X
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বাড়ছে নদীভাঙন

শুধু বরাদ্দে ভাঙন থামবে?

আপডেট : ১১ জুলাই ২০২১, ১৩:০০

ভাঙন ঠেকাতে প্রতিবছর বরাদ্দ হয় কোটি কোটি টাকা। তারপরও আগের কয়েক বছরের চেয়ে এ বছর নদীভাঙন বেড়েছে রেকর্ড পরিমাণ। ভাঙন নিয়েও সক্রিয় রয়েছে স্বার্থাণ্বেষী একটি মহলও। আর এসব নিয়ে তিনপর্বের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের প্রথম পর্ব থাকলো আজ।

গত তিন বছরে দেশের প্রধান নদীসহ ছোটবড় প্রায় সব নদীর ১৬৫৮ পয়েন্টের প্রায় সাড়ে ছয় শ’ কিলোমিটার ভূমি বিলীন হয়েছে। তীরবর্তী মানুষ হারিয়েছে ঘরবাড়ি, আবাদি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বেড়েছে উদ্বাস্তুর সংখ্যা। বস্তিতে বেড়েছে চাপ। লাখ লাখ মানুষের জীবিকা পড়েছে অনিশ্চয়তায়। মূলত নির্বিচারে বালু উত্তোলন ও নদীর প্রবাহে বাধা পড়াতেই নদীভাঙন এখন বেশি দেখা যাচ্ছে।

বাংলাদেশের মোট আয়তনের প্রায় ৮০ ভাগ ভূমিই নদ-নদী অববাহিকার মধ্যে পড়ে। ছোটবড় মিলিয়ে নদ-নদী আছে তিন শতাধিক। আর এগুলোর কোথাও না কোথাও সারাবছর ভাঙতেই থাকে। বর্ষা মৌসুমে ভারত থেকে আসা ঢলে এ ভাঙন আরও তীব্র হয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের হিসাব অনুযায়ী ২০১৮, ২০১৯ ও ২০২০ সালে দেশের ১৬৫৮ পয়েন্টে ৬৪২.৯৪৮ কিলোমিটার ভেঙে নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। এসময় মেরামত বা ভাঙন ঠেকাতে ২৮৫ পয়েন্টের ৪৬.৯৫৩ কিলোমিটার সংস্কার হয়েছে। যা ভাঙনের তুলনায় খুবই কম।

২০১৮ সালে ৫২৭টি পয়েন্টে ২৯১.২৮১ কিলোমিটার ভেঙেছিল। এর মধ্যে মেরামত হয় ১৫৭টি পয়েন্টের ২৪.৩২৫ কিলোমিটার।

২০১৯ সালের ৪০৫টি পয়েন্টে ভাঙনে ক্ষতি হয় ১৫৮.০৫৩ কিলোমিটার ভূমি। যার বিপরীতে ৬৮টি পয়েন্টে ১২.৬২৮ কিলোমিটার সংস্কার করা হয়।

২০২০ সালে ৭২৬টি পয়েন্টের ১৯৩.৬৫ কিলোমিটার ভাঙনের কবলে পড়ে। এরপর ওই বছর ১৬০টি পয়েন্টের মাত্র ১০ কিলোমিটার সংস্কার করা হয়।

প্রতিবেশীদের উন্নয়নে বাংলাদেশে ভাঙন

ভারত, নেপাল, ভুটান ও চীনের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফলে উজানের পানিতে পলি ও বালু আসছে বেশি। এতে আমাদের উত্তরাঞ্চলের নদীগুলোর গভীরতা কমছে।

এক জরিপে দেখা গেছে, বছরে ভারত, নেপাল, ভুটান ও চীন থেকে এক লাখ ২২ হাজার ৪০০ কোটি টন পলি বাংলাদেশের নদীগুলোতে জমছে।

সম্প্রতি ভারতের মেঘালয় ও সিকিমে উন্নয়ন কাজ চলায় সেখানে উজাড় হচ্ছে গাছপালা। ওই গাছের শিকড় যে মাটি আঁকড়ে ধরতো সেটাও আসছে উজানের পানিতে। এতে বর্ষায় পাহাড়ি ঢল বেড়েছে। চাপ বাড়ছে দেশের নদীগুলোর তীরে।

