X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

মহাকাশে যাচ্ছে কাঠের স্যাটেলাইট

আপডেট : ১৬ জুন ২০২১, ২০:৩৬

মহাশূন্যে টিকে থাকা কিন্তু যা-তা কথা নয়। নেই বাতাস, নেই তাপ ও বায়ুচাপ। স্পেসসুট ছাড়া কোনও মানুষ যদি মহাশূন্যে নেমে পড়ে, তো সবার আগে শরীরের ভেতরের বাতাসের চাপেই ফেটে যাবে ফুসফুসটা। বাতাস ও পানি প্রবল বেগে বেরিয়ে যেতে চাইবে শরীর থেকে। ফুলেফেঁপে উঠলেও চামড়ার কারণে শরীরটা বিস্ফোরিত হবে না ঠিকই, তবে অক্সিজেনের অভাবে পনের সেকেন্ডের মধ্যেই হারাতে হবে জ্ঞান। মিনিটখানেকের মধ্যে নিশ্চিত মৃত্যু। আর এ ভীষণরকম অবস্থায় কাঠের কোন দশা হয় সেটা দেখার আয়োজন করছে ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি (ইএসএ) ও দ্য ওয়াইসা উডস্যাট প্রজেক্ট। তাদের উদ্যোগে মহাকাশে কাঠের তৈরি ছোট্ট একটা স্যাটেলাইট পাঠানো হবে এ বছরেই।

মাত্র ৪ ইঞ্চি আকারের স্যাটেলাইটটি নিউ জিল্যান্ড থেকে রওনা দেওয়া ল্যাব ইলেকট্রন রকেটে করে যাবে মহাশূন্যে। শূন্যে ছেড়ে দেওয়ার পর ওটার ওপর নজর রাখবে একটি দল। মূল অভিযানটা পরিচালনা করছে কিউবস্যাট রেপ্লিকা নামের একটি প্রতিষ্ঠান। তবে বার্চ গাছের প্লাইউড দিয়ে তৈরি স্যাটেলাইটটিতে যাবতীয় সেন্সর বসানোর দায়িত্ব নিয়েছে ইএসএ।

সেলফি তোলার জন্য স্যাটেলাইটটিতে একটি অ্যালুমিনিয়ামের দণ্ডও থাকছে। আর থাকবে ধাতব কিছু যন্ত্রাংশ।

মূলত মহাকাশে কাঠের স্থায়িত্ব পরীক্ষাই এ মিশনের উদ্দেশ্য। যদি মহাশূন্যে কাঠের বাকশোটি টিকে থাকতে পারে, তবে ভবিষ্যতের অভিযানগুলোতে অনেক যন্ত্রপাতির ওজন কমানো যাবে অনায়াসে।

 

সূত্র: সিনেট ডটকম

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৭:১৬

ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মুস্তাফা আল-খাদিমি বলেছেন, তার দেশে ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য মার্কিন সেনাদের কোনও প্রয়োজন নেই। তবে তিনি বলেছেন, এসব বিদেশি সেনাদের পুনরায় মোতায়েনের বিষয়টি নির্ভর করছে এই সপ্তাহে মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনার ওপর। মার্কিন বার্তা সংস্থা এসোসিয়েটেড প্রেস (এপি)-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ইরাকে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেছেন। রবিবার সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়েছে।

মুস্তাফা আল-খাদিমি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রকে প্রশিক্ষণ ও সামরিক গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের জন্য আহ্বান জানাবে ইরাক। কিন্তু যুদ্ধের সেনাদের আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাহারের একটি সময়সীমা চাওয়া হবে। এপ্রিলে ওয়াশিংটন ও বাগদাদে আলোচনায় মার্কিন সেনাদের প্রত্যাহারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইরাকের মাটিতে বিদেশি সেনাদের কোনও প্রয়োজন নেই। আইএসবিরোধী যুদ্ধ ও আমাদের সেনাদের প্রস্তুতির বিষয়ের জন্য একটি বিশেষ সময়সীমার প্রয়োজন। ওয়াশিংটনে আলোচনার ওপর তা নির্ভর করছে।

সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক করবেন ইরাকের প্রধানমন্ত্রী। দুই দেশের মধ্যে এটি চতুর্থ ধাপের কৌশলগত আলোচনা। দেশে শিয়া সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে মার্কিন ভূমিকা কমানোর চাপের মুখে হোয়াইট সফরে যাচ্ছেন আল-খাদিমি।

আল-খাদিমি বলেন, ইরাকের সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া, তাদের কার্যকারিতা ও সামর্থ্য বৃদ্ধির জন্য আমরা মার্কিন উপস্থিতি চাই। ইরাকে অনেক আমেরিকান অস্ত্র রয়েছে। এগুলো রক্ষণাবেক্ষণ ও প্রশিক্ষণের প্রয়োজন। আমাদের সেনাদের সহযোগিতা ও সামর্থ্য বৃদ্ধিতে মার্কিন পক্ষের কাছে আমরা সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে বলব।

