X
বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৮:২০

তিন দিনের টানা বর্ষণে ডুবলো বান্দরবান শহরের নিম্নাঞ্চল। এছাড়াও ডুবেছে লামা, আলীকদম এবং নাইক্ষ্যংছড়ির বিভিন্ন সড়ক ও নিম্নাঞ্চল। এতে বন্ধ হয়ে গেছে সব ধরনের যান চলাচল। ভারী বর্ষণে পাহাড়ধসের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে পুরো জেলাজুড়ে। এছাড়াও পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষ। নতুন করে প্লাবিত হচ্ছে বিভিন্ন এলাকা।

সোমবার (২৬ জুলাই) মধ্যরাত থেকে ভারী বর্ষণ শুরু হয়। থেমে থেমে টানা তিন দিনের ভারী বর্ষণে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে।

এদিকে সড়কে পানি ওঠায় ভোগান্তিতে পড়েছেন জনসাধারণ। স্বাস্থ্যকর্মী, জরুরি সংবাদপত্রের গাড়িসহ মোটরসাইকেল আরোহীরা নৌকায় করে চলাচল করছেন। বিভিন্ন জায়গায় ছোটখাটো পাহাড়ধসের ঘটনাও ঘটেছে। তবে এতে কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

সরেজমিন দেখা গেছে, বান্দরবান পৌরসভার আর্মিপাড়া, মেম্বারপাড়া, হাফেজঘোনা, শেরেবাংলা নগর, বনানী সমিল এলাকা, ইসলামপুর, কালাঘাটার ড্রাইভার পাড়া, ক্যাচিংঘাটাসহ শহরের নিম্নাঞ্চল ডুবে গেছে। বৃষ্টি না থামায় এসব এলাকার অবস্থার অবনতি হচ্ছে।

এছাড়াও লামা-আলীকদমের লাইনঝিরি, শিলেরতুয়া, সিবাতলী, দরদরাঝিরি এলাকা, রুমা, থানচি এবং নাইক্ষ্যংছড়ির বিভিন্ন সড়ক ও নিম্নাঞ্চল ডুবে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

জেলা প্রশাসক ইয়াসমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, ‘বন্যাদুর্গতরা বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্র ও বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিচ্ছে। এছাড়াও সব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে স্কুল-কলেজ পরিষ্কার করে খুলে দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পর্যাপ্ত পরিমাণে শুকনো খাবার রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

সুদিনের মৌমাছিদের কমিটিতে স্থান নেই: কৃষিমন্ত্রী

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৮

অসৎ, সুযোগসন্ধানী ও সুদিনের মৌমাছির মতো যারা দলে ভিড়েছে, তাদেরকে কোনোমতেই কমিটিতে স্থান দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেছেন, ‘কমিটিতে তৃণমূলের পরীক্ষিত, নিবেদিত ও দুঃসময়ে যারা পাশে ছিলেনে সেসব কর্মীদেরকে জায়গা দিতে হবে।’

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ দেড় বছর ধরে চলা করোনার প্রকোপের কারণে আওয়ামী লীগের অনেক জেলা, উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড সম্মেলন করা সম্ভব হয়নি। অনেক কমিটিই মেয়াদোত্তীর্ণ। এই মুহূর্তে করোনার সংক্রমণ অনেকটা কমে এসেছে। এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ শুরু করতে হবে। দলকে সুসংগঠিত করতে অতিদ্রুত সম্মেলন করা হবে। একইসঙ্গে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষকলীগসহ দলের সহযোগী সংগঠনকেও আরও সুসংগঠিত করতে হবে।’

স্থানীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘সামনে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীরা যাতে বিজয়ী হতে পারে, সে লক্ষ্যে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। সবাইকে দলের শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে। যারা আওয়ামী লীগ করেও নৌকার প্রার্থীদের হারানোর চেষ্টায় বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মধুপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার শফিউদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় সাধারণ সম্পাদক ও  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান আবু, পৌর মেয়র সিদ্দিক হোসেন খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

গাজীপুরে একদিনে ৩ জনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

গাজীপুরে একদিনে ৩ জনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

কক্সবাজারে ১৩ আ.লীগ নেতাকে বহিষ্কার

কক্সবাজারে ১৩ আ.লীগ নেতাকে বহিষ্কার

মেয়রের বাড়ির দেয়ালসহ ৪০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

মেয়রের বাড়ির দেয়ালসহ ৪০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

‘বঙ্গবন্ধুর ছবি আদর্শ ও অনুপ্রেরণার উৎস’

