X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

প্রি-পেইড গ্রাহকের ঘাড়ে ডিজিটাল মিটারের ৩ বছরের বিল

আপডেট : ২৩ জুন ২০২১, ২২:৪১

তিন বছর ধরে প্রি-পেইড মিটারে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহজাদাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা আল-আমীন। নিয়মিত রিচার্জ করেই বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন বলে দাবি তার। তবে চলতি মাসে তাকে ডিজিটাল মিটারের বড় বকেয়ার বিল হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয়। বকেয়া আছে বলেই বন্ধ করে দেওয়া হয় তার বিদ্যুৎ সংযোগ।

অথচ তিনি বর্তমানে ব্যবহার করছেন প্রি-পেইড মিটার। তিন বছর আগে ডিজিটাল থেকে প্রি-পেইডে মিটারে আসা গ্রাহক আল-আমীন এতে হতবাক! যেই মিটার ব্যবহারই করছেন না, সেই মিটারে বকেয়া হয় কী করে? তার প্রশ্ন, ‘একই কনজ্যুমারে দুই মিটারের বিল আসে কীভাবে?’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আল-আমীন তার পিতা মহিউদ্দিন খানের হিসাব নম্বরে বৈদ্যুতিক সংযোগ ব্যবহার করছেন। তার বিদ্যুৎ বিলের হিসাব নম্বর- ২৩০০-এ এবং কনজ্যুমার নম্বর- ৩৫৪৫৭৩৬৯। নিয়মিত বিল পরিশোধ করছেন আল-আমীন। আগে মিটার ছিলো অ্যানালগ। পরে আসে ডিজিটাল। ২০১৮ সালের ৩ মে থেকে ডিজিটাল সিস্টেম বাদ দিয়ে প্রি-পেইডের যুগে প্রবেশ করে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আল-আমীনও পিডিবির গ্রাহক। ডিজিটাল মিটারের রিডিং অনুসারে পিডিবির গ্রাহক হিসেবে আল-আমীন তৎকালীন চার শতাধিক ইউনিট বিদ্যুৎ বিভাগের কাছে পাওনা ছিলেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ পাওনা ইউনিটের টাকা ফেরত তো দূরের কথা, উল্টো আগের ডিজিটাল মিটারের হিসাব নম্বরের বকেয়া দেখিয়ে ১০ হাজার ৩৩২ টাকার বিল ধরিয়ে দেয়। অথচ তিনি তিন বছর ধরে ডিজিটাল মিটারই ব্যবহার করছেন না।

আল-আমীন জানান, পিডিবির নির্দেশে ডিজিটাল মিটার বাতিল করে ২০১৮ সালের ৩ মে প্রি-পেইড সংযোগ নেন। নিয়মিত টাকা রিচার্জ করে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন। এর মধ্যে কোনও বিলের কাগজপত্রও আসেনি। দীর্ঘ তিন বছর ধরে প্রিপেইড মিটার ব্যবহার করছেন তিনি। সর্বশেষ চলতি মাসের ২ জুন নিজের বিকাশ থেকে ৫০০ টাকা রিচার্জ করেছেন। গত ৯ জুন পিডিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ২০১৮ সাল থেকে ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ডিজিটাল মিটারের তার বকেয়া বিল ১০ হাজার ৩৩২ টাকা।

এর পরদিন ১০ জুন আল-আমীনের প্রিপেইড মিটারের হিসাব বন্ধ করে দেয় বিতরণ বিভাগ কর্তৃপক্ষ। ক্ষুব্ধ আল-আমীন কাগজ নিয়ে ছুটে যান বিদ্যুৎ অফিসে। নিয়মিত বিল পরিশোধের রশিদ দেখে থমকে যায় পিডিবি কর্তৃপক্ষ। নিজেদের ভুল স্বীকার করেও তারা কৌশল করে বলেন, ‘বিল দিতে হবে’।

ভুক্তভোগী এ গ্রাহক বলেন, ‘আমার মিটারের বিল নিয়ে কর্তৃপক্ষ ভুল স্বীকার করলেও বিদ্যুৎ অফিসের সহকারী প্রকৌশলী সুমন মিয়া বলেছেন, দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা খরচ করলে তিনি কুমিল্লা থেকে সংশোধন করে দিতে পারবেন। অন্যথায় পুরো ১০ হাজার ৩৩২ টাকা দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভুল করবে পিডিবি আর মাশুল দেবে আমার মতো গ্রাহক? এটা হতে পারে না। আমি সমস্যার দ্রুত সমাধান চাই।’

