X
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ মসজিদ

গভীর রাতে যে মসজিদ থেকে শোনা যেতো জিনের জিকির

আপডেট : ১০ মে ২০২১, ১০:০০

বাংলাদেশের যে স্থাপনাশৈলী এখনও বিমোহিত করে চলেছে অগণিত মানুষকে, তার মধ্যে আছে দেশজুড়ে থাকা অগণিত নয়নাভিরাম মসজিদ। এ নিয়েই বাংলা ট্রিবিউন-এর ধারাবাহিক আয়োজন ‘বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ মসজিদ’। আজ থাকছে লক্ষ্মীপুরের মসজিদ-ই-জামে আবদুল্লাহ।

প্রায় দুই শতাব্দী আগের কথা। তখন লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলা ছিল জনশূন্য বিশাল চরাঞ্চল। দু'চোখ জুড়ে অবারিত মেঘনা আর ডাকাতিয়া। একসময় এখানে আগমন ঘটে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মহান কিছু ধর্মযাজকের। বলা হয় বৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চলে ইসলামের প্রচার ও প্রসার ঘটেছে এই এলাকাকেই কেন্দ্র করে। সেই সময় রায়পুরের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম নেন মাওলানা আবদুল্লাহ। ইংরেজি ১৮২৮ সালের কথা। ধার্মিক পরিবারে জন্ম নেওয়া আব্দুল্লাহ নিজ এলাকায় প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে উচ্চতর শিক্ষা লাভের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমান ভারতে। সেখানে দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসায় ভর্তি হন। দেওবন্দে দীর্ঘ ১৭ বছর অভিজ্ঞ ও প্রসিদ্ধ আলেমদের সান্নিধ্যে থেকে লাভ করেন দ্বীনি শিক্ষা। এরপর বাংলাদেশে ফেরার পথে কিছু সময় দিল্লিতে অবস্থান করেন। ওই সময় দিল্লির শাহী জামে মসজিদের নির্মাণশৈলী তাকে মুগ্ধ করে। বাংলাদেশে ফিরে ওই রকম একটি মসজিদ নির্মাণের স্বপ্ন দেখতে থাকেন। আর তা বাস্তবায়নের প্রবল ইচ্ছাশক্তি থেকেই নিজ এলাকায় মসজিদ নির্মাণ শুরু করেন তিনি।

মসজিদ-ই-জামে আবদুল্লাহ

পরে শাহী জামে মসজিদের আদলে ১১০ ফুট লম্বা ও ৭০ ফুট প্রস্থের তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। এলাকাবাসীর মতে এর নির্মাণকাল ১৮৮৮ সাল। আর মসজিদটির অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে এর ২০ ফুট নিচে থাকা ৩ কামরার একটি গোপন ইবাদতখানা। এখানেই নাকি ধ্যানে মগ্ন থাকতেন মাওলানা আবদুল্লাহ।

১৩ ধাপ সিঁড়ি ডিঙ্গিয়ে প্রবেশ করতে হয় এ মসজিদে। মসজিদের সামনের জরাজীর্ণ মিনারটি ২৫ ফুট উঁচু।

জনশ্রুতি আছে, মাওলানা আবদুল্লাহর কিছু শিষ্য জিন ছিল। রাতের আঁধারে মসজিদের নির্মাণকাজ ওরাই সম্পন্ন করেছে। সেই থেকেই মসজিদটি জিনের মসজিদ নামে পরিচিত। এলাকাবাসী এখনও বলেন, মসজিদের পাশের পুকুরগুলোতে জিনেরা গোসল করতো। তারা এই মসজিদে নিয়মিত নামাজ আদায়সহ জিকিরও করতো। এমনকি গভীর রাতে জিকিরের আওয়াজ অনেক দূর থেকেও শোনা যেতো।

মসজিদ-ই-জামে আবদুল্লাহ

লক্ষ্মীপুরের ঐতিহাসিক এই জিনের মসজিদটি এলাকায় ‘মৌলভী আবদুল্লাহ সাহেবের মসজিদ’ নামেও পরিচিতি রয়েছে। তবে মসজিদের সামনে সিঁড়ির কাছে লাগানো শিলালিপি থেকে জানা যায়, মসজিদটির আদি নাম ‘মসজিদ-ই-জামে আবদুল্লাহ’।

মসজিদটি লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর পৌর শহর থেকে ৮/৯ শ’ গজ পূর্বে পীর ফয়েজ উল্লাহ সড়কের দক্ষিণ দিকে অবস্থিত। নান্দনিক রূপ ও অবকাঠামোর দিক থেকে এটি জেলার অন্যতম একটি পর্যটন আকর্ষণও। তবে এখন আর জিনের দেখা পায় না কেউ। কিংবা গভীর রাতে শোনা যায় না জিকিরের আওয়াজও।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

টেকনাফে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩:২২

কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ফয়জুল ইসলাম (২১) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে আর্মড পুলিশ ব্যাটলিয়ন (এপিবিএন)। পুলিশ বলছে, তিনি ‘সালমান শাহ’ সন্ত্রাসী গ্রুপের সেকেন্ড ইন কমান্ড।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) টেকনাফের নয়াপাড়া নিবন্ধিত ক্যাম্প থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কক্সবাজার ১৬ এপিবিএন অধিনায়ক (এসপি) তারিকুল ইসলাম তারিক জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নয়াপাড়া এপিবিএন ক্যাম্পের অফিসার ও ফোর্স বিশেষ অভিযানের মাধ্যমে বুধবার দুপুরে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ফয়জুলকে গ্রেফতার করে।

তার সম্পর্কে যাচাই-বাছাই করে জানা যায়, শুরু থেকে রোহিঙ্গা ডাকাত ‘সালমান শাহ’ গ্রুপের একজন সক্রিয় সদস্য এবং অপহরণ, চাঁদাবাজি, ছিনতাই ও মারামারিসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িত তিনি। এ ছাড়া তিনি ২০১৯ সালের টেকনাফ থানার একটি হত্যা মামলার এজাহারনামীয় আসামি।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

‘সিনহা হত্যা মামলার আসামিরা স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিয়েছিল’

‘সিনহা হত্যা মামলার আসামিরা স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিয়েছিল’

অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে নিহত ৬ রোহিঙ্গার পরিবারকে

অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে নিহত ৬ রোহিঙ্গার পরিবারকে

প্রকাশ্যে হকার হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

প্রকাশ্যে হকার হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা: আহত কিশোরের মৃত্যু

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০৬

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে সুমাইয়া আক্তার (১৫) নামে এক স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টাকারী কিশোর মনির (১৭) মারা গেছে। বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। 

মনিরের খালা রোজিনা বেগম বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মনির মারা গেছে। লাশ মর্গে নেওয়া হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে বাড়িতে নেওয়া হবে।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) সকাল পৌনে ৭টার দিকে উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার শামসুল হক কলেজের সামনের একটি ভবন থেকে সুমাইয়ার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। একই স্থান থেকে মনিরকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রেমিকাকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করে মনির: র‌্যাব

এরপর রাতে টাঙ্গাইলের র‌্যাব-১২ সিপিসি-৩-এর কোম্পানি কমান্ডার লে. আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান,  সুমাইয়াকে হত্যার পর মনির আত্মহত্যার চেষ্টা করে। সে উপজেলার মশাজান গ্রামের মেহের আলীর ছেলে। সুমাইয়ার বাড়ি উপজেলার পালিমা গ্রামে। সে এলেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। তারা এলেঙ্গা কলেজ মোড় এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করে আসছিল।

স্কুলছাত্রীর লাশের পাশে পড়েছিল আহত কিশোর

তিনি আরও জানান, সুমাইয়ার সঙ্গে মনিরের দুই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। গত দুই মাস আগে সুমাইয়া মনিরকে বাদ দিয়ে অন্য এক ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি মনির সহ্য করতে পারছিল না। সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে মনির সুমাইয়াকে মারধর করে। কোচিংয়ে যাওয়ার সময় সুমাইয়াকে একটি ভবনের নিচতলায় ডেকে নিয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করে মনির।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ফেরি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের অভিযান শুরু, এখনও পৌঁছায়নি ‘প্রত্যয়’

ফেরি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের অভিযান শুরু, এখনও পৌঁছায়নি ‘প্রত্যয়’

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

প্রেমিকাকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করে মনির: র‌্যাব

প্রেমিকাকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করে মনির: র‌্যাব

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৬

ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেছেন, অপশক্তি যে দলেরই হোক তাদের ছাড় নেই। আর কোনও জায়গায় কুমিল্লার মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে দেওয়া হবে না। তাই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই অপশক্তি প্রতিহত করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) সকালে সাড়ে ১০টার দিকে কুমিল্লার নানুয়ার দিঘীর পাড়ের ক্ষতিগ্রস্ত অস্থায়ী পূজামণ্ডপ পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সংবিধান মেনে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ হিসেবে সবাই চলবো আগামী দিনের ভবিষ্যৎ ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রতিষ্ঠায়। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটাতে হলে সংবিধানে যা লেখা আছে তাই মেনে চলতে হবে। কারণ শত্রু চিরদিনই শত্রু। তারা সুযোগ পেলেই ছোবল দেবে। শত্রুকে প্রতিহত করতে হলে প্রশাসন, জনগণ একসঙ্গে কাজ করে যেতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আকম বাহার উদ্দিন বাহার, কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান ও কুমিল্লা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ প্রমুখ।

এরপর নগরীর কাপড়িয়াপট্টি চাঁন্দমনি রক্ষা কালী মন্দির পরিদর্শন শেষে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে আন্তঃধর্মীয় সংলাপে অংশ নেন প্রতিমন্ত্রী। এতে জেলার বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ফেরি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের অভিযান শুরু, এখনও পৌঁছায়নি ‘প্রত্যয়’

ফেরি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের অভিযান শুরু, এখনও পৌঁছায়নি ‘প্রত্যয়’

সিরাজগঞ্জে যুবদলের ১৭৪ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৩

সিরাজগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ ও দুই পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার ঘটনায় যুবদলের ১৭৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাতে সিরাজগঞ্জ সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহ আলম বাদী হয়ে ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ১৫০ জনকে আসামি এই মামলা করেন। মামলায় জেলা যুবদল সভাপতি মির্জা আব্দুর জব্বার বাবু দলটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নাম রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম জানান, সরকারি কাজে বাঁধা, পুলিশের ওপর হামলা ও দুই পুলিশকে আহত করার ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

গতকাল বুধবার দপুরে যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শহরের ইবি রোডের বিএনপি কার্যালয়ের সামনে রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশ করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে যুবদল নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় উভয়পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে একজন উপ-পরিদর্শকসহ দুই জন পুলিশ ও যুবদলের ১৫ নেতাকর্মী আহত হন। 

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

চৌমুহনীতে পূজামণ্ডপ ভাঙচুর: জেলা যুবদল সভাপতিসহ গ্রেফতার ৩

চৌমুহনীতে পূজামণ্ডপ ভাঙচুর: জেলা যুবদল সভাপতিসহ গ্রেফতার ৩

কুমিল্লায় মণ্ডপ ভাঙচুরের ঘটনায় আরও এক মামলা 

কুমিল্লায় মণ্ডপ ভাঙচুরের ঘটনায় আরও এক মামলা 

ব্যবসায়ীর গুদামে গরিবের ১০ হাজার ৭০০ কেজি চাল

ব্যবসায়ীর গুদামে গরিবের ১০ হাজার ৭০০ কেজি চাল

আর্থিক ক্ষমতা পেলেন দুপচাঁচিয়ার ভারপ্রাপ্ত মেয়র

আর্থিক ক্ষমতা পেলেন দুপচাঁচিয়ার ভারপ্রাপ্ত মেয়র

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৬

২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম নগরীর বহদ্দারহাট এলাকায় নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ জন প্রাণ হারান। এ ঘটনায় ওই বছরের ২৬ নভেম্বর চান্দগাঁও থানার তৎকালীন এসআই আবুল কালাম আজাদ ২৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন। এরপর কেটে গেছে আট বছর। আজও শেষ হয়নি মামলার বিচার কার্যক্রম। সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ না হওয়ায় এখনও ঝুলে আছে বিচারিক কাজ।

মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফখরুদ্দিন চৌধুরী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মামলাটি এখন আর আমরা দেখছি না। করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর প্রথম লকডাউনের সময়ের মামলাটি চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচার নিষ্পত্তির জন্য বদলি করা হয়।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি যখন মামলাটি দেখছিলাম, তখন ২৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছিল।’

১৮০ কোটি টাকার ফ্লাইওভারের র‌্যাম্পের পিলারে ফাটল

চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অনুপম চক্রবর্তী বলেন, ‘চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তরের পর এখন পর্যন্ত আর কোনও সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি। করোনার কারণে মাঝে আদালতের কার্যক্রম বন্ধ ছিল। খোলার পর আগামী ১৩ জানুয়ারি পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।’

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের র‌্যাম্পের পিলারে ফাটলের একটি ছবি সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে

আদালত সূত্রে জানা গেছে, কর্তব্যে অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগ এনে বহদ্দারহাটে নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার ভেঙে ১৩ জনের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা করেন চান্দগাঁও থানার তৎকালীন এসআই আবুল কালাম আজাদ। মামলায় ফ্লাইওভার প্রকল্পের পরিচালক চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) নির্বাহী প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান, সহকারী প্রকৌশলী তানজিব হোসেন ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী সালাহ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরীসহ ২৫ জনকে আসামি করা হয়। 

অন্য আসামিদের মধ্যে ছিলেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মীর আখতার অ্যান্ড পারিসা ট্রেড সিস্টেমসের ১০ জন এবং বেসরকারি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এসএআরএম অ্যাসোসিয়েটসের ১২ জন। তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ২৪ অক্টোবর পুলিশ আট জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। 

আদালতে দাখিল করা অভিযোগপত্রে সিডিএর তিন কর্মকর্তা, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ তিন জন এবং পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ মতিনসহ ১৮ জনের নাম বাদ দেওয়া হয়।

ফ্লাইওভারের পিলারে ফাটল নাকি ‘ফলস কাস্টিং’

২০১৪ সালের ১৮ জুন তৎকালীন চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ এস এম মজিবুর রহমান অভিযোগপত্র গ্রহণ করে আট আসামির বিরুদ্ধে বিচার শুরুর আদেশ দেন। বর্তমানে চতুর্থ অতিরিক্ত চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞার আদালতে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে।

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের পিলারটি পরিদর্শন করেন বিশেষজ্ঞ দল

মামলায় অভিযুক্তরা হলেন—ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মীর আখতারের সে সময়ের প্রকল্প ব্যবস্থাপক গিয়াস উদ্দিন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মনজুরুল ইসলাম, প্রকল্প প্রকৌশলী আব্দুল জলিল, আমিনুর রহমান, আব্দুল হাই, মো. মোশাররফ হোসেন রিয়াজ, মান নিয়ন্ত্রণ প্রকৌশলী শাহজান আলী ও রফিকুল ইসলাম। তাদের মধ্যে রফিকুল ইসলামের নাম মামলার এজাহারে ছিল না। তদন্ত শেষে পুলিশ তার নাম অভিযোগপত্রে যুক্ত করেন।

২০১০ সালে এম এ মান্নান (বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার) ফ্লাইওভারের নির্মাণ কাজ শুরু করে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে ফ্লাইওভারটিতে লুপ নির্মাণের প্রস্তাব করা হলেও তা না মেনে লুপ ছাড়াই নির্মাণ শেষে ২০১৩ সালে ফ্লাইওভারটি চালু করা হয়। ফ্লাইওভারটি কার্যকরী না হওয়ায় স্থানীয়দের দাবির মুখে পরে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে আরাকান সড়কমুখী ওই র‌্যাম্প নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সিডিএ। ৩২৬ মিটার দীর্ঘ এবং ৬ দশমিক ৭ মিটার চওড়া র‌্যাম্পটি নির্মাণ শেষে ২০১৭ সালে তা চালু করা হয়।

ফ্লাইওভারের র‍্যাম্পের পিলারে ফাটল পায়নি বিশেষজ্ঞ দল

র‌্যাম্পটি চালুর তিন বছরের মাথায় গত সোমবার এম এ মান্নান ফ্লাইওভারের আরাকানমুখী র‌্যাম্পের পিলারে ফাটল দেখা দিয়েছে এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর ওই দিন রাতে চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁও থানার ওসি মাঈনুর রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে এর সত্যতা পাওয়ায় বিষয়টি সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে। পাশাপাশি ওই র‌্যাম্প দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ফেরি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের অভিযান শুরু, এখনও পৌঁছায়নি ‘প্রত্যয়’

ফেরি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের অভিযান শুরু, এখনও পৌঁছায়নি ‘প্রত্যয়’

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

অপশক্তি যে দলেরই হোক প্রতিহত করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ মৃত্যু: ৮ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

‘সিনহা হত্যা মামলার আসামিরা স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিয়েছিল’

‘সিনহা হত্যা মামলার আসামিরা স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিয়েছিল’

চৌমুহনীতে পূজামণ্ডপ ভাঙচুর: জেলা যুবদল সভাপতিসহ গ্রেফতার ৩

চৌমুহনীতে পূজামণ্ডপ ভাঙচুর: জেলা যুবদল সভাপতিসহ গ্রেফতার ৩

অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে নিহত ৬ রোহিঙ্গার পরিবারকে

অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে নিহত ৬ রোহিঙ্গার পরিবারকে

কুমিল্লায় মণ্ডপ ভাঙচুরের ঘটনায় আরও এক মামলা 

কুমিল্লায় মণ্ডপ ভাঙচুরের ঘটনায় আরও এক মামলা 

তেলের ড্রাম তুলতে নেমে স্রোতে ভেসে গেলেন শ্রমিক

তেলের ড্রাম তুলতে নেমে স্রোতে ভেসে গেলেন শ্রমিক

সর্বশেষ

টেকনাফে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার

টেকনাফে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার

চুক্তিতে রাইড শেয়ার করলে চালক ও যাত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

চুক্তিতে রাইড শেয়ার করলে চালক ও যাত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা: আহত কিশোরের মৃত্যু

স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা: আহত কিশোরের মৃত্যু

বনাঞ্চলকেই কার্বন নিঃসরণকারী বানিয়ে ফেলেছে মানুষ: জরিপ

বনাঞ্চলকেই কার্বন নিঃসরণকারী বানিয়ে ফেলেছে মানুষ: জরিপ

নতুন পাঁচ নামে দেশে ঢুকছে ফেনসিডিল

নতুন পাঁচ নামে দেশে ঢুকছে ফেনসিডিল

© 2021 Bangla Tribune