিত হয় ডা. সায়েবার এ চিকিৎসা পদ্ধতি। পরবর্তীতে মূল রিসার্চ পেপার হিসেবে ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব গাইনি অ্যান্ড অবস-এ এবং ব্রিটিশ মেডিক্যাল জার্নালে রিভিউ আর্টিকেল হিসেবেও প্রকাশিত হয় এটি। আন্তর্জাতিক নানা জার্নালে সায়েব’স মেথড প্রকাশিত হলে বিভিন্ন দেশের চিকিৎসকদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় ডা. সায়েবা আখতারের মাধ্যমে। বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে এই মেথড নিয়ে এফসিপিএস ডেজারটেশন, এমএস থিসিস ও পিএইডডি থিসিস আছে।

আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন একুশে পদকপ্রাপ্ত অধ্যাপক ডা.এবিএম আব্দুল্লাহ রচিত ৬টি বই উপমহাদেশ, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের ৪০টিরও বেশি দেশে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের পড়ানো হচ্ছে।

তোফা তহুরার অপারেশন করছেন চিকিৎসকরা অপরদিকে, হেপাটাইটিস বি-এর চিকিৎসায় ‘ন্যাসভ্যাক’ নামে নতুন ওষুধের সফল ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সম্পন্ন করেছেন বাংলাদেশি দুই চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) ও ডা. শেখ মোহাম্মদ ফজলে আকবর।। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ‘ন্যাসভ্যাক’-এর সাফল্য সম্পর্কে ডা. মামুন আল  মাহতাব বলেন, ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ক্রনিক হেপাটাইটিস বি-র চিকিৎসায় ব্যবহৃত অন্য সব ওষুধের তুলনায় এটি বেশি নিরাপদ হিসেবে প্রমাণিত হয়। সেখানে দেখা যায়, ন্যাসভ্যাক ব্যবহারে শতকরা ৫০ ভাগ ক্রনিক হেপাটাইটিস বি রোগীর রক্ত থেকে হেপাটাইটিস বি ভাইরাস সম্পূর্ণ নির্মূল হয়েছে। আর শতভাগ রোগীর লিভারের প্রদাহ পুরোপুরি ভালো হয়েছে।’ ন্যাসভ্যাকের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালটি চালানো হয় ২০১৩ সালে। এই ট্রায়ালটি লিভার বিশেষজ্ঞদের সর্বোচ্চ বৈজ্ঞানিক কনফারেন্স হিসেবে স্বীকৃত আমেরিকান লিভার মিটিংয়ে ‘প্রেসিডেনশিয়াল ডিস্টিংশন পদক’ লাভ করে। এরপরই এটি বাণিজ্যিকভাবে বাজারজাত শুরু হয় কিউবায়। দেশটিতে ‘হেবার-ন্যাসভ্যাক’ নামে বিক্রি হচ্ছে ওষুধটি। রাশিয়ায় চলছে মাল্টিসেন্টার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। জাপানেও ওষুধটির ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন মিলেছে।

দেশের অন্যতম জ্যেষ্ঠ চিকিৎসক ডা. সামন্ত লাল সেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বাংলাদেশে একজন সিনিয়র মোস্ট হিসেবে বলতে পারি, আগে আমরা যেভাবে চিকিৎসা করতাম, দিনে দিনে সে অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে, আরও  হচ্ছে। তার প্রমাণ আবুল বাজানদার। বিশ্বে যে ক’জন বৃক্ষমানব হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিল তাদের কারও এত সফল অস্ত্রোপচার হয়নি–এটি আমাদের জন্য একটি মাইলফলক। অপরদিকে, তৌফা-তহুরার যে অপারেশন হয়েছে, এটি দশ বছর আগেও চিন্তা করা যেত না-অথচ সেটাই সম্ভব করেছেন আমাদের চিকিৎসকরা।’ চিকিৎসকদের সাফল্য নিয়ে তিনি বলেন, ‘এই শিশুদের অজ্ঞান করার মতো সাহস কারও ছিল না-অথচ তাদের একসঙ্গে রেখে পুরো প্রক্রিয়া শেষ করাটাই বলে দেয় বাংলাদেশের চিকিৎসকরা কোথায় পৌঁছে গেছেন। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের চিকিৎসকরা যদি ভালো টেকনোলজিক্যাল সাপোর্ট পান, তারা নিঃসন্দেহে আরও উন্নতি করবে। কারণ, তাদের মেধা রয়েছে, ইচ্ছা রয়েছে। রোগীদের প্রতি আন্তরিকতা রয়েছে। চিকিৎসকের এই বিষয়গুলো অনুপ্রেরণা দেবে পরবর্তী প্রজন্মকে। আমার বিশ্বাস, বাংলাদেশের চিকিৎসা যেভাবে এগুচ্ছে, তাতে আমরা একদিন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চলে যাবো।’

অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘চিকিৎসকদের ভুল হলে যতোটা ফলাও করে প্রচার করে সংবাদমাধ্যম, সে তুলনায় বাংলাদেশের চিকিৎসকদের সাফল্য নিয়ে সংবাদ কমই দেখি। আমাদের সাফল্যকে একেবারেই খাটো করে দেখার মতো নয়, কারণ সাম্প্রতিক সময়েই বেশি কিছু চিকিৎসা বাংলাদেশে হয়েছে, যেটা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো ফলাও করে প্রচার করেছে। যার মাধ্যমে বাংলাদেশের নাম চিকিৎসাবিজ্ঞানে নতুন করে উচ্চারিত হয়েছে।’

/জেএ/এএম/আপ-এসএনএইচ/

 

সম্পর্কিত

ডেঙ্গুতে আরও ২ জনের মৃত্যু

ডেঙ্গুতে আরও ২ জনের মৃত্যু

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকসহ ৩৪ পদে রদবদল

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকসহ ৩৪ পদে রদবদল

গণটিকার সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে সারাদেশে

গণটিকার সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে সারাদেশে

ফাইজারের আরও ২৫ লাখ টিকা আসছে রাতে

ফাইজারের আরও ২৫ লাখ টিকা আসছে রাতে

প্রতি কেন্দ্রে ৫০০ জনকে টিকা দেবে ডিএনসিসি

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে  মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ও বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন-ডিএনসিসি’র তত্ত্বাবধানে নিজস্ব এলাকায় করোনা ভাইরাসের টিকা দেওয়া হবে।

এই কর্মসূচির আওতায় ডিএনসিসির ৫৪টি ওয়ার্ডের নির্ধারিত ৫৪টি কেন্দ্রে প্রতিদিন দুপুর আড়াইটা থেকে টিকা কার্যক্রম শুরু হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রতিদিন ৫০০ জন করে দুই দিনে প্রতি ওয়ার্ডে মোট এক হাজার জনকে টিকা প্রদান করা হবে।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) ডিএনসিসি থেকে পাঠানো  সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ডিএনসিসির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যারা ইতোমধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার যেকোনও হাসপাতালে টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন, কিন্তু এখনও এসএমএস  পাননি, শুধুমাত্র তারাই এই কার্যক্রমের আওতায় টিকা গ্রহণ করতে পারবেন। শুধুমাত্র ষাটোর্ধ্ব বয়সের কেউ যদি নিবন্ধন না করে থাকেন, কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি যদি সঙ্গে করে নিয়ে আসেন, তাদেরকেও টিকা দেওয়া হবে। টিকা গ্রহণকারীরা যে কেন্দ্র থেকে প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করবেন, এক মাস পর এক‌ই কেন্দ্র থেকে দ্বিতীয় ডোজের টিকাও গ্রহণ করতে পারবেন।

উল্লেখ্য, এর আগে ডিএনসিসির নির্ধারিত ৫৪টি টিকা কেন্দ্রে একযোগে পরিচালিত গণটিকার আওতায় এক  লাখ ১৩ হাজার ৪০০ জনকে করোনার প্রথম  ও দ্বিতীয় ডোজ টিকা প্রদান করা হয়।

/এসএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‌এনআরবি ব্যাংকের পরিচালক বদিউজ্জামান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

‌এনআরবি ব্যাংকের পরিচালক বদিউজ্জামান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

লোভনীয় অফারে প্রভাবিত না হওয়ার পরামর্শ

লোভনীয় অফারে প্রভাবিত না হওয়ার পরামর্শ

চানখার পুলে ঢাবি শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

চানখার পুলে ঢাবি শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

‘মামলা দেয়, তাই গাড়ি আর চালাবো না, পুড়িয়ে দিয়েছি’