এ বিষয়ে সরাইল পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী (বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ) সামির আসাব বলেন, ‘একই কনজ্যুমার নম্বরে প্রি-পেইডের পাশাপাশি ডিজিটাল মিটারের বিল হতে পারে না। আসলে কিছুটা মিসিং হয়েছে। এগুলো আমরা সংশোধন করে দিচ্ছি। আমরা গ্রাহক সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৫:১৫

লকডাউন অমান্য করে একসঙ্গে ৭০ জন যাত্রী পরিবহনের অভিযোগে জব্দ করা হয়েছে একটি জিপ (চাঁদের গাড়ি)। যাত্রীদেরকে সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সুপ্রিয় দেব।

সুপ্রিয় দেব জানান, খাগড়াছড়িতে স্থানীয়রা লকডাউন মানতে চান না। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) খাগড়াছড়িতে হাটবার থাকে। লোকজন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাজার করে বাড়িতে ফিরবে
এমনটা হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি। বাজার শেষে সদরের নয়মাইল কৃষি গবেষণা সীমানাপাড়া যাওয়ার একটি চাঁদের গাড়িতে ৭০ জন যাত্রী পরিবহন করা হয়। বলা যায় একজনের ওপর আরেক যাত্রী তুলে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছিলো। গাড়িটি আদালত মোড়ে আসলে পুলিশ চেকপোস্ট থামানো হয়।

পরে যাত্রীরা ক্ষমা চেয়ে ছাড় পায়। তবে গাড়িটি জব্দ করে খাগড়াছড়ি সদর থানায় নেওয়া হয়।

খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আবদুর রশিদ সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করে না। এরই সুযোগ নিয়ে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের ঘটনায় জিপ গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৫:০০

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে বরিশালের উজিরপুরে এক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে। এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধার তিন ছেলেসহ চার জনকে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের আটিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার হোসেন তালুকদার (৮০) আটিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। আহতরা হলেন তার ছেলে বিপ্লব তালুকদার, সোহাগ তালুকদার ও জুয়েল তালুকদার এবং বিপ্লবের স্ত্রী রোজিনা বেগম। আহতদের বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে সোনিয়া আক্তার বলেন, ‘প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা আমার বাবাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। হাসপাতালে আনার পর বাবার মৃত্যু হয়।’

শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, দেলোয়ার হোসেনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিপ্লব তালুকদার বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। সকালে নুরুল ইসলাম ৩০-৩৫ জন লোক নিয়ে বিরোধপূর্ণ জমিতে চাষাবাদ শুরু করে। খবর পেয়ে বাবা সেখানে উপস্থিত হন। এ সময় নুুরুল ইসলামের সঙ্গে বাবার বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা পিটিয়ে ও কুপিয়ে বাবাকে জখম করে। খবর পেয়ে সেখানে গেলে আমাদেরও এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আহত করা হয়।’

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আরশেদ বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যায় জড়িতদের আটক করতে পুলিশের অভিযান চলছে। এরই মধ্যে ঘটনায় জড়িতরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

কুপিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিলেন অপর নেতা  

কুপিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিলেন অপর নেতা  

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১২ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১২ মৃত্যু

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

টানা বৃষ্টিতে ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি-গাছ

টানা বৃষ্টিতে ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি-গাছ

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:৫৭

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় এক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় মাহমুদ আলী (৩০) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। গ্রেফতার মাহমুদ আলী বানিয়াচং উপজেলার কদুপুর গ্রামের সঞ্জব আলীর ছেলে।

পুলিশ ও মামলা বিবরণীতে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরীকে ২০ জুলাই সন্ধ্যায় পাশের বানিয়াচং উপজেলার কদুপুর গ্রামের মাহমুদ আলী ও তার সহযোগীরা সিএনজিতে করে নিয়ে যায়। পরে রাতভর বিভিন্নস্থানে নিয়ে তাকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে তারা। ২১ ও ২২ জুলাই সিলেটের একটি আবাসিক হোটেলে রেখেও তাকে ধর্ষণ করা হয়। পরবর্তীতে অভিযুক্ত মাহমুদ ওই কিশোরীকে নিয়ে তার নিজ বাড়িতে উপস্থিত হলে পবিারের লোকজন কিশোরীকে তার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। বাড়ি ফিরে কিশোরী ধর্ষণের বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। পরে ২৫ জুলাই ওই কিশোরীকে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় মামলা (নম্বর-৯) দায়ের করেন। ভোররাতে নবীগঞ্জ থানার ওসি মো. ডালিম আহমেদ ও পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে উপজেলার কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের রসুলগঞ্জ বাজার থেকে মূলহোতা মাহমুদ আলীকে গ্রেফতার করে। 