/এএ/

সম্পর্কিত

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

তিন মাসে ২ বার করোনা আক্রান্ত, হতাশায় দম্পতির আত্মহত্যা

তিন মাসে ২ বার করোনা আক্রান্ত, হতাশায় দম্পতির আত্মহত্যা

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

মহারাষ্ট্রে টানা ভারী বৃষ্টিতে বন্যা-ভূমিধস, জীবিতদের খোঁজে অভিযান

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

মৃত্যুদণ্ড বাতিল করছে সিয়েরা লিওন

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০৭:৪৯

আফ্রিকার দেশ সিয়েরা লিওনে মৃত্যুদণ্ডের সাজা বাতিলের পক্ষে ভোট দিয়েছেন দেশটির আইনপ্রণেতারা। এই মহাদেশটির ২৩ তম দেশ হিসেবে মৃত্যুদণ্ড বাতিলের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। সিয়েরা লিওনের পার্লামেন্টের এ সিদ্ধান্তে স্বাগত জানিয়েছে বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন।

শুক্রবার পার্লামেন্টের অধিকাংশ সদস্য মৃত্যুদণ্ডের সাজা বাতিলের বিপক্ষে ভোট দেয়। সিয়েরা লিওনের প্রেসিডেন্ট জুলিয়াস মাদা বাও শিগগিরই এই বিলে স্বাক্ষর করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরের পর বিলটি আইনে পরিণত হবে।

সিয়েরা লিওনে সর্বশেষ মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয় প্রায় ২০ বছর আগে। দেশটিতে ১৯৯৮ সালে সর্বশেষ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল। উপনিবেশিক আমলের আইনে এতদিন মৃত্যুদণ্ডের মতো শাস্তি কার্যকর ছিল। 

সিয়েরা লিওনের প্রেসিডেন্ট, অ্যাটর্নি জেনারেল পার্লামেন্ট ও সুশীল সমাজকে ধন্যবাদ জানান দেশটির ইনস্টিটিউট ফর লিগ্যাল রিসার্চ অ্যান্ড এডভোকেসি ফর জাস্টিস (আইএলআরএজে)-এর প্রতিষ্ঠাতা বাসিতা মাইকেল। মূলত, মানবাধিকার কর্মীদের সমালোচনার মুখেই এই শাস্তি বাতিল হতে যাচ্ছে।

এর আগে আফ্রিকার আরও দুটি দেশ মৃত্যুদণ্ড আইন বাতিল করে। গত এপ্রিলে দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকার মালাভি মৃত্যুদণ্ড আইন বিলুপ্তর ঘোষণা দেয়। মধ্য আফ্রিকার দেশ চাদও একই ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়।
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের তথ্যমতে, ২০২০ সাল পর্যন্ত বিশ্বের অন্তত ১০৮টি দেশে মৃত্যুদণ্ড আইন বিলুপ্ত হয়েছে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

উইঘুর মুসলিম নির্যাতন, চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর পদক্ষেপ

উইঘুর মুসলিম নির্যাতন, চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর পদক্ষেপ

নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধের চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেলো তুরস্ক

নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধের চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেলো তুরস্ক

রাজতন্ত্রবিরোধী আন্দোলনের দায়ে সেই কিশোরকে মৃত্যুদণ্ড দিলো সৌদি

রাজতন্ত্রবিরোধী আন্দোলনের দায়ে সেই কিশোরকে মৃত্যুদণ্ড দিলো সৌদি

চীনে আগুনে পুড়ে ১৪ জনের মৃত্যু

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:২৫

চীনের জিলিন প্রদেশের একটি গুদামে অগ্নিকাণ্ডে কমপক্ষে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এতে গুরুতর আহত হন অন্তত ১২ জন। রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

স্থানীয় সময় শনিবার বিকালে চীনের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশটির শহর চাংচুনের একটি গুদামে ভয়াবহ আগুন লাগে। কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় আকাশ। খবর পেয়েই দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসে দমলকল বাহিনীর সদস্যরা। দীর্ঘক্ষণের চেষ্টায় পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।

আগুনে পুড়ে এখন পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যাম সিনহুয়া। গুরুতর দগ্ধদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানা না গেলেও তদন্ত নেমেছে কর্তৃপক্ষ। 

গত জুনে একটি মার্শাল আর্ট স্কুলে অগ্নিকাণ্ডে কমপক্ষে ১৮ জন নিহত হন। নিহতদের মধ্যে বেশির ভাগই ছিল শিক্ষার্থী। 

/এলকে/

সম্পর্কিত

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

সিরিয়ায় হামলায় তুর্কি সেনা নিহত, আঙ্কারার হুঁশিয়ারি

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৭:২২

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে অতর্কিত হামলায় দুই তুর্কি সেনা নিহত হয়েছেন। সেখানে থাকা তুরস্কের সাঁজোয়া যান লক্ষ্য করে হামলা হলে আরও দুই সেনা গুরুতর আহত হন। শনিবার দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় হতাহতের ঘটনা নিশ্চিত করেছে।

আবারও উত্তপ্ত সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল। তুরস্কের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে সম্প্রতি হামলার ঘটনা বেড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, বিদ্রোহী গোষ্ঠীদের হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন দুই তুর্কি সেনা। হামলার পর তাৎক্ষণিকভাবে গুলি ছুড়ে জবাব দিয়েছে সেনারা। এক টুইট বার্তায় তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছে, ‘সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে’।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, আল-বাব এলাকায় তাদের ওপর হামলা হয়। তুরস্ক এ ঘটনার জন্য কুর্দি বিদ্রোহীদের সন্দেহ করছে। এদের শত্রু ভেবে থাকে আঙ্কারা। সিরিয়ার অভ্যন্তরে এমন ঘটনায় আসাদ সরকারের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। হামলার কোনও গোষ্ঠী দায় স্বীকার করেনি।

সিরিয়ার উত্তরাংশ, ইরাকের উত্তরাংশ ও ইরানের উত্তরাংশ এই তিন রাষ্ট্রের উত্তরাংশ সংলগ্ন তুরস্কের বিস্তীর্ণ এলাকায় কুর্দিদের আবাসস্থল। কুর্দিরা পৃথক একটি জাতি। তবে চার রাষ্ট্রের ভেতরেই তাদের আবাসভূমির অবস্থান। যে কারণে ৭৫ বছর ধরে সংগ্রাম করার পরও তারা পৃথক জাতিসত্তা নিয়ে একটা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। কারণ তুরস্ক, ইরান, ইরাক ও সিরিয়া তাদের চেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্র।

/এলকে/এমওএফ/

সম্পর্কিত

ওয়াশিংটন শর্ত মানলেই কাবুল বিমানবন্দর চালাবে তুরস্ক

ওয়াশিংটন শর্ত মানলেই কাবুল বিমানবন্দর চালাবে তুরস্ক

তালেবানের উচিত আফগানিস্তানে দখলদারিত্ব বন্ধ করা: এরদোয়ান

তালেবানের উচিত আফগানিস্তানে দখলদারিত্ব বন্ধ করা: এরদোয়ান

তুরস্কের প্রতি হুঁশিয়ারি তালেবানের

তুরস্কের প্রতি হুঁশিয়ারি তালেবানের

উইঘুর ইস্যুতে এরদোয়ান-শি জিনপিং ফোনালাপ

উইঘুর ইস্যুতে এরদোয়ান-শি জিনপিং ফোনালাপ

দেশে দেশে লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০৭:০৮

করোনার বিধিনিষেধ বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স, ইতালি এবং ব্রাজিল। প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন ও ব্যানার নিয়ে রাস্তায় লকডাউন বিরোধী স্লোগান দিতে দেখা যায় আন্দোলনকারীদের। মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান ছুঁড়লে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় বিক্ষুব্ধদের।

বিশ্বের অনেক দেশে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউনসহ নানা বিধিনিষেধ আরোপ আছে। তবে তা আর মানতে রাজি নয় অনেকেই। ফ্রান্সে চলমান লকডাউনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামেন দেড় লক্ষাধিক মানুষ। স্বাস্থ্য বিষয়ক বিল পাসে শনিবার দেশজুড়ে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ’র বিরুদ্ধে স্লোগান দেন তারা। নতুন এই বিলের ফলে, রেস্টুরেন্ট এবং জনসমাগম স্থানে ভিড় কমতে সাহায্য করবে। 

বিক্ষোভে হয়েছে ইতালিতেও। দেশটিতে ‘গ্রিন পাস’-এর বিরুদ্ধে রাজধানী রোম, নেপলস এবং তুরিনের মতো শহরের পথে পথে জড়ো হন হাজারো মানুষ। তাদের কণ্ঠে স্বাধীনতার স্লোগান শোনা যায়। সম্প্রতি ইতালিতে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই চলে ফেরা করতে দেখা যাচ্ছে সাধারণ মানুষকে। সংক্রমণ এড়াতে সরকার আগামী ৬ আগস্ট থেকে রেস্টোরেন্ট, সিনেমা হল, ক্যাফেটেরিয়া, জিম ইত্যাদি জায়গায় প্রবেশে গ্রিন পাশের নিয়ম চালু করেছে। মূলত যারা দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন তারাই এই সার্টিফিকেট পাচ্ছেন। এর প্রতিবাদেই রাস্তায় নেমেছে অনেকে।

এদিকে, অস্ট্রেলিয়ায় সিডনির প্রাণকেন্দ্রে লকডাউনের বিরুদ্ধে কয়েক হাজার মানুষ মিছিল করেন। শনিবার রাস্তায় নেমে তারা লকডাউন বিরোধী স্লোগান দেন। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় মাস্ক ছুঁড়ে ফেলেন। সিডনি ইউনিভার্সিটির ভিক্টোরিয়া পার্ক থেকে যাত্রা শুরু করে লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভকারীরা। তাদের লক্ষ্য ছিল, টাউন হলে গিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে। তবে মাঝপথে পুলিশ তাদের থামিয়ে দেয়। মিছিলকারীরা পানির বোতল ও রাস্তার পাশ থেকে গাছ তুলে পুলিশের দিকে ছুঁড়ে মারেন।

আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, লকডাউনে তারা কাজ করতে পারছে না। বহু মানুষ কাজ হারিয়ে বিপাকে পড়েছেন। ঘরবন্দি থাকায় মানসিকভাবেও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

এদিকে, লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে হাজার হাজার মানুষ রিও ডি জেনিরোর রাস্তায় নেমে লকডাউন প্রত্যাহার এবং ভ্যাকসিনের দাবিতে বিক্ষোভে করেন। একই সঙ্গে প্রেসিডেন্ট জেইর বোলসোনারোর বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পদত্যাগের দাবি জানান আন্দোলনকারীরা।

/এলকে/

সম্পর্কিত

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

ব্রিটে‌নে জা‌লিয়া‌তির দা‌য়ে বাংলা‌দেশি সমকামীর কার‌াদণ্ড

ব্রিটে‌নে জা‌লিয়া‌তির দা‌য়ে বাংলা‌দেশি সমকামীর কার‌াদণ্ড

ডেল্টার দাপট অস্ট্রেলিয়ায়, জরুরি অবস্থা ঘোষণা

ডেল্টার দাপট অস্ট্রেলিয়ায়, জরুরি অবস্থা ঘোষণা

করোনারোধী পোশাক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে বড় অংকের জরিমানা

করোনারোধী পোশাক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে বড় অংকের জরিমানা

সর্বশেষ

বিয়ের আসর থেকে বরের পলায়ন, কনের মায়ের জরিমানা

বিয়ের আসর থেকে বরের পলায়ন, কনের মায়ের জরিমানা

চিকিৎসকসহ ৮৮৯০ স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

চিকিৎসকসহ ৮৮৯০ স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা টিকা পাবেন কবে?

কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা টিকা পাবেন কবে?

শ্রেষ্ঠত্ব আর থাকছে না মারের

অলিম্পিক টেনিসশ্রেষ্ঠত্ব আর থাকছে না মারের

সাইফউদ্দিন উইকেট নিলেও জিম্বাবুয়ের আগ্রাসী ব্যাটিং

সাইফউদ্দিন উইকেট নিলেও জিম্বাবুয়ের আগ্রাসী ব্যাটিং

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

নতুন যেসব সুবিধা পাচ্ছেন ইউনিলিভারের কর্মীরা

নতুন যেসব সুবিধা পাচ্ছেন ইউনিলিভারের কর্মীরা

প্রতিবন্ধী কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

প্রতিবন্ধী কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

৯৯৯ নম্বরে ফোন দিয়ে উদ্ধার পেলো তরুণী

৯৯৯ নম্বরে ফোন দিয়ে উদ্ধার পেলো তরুণী

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

ঢাকায় আরও ১০২ ডেঙ্গু রোগী

ঢাকায় আরও ১০২ ডেঙ্গু রোগী

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনার প্রয়োজন নেই: প্রধানমন্ত্রী আল-খাদিমি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার বিরুদ্ধে চীনের পাল্টা নিষেধাজ্ঞা

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টের শেষকৃত্যেও গুলির শব্দ

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টের শেষকৃত্যেও গুলির শব্দ

যুক্তরাষ্ট্রে বিমানযাত্রীর লাগেজে ১৫টি দৈত্যকার শামুক

যুক্তরাষ্ট্রে বিমানযাত্রীর লাগেজে ১৫টি দৈত্যকার শামুক

বিরল রোগে আক্রান্ত সিআইএ-এর শতাধিক কর্মকর্তা!

বিরল রোগে আক্রান্ত সিআইএ-এর শতাধিক কর্মকর্তা!

তালেবানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক বিমান হামলা

তালেবানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক বিমান হামলা

© 2021 Bangla Tribune