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:২৩

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবির দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, ‘এটা কোনও ব্যক্তির নয়, এটা বাংলাদেশের ছবি, আদর্শের ছবি, অনুপ্রেরণার ছবি। ব্যক্তিকে অতিক্রম করে সেই ছবি হয়ে উঠেছে আমাদের সকল প্রেরণার উৎস।’

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে জামালপুরের সরিষাবাড়ী কামারাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক স্মরণসভায় প্রধান অতিথির ব্ক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মুজিব আদর্শ বাস্তবায়নে নিরন্তরভাবে কাজ করে যাওয়া প্রয়াত আবুল কালাম মন্ডল স্মরণে এ সভার আয়োজন করা হয়।

মুরাদ হাসান বলেন, ছবির পেছনের মহানায়ক, আমরা মুক্তিযুদ্ধের পরের প্রজন্ম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি আমাদের পথ দেখায়, জনসেবায় আত্মনিয়োগ করতে উৎসাহ যোগায়। এই ছবিতে নিহিত আছে আদর্শ। এই আদর্শের পথ বেয়ে আজকের বাংলাদেশ ও আগামীর সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ। 

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যারা দেখেছেন তারা সৌভাগ্যবান, যারা দেখেননি সেই ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য প্রতি ঘরে ঘরে তার ছবি রাখা উচিত। ইতিহাসের হাত ধরেই আমরা উন্নয়নের মহাসড়কে, আমাদের যেতে হবে সমৃদ্ধির সর্বোচ্চ শিখরে। বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বে মুক্তিকামী মানুষের জন্য এক অনন্য ইতিহাস। একটি ছবি যখন অনুপ্রাণিত করে, সেই ছবি আমাদের দৃষ্টিতে থাকা উচিত। কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নয়, নিজেকে আদর্শবান ও নৈতিকতায় বলীয়ান করে অন্যায়ের প্রতিবাদী হতে সাহসও যোগাবে।

কামরাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আখতার হোসাইনের সভাপতিত্বে এবং নূরুল ইসলামের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছানোয়ার হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, উপজেলা চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন পাঠান ও মেয়র মনির উদ্দিন প্রমুখ।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

‘সাহস থাকলে দেশে আসুন, আপনার সঙ্গে খেলতে চাই’

‘সাহস থাকলে দেশে আসুন, আপনার সঙ্গে খেলতে চাই’

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

১৫ বছর আগে মেহেদীকে বলা হাথুরুর কথাই সত্যি হলো

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৬

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে লাল সবুজের জার্সি গায়ে টাইগারদের সঙ্গে ড্রেসিংরুম শেয়ার করার সুযোগ পেয়েছেন খুলনার তরুণ ক্রিকেটার শেখ মেহেদী হাসান। খেলোয়াড় জীবনের শুরুতে খুলনার শেখ আবু নাসের ক্রিকেট স্টেডিয়ামকে বাড়ির উঠোন বানিয়েছিলেন তিনি। পরিবারের সদস্যদের মতে বাড়ির চেয়ে মাঠেই কাটতো মেহেদীর দিনের বেশিটা সময়। সেখানে থেকে আর ফিরতে হয়নি তাকে। এবার বিশ্বের বিভিন্ন মাঠ যেন মেহেদীর বাড়ির উঠোন হয়ে উঠে এমনটাই প্রত্যাশা তার পরিবারের সদস্যদের। 

মহানগরীর বয়রার বৈকালী এলাকার ফকির বাড়িতে মেহেদীদের চার পুরুষের বসবাস। বাবার নাম শেখ আব্দুল মান্নান, মা মমতাজ বেগম। মেহেদীরা চার বোন ও দুই ভাই। সবাই বিবাহিত। শেখ মেহেদী হাসানের পথচলা শুরু ক্লাসিক ক্রিকেট ক্লিনিকে। কোচ মনোয়ার আলী মনুর তত্ত্বাবধানে জায়গা পেয়েছিলেন খুলনার বিভিন্ন বয়সভিত্তিক দলে। সেখান থেকেই উঠে আসেন তিনি। 

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নজর কেড়েছেন মেহেদী হাসান। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একাধিক ম্যাচে একই সঙ্গে ব্যাট ও বল হাতে ভালো করেছেন তিনি। অনেকটাই সব্যসাচী পারফরম্যান্সে দর্শকদের মুগ্ধ করেছেন মেহেদী। 

২০১৮ সালে টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হয় মেহেদী হাসানের। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এখন পর্যন্ত ১৮ ম্যাচ খেলে ১২০ রান করেছেন তিনি। পাশাপাশি ১৫টি উইকেটও আছে তার ঝুলিতে। 

মেহেদীর বাবা মা বর্তমানে বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ। তবে ছেলের সাফল্যে তিনি ভীষণরকমের খুশি।

মেহেদীর বড় ভাই শেখ মিজানুর রহমান বলেন, ছোটবেলা থেকেই মেহেদী ক্রিকেট পাগল। পাশেই বিভাগীয় স্টেডিয়াম। সেখানেই তার আড্ডা থাকতো। ২০০৬ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ এর খেলা চলাকালে মেহেদী আরব আমিরাত দলের নেট প্র্যাকটিসে বল করার সুযোগ পায়। সে সময় ওই দলের কোচ ছিলেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। মেহেদী হাথুরুর নজরে পড়েন। তখন হাতে থাকা প্র্যাকটিস ব্যাট মেহেদীকে উপহার দিয়ে হাথুরু বলেছিলেন ‘তুমি একদিন জাতীয় দলে ভালোভাবে জায়গা করে নেবে, প্র্যাকটিস চালিয়ে যাও’।

বৈকালীতে শেখ মেহেদী হাসানের প্রতিবেশী ওবায়দুল ফকির বলেন, মেহেদী উদীয়মান ক্রিকেটার। খেলাধুলায় আগ্রহ ছিল ভালো। এর ফল হিসেবেই আজ সে সাফল্য পেয়েছে। তার এ সাফল্যে প্রতিবেশী ও অন্যরাও সবাই খুশি। 

এদিকে সম্প্রতি মেহেদী বোলিং ক্যারিয়ারের র‍্যাংকিংয়ে সবচেয়ে বড় লাফ দিয়েছে। ৯১তম স্থান থেকে এক লাফে তিনি উঠে এসেছেন ২৪তম স্থানে। কিপটে বোলিং করার পুরস্কার তার এই বিশাল উন্নতি। মেহেদীর রেটিং ৫৩৬। আগের রেটিং ছিল ৩৭৮।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

চাকরি দেওয়ার কথা বলে ডেকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

চাকরি দেওয়ার কথা বলে ডেকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

প্রাইভেট কার খালে পড়ে ইউপি চেয়ারম্যানসহ নিহত ২

প্রাইভেট কার খালে পড়ে ইউপি চেয়ারম্যানসহ নিহত ২

পড়ে আছে অর্ধকোটি টাকার যন্ত্র, ডেঙ্গু চিকিৎসা ব্যাহত

পড়ে আছে অর্ধকোটি টাকার যন্ত্র, ডেঙ্গু চিকিৎসা ব্যাহত

বঙ্গবন্ধু ছিলেন খাঁটি পরিবেশ ও প্রকৃতিপ্রেমিক: পরিবেশমন্ত্রী 

বঙ্গবন্ধু ছিলেন খাঁটি পরিবেশ ও প্রকৃতিপ্রেমিক: পরিবেশমন্ত্রী 

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৩

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম ও সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজের অনুসারীদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়। এতে অন্তত চার জন আহত হয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফেরদৌস জাহান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।’

এ বিষয়ে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘হঠাৎ মাহমুদুল করিমের নেতৃত্বে আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এতে আমাদের চার কর্মী আহত হয়েছেন।’

তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম। বাংলা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, ‘কয়েকজন ছাত্র ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নাম বিক্রি করে শিবিরের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বিষয়টি আমাদের নজরে এলে আমরা তাদের ক্যাম্পাস থেকে বের হয়ে যেতে বলেছি। আর কখনও যেন ক্যাম্পাসে না আসে এ জন্য হুঁশিয়ার করে দিয়েছি। তারা যে শিবিরকর্মী এ বিষয়ে আমার কাছে যথেষ্ট প্রমাণ আছে। এরপরও সুভাষ মল্লিক সবুজ এসে তাদের পক্ষ নিয়ে আমাদের সঙ্গে বিবাধে জড়িয়েছেন।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

চট্টগ্রামে আরও ১১২ জনের করোনা শনাক্ত 

চট্টগ্রামে আরও ১১২ জনের করোনা শনাক্ত 

রাতারাতি বড়লোক হতে ইয়াবা ব্যবসায় হাসপাতালের পিয়ন

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:০০

কক্সবাজারের টেকনাফে ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ আব্দুর রহিম (৫৭) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

আব্দুর রহিম টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পিয়ন হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি কক্সবাজারের রামুর কচ্ছপিয়ার চাকমা কাটা গ্রামের বাসিন্দা।

বৃস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান জানান, রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সে ইয়াবার একটি চালান পাচারের খবর পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের সামনে আসে থানা পুলিশের একটি দল। এরপর অভিযান চালিয়ে রহিমকে আটক করে। এ সময় তার কাছে ২০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। পরে তাকে মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আব্দুর রহিম বলেছেন, রিকশাওয়ালা ও দিনমজুরসহ অনেককে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে রাতারাতি বড়লোক হতে দেখেছেন। তাই হঠাৎ বড়লোক হওয়ার জন্য নিজেও মাদক ব্যবসায় যুক্ত হন তিনি।

ওসি জানান, রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সে ইয়াবা চালান করে আসছিলেন আব্দুর রহিম। তার সঙ্গে জড়িত মাদক পাচারকারীদের খুঁজে বের করা হবে। মাদক মামলা দিয়ে তাকে কক্সবাজার আদালতে পাঠানো হবে।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সে দীর্ঘদিন ধরে একটি চক্র ইয়াবা পাচার কছে। হাসপাতালের ওয়ার্ড বয় ও চালকসহ একটি চক্র মাদক ব্যবসা করে কোটি টাকার মালিক হয়ে গেছে।

টেকনাফ উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা টিটু চন্দ্র শীল বলেন, গ্রেফতার আব্দুর রহিমের বিরুদ্ধে অফিসিয়ালি ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়সহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে ২ বছর কারাভোগ, পাচ্ছেন মুক্তি

পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে ২ বছর কারাভোগ, পাচ্ছেন মুক্তি

টেকনাফ স্থলবন্দরে আটকে আছে ৩০টি ট্রাক

টেকনাফ স্থলবন্দরে আটকে আছে ৩০টি ট্রাক

ধ্বংসের পথে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

ধ্বংসের পথে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

চট্টগ্রামে আরও ১১২ জনের করোনা শনাক্ত 

চট্টগ্রামে আরও ১১২ জনের করোনা শনাক্ত 

স্রোতে ভেসে যাওয়া মা-মে‌য়ের লাশ উদ্ধার, ছেলে নিখোঁজ

স্রোতে ভেসে যাওয়া মা-মে‌য়ের লাশ উদ্ধার, ছেলে নিখোঁজ

পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে ২ বছর কারাভোগ, পাচ্ছেন মুক্তি

পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে ২ বছর কারাভোগ, পাচ্ছেন মুক্তি

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে অভিভাবকরা ভিড় করলে আইনানুগ ব্যবস্থা

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে অভিভাবকরা ভিড় করলে আইনানুগ ব্যবস্থা

টেকনাফ স্থলবন্দরে আটকে আছে ৩০টি ট্রাক

টেকনাফ স্থলবন্দরে আটকে আছে ৩০টি ট্রাক

সর্বশেষ

১৬৫০ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগের বিরুদ্ধে করা রিট খারিজ

১৬৫০ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগের বিরুদ্ধে করা রিট খারিজ

ভবন নির্মাণে রুয়েটে কাটা হচ্ছে গাছ, ক্ষোভ-প্রতিবাদ

ভবন নির্মাণে রুয়েটে কাটা হচ্ছে গাছ, ক্ষোভ-প্রতিবাদ

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দাবিতে আনু মুহাম্মদের প্রতীকী ক্লাস

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার দাবিতে আনু মুহাম্মদের প্রতীকী ক্লাস

সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে চালু হবে: রেলমন্ত্রী

সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে চালু হবে: রেলমন্ত্রী

'লাশের নামে একটা বাক্সো সাজিয়ে-গুজিয়ে আনা হয়েছিল'

'লাশের নামে একটা বাক্সো সাজিয়ে-গুজিয়ে আনা হয়েছিল'

© 2021 Bangla Tribune