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদ গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

বাড়ির উঠানে স্ত্রীর লাশ পুঁতে রাখলো স্বামী

বাড়ির উঠানে স্ত্রীর লাশ পুঁতে রাখলো স্বামী

ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগের সাবেক নেতার বিরুদ্ধে কলেজছাত্রীর মামলা

ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগের সাবেক নেতার বিরুদ্ধে কলেজছাত্রীর মামলা

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:৪০

বেগমগঞ্জ উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের এক বাড়ি থেকে অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূর (২৫) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার (২৮ জুলাই) দিবাগত রাতে জসীম উদ্দিনের নতুন বাড়ি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর স্বামীকে (৩৫) আটক করা হয়েছে। 

নিহত গৃহবধূ জান্নাতুল ফেরদৌসি রুপা সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরা গ্রামের মো. ওয়াহিদুল এর মেয়ে। তার স্বামী সালাউদ্দিন সোহেল উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের পাটোয়ারী বাড়ির মৃত আবুল হাশেমের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ১০ টায় তিন সন্তানের জননী ও চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা জান্নাতুল ফেরদৌসি রুপা পরিবারের সদস্যদের অগোচরে বসতঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। 

তবে তার স্বজনদের অভিযোগ, পারিবারিক কলহের জেরে রুপাকে তার স্বামী হত্যা করে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। 

খবর পেয়ে, বেগমগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় এনে রাখে। পরে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। একইসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য স্বামী সালাউদ্দিন সোহেলকে আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ কামরুজ্জামান শিকদার বলেন, নিহতের স্বামীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:১৬

চাঁদপুর ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের আইসোশেন ইউনিটে সাত জন মারা গেছেন। বুধবার (২৮ জুলােই) রাত ১০ টা থেকে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) ভোর ৬টা পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে দুই জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. সুজাউদ্দৗলা রুবেল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ৮ ঘণ্টার ব্যবধানে হাসপাতালের আইসোলেশনে আসা রোগীদের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে দু’জন করোনা পজিটিভ ছিলেন। অন্যদের করোনা উপসর্গ ছিল।

করোনা আক্রান্ত হয়ে ফরিদগঞ্জ ও চাঁদপুর সদরের দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। উপসর্গ নিয়ে কচুয়া, খাজুরিয়া, ফরিদগঞ্জ, গনিয়া ও রামগঞ্জের একজন করে রোগী মারা গেছেন। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় ১৬ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় ১৬ মৃত্যু

সর্বশেষ

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

চার দিন পর শিশুকে উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার

চার দিন পর শিশুকে উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার

গার্মেন্টস কর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, দুজন গ্রেফতার

গার্মেন্টস কর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, দুজন গ্রেফতার

প্রতিদিন দুই ঘণ্টা করে টানা ১০ বছর সম্প্রচার!

প্রতিদিন দুই ঘণ্টা করে টানা ১০ বছর সম্প্রচার!

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

কত প্রকার মাদক আছে দেশে?

মাদক ভয়ংকর-৪কত প্রকার মাদক আছে দেশে?

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

'বাঘের জীবন রক্ষায় সুন্দরবন রক্ষা জরুরি'

আজ আন্তর্জাতিক বাঘ দিবস'বাঘের জীবন রক্ষায় সুন্দরবন রক্ষা জরুরি'

চুক্তিতে কিলিং মিশনে কাজ করতো তারা

চুক্তিতে কিলিং মিশনে কাজ করতো তারা

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ফকিরাপুলে হোটেল থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

ফকিরাপুলে হোটেল থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

লকডাউনে এক জিপ গাড়িতেই ৭০ যাত্রী! 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

ছেলের জন্য আইসিইউ বেড ছেড়ে মারা গেলেন মা

ছেলের জন্য আইসিইউ বেড ছেড়ে মারা গেলেন মা

চট্টগ্রামে তিন দিনে ৫২ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩১৫ জন

চট্টগ্রামে তিন দিনে ৫২ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩১৫ জন

বিলের মাঝখানে উপহারের ঘর, ডুবলো পানিতে

বিলের মাঝখানে উপহারের ঘর, ডুবলো পানিতে

৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ: ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ: ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

‘গরু বিক্রির ১২ লাখ টাকার জন্য মালিক-কর্মচারীকে হত্যা’

‘গরু বিক্রির ১২ লাখ টাকার জন্য মালিক-কর্মচারীকে হত্যা’

© 2021 Bangla Tribune