X
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বাড়ছে নদীভাঙন

৫৫ হাজার পরিবার নিঃস্ব, ক্লান্ত

আপডেট : ১৩ জুলাই ২০২১, ০৯:০০

ভাঙনে উজাড় হচ্ছে জমি। বিলীন হচ্ছে হাজারো বসতবাড়ি। এক তালিকা তৈরি শেষ হতেই নতুন করে কড়া নাড়ছে বন্যা। নদীভাঙনের ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ থাকলো দ্বিতীয় পর্ব।

গতবছরের বন্যায় দেশের ২৯টি জেলায় দেখা দেয় তীব্র ভাঙন। আর তাতেই ১০৯টি উপজেলার ৫৫ হাজার ২২১টি পরিবারের জমিজমা ও বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর সহায়তা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে ২০২০ সালের শেষের দিকে একটি তালিকা করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর। তাতেই উঠে এসেছে এ তথ্য।

এদিকে তালিকা প্রকাশ পেতে না পেতেই ফের বন্যার আশঙ্কায় তীরবর্তী নুষের কপালে পড়েছে চিন্তার ভাঁজ।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে তৈরি করা ওই তালিকায় দেখা যায়, দেশের প্রধান প্রধান নদীগুলোর তীরবর্তী জেলার মানুষই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

নদীভাঙন রোধে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ১০৬টি প্রকল্প চলমান রয়েছে। প্রায় ৩৪ হাজার কোটি টাকার কাজ হবে প্রকল্পগুলোতে। মন্ত্রণালয়ের দাবি, প্রকল্পের কাজ শেষ হলে আগের তুলনায় নদীভাঙনের ক্ষতি কম হবে।

তালিকা অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে ভোলায়। এই জেলার ১২ হাজার ৬৯টি পরিবার ভাঙনের শিকার। এরপরই আছে কুড়িগ্রাম, সিরাজগঞ্জ, গাইবান্ধা ও নোয়াখালী।

অধিদফতরের তালিকা

পরিবার ধরে ক্ষতিগ্রস্তের তালিকা করেছে অধিদফতর। ক্ষতির শিকার হয়েছে-

মুন্সীগঞ্জের পাঁচ উপজেলার ৮১৮টি পরিবার।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের তিন উপজেলার ১১৭৭টি।

লালমনিরহাটের চার উপজেলার ৭৬৮টি।

বগুড়ার তিন উপজেলার ১২৪৫টি।

মাদারীপুরের চার উপজেলার ১৪৪৯টি।

গাইবান্ধার চার উপজেলার ৩৯৮৯টি।

রাজবাড়ীর চার উপজেলার ১১১৭টি।

কিশোরগঞ্জের সাত উপজেলার ১১১০টি।

নোয়াখালীর দুই উপজেলার ৩২৯৯টি।

বাগেরহাটের দুই উপজেলার ৩৯৩টি।

জামালপুরের সাত উপজেলার ৫৬১টি।

ফরিদপুর চার উপজেলার ৮৫৪টি।

চাঁদপুরের তিন উপজেলার ১২৯২টি।

ঢাকার দুই উপজেলার ৭২৬টি।

পাবনার এক উপজেলার ১৩৫টি।

মানিকগঞ্জের পাঁচ উপজেলার ৮৭৩টি।

টাংগাইলের ছয় উপজেলার ৪১৬০টি।

ঝালকাঠির চার উপজেলার ৬৫৯টি।

গোপালগঞ্জের এক উপজেলার ২৫৩টি।

লক্ষ্মীপুরের চার উপজেলার ২৭৮৬টি।

সিরাজগঞ্জের পাঁচ উপজেলার ৪৪৯৮টি।

রংপুরের তিন উপজেলার ৮৮৩টি।

নীলফামারীর এক উপজেলার ২৭টি।

পিরোজপুর ছয় উপজেলার ১৫২০টি।

নড়াইলের দুই উপজেলার ৩৭০টি।

শরীয়তপুরের চার উপজেলার ৭৬৪টি।

কুড়িগ্রামের ছয় উপজেলার ৪৫৫৮টি ও

বরিশালের আট উপজেলার ২৮৬৮টি পরিবার।

প্রতিবছরই মেঘনার ভাঙনের কবলে পড়ে নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলের ফসলি জমি, রাস্তা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ঘর-বাড়ি বিলীন হচ্ছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ- ভাঙন রোধে নেওয়া হচ্ছে না স্থায়ী কোনও ব্যবস্থা। চরাঞ্চলের এসব ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের মানুষ নিজেরাই বালির বস্তা, বাঁশ ও বেড়া দিয়ে কোনোভাবে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করে।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলের ৮ ইউনিয়নের চাঁনপুর, চরমধুয়া, মির্জার চর ও শ্রীনগর ইউনিয়ন মেঘনার ভাঙনের কবলে পড়েছে। এ চার ইউনিয়নের ১৫ গ্রামে প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে ভাঙন দেখা দেয়।