নদী বিষয়ক সংগঠন রিভারাইন পিপল-এর মহাসচিব শেখ রোকন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘পাহাড় থেকে ঢল নেমে বদ্বীপে এলে নদীভাঙন হবেই। আমাদের এখানে নদী সবসময়ই ভাঙতো। ইদানীং বেড়েছে। তবে ডেল্টায় যদি ভাঙন থাকেও সেটা একসময় স্থিতিশীল পর্যায়ে আসার কথা। আমাদের এখানে তা হচ্ছে না। ভাঙন ক্রমাগত বাড়ছে।’

বালু উত্তোলনও বড় কারণ

নদীভাঙনের বড় কারণ- নির্বিচারে বালু উত্তোলন। এমনটা উল্লেখ করে শেখ রোকন বলেন, ‘যেসব অঞ্চল বেশি ভেঙেছে সেসব এলাকা থেকে নির্বিচারে বালু উত্তোলন করা হয়। বন্যার সময় নদীভাঙন হওয়ার কথা। কিন্তু এখন বন্যা তীব্র হওয়ার আগেই ভাঙছে। একটু বৃষ্টি হলেই দেখা যাচ্ছে পাড় ভাঙছে। নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ না হলে এমনটা হবেই।’

শেখ রোকন আরও জানালেন, এ ছাড়া উজান থেকে প্রবাহ স্বল্পতার কারণেও নদী ভাঙছে। উজান থেকে যে স্রোত আসবে সেটা বঙ্গোপসাগরে নেমে যাওয়ার কথা। কিন্তু উত্তরাঞ্চলের নদীগুলোর প্রবাহ কমায় উজান থেকে আসা মাটি ও বালু মাঝপথে আটকে যাচ্ছে। বর্ষায় পাহাড়ি ঢলের পানি আমাদের নদীগুলো ধারণ করতে পারে না। তখন তীরে পানির চাপ বাড়ে।

‘পানির টাকা জলে যাচ্ছে’

নদীভাঙন রোধে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার পরামর্শ দিয়েছেন নদী বিষয়ক সংগঠন রিভারাইন পিপল-এর মহাসচিব শেখ রোকন।

তিনি বলেন, ‘পানির টাকা জলে যাচ্ছে। বর্ষাকালের ঠিক আগে শুরু হয় ভাঙন রোধের কাজ। তখন পানিতে ব্লক ও বালুর ব্যাগ ফেলা হয়। চাঁদপুরে যে ভাঙন হচ্ছে, সেখানে এখন ব্লক ফেলা হচ্ছে। কয়টা ব্লক ফেলা হচ্ছে? সেটা কে দেখছে? কীভাবে জানবেন? পুরো পদ্ধতিতে গলদ রয়েছে। বর্ষাকালে ভাঙন প্রতিরোধে তাড়াহুড়ো করে পদক্ষেপ নেওয়া হয়। কিন্তু এটা আগেই শুরু করা উচিত। পানি উন্নয়ন বোর্ড তা করে না। করা হয় শেষ মুহূর্তে।’

শেষ মুহূর্তে কেন করা হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখানে ঠিকাদারসহ বিভিন্ন মহলের স্বার্থ রয়েছে। কমিশনের ব্যাপার আছে।’

ভাঙন রোধে বর্তমান ব্যবস্থাটি পশ্চিমা দেশগুলোর কাছ থেকে ধার করা উল্লেখ করে তিনি বলেন, “ব্লক, বালুর ব্যাগ ফেলে আমাদের নদীভাঙন ঠেকানো সম্ভব নয়। কোথাও হয়তো কার্যকর হতে পারে, তবে প্রমাণ পাইনি আমরা। চাঁদপুরে সফল হতে দেখিনি, সিরাজগঞ্জেও নয়। রামগতি, চিলমারীতেও এ পদ্ধতি কাজ করেনি। তবে স্থানীয় একটা পদ্ধতি ছিল, যাকে বলে ‘বান্ধাল’। এটা হাজার বছর আগের সংস্কৃতি। ওই ‘বান্ধাল’ দিয়ে ধীরে ধীরে ভাঙন রোধ করা যায়। কিন্তু এটা দেখা যাবে না। কারণ এতে বাজেট কম, মানে কমিশনও কম।”

তিনি পরামর্শ দেন, ‘ভাঙন রোধে সারা বছর কাজ করতে হবে। নদীর প্রবাহ ঠিক রাখতে হবে। নির্বিচারে বালু উত্তোলন বন্ধ করতে হবে। বালুমহল আইনে যেভাবে বলা হয়েছে, সেভাবে উত্তোলন করলে ভাঙন অনেকাংশে কমবে। এ ছাড়া স্থানীয় পদ্ধতি নিয়েও কাজ করতে হবে।’ 

১০৬টি প্রকল্প

অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, উত্তরাঞ্চলের নদীর গভীরতা কমে আসা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে নদীভাঙন হচ্ছে বলে সরকারও একমত।

এসব বিষয় মাথায় রেখে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প নিয়েছে উল্লেখ করে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে আসা পলি ও বালুর কারণে আমাদের নদী ভরাট হচ্ছে। তাই প্রবাহ ঠিক রাখা যাচ্ছে না। এক বছর ড্রেজিং করলাম তো পরের দু’বছর আবার ভরাট হয়ে যায়। তবে আমরা পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করছি।’

তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন প্রকল্পের ৫৭ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ৫১১টি নদী ও খাল খনন করায় নদীর ধারণক্ষমতা বেড়েছে। তাই গতবছর পাঁচবার বন্যা হলেও ক্ষতি কম হয়েছে। চলমান কাজগুলো শেষ হলে ক্ষতি আরও কমে আসবে।’

বর্তমানে ১০৬টি প্রকল্প চলমান আছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এর জন্য প্রায় ৩৪ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে। পর্যায়ক্রমে কাজ হবে। অতীতে এত বরাদ্দ রাখা হয়নি।’

 

 
/এফএ/

সম্পর্কিত

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

দ্বিতীয় ধাপে ৮১ চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০২:৫৯

দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৬ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৮১ জন চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিত চেয়ারম্যানদের সকলেই আওয়ামী লীগ প্রার্থী। মঙ্গলবার শেষ দিনে বাকি প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়ায় এসব জনপ্রতিনিধি একক প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছেন। বর্তমানে চেয়ারম্যান পদে তিন হাজার ৩১০ জন, সংরক্ষিত সদস্য পদে নয় হাজার ১৬১ জন এবং সদস্য পদে ২৮ হাজার ৭৪৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সময় শেষ হয়েছে মঙ্গলবার। বুধবার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেবেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এদিন থেকেই শুরু হবে আনুষ্ঠানিক প্রচার কার্যক্রম। আগামী ১১ নভেম্বর এসব ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সূত্র জানায়, দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৬ ইউনিয়ন পরিষদে চার হাজার ৭৫ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। মনোনয়নপত্র দাখিলের দিনই ৩১টি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে একজন করে প্রার্থী হন। তারা সবাই আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী।

মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ৫৭২ জন নির্বাচন থেকে সরে গেছেন। এতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যানের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮১ জনে। চট্টগ্রাম অঞ্চলের ১৩টি উপজেলার ৮৯টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ২১টিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তারা জয় পেয়েছেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী ৮১টি বাদে বাকি ৭৬৫ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিন হাজার ৩১০ প্রার্থী।

ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৯৩ জন তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। ভোটের মাঠে চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন নয় হাজার ১৬১জন প্রার্থী। আর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন ৭৬ জন। একইভাবে সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ২৮ হাজার ৭৪৭ জন। প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এক হাজার ৬৬৪জন। এ পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন ৩০ হাজার ৮৮৩জন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন ২০৩ জন। বাকিদের মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে বাতিল হয়েছে।

/ইএইচএস/এলকে/

সম্পর্কিত

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

ইউপি নির্বাচন: বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে আ.লীগের ৩১ প্রার্থী

ইউপি নির্বাচন: বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে আ.লীগের ৩১ প্রার্থী

দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে ৪২ হাজার প্রার্থী

দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে ৪২ হাজার প্রার্থী

১০০৭ ইউপিতে ভোট ২৮ নভেম্বর

১০০৭ ইউপিতে ভোট ২৮ নভেম্বর

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:১০

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে (এলডিসি গ্রাজুয়েশন) জাতিসংঘের সর্বাত্মক সহযোগিতা চেয়েছে তৈরি পোশাক খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) গুলশানে বিজিএমইএ পিআর অফিসে সংগঠনটির সভাপতি ফারুক হাসানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পো। এ সময় বিজিএমইএ সভাপতি এ আহ্বান জানান।

সাক্ষাৎকালে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জগুলো এবং সাবলীল উত্তরণ ও টেকসই উন্নয়নের জন্য দেশকে কোন কোন ক্ষেত্রে দৃষ্টি দিতে হবে, সেসব নিয়ে আলোচনা করেন ফারুক হাসান ও মিয়া সেপ্পো।

তারা এলডিসি পরবর্তী তৈরি পোশাক শিল্পকে প্রতিযোগিতামূলক রাখতে কৌশল নির্ধারণে গবেষণা এবং নীতি সংস্কারের ওপর গুরুত্ব দেন।

বাংলাদেশে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে তৈরি পোশাক খাত কীভাবে আরও বেশি অবদান রাখতে পারে সে বিষয়ে জাতিসংঘের সহযোগিতাও চান বিজিএমইএ সভাপতি।

/জিএম/এফএ/

সম্পর্কিত

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০

বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা চলমান কয়েকটি মামলা সম্পর্কে জানতে চেয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

মঙ্গলবার ব্রাসেলসে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে এক বৈঠকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক উইগ্যান্ড গুনার এ বিষয়ে জানতে চান।

বৈঠকের পর যৌথ এক বিবৃতিতে বলা হয় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে ইইউ জানায় ওই আইনের কয়েকটি ধারা ডিজিটাল অপরাধ দমনের থেকে অন্য কাজে বেশি ব্যবহার হচ্ছে।

গত ইউনিভার্সাল পিরিওডিক রিভিউতে বাংলাদেশ যেসব সুপারিশ বাস্তবায়নে সম্মত হয়েছিল সেগুলোর পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য ইইউ উৎসাহ প্রদান করেছে। এ ছাড়া কোভিড-পরবর্তী পরিস্থিতিতে গণতান্ত্রিক সুশাসন শক্তিশালীর বিষয়ে উভয়পক্ষ একমত হয়েছে।

সম্প্রতি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলার ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে উভয়পক্ষ সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ও যেকোনও ধরনের বৈষম্যের প্রতি নিন্দা জানায়।

/এসএসজেড/এফএ/

সম্পর্কিত

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৫১

দক্ষ ও স্বল্প-দক্ষ বাংলাদেশিদের বৈধভাবে ইউরোপে কর্মসংস্থানের আরও সুযোগ তৈরির প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ। মঙ্গলবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক উইগ্যান্ড গুনারের সঙ্গে বৈঠকে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন এই প্রস্তাব করেন।

বৈঠকের পর যৌথ এক বিবৃতিতে বলা হয়, ইউরোপে অবৈধভাবে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের ফেরত আনার জন্য স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বাস্তবায়নে বাংলাদেশে যে অগ্রগতি হয়েছে সেটাকে স্বাগত জানায় ইইউ।

এ বিষয়ে আরও ভালো ফলাফলের জন্য বাংলাদেশকে আহবান জানায় ইউরোপীয় দেশগুলোর সংগঠনটি এবং একইসঙ্গে ইউরোপে অবস্থানরত যে অবৈধ ব্যক্তিদের নাম-ঠিকানা বাংলাদেশকে দেওয়া হয়েছে সেটার বিষয়ে প্রতিবেদ্ন দেওয়ার তাগাদাও দিয়েছে তারা।

বৈঠকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন তাদের নতুন ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজি বাংলাদেশের কাছে উপস্থাপন করে। মিয়ানমার ও আফগানিস্তানের পরিস্থিতিসহ এই অঞ্চলে রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা, সমুদ্র নিরাপত্তা এবং সন্ত্রাসবাদ দমন ও সহযোগিতার বিষয়ে উভয়পক্ষ আলোচনা করে।

নিরাপদে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রত্যাবাসনের বিষয়ে উভয়পক্ষ জোর দিয়েছে এবং ভাসানচরে কাজ করা নিয়ে বাংলাদেশ সরকার ও জাতিসংঘের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরকেও স্বাগত জানিয়েছে ইইউ।

/এসএসজেড/এফএ/

সম্পর্কিত

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৫৫

বৈশ্বিক তাপমাত্রা দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখতে, গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ হ্রাস, প্যারিস চুক্তির লক্ষ্যগুলো অর্জন এবং প্যারিস রুলবুকের চূড়ান্তকরণে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এ সংক্রান্ত সকল কার্যক্রম বাস্তবায়নে বাংলাদেশ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম (সিভিএফ), ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন (আইপিইউ) এবং গ্লোবাল সেন্টার অন অ্যাডাপটেশন (সিসিএ)-এর উদ্যোগে ‘ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম-গ্লোবাল পার্লামেন্টারি গ্রুপ’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন স্পিকার। বৈশ্বিক জলবায়ুর বর্তমান পরিস্থিতিতে এ ধরনের একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর ফোরামে নেতৃত্ব দিয়ে থাকেন, সেখানে তিনি এসব দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। তাই আমরা কপ-২৬ প্লাটফর্মে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য তড়িৎ সমাধান হিসেবে ভর্তুকির আহ্বান জানিয়েছি। বাংলাদেশ শক্তির স্বাধীনতা অর্জন, নবায়নযোগ্য জ্বালানির সর্বোত্তম ব্যবহার এবং শক্তিবান্ধব প্রযুক্তি ব্যবহারে ইতোমধ্যে ‘মুজিব ক্লাইমেট প্রসপারিটি প্ল্যান’ গ্রহণ করেছে। প্ল্যানিটারি ইমার্জেন্সি মোকাবিলার মাধ্যমে গ্রহ রক্ষা এবং এর যথাযথ সংরক্ষণে বৈশ্বিক সম্মিলিত প্রয়াস অত্যন্ত জরুরি।’

অনারারি আইপিইউ প্রেসিডেন্ট সাবের হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জিসিএ সভাপতি বান কি মুন, আইপিইউ মহাসচিব মার্টিন চুংগঙ, মালদ্বীপের স্পিকার মোহাম্মদ নাশিদ, ফিলিপাইনের ডেপুটি স্পিকার লরেন লেগার্দা এবং ইউকে হাউজ অব কমন্সের সংসদ সদস্য ডেরেন জোন্স কি-নোট বক্তব্য রাখেন। সিভিএফ প্রেসিডেন্সি অব বাংলাদেশের স্পেশাল এনভয় আবুল কালাম আজাদ অনুষ্ঠানে সমাপনী বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশের সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

/ইএইচএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সমর্থন চায় বিজিএমইএ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ইইউ’র উদ্বেগ

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপে কর্মসংস্থান বাড়ানোর প্রস্তাব

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

সম্প্রীতির পরিবেশ নিশ্চিতে সরকার সবকিছু করবে: ধর্ম-প্রতিমন্ত্রী

সম্প্রীতির পরিবেশ নিশ্চিতে সরকার সবকিছু করবে: ধর্ম-প্রতিমন্ত্রী

আমরা চাই রোহিঙ্গারা ভালো থাকুক: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আমরা চাই রোহিঙ্গারা ভালো থাকুক: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

করোনায় আরও ৬ মৃত্যু, শনাক্ত ২৭৬ 

করোনায় আরও ৬ মৃত্যু, শনাক্ত ২৭৬ 

পাসপোর্ট অধিদফতরে নতুন মহাপরিচালক

পাসপোর্ট অধিদফতরে নতুন মহাপরিচালক

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার পদটিকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত করার সুপারিশ

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার পদটিকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত করার সুপারিশ

সর্বশেষ

সিরিয়া ও ইরাকে দু’বছর সামরিক মিশন বাড়ালো তুরস্ক

সিরিয়া ও ইরাকে দু’বছর সামরিক মিশন বাড়ালো তুরস্ক

রাঙামাটিতে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ গেলো ইউপি সদস্যের

রাঙামাটিতে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ গেলো ইউপি সদস্যের

সাতক্ষীরায় ১০ সাংবাদিক পেলেন মিডিয়া ফেলোশিপ

সাতক্ষীরায় ১০ সাংবাদিক পেলেন মিডিয়া ফেলোশিপ

বুয়েটে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

বুয়েটে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

বিশ্বকাপ শেষ সাইফউদ্দিনের, মূল দলে রুবেল

বিশ্বকাপ শেষ সাইফউদ্দিনের, মূল দলে রুবেল

© 2021 Bangla Tribune