‘মামলা দেয়, তাই গাড়ি আর চালাবো না, পুড়িয়ে দিয়েছি’

সারাদেশে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি কাল

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৮

রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলোর অতিরিক্ত কমিশন আদায় ও পুলিশি হয়রানির প্রতিবাদে ৬ দফা দাবি আদায়ে আগামীকাল মঙ্গলবার সারাদেশে কর্মবিরতি পালনের ডাক দিয়েছে অ্যাপভিত্তিক ড্রাইভারস ইউনিয়ন অব বাংলাদেশ (ডিআরডিইউ)। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গত ১৪ সেপ্টেম্বর আমরা কর্মসূচি ঘোষণা করি। আমাদের দাবিগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলো অতিরিক্ত কমিশন নিচ্ছে। যার ফলে আমাদের তেমন একটা লাভ থাকে না। এছাড়া রাস্তাঘাটে পুলিশ হয়রানি করে।

তিনি আরও বলেন, এই কর্মসূচি শুধু বাংলাদেশে নয়, ইউরোপেও পালন হবে। লন্ডনের অ্যাপভিত্তিক ড্রাইভারস ক্যারিয়ার ইউনিয়ন এই কর্মসূচি ঘোষণা করলে আমরা তাদের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করি। আগামীকাল সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কর্মসূচিটি পালিত হবে। কর্মসূচির মধ্যে সারাদেশে নিজ নিজ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ৯টা থেকে প্ল্যাকার্ড হাতে মানববন্ধন করা হবে।

ছয় দফা দাবি হচ্ছে-

১. অ্যাপস-নির্ভর চালকদের শ্রমিক হিসেবে স্বীকৃতি দিন, কর্ম ও সময়ের মূল্য দিতে হবে।

২. সব ধরনের রাইডে কমিশন ১০ শতাংশ নির্ধারণ করুন, মিথ্যা অজুহাতে কর্মহীন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

৩. ঢাকা চট্টগ্রাম ও সিলেটে রাইড শেয়ারিংয়ের যানবাহন দাঁড়ানোর জায়গা করে দিতে হবে।

৪. সব ধরনের পুলিশি হয়রানি বন্ধ করতে হবে।

৫. এনলিস্টকৃত রাইড শেয়ারকারী যানবাহনগুলোকে গণপরিবহনের আওতায় অ্যাডভান্সড ইনকাম ট্যাক্স (এআইটি) মুক্ত রাখতে হবে।

৬. গতবছর গ্রহণ করা সব এআইটি এনলিস্টকৃত যানবাহন মালিকদের ফিরিয়ে দিতে হবে।

/এসএস/এমআর/

সম্পর্কিত

‘মামলা দেয়, তাই গাড়ি আর চালাবো না, পুড়িয়ে দিয়েছি’

‘মামলা দেয়, তাই গাড়ি আর চালাবো না, পুড়িয়ে দিয়েছি’

মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়া চালককে ছেড়ে দিলো পুলিশ

মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়া চালককে ছেড়ে দিলো পুলিশ

‘একটা মানুষ কতটা অসহায় হ‌লে এমন কাজ কর‌তে পা‌রে’

‘একটা মানুষ কতটা অসহায় হ‌লে এমন কাজ কর‌তে পা‌রে’

মঙ্গলবার সারাদেশে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি

মঙ্গলবার সারাদেশে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি

সিইউবির চিত্র প্রদর্শনীতে শেখ হাসিনার বর্ণাঢ্য জীবন

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৪

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উদযাপনে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের (সিইউবি) উদ্যোগে চলছে তিন দিনের বিশেষ চিত্র প্রদর্শনী।

রাজধানীর বনানীর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ের শেরাটন ঢাকা হোটেলে সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) প্রদর্শনীর দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও বোর্ড অফ ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত।

অন্যান্যদের মধ্যে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নূর আলী, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের বোর্ড অফ ট্রাস্টিজের নির্বাহী চেয়ারম্যান শাহানুল হাসান খান এবং কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের সিনিয়র উপদেষ্টা প্রফেসর ড. এইচ এম জহিরুল হক উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আয়োজকরা জানান, ‘বাংলাদেশ: উন্নয়নের ১ যুগ’ শিরোনামের এ প্রদর্শনীতে রয়েছে সরকারপ্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এক যুগের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, বৈশ্বিক অঙ্গনে নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার আলোকচিত্র। শেখ হাসিনার জীবনের বিভিন্ন মুহূর্তের দুর্লভ ছবিও রয়েছে প্রদর্শনীতে। দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানের শুরুতে কেক কাটেন অতিথিরা। পরে তারা প্রদর্শনীর বিভিন্ন আলোকচিত্র ঘুরে দেখেন।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন, যে কাজ তিনি সমাপ্ত করতে পারেননি, সেই কাজগুলোকে যিনি এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন সেই মানুষটা আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

‘২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ার জন্য যে পরিক্রমা এবং পথনকশা তৈরি করা প্রয়োজন সেটি তিনি করেছেন। আমরা এখন আর হতদরিদ্র দেশ নই, উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হতে যাচ্ছি।’

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিনকে স্মরণীয় করতে বঙ্গবন্ধুর কন্যার রাজনৈতিক সংগ্রাম ও বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার সব কিছু চমৎকারভাবে এই চিত্র প্রদর্শনীতে তুলে ধরা হয়েছে।

‘যখন আমরা প্রদর্শনীটি ঘুরে দেখছিলাম আমি অবাক হয়ে খেয়াল করছিলাম বিগত ছবিগুলো সংগ্রহ করা, তারপর সেটিকে উপস্থাপন করা এবং ধারাবাহিকভাবে শেখ হাসিনার শৈশব, কৈশোর, তার ব্যক্তি জীবন, পারিবারিক জীবন, রাজনৈতিক সংগ্রাম এবং আধুনিক বা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের বিষয়গুলো যেভাবে সাজানো হয়েছে তা অসাধারণ।’

প্রদর্শনীটি মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

এর আগে রবিবার বেলা ১১টায় শেরাটন ঢাকা হোটেলে ফিতা ও কেক কেটে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

/এসও/এমএস/

সম্পর্কিত

ক্যাম্পাস দেখে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পরামর্শ ইউজিসির

ক্যাম্পাস দেখে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পরামর্শ ইউজিসির

শিক্ষার্থী কমছে, টিউশন ফি ছাড় দিয়ে অস্তিত্ব সংকটে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষার্থী কমছে, টিউশন ফি ছাড় দিয়ে অস্তিত্ব সংকটে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষার মানোন্নয়নে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সরকারের সহযোগী: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষার মানোন্নয়নে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সরকারের সহযোগী: শিক্ষামন্ত্রী

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওপর কর প্রত্যাহারের দাবিতে মতবিনিময় সভা

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওপর কর প্রত্যাহারের দাবিতে মতবিনিময় সভা

পদোন্নতিপ্রাপ্ত ১৫৭ পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলি

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৮

বাংলাদেশ পুলিশের পুলিশ ইন্সপেক্টর পদে সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত ১৫৭ কর্মকর্তাকে তাদের নিজ নিজ ইউনিট থেকে পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে বদলি করা হয়েছে। 

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স-এর অ্যাডিশনাল আইজি (এঅ্যান্ডও) ড. মো. মইনুর রহমান চৌধুরী স্বাক্ষরিত তিনটি ভিন্ন প্রজ্ঞাপনে এ বদলি/পদায়ন করা হয়।

উল্লেখ্য, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ তারিখ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের তিনটি আলাদা প্রজ্ঞাপনে সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) থেকে পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র), সাব-ইন্সপেক্টর (সশস্ত্র) থেকে পুলিশ পরিদর্শক (সশস্ত্র) ও পুলিশ সার্জেন্ট/টিএসআই থেকে পুলিশ পরিদর্শক (শহর ও যানবাহন) হিসেবে পদোন্নতি প্রদান করা হয়।

 

/এআরআর/এমআর/

সম্পর্কিত

পরীমণির গাড়িসহ জব্দ করা ১৬ আলামত ফেরত দিতে প্রতিবেদন

পরীমণির গাড়িসহ জব্দ করা ১৬ আলামত ফেরত দিতে প্রতিবেদন

‌এনআরবি ব্যাংকের পরিচালক বদিউজ্জামান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

‌এনআরবি ব্যাংকের পরিচালক বদিউজ্জামান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

‘মামলা দেয়, তাই গাড়ি আর চালাবো না, পুড়িয়ে দিয়েছি’

‘মামলা দেয়, তাই গাড়ি আর চালাবো না, পুড়িয়ে দিয়েছি’

অতঃপর ২য় বিয়ে, সন্তানের দায় নিতে নারাজ এআইজি ফারুকী

অতঃপর ২য় বিয়ে, সন্তানের দায় নিতে নারাজ এআইজি ফারুকী

তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের আইসিডিডিআরবি পরিদর্শন

'করোনার টিকা তৈরিতে কাজ করছে তুরস্ক'

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:০৩

বাংলাদেশে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মুস্তাফা ওসমান তুরান আইসিডিডিআরবি'র জীবন রক্ষাকারী গবেষণাকে অনুপ্রেরণামূলক বলে আখ্যায়িত করেছেন। কোভিড-১৯ সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, “তুরস্ক বর্তমানে টার্কোভ্যাক নামে কোভিড-১৯ এর একটি টিকা তৈরিতে কাজ করছে। এই কাজ সম্পন্ন হলে আমরা এটিকে অন্যান্য দেশের জন্য সহজপ্রাপ্য করতে চাই এবং কিভাবে এবিষয়ে বাংলাদেশের সাথে সহযোগিতামূলক সম্পর্ক স্থাপন করা যায় তার উপায় অনুসন্ধান করছি।"

তিনি সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) ঢাকার মহাখালীতে অবস্থিত আইসিডিডিআর,বি পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন। এসময় রাষ্ট্রদূত আইসিডিডিআর,বি এবং এর সাম্প্রতিক কোভিড-১৯ সংক্রান্ত গবেষণা কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে আগ্রহ প্রকাশ করেন।

আইসিডিডিআর,বি জানায়, রাষ্ট্রদূত এবং তুরস্ক দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি গিজেম আইডিন আরডেমকে আইসিডিডিআর,বি-র নির্বাহী পরিচালক ড. তাহমিদ আহমেদ স্বাগত জানান। ড. আহমেদ তাঁদের উদ্দেশ্যে আইসিডিডিআর,বি সম্পর্কিত একটি সামগ্রিক চিত্র উপস্থাপন করেন এবং কিভাবে এই প্রতিষ্ঠান বৈশ্বিক জনস্বাস্থ্য গবেষণা ও উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে অবদান রেখেছে এবং দক্ষিণ বিশ্বে একটি সেন্টার অব এক্সিলেন্সে পরিণত হয়েছে সে সম্পর্কে আলোকপাত করেন। সাধারণ ও বাস্তবায়নমুখী গবেষণাকে কাজে লাগিয়ে এবং এর জ্ঞানকে জনস্বাস্থ্য কার্যক্রমে পরিণত করে আইসিডিডিআর,বি কিভাবে বিশ্বের নিম্ন ও মাঝারি আয়ের দেশগুলো যেসব জটিল সমস্যার সম্মুখীন তা সমাধান করে থাকে তা তিনি ব্যাখ্যা করেন।

রাষ্ট্রদূত আইসিডিডিআর,বি-র মিউকোজাল ইমিউনোলজি অ্যান্ড ভ্যাক্সিনোলজি ল্যাবরেটরি ঘুরে দেখেন। আইসিডিডিআর,বি-র সিনিয়র সায়েন্টিস্ট ড. ফেরদৌসী কাদরী ল্যাবের অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা প্রদর্শন করেন, যা কোভিড-১৯ সংক্রান্ত গবেষণাসহ টিকা গবেষণায় কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

প্রতিষ্ঠানটি জানায়, রাষ্ট্রদূত তুরান কেবল আইসিডিডিআর,বি-র গবেষণা কর্মকাণ্ডের বিশাল পরিধি দেখেই মুগ্ধ হননি, বরং তিনি বাংলাদেশ ও বহির্বিশ্বের বিপন্ন মানুষের সেবায় কত সহজে গবেষণাকে কাজে লাগিয়ে স্বল্প খরচের সমাধানে আইসিডিডিআর,বি ভূমিকা রাখে তা দেখেও অভিভূত হন। তিনি আরও গবেষণা, অর্থায়ন ও সহযোগিতামূলক কাজের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তাঁর মন্তব্যে তিনি ড. তাহমিদ আহমেদ এবং আইসিডিডিআর,বি-র বিজ্ঞানী ও গবেষকদেরকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, 'আজ আমরা এই সুপ্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানের কাজ সম্পর্কে সরাসরি তথ্য জানতে পারলাম। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ ও সারা বিশ্বে লাখ লাখ মানুষের জীবন রক্ষা করে চলেছে। আপনারা যা করেন তা সত্যিই অনুপ্রেরণামূলক।

ড. আহমেদ রাষ্ট্রদূতকে জনস্বাস্থ্য গবেষণায় নিয়োজিত তুরস্কের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে সহযোগিতা গড়ে তুলতে আইসিডিডিআর,বি-কে সহায়তা করার অনুরোধ জানান। আইসিডিডিআর,বি-র সিনিয়র লিডারশিপ টিমের সদস্যরাও এসময়ে উপস্থিত ছিলেন।

/এসও/এমএস/

সম্পর্কিত

গণটিকার সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে সারাদেশে

গণটিকার সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে সারাদেশে

রবিবার টিকা দেওয়া হয়েছে সাড়ে ৬ লাখ  

রবিবার টিকা দেওয়া হয়েছে সাড়ে ৬ লাখ  

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আবারও দেশে গণটিকা কর্মসূচি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আবারও দেশে গণটিকা কর্মসূচি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দ্বিতীয় ডোজের আওতায় ১ কোটি ৫৭ লাখ মানুষ 

দ্বিতীয় ডোজের আওতায় ১ কোটি ৫৭ লাখ মানুষ 

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ডেঙ্গুতে আরও ২ জনের মৃত্যু

ডেঙ্গুতে আরও ২ জনের মৃত্যু

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকসহ ৩৪ পদে রদবদল

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকসহ ৩৪ পদে রদবদল

গণটিকার সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে সারাদেশে

গণটিকার সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে সারাদেশে

ফাইজারের আরও ২৫ লাখ টিকা আসছে রাতে

ফাইজারের আরও ২৫ লাখ টিকা আসছে রাতে

গণটিকাদান কর্মসূচি: প্রথম দুই ঘণ্টায় অগ্রাধিকার পাবেন যারা 

গণটিকাদান কর্মসূচি: প্রথম দুই ঘণ্টায় অগ্রাধিকার পাবেন যারা 

রবিবার টিকা দেওয়া হয়েছে সাড়ে ৬ লাখ  

রবিবার টিকা দেওয়া হয়েছে সাড়ে ৬ লাখ  

বিশেষ কোনও টিকা নিয়ে ‘ফ্যাসিনেশন’ থাকা যাবে না

বিশেষ কোনও টিকা নিয়ে ‘ফ্যাসিনেশন’ থাকা যাবে না

একদিনে নারীমৃত্যু দ্বিগুণ

একদিনে নারীমৃত্যু দ্বিগুণ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আবারও দেশে গণটিকা কর্মসূচি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আবারও দেশে গণটিকা কর্মসূচি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

৪ কোটি টিকা দেওয়া শেষ 

৪ কোটি টিকা দেওয়া শেষ 

সর্বশেষ

সাবেক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ৩৫ কোটি টাকা লন্ডারিংয়ের মামলা

সাবেক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ৩৫ কোটি টাকা লন্ডারিংয়ের মামলা

সারাদেশে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি কাল

সারাদেশে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি কাল

সিইউবির চিত্র প্রদর্শনীতে শেখ হাসিনার বর্ণাঢ্য জীবন

সিইউবির চিত্র প্রদর্শনীতে শেখ হাসিনার বর্ণাঢ্য জীবন

নির্বাচন কমিশনের জন্য কি মঙ্গল গ্রহ থেকে লোক আনবেন: কৃষিমন্ত্রী

নির্বাচন কমিশনের জন্য কি মঙ্গল গ্রহ থেকে লোক আনবেন: কৃষিমন্ত্রী

সৌরভের ‘বন্ধু’ ইফতেখার বিসিবি নির্বাচনে

সৌরভের ‘বন্ধু’ ইফতেখার বিসিবি নির্বাচনে

© 2021 Bangla Tribune