ভাঙনে বিলীন হয়েছে চাঁনপুর ইউনিয়নের কালিকাপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের ৩৫ বসতভিটা। এর আগেও ওই ইউনিয়নের ৬টি গ্রাম- সওদাগরকান্দি, ইমামদিকান্দি, কুড়েরপাড়, মোহিনীপুর, চানঁপুর ও কালিকাপুরের কয়েক শ’ একর জমি, বাজার, রাস্তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ঘরবাড়ি বিলীন হয়েছে। অনেক গ্রামের প্রায় ৬০ শতাংশও বিলীন হয়েছে বলে জানা গেছে।

চরমধুয়া গ্রামের বাসিন্দা খলিলুর রহমান রানা বলেন, ‘প্রতিবছর ভাঙনের কবলে পড়ে এলাকার ভৌগলিক চিত্র পাল্টে যাচ্ছে। নদীর সঙ্গে যুদ্ধ করে আমরা নিঃস্ব, ক্লান্ত।’ 

মূলত ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত অতি দরিদ্র ও দুস্থ পরিবারগুলোকে আর্থিক সহযোগিতা ও তাদের জীবনমান উন্নয়নে এ তালিকা করেছে সরকার। ঘর নির্মাণ, প্রতিবন্ধী ও নারী-শিশুদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণসহ সামজিক বেষ্টনীর আওতা বাড়ানো হবে তালিকার ভিত্তিতে।

ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতা করতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচবিকে সভাপতি করে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের কর্মকর্তাসহ ১৫ সদস্যের একটি জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটি করা হয়েছে। তারা জেলা প্রশাসকদের নেতৃত্বে স্থানীয় কমিটিকে নির্দেশনা দিবেন। 

সংস্কারের জায়গা থেকেও বালু উত্তোলন

পানি উন্নয়ন বোর্ড যেসব নদীর তীরের সংস্কার করে, সেসব নদী থেকেও অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হয় বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক।

তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা সকল জেলা প্রশাসকদের চিঠি দিয়েছি, যাতে কোনও নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা না হয়। কিন্তু তারপরও রাতের আঁধারে কিছু অসাধু লোক বালু তুলছে। এমনকি যেসব তীর আমরা সংস্কার করেছি, সেখান থেকেও উত্তোলন করা হচ্ছে। এটা কেবল পুলিশ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের সদস্যরা ঠেকাতে পারবে না। স্থানীয়দেরও সচেতন হতে হবে। বাধা দিতে হবে অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের।’

 

/এফএ/আপ-এনএইচ/

সম্পর্কিত

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

আইনজীবীদের ভোকেশনাল কোর্স চালুতে উদ্যোগ নেবে ‘বিলিয়া’

আইনজীবীদের ভোকেশনাল কোর্স চালুতে উদ্যোগ নেবে ‘বিলিয়া’

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০১:১২

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে এক পোশাক শ্রমিক গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতের নাম মোঃ মুন্না (১৭)। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) রাতে রাজধানীর গাবতলীর পর্বত সিনেমা হলের পাশে ব্রিজের ঢালে এই ঘটনা ঘটে।  

তিনি আমিন বাজারের একটি পোশাক কারখানায় আয়রন ম্যান হিসেবে কাজ করেন। কাজ শেষে প্রতিদিনের মতো হেঁটে মিরপুর দারুস সালাম লালকুঠির বসুপাড়া বাসায় ফিরছিলেন মুন্না। হঠাৎ কয়েকজন ছিনতাইকারী পথ রোধ করে তার কাছে থাকা মোবাইল ও টাকাপয়সা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। একপর্যায়ে মুন্না চিৎকার করলে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। তবে তার কাছ থেকে কিছুই নিতে পারেনি।   

খবর পেয়ে আহতের চাচা মামুন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। আহতের বরাতে চাচা মামুন ঘটনার বিস্তারিত জানান। আহতের বাবার নাম ইউসুফ আলী। 

ঢাকা মেডিক্যাল পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী উপ-পরিদর্শক এএসআই আব্দুল খান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, মুন্না বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে অবিহিত করা হয়েছে।  

/এআইবি/এআরআর/এলকে/

সম্পর্কিত

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

ঢামেকে পরীক্ষার কথা বলে নিয়ে যাওয়া রোগী উধাও

ঢামেকে পরীক্ষার কথা বলে নিয়ে যাওয়া রোগী উধাও

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:০৭

রাজধানীর বনানীতে রেইনট্রি হোটেলে দুই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনায় আপন জুয়েলার্সের স্বত্বাধিকারী দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করা হবে আজ (২৭ অক্টোবর)। আসামিদের উপস্থিতিতে দণ্ডাদেশ দেবেন ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক বেগম মোছা. কামরুন্নাহারের আদালত।

সাফাত ছাড়া অপর আসামিরা হলেন সাফাতের বন্ধু নাঈম আশরাফ ওরফে এইচএম হালিম, সাদমান সাকিফ, দেহরক্ষী রহমত আলী ও গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন।

গত ৩ অক্টোবর মামলার উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শেষ হয়। এরপর রায় ঘোষণার জন্য ১২ অক্টোবর দিনটি ধার্য করেন আদালত। কিন্তু অসুস্থতার কারণে বিচারক ছুটিতে থাকায় তা হয়নি। তাই রায়ের জন্য নতুন দিন হিসেবে ২৭ অক্টোবরকে ধার্য করা হয়। 

এর আগে ২২ আগস্ট একই আদালতে আসামিরা আত্মপক্ষ সমর্থনে নিজেদের নির্দোষ দাবি করেছেন। মামলায় চার্জশিটভুক্ত ৪৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ২২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন আদালত। 

সাদমান সাকিফ (ছবি: নাসিরুল ইসলাম)

২০১৭ সালের ৬ মে পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়। এর একমাস পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের উইমেন সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের (ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার) পরিদর্শক ইসমত আরা এমি আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১৭ সালের ১৩ জুলাই আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ রাত ৯টা থেকে পরদিন সকাল ১০টা পর্যন্ত আসামিরা মামলার বাদী এবং তার বান্ধবী ও বন্ধুকে আটকে রাখে। অস্ত্র দেখিয়ে ভয়-ভীতি প্রদর্শন ও অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে। পরে বাদী ও তার বান্ধবীকে জোর করে একটি কক্ষে নিয়ে যায় আসামিরা। সেখানে বাদীকে সাফাত আহমেদ ও তার বান্ধবীকে নাঈম আশরাফ একাধিকবার ধর্ষণ করে।

অভিযোগে আরও বলা হয়, আসামি সাদমান সাকিফকে দুই বছর ধরে চেনেন মামলার বাদী। তার মাধ্যমে ওই ঘটনার ১০-১৫ দিন আগে সাফাতের সঙ্গে দুই শিক্ষার্থীর পরিচয় হয়। পরে সাফাত তার জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কথা বলে ওই দুইজনকে আমন্ত্রণ জানালে তারা যেতে সম্মত হন। আমন্ত্রণ জানাতে গিয়ে তাদের বলা হয়েছিল, অনেক লোকজনের উপস্থিতিতে বড় একটি অনুষ্ঠান হবে। 

ঘটনার রাতে সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষী তাদের দুইজনকে বনানীর ২৭ নম্বর রোডে অবস্থিত হোটেল রেইনট্রিতে নিয়ে যায়। সেখানে তারা অন্য কোনও লোকজন দেখতে পাননি। কোনও আয়োজন না দেখে তারা চলে যেতে চাইলে আসামিরা তাদের গাড়ির চাবি শাহরিয়ারের কাছ থেকে নিয়ে তাকে মারধর করে। পরে বাদী ও তার বান্ধবীকে হোটেলের একটি রুমে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় সাফাত তার গাড়িচালককে ধর্ষণের ঘটনার ভিডিও ধারণ করতে বলেন। বাদীকে নাঈম আশরাফ মারধরও করেন।

/এমএইচজে/জেএইচ/

সম্পর্কিত

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

শিক্ষাকে জীবন ও সংস্কৃতিমুখী করা হচ্ছে: ডা. দীপু মনি

শিক্ষাকে জীবন ও সংস্কৃতিমুখী করা হচ্ছে: ডা. দীপু মনি

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০

হাইকোর্টের একটি মামলার সংবাদ পরিবেশনাকে কেন্দ্র করে চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মাসউদুর রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) এর কপি পাওয়া যায়। গতকাল (২৫ অক্টোবর) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মুশফেক আলম সৈকত নামের এক ব্যক্তি বাদী হয়ে এটি দায়ের করেন। তিনি সরকারের একজন প্রতিমন্ত্রীর সন্তান।

সাংবাদিক মাসউদুর রহমান ছাড়াও বাদীর সাবেক স্ত্রী তাসনোভা ইকবাল, সাবেক শাশুড়ি নাজমা সুলতানা, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ ও টিভি চ্যানেলটির বার্তা সম্পাদককে মামলায় বিবাদী করা হয়েছে।

জানা যায়, তাসনোভার সঙ্গে মামলার বাদী সৈকতের বিয়ের পর ২০১৬ সালের ১৮ ডিসেম্বর তাদের কন্যাসন্তান জন্ম নেয়। এরপর তাসনোভা পড়াশোনার জন্য স্বামী-সন্তানসহ মালয়েশিয়ায় যান।

মামলার অভিযোগ অনুযায়ী, তাসনোভা বিদেশে নিজের খেয়াল-খুশিমাফিক চলার ইচ্ছে পোষণ করে স্বামী-সন্তানকে দেশে ফিরে যেতে বলেন। এরপর প্রতিমন্ত্রী বাবার খরচে সৈকত নিজের সন্তানকে নিয়ে ২০১৮ সালের ৫ অক্টোবর দেশে ফেরেন। এর ১১ মাস পর তাসনোভা দেশে আসেন। তবে দেশে ফিরে সন্তানের সঙ্গে দেখা না করে এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াতে থাকেন। একপর্যায়ে সম্পর্কের বনিবনা না হওয়ায় চলতি বছরের ২৬ আগস্ট তাদের তালাক নিবন্ধন সম্পন্ন হয়। এরপর এ বিষয়ে আদালতে মামলা গড়ায়।

বাদীর দাবি, আগের মামলা বিচারাধীন থাকাবস্থায় গত ২২ অক্টোবর চ্যানেল টোয়েন্টিফোরে দুপুরের খবরে সৈকত ও তার একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী বাবাকে হেয় করে আসামিদের অসত্য বক্তব্য প্রচারিত হয়। সংবাদটি পরিবেশন করে মামলার বাদী ও তার প্রতিমন্ত্রী বাবার মানহানির ঘটনায় বিবাদীদের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে মামলায় বিবাদীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আর্জি জানানো হয়েছে।

/বিআই/জেএইচ/

সম্পর্কিত

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

আইনজীবীদের ভোকেশনাল কোর্স চালুতে উদ্যোগ নেবে ‘বিলিয়া’

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২২:২৩

২০০৭ সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া আইনজীবীদের মানোন্নয়নমূলক ভোকেশনাল কোর্স নতুন করে চালুর বিষয়ে উদ্যোগী হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ল' অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স (বিলিয়া)। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) রাজধানীতে বিলিয়া’র কনফারেন্স হলে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান এ কথা বলেন।

অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, বিলিয়া মূলত একটি গবেষণাধর্মী প্রতিষ্ঠান। এখানে মুক্ত চিন্তাগুলো কাঁধে কাঁধ হাতে হাত রেখে চলে। সে মুক্ত চিন্তাগুলো আমাদের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধের সঙ্গে সম্পর্কিত থেকে কাজ করে। তাই ভবিষ্যতেও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আকাঙ্ক্ষিত এই প্রতিষ্ঠান থেকে আমরা বাংলাদেশের মানুষের জন্য কাজ করে যেতে চাই।

মিজানুর রহমান বলেন, বিলিয়ার লাইব্রেরি দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল। করোনা থেকে উত্তরণের পর আবার সে লাইব্রেরি চালু হবে। সেখানে আইনসহ অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা দেশি-বিদেশি বই পড়তে ও তথ্য জানতে পারবে। এছাড়াও আইনের শিক্ষার্থীদের সিনিয়র আইনজীবীদের সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হয়। যেন তারা দক্ষ হয়ে উঠতে পারে। পাশাপাশি বিভিন্ন ওয়েবিনারসহ বেশকিছু আনুষ্ঠানিকতায় আমরা আইন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যুক্ত থেকে গবেষণামূলক কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।

বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি মুজিবনগর সরকারের দিনলিপি নিয়ে একটি গ্রন্থ প্রণয়নে কাজ করছে বলেও জানানো হয়। 

মতবিনিময় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, বিলিয়ার রিসার্চ ফেলো ড. নুর মোহাম্মাদ সরকার, রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট মাহতাব হোসেন, সুমাইয়া সারওয়াত প্রমুখ।

/বিআই/এমআর/

সম্পর্কিত

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২২:০৯

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ ‍নিতে আসা মানুষের উপচেপড়া ভিড় দেখা যাচ্ছে। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) বিকালে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। টিকাপ্রত্যাশী এসব মানুষের ৮০ শতাংশই প্রবাসী। প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ দুটিই চলছে একসঙ্গে, যে কারণে ভিড় এত বেশি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

ঢামেক হাসপাতালে ৩ ধরনের টিকা দেওয়া হচ্ছে, সিনোফার্ম, অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও ফাইজার। এর মধ্যে ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ। বাকি দু ধরনের টিকা দেওয়া হচ্ছে শুধু দ্বিতীয় ডোজ। একটি কেন্দ্রের ৮টি বুথের মধ্যে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪ পর্যন্ত টিকা প্রদান করা হচ্ছে।

ঢামেক হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক আশরাফুল আলম বলেন , এ চাপ আগামী দু-তিন দিন থাকবে। চাপের অন্যতম কারণ প্রবাসীদের দ্বিতীয় ডোজ। এখন প্রতিদিনই তিন হাজারেরও বেশি টিকা দেওয়া হচ্ছে। সোমবার দেওয়া হয়েছে ৩ হাজার ২শ জনকে। আজও এমনই হবে। বেলা দুইটা পর্যন্ত দেওয়ার কথা থাকলেও সন্ধ্যা পর্যন্ত দেওয়া হচ্ছে টিকা। কাউকে ফেরত দেওয়া হচ্ছে না। প্রতিদিন গড়ে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার মানুষকে ৩ ধরনের টিকা দেওয়া হচ্ছে। যাদের মধ্যে প্রবাসীই ৮০ শতাংশেরও বেশি। 

নোয়াখালীর রায়পুরের বাসিন্দা এক সৌদি প্রবাসী বলেন, আমি ফাইজারের ২য় ডোজ নেবো। সকাল ৭টা থেকে লাইনে আছি। বিকাল ৪টা পর্যন্তও টিকা নিতে পারেন নি।

মাদারীপুরের বাসিন্দা সৌদি প্রবাসী রাশিদুল জানান, তিনি ভোর পাঁচটায় লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে বিকাল পৌনে চারটায় ২য় ডোজ নিয়েছেন।

/এআইইবি/এমআর/

সম্পর্কিত

‘ঢাকা মেয়র কাপ আন্তওয়ার্ড ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর ২২ ডিসেম্বর

‘ঢাকা মেয়র কাপ আন্তওয়ার্ড ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর ২২ ডিসেম্বর

রাজধানীর বংশালে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

রাজধানীর বংশালে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

ধানমন্ডির আড্ডা রেস্তোরাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা

ধানমন্ডির আড্ডা রেস্তোরাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা

যাত্রাবাড়ীর দুই প্রতিষ্ঠানকে আট লাখ টাকা জরিমানা

যাত্রাবাড়ীর দুই প্রতিষ্ঠানকে আট লাখ টাকা জরিমানা

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

কারখানা থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর কবলে পোশাক শ্রমিক

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় আজ

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

আইনজীবীদের ভোকেশনাল কোর্স চালুতে উদ্যোগ নেবে ‘বিলিয়া’

আইনজীবীদের ভোকেশনাল কোর্স চালুতে উদ্যোগ নেবে ‘বিলিয়া’

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

ঢামেকে পরীক্ষার কথা বলে নিয়ে যাওয়া রোগী উধাও

ঢামেকে পরীক্ষার কথা বলে নিয়ে যাওয়া রোগী উধাও

শিক্ষাকে জীবন ও সংস্কৃতিমুখী করা হচ্ছে: ডা. দীপু মনি

শিক্ষাকে জীবন ও সংস্কৃতিমুখী করা হচ্ছে: ডা. দীপু মনি

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

প্রতারণার মামলায় সেই সাহেদকে জামিন দেননি হাইকোর্ট 

প্রতারণার মামলায় সেই সাহেদকে জামিন দেননি হাইকোর্ট 

টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

সর্বশেষ

সিরিয়া ও ইরাকে দু’বছর সামরিক মিশন বাড়ালো তুরস্ক

সিরিয়া ও ইরাকে দু’বছর সামরিক মিশন বাড়ালো তুরস্ক

রাঙামাটিতে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ গেলো ইউপি সদস্যের

রাঙামাটিতে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ গেলো ইউপি সদস্যের

সাতক্ষীরায় ১০ সাংবাদিক পেলেন মিডিয়া ফেলোশিপ

সাতক্ষীরায় ১০ সাংবাদিক পেলেন মিডিয়া ফেলোশিপ

বুয়েটে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

বুয়েটে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

বিশ্বকাপ শেষ সাইফউদ্দিনের, মূল দলে রুবেল

বিশ্বকাপ শেষ সাইফউদ্দিনের, মূল দলে রুবেল

© 2021 Bangla